Tag Archives: টাউন হল

কুমিল্লায় যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান মে দিবস পালিত

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

‘শ্রমিক-মালিক ঐক্য গড়ি, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলি’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে কুমিল্লায় যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান মে দিবস পালিত হয়েছে।

সোমবার (১ মে) সকালে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জেলা প্রশাসন ও আঞ্চলিক শ্রম দপ্তর।

দিবসটি উপলক্ষে সকাল সাড়ে ১০টায় বিভিন্ন শ্রমিক ইউনিয়নের উপস্থিতিতে নগরীর টাউন হল থেকে একটি র‌্যালি বের হয়ে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গনে গিয়ে শেষ হয়।পরে জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক পঙ্কজ বড়ুয়ার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরফানুল হক রিফাত। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরান হোসেন, সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাবলু, ডেপুটি সিভিল সার্জন নিসর্গ মেরাজ চৌধুরী, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের উপমহাপরিদর্শক প্রকৌশলী মামুন-অর-রশিদ, আঞ্চলিক শ্রমদপ্তরের উপ-পরিচালক মনিরুজ্জামান, সাবেক শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাসান খসরু, কুমিল্লা মহানগর শ্রমিক লীগের আহবায়ক মো: আনিসুর রহমান ভূইয়া। পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াত করেন মুফতি সেলিম মাকসুদ সালমানি।

অনুষ্ঠানে সঞ্চালনা করেন জেলা কালচারাল অফিসার সৈয়দ আয়াজ মাবুদ। আলোচনা সভা শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

নগরীর কান্দিরপাড়ে রাস্তার পাশে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

 

শাহ ইমরানঃ

কুমিল্লা নগরীর কান্দিরপাড়ে রাস্তার পাশের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান পরিচালনা করেছে কুমিল্লা জেলা প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) বিকালে নগরীর লিবার্টি মোড় থেকে টাউন হল পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবু সাঈদ।

এ সময় কান্দিরপাড়ে রাস্তার পাশে গড়ে ওঠা পাকা-আধাপাকা ১০ টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবু সাঈদ জানান, উচ্ছেদের আগে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য মাইকিং করে প্রচারণা চালানো হয়েছিল। কিন্তু অবৈধভাবে গড়ে তোলা স্থাপনা সরিয়ে না নেওয়ায় আজ বিকালে বুলডোজার দিয়ে এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, ফুটপাত দখলমুক্ত না হওয়া পর্যন্ত জনস্বার্থে এই ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

উক্ত অভিযানে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সার্বিক সহায়তা করেন জেলা আনসার ও জেলা পুলিশ বিভাগের সদস্যরা।