Tag Archives: ঢাকার হাতিরঝিলের মতো হতে পারে কুমিল্লার পুরনো গোমতী

ঢাকার হাতিরঝিলের মতো হতে পারে কুমিল্লার পুরনো গোমতী

 

অনলাইন ডেস্কঃ
শিক্ষা সাংস্কৃতির লীলাভূমি ঐতিহ্যবাহী কুমিল্লার প্রাচীন শহরকে সিটি কর্পোরেশনের রূপ দিলেও এখানে গড়ে ওঠেনি তেমন কোন বিনোদনকেন্দ্র। ঢাকার হাতির ঝিলের আলোকে গড়ে উঠতে পারে কুমিল্লার পুরনো গোমতি।

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে কুমিল্লা বিবির বাজার সীমান্ত দিয়ে কুমিল্লা সিটিতে প্রবেশ করে। পাক আমলে শহর রক্ষার জন্য বাঁধ নির্মাণের মধ্য দিয়ে নদীর গতিপথ পরিবর্তন করা হলে মূল গোমতি নদী কুমিল্লা সদর থেকে বুড়িচং, বরকামতা, চান্দিনা, জাফরগঞ্জ, দেবিদ্বার, কোম্পানীগঞ্জ, মুরাদনগর ও দাউদকান্দি হয়ে মেঘনায় মিলিত হয়। আর শহরের উত্তর প্রান্তের কাপ্তানবাজার থেকে শুভপুর পর্যন্ত পূর্ব পশ্চিমে প্রায় ৪ কিলোমিটার দীর্ঘ নদীটি পুরনো গোমতি নদী নামে পরিচিতি লাভ করে। দুই পাড়ের মানুষের যাতায়াতের সুবিধার্থে শুভপুর, গাংচর, মোগলটুলী, চৌধুরীপাড়া ও কাপ্তান বাজার এলাকায় ৪টি রাস্তা নির্মাণ করা হলে নদীটি পাঁচ ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে।

এক সময় নদীটির প্রায় সাড়ে তিনশ’ ফুট থাকলেও বর্তমানে নদীর দু’পাড়ের অধিকাংশ বাসিন্দা নিজেদের জায়গার বাহিরে মাটি ভরাট করে পাড় দখলের প্রতিযোগিতায় নেমে ঐতিহাসিক পুরনো গোমতি নদীকে খালে! পরিণত করেছে।

এদিকে নবগঠিত সিটি কর্পোরেশন প্রায় ৫ লক্ষাধিক লোকের আবাসস্থলে পরিণত হয়েছে। জনসংখ্যা হারে চাহিদার তুলনায় নগরীতে তেমন কোন বিনোদনেরকেন্দ্র গড়ে উঠেনি। প্রায় ৫৩ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের সিটি কর্পোরেশনের অধিবাসিরা দুষণমুক্ত আবহাওয়ার মাঝে ক্ষণিকের জন্য বেড়ানোর জায়গা ধর্মসাগর পাড় ও সংকুচিত পার্কের স্থান ছাড়া আর কোথাও যাবার জায়গা নেই।

যদি কুমিল্লার এই পুরনো গোমতিকে হাতির ঝিলের আলোকে নদীর উভয় পাশে ওয়াক ওভার তৈরি করে বসার জন্য কয়েক শত বেঞ্চ তৈরি করা এবং ফুলের বাগান তৈরি করা রাতের বেলায় আলোকসজ্জা ব্যবস্থা করা হলে নগরীর জনসাধারণ একটি নতুন বিনোদনেরকেন্দ্র হিসাবে পেতে পারে। তাছাড়া নদীটি সংস্কার করে দুষণমুক্ত করে মৎস্য চাষ ও নৌকা ভ্রমনের ব্যবস্থা ও স্পিডবোর্ড রাখা যেতে পারে।

এদিকে রাজনৈতিক নেতা, ব্যবসায়ী ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় প্রায় ৪ কিলোমিটার নদীটি দুইপাড়ে অবৈধ দখল প্রতিযোগিতায় নেমে সাড়ে তিনশ’ ফুট প্রস্ত থেকে এটিকে দেড়শ’ ফুটে এনেছে। নদীর দুইপাড়ে মাটি ভরাট করে যে যার মত ঘর নির্মাণ করছে। এই সব দখল দারদের কারণে পুরনো গোমতি ঐতিহ্য দিন দিন বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

এথেকে পরিত্রানের জন্য মাননীয় সংসদ সদস্য ও সিটি মেয়রের যৌথ উদ্দ্যোগ গ্রহণ করলে ঢাকার হাতির ঝিলের মত নগরবাসীর আরেকটি নতুন বিনোদন কেন্দ্র হতে পারে। কুমিল্লা সিটি মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেন, অচিরেই এই পুরনো গোমতিকে হাতির ঝিলের আলোকে গড়ে তোলার জন্য একটি সুদীর্ঘ পরিকল্পনা গ্রহণ করবো। তিনি আরো বলেন, এই নগরীর সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য বিভিন্ন জায়গায় কাজ করে যাচ্ছি। এ ধারাবাহিকতায় পুরনো গোমতিটিকে একটি আধুনিক বিনোদনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে।

ইতোমধ্যে আমরা প্রাথমিক অবস্থায় পানিশোধানাগারের ব্যবস্থা গ্রহণ পরিকল্পনা করেছি। পুরনো গোমতিটিকে অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে মুক্ত করার জন্য উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে বলে তিনি জানান। এদিকে শুভপুরের স্থানীয় ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোশারফ হোসেন জানান, হাতির ঝিলের আলোকে যদি এ গোমতিটিকে গড়ে তোলা হয় নগরবাসী একটি নান্দনিক বিনোদন কেন্দ্র পাবে। এতে করে নগরীর ও ৬নং ওয়ার্ডের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে।

গোমতি নদীকে হাতির ঝিলের আলোকে গড়ে তোলার জন্য পূর্বাঞ্চলের বাসিন্দা মহানগর যুবদল নেতা সাহিদুল ইসলাম বিপ্লব ও সালাউদ্দিন জানান, পত্র পত্রিকায় দেখেছি হাতির ঝিলকে কতটুকু সুন্দর করে গড়ে তোলা হয়েছে। আমরাও চাই এ পুরনো গোমতিটিকে হাতির ঝিলের মতো একটি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলতে। মহানগর ছাত্রলীগ নেতা আসিফ আহম্মেদ বলেন, আমাদের এই কুমিল্লায় বিনোদন কেন্দ্রের অভাব। শুধু ধর্মসাগরকে বিনোদন হিসাবে দেখে আসছি।

যদি এই পুরনো গোমতিটিকে হাতির ঝিলের আলোকে গড়ে তোললে বিনোদন প্রেমিরা আরো উৎসাহ পাবে। নগরবাসী নতুন একটি বিনোদনকেন্দ্র হিসাবে গ্রহণ করবে বলে তিনি জানান।

পুরনো এই গোমতির দুই তীরে ময়লা আবর্জনা, গরু জবাইখানার বর্জ্য ফেলে নদীটি দূষণ করে ফেলছে। কুমিল্লা নগরবাসী আসা করে অচিরেই এর বাস্তব পরিকল্পনা গ্রহণ করে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনকে একটি আধুনিক ও নান্দনিক সৌন্দর্যবর্ধনে কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণে হাতির ঝিলের মত দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে।