Tag Archives: ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ময়লা-আবর্জনা অপসারণের উদ্যোগ নিয়েছে চান্দিনা পৌরসভা

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মারুতি ও প্রাইভেটকারই যাত্রীদের ভরসা

শরীফুল ইসলাম, চান্দিনা :
সরকারি নিষেধাজ্ঞা চলাকালে সোম ও মঙ্গলবার (৫ ও ৬ এপ্রিল) দেশের লাইফ লাইন খ্যাত ও ব্যস্ততম ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দেখা যায়নি গণপরিবহন। তবে মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে দাপটের সাথে চষে বেড়াচ্ছে দরজা খোলা রাখা মারুতি ও প্রাইভেট পরিবহন। এছাড়া যাত্রীদের চলাচলে প্রাইভেটকারই ভরসার যানবাহনে পরিণত হয়েছে। মোটরসাইকেলে করেও অনেকেই বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করতে দেখা গেছে । ওইসব পরিবহনে গাদাগাদি করে যাত্রী তুলে দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। অবস্থা দৃষ্টে দেখা যাচ্ছে যেন নিষেধাজ্ঞার প্রভাব পড়েনি ওইসব পরিবহনে।

মহাসড়ক থেকে থ্রি-হুইলার নিষিদ্ধ করার পর পুরাতন ও ফিটনেসবিহীন মাইক্রোবাস এবং ভারতীয় মারুতি গাড়ি গুলোকে যাত্রী পরিবহন কাজে ব্যবহার করা হয়েছে। ওইসব গাড়িগুলো যেখানে সেখানে থামিয়ে যাত্রী উঠানো-নামানোর ফলে দরজা খোলাই থাকে।

প্রাইভেট পরিবহন গুলোকে গণপরিবহন হিসেবে মহাসড়কে চলাচল করতে প্রশাসন অলিখিত চুক্তি করা হয়েছে। প্রশাসনের নামে সিন্ডিকেট মহল মাসিক টোকেন দিচ্ছে গাড়ি চালকদেরকে। আর প্রতিদিন জিবি’র নামে চাঁদা আদায় করে অবৈধ ভাবে চলছে ওইসব যান।

করোনা ভাইরাসের সংক্রামন রোধে সরকার সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে সারা দেশে ‘লকডাউন’ ঘোষণা করার পাশাপাশি সকল গণপরিবহন বন্ধ করলেও মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে বন্ধ হয়নি ওইসব অবৈধ যানবাহন।
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার ইলিয়টগঞ্জ, চান্দিনা, নিমসার, ময়নামতি সেনা নিবাস এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, একটি মারুতি গাড়িতে ৮-১০জন, মাইক্রোবাস গুলোতে ১২-১৪জন নিয়ে যাত্রী নিয়ে ছুটে চলছে। মহাসড়কের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকার সুযোগ কাজে লাগিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করতে দেখা গেছে।

নিমসার বাজার থেকে চান্দিনা বাস স্টেশনে আসা যাত্রী আমিনুল ইসলাম জানান- অন্য সময় নিমসার থেকে ১০ টাকায় চান্দিনা আসি। আজ ২০ টাকা দিয়ে আসতে হয়েছে।

অপর যাত্রী মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান- আমি কুমিল্লা যাব, বাসে চান্দিনা থেকে কুমিল্লা ৩০ টাকা ভাড়া। আর আমি চান্দিনা থেকে শুধুমাত্র ক্যান্টনমেন্ট ৫০ টাকা ভাড়া ঠিক করে গাড়িতে উঠেছি। ক্যান্টনমেন্ট থেকে কুমিল্লা যেতে কত নেয় সেটা জানিনা।  এ ব্যাপারে কথা বলতে একাধিক গাড়ি চালকদের সাথে চেষ্টা করলেও তারা কেউ কথা বলতে চায়নি।

হাইওয়ে পুলিশ কুমিল্লা জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা শাহিন জানান- বিষয়টি আমারও নজরে এসেছে। প্রথম দিন হিসেবে কিছুটা ছাড় দেওয়া হয়েছে। তারপরও বন্ধ করার জন্য সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে। এখন আমরা কঠোর ভাবে নিয়ন্ত্রণ করছি।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ২

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লায় অজ্ঞাত গাড়ির চাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন।

সোমবার (২২ মার্চ) বিকেলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার নবগ্রাম রাস্তার মাথায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ঘোলপাশা ইউনিয়নের ধনুসাড়া গ্রামের ফঠিক মিয়ার ছেলে ইলিয়াছ ও তার বন্ধু জাহাঙ্গীর।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চৌদ্দগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার এয়াছিন প্রাধানিয়া।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি জানান, সোমাবার বিকেলে মোটরসাইকেল যোগে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক দিয়ে চৌদ্দগ্রাম বাজারে আসছিলেন ইলিয়াছ ও তার বন্ধু জাহাঙ্গীর। এসময় নবগ্রাম রাস্তার মাথায় পৌঁছার পর পেছন থেকে আসা অজ্ঞাতনামা একটি গাড়ি তাদের চাপা দিলে তারা দুজন গুরুতর আহত হন। তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তারা মারা যান।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ময়লা-আবর্জনা অপসারণের উদ্যোগ নিয়েছে চান্দিনা পৌরসভা

শরীফুল ইসলাম, চান্দিনা ঃ
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পার্শ্বে বিভিন্ন বাস স্টেশন ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ময়লা-আবর্জনা ফেলে মহাসড়কের সৌন্দর্য নষ্ট করছে কতিপয় ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। মহাসড়কের চান্দিনা অংশেও একই দৃশ্য। চান্দিনার হাড়িখোলা মেইল গেইট, এলাকা থেকে শুরু করে পালকি সিনামা হল, চান্দিনা বাস স্টেশন, উপজেলা পরিষদ চত্বর সংলগ্ন অংশ, ধানসিঁড়ি আবাসিক এলাকা হয়ে কাঠেরপুল পর্যন্ত বিভিন্ন পয়েন্টে ময়লা-আবর্জনা ফেলে দেশের লাইফ-লাইন খ্যাত এই মহাসড়কের সৌন্দর্য নষ্ট করা হচ্ছে। একই সাথে যাত্রী ও পথচারিরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

এসব ময়লা আবর্জনা অপসারণে উদ্যোগ নিয়েছেন চান্দিনা পৌরসভার মেয়র মো. মফিজুল ইসলাম। মহাসড়কের প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকাজুড়ে সড়কের দুই পাশে চলবে ময়লা অপসারণের কাজ।

মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) সকাল থেকে পৌরসভার পরিচ্ছন্ন কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বিডি ক্লিন এর সদস্যদের ময়লা অপসারণের কাজ দিন ব্যাপী ওই প্রত্যক্ষ করেন তিনি।

চান্দিনা পৌরসভার মেয়র মো. মফিজুল ইসলাম জানান, ‘জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ সরকার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কটিকে চারলেনে উন্নীত করেন। সড়কের সৌন্দর্য ও পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখতে সড়কের মাঝখানে ও দুই পার্শ্বে বিভিন্ন ফলজ, বনজ, ঔষধি গাছ লাগানো হয়েছে। কিন্তু কতিপয় অসাধু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান মহাসড়কের দুই পাশে ময়লা-আবর্জনা ফেলে ওই সৌন্দর্য নষ্ট করছে।’

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক এই স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক আরও বলেন- ‘আমি এই মহাসড়কের চান্দিনা পৌরসভা অংশের ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কারে বদ্ধপরিকর। আশাকরি জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি হবে।’

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- চান্দিনা বাজার মুদি ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. বাহারুল ইসলাম বাহার, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বিডি ক্লিন এর কুমিল্লা জেলা সমন্বয়ক মো. মোসলেহ্ উদ্দিন, সদস্য মো. ইসমাইল হোসেন, মো. রাসেল সরকার, মো. তানভীর সরকার, মো. এমদাদুল হক হৃদয়, মো. ফয়সাল আনাম হৃদয় প্রমুখ।