Tag Archives: ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ৪ সেকেন্ডে মদ্যপ চালক শনাক্ত

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ৪০ কি.মি দীর্ঘ যানজট, বিপাকে যাত্রীরা

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে ঢাকা অভিমুখে প্রায় ৪০ কিলোমিটার অংশজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এতে বিপাকে পড়েছে যাত্রীরা। শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে যানজট তীব্র আকার ধারণ করে, যা ধীরে ধীরে আরও দীর্ঘ হচ্ছে।

কুমিল্লা ময়নামতি হাইওয়ে থানার ওসি বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘মহাসড়কে যানজট আছে তাই বাহনগুলো ধীরে চলছে। ধীরগতির কারণে যানজট বেড়ে কুমিল্লার চান্দিনা থেকে দাউদকান্দি টোলপ্লাজা পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে।’

ইলিয়টগঞ্জ হাইওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘শুক্রবার ভোর ৬ টার দিকে চান্দিনার পালকি সিনেমা হলের কাছে একটি লরি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে যায়। এ কারণেই প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।’

হাইওয়ে পুলিশের ওই কর্মকর্তা জানান, আশা করা যায় দুপুরের পর যান চলাচল স্বাভাবিক হবে। তবে এ বিষয়ে নিশ্চিত নয় সড়কের যাত্রীরা।

মহাসড়কে যানজটের কারণে ভোগান্তির শিকার সাংবাদিক বাপ্পি মজুমদার ইউনুস বলেন, ‘পত্রিকার প্রতিনিধি সম্মেলনে অংশ নিতে ভোরে লাকসাম থেকে ঢাকার উদ্দেশ্য রওনা দেই। কিন্তু চান্দিনার মাধাইয়া এলাকায় পৌঁছাতেই সাত ঘণ্টা সময় লেগেছে।’ তাই আবার ফেরত যাচ্ছি।

চাঁদপুর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী একটি যাত্রীবাহী বাসের যাত্রী ব্যাংক কর্মকর্তা শ্যামল সিংহ বলেন, ‘কুমিল্লা থেকে চান্দিনা পর্যন্ত আসতে ৩ ঘণ্টা সময় লেগেছে।

কুমিল্লা থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে ৪ ঘণ্টায় মাত্র ১৫ কিলোমিটার যেয়ে আবার ফেরত যাচ্ছেন শাওন আহমেদ। তিনি বলেন, ‘যে যানজট সৃষ্টি হয়েছে তাতে মনে হয় না আজ ঢাকা যেতে পারব। তাই কুমিল্লার দিকে ফিরে যাচ্ছি।’

দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার ওসি জহুরুল হক বলেন, ‘মহাসড়কে লরি নিয়ন্ত্রণ হারানোর পাশপাশি চান্দিনার আরেকটি অংশে সংস্কার কাজ চলছে। এ দুই কারণে ওই এলাকাজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।’

তবে মহাসড়কে শুক্রবার কোনো সংস্কার কাজ হচ্ছে না বলে জানান কুমিল্লা সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুনীতি চাকমা। তিনি জানান, শুক্রবার লোকজন না থাকায় কাজ বন্ধ। দুর্ঘটনার জন্যই যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ৪৯ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার চৌদ্দগ্রামের প্রাইভেটকার চালক

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ফেনীতে প্রাইভেটকারে তল্লাশি চালিয়ে ৪৯ কেজি গাঁজা উদ্ধার করেছে র‍্যাব-৭। জব্দকৃত গাঁজার আনুমানিক মূল্য ৭ লাখ ৮৪ হাজার টাকা।

এসময় জড়িত সন্দেহে মো. আলমগীর হোসেন (৩৮) নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়।

রবিবার (১১ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৪টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মহিপাল সংলগ্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এ গাঁজা জব্দ করা হয়।

আটক আলমগীর কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের জগমোহনপুর গ্রামের আবদুল কুদ্দুসের ছেলে।

র‍্যাব জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মহাসড়কের মহিপালস্থ খায়ের রেস্তোরা সরমা অ্যান্ড কাবাব হাউসের সামনে চট্টগ্রামমুখী লেনে সন্দেহভাজন পরিবহনে তল্লাশি চালায় র‍্যাব। এসময় একটি প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্টো খ ১১-৮৮২০) তল্লাশি করে পেছনের সিটের নিচে বিশেষ কায়দায় লুকিয়ে রাখা ৪৯ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় গাড়ির চালক মো. আলমগীর হোসেনকে আটক করা হয়েছে।

ফেনীস্থ র‍্যাব-৭ ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি অধিনায়ক সহকারী পুলিশ সুপার মো. জুনায়েদ জাহেদী জানান, জব্দকৃত গাঁজার আনুমানিক মূল্য ৭ লাখ ৮৪ হাজার টাকা। আটক আলমগীরকে ফেনী মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ৪ সেকেন্ডে মদ্যপ চালক শনাক্ত

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
চালক মদ্যপ কি না, অ্যালকোহল ডিটেক্টর দিয়ে তা পরীক্ষা করে দেখছেন জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের সদস্যরা। গতকাল বেলা ১১টায় মিরসরাইয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সোনাপাহাড় এলাকায়। ছবি: সংগৃহীতচালক মদ্যপ কি না, অ্যালকোহল ডিটেক্টর দিয়ে তা পরীক্ষা করে দেখছেন জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের সদস্যরা। গতকাল বেলা ১১টায় মিরসরাইয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সোনাপাহাড় এলাকায়। ছবি: সংগৃহীতমদ্যপ চালকদের শনাক্ত করতে ‘অ্যালকোহল ডিটেক্টর’ নিয়ে রাস্তায় নেমেছে হাইওয়ে পুলিশ। গতকাল রোববার সকালে চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের সোনাপাহাড় এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে এই যন্ত্র নিয়ে অভিযান চালাতে দেখা যায় হাইওয়ে পুলিশের সদস্যদের।

অভিযান চালানো কর্মকর্তারা বলছেন, প্রথমবারের মতো তাঁরা এই অ্যালকোহল ডিটেক্টর যন্ত্র নিয়ে অভিযানে নেমেছেন। মুখের বাতাস শুঁকে যন্ত্রটি ৪ সেকেন্ডের মধ্যে ওই ব্যক্তি মদ্যপ কি না, তা শনাক্ত করতে পারে। চীন থেকে আমদানি করা হয়েছে এ যন্ত্র।

গতকাল সকাল ১০টার দিকে দেখা গেল, জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা অদ্ভুত এক যন্ত্রের অগ্রভাগ চালকদের মুখে ঢুকিয়ে দিচ্ছেন। বিষয়টি নিয়ে কৌতূহলী হয়ে ওঠেন অনেকেই। চালকদেরও দেখা যায় মুখে হাসি নিয়ে যন্ত্রটি মুখে ঢোকাতে দিচ্ছেন।

পুলিশ সদস্যরা জানালেন, এটিই অ্যালকোহল ডিটেক্টর। যন্ত্রটি দেখতে অনেকটা বড় মুঠোফোন সেটের মতো। সামনের দিকে চিকন পাইপের মতো বের হওয়া একটি অংশ আছে। মাদক পরীক্ষার অংশ হিসেবে এই যন্ত্রের সামনের পাইপ মুখে দিয়ে ফুঁ দিতে হয় চালকদের। এরপর চার সেকেন্ডের মধ্যেই যন্ত্রের মনিটরে ভেসে ওঠে ফলাফল। চালক মদ্যপ হলে শতাংশসহ ‘ইয়েস’ লেখা ওঠে। আর মদ্যপ না হলে ওঠে ‘নো’।

পুলিশ সদস্যরা জানান, ফলাফল ইয়েস হলে সে ক্ষেত্রে ওই চালকের নাম, গাড়ির নম্বর, লাইসেন্স নম্বর ও পরীক্ষাকারী পুলিশ কর্মকর্তার নাম, ব্যাজ নম্বর ও দায়িত্বরত ইউনিটের নাম যন্ত্রটিতে লিখে দিলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওই চালক ও পুলিশ কর্মকর্তার সব তথ্যসহ একটি প্রিন্ট কপি বের হবে। তখন এই কাগজ দিয়ে মোটরযান আইনের ১৪৪ ধারায় অভিযুক্ত চালকের বিরুদ্ধে মামলা করা যাবে।

জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক সোহেল সরকার প্রথম আলোকে বলেন, গতকাল থেকে তাঁরা মিরসরাইয়ে অভিযান শুরু করেছেন। প্রথম দিন মহাসড়কের সোনাপাহাড় এলাকায় বিভিন্ন যানবাহনের ২৫ জন চালককে পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। তবে তাঁদের মধ্যে কোনো মদ্যপ চালক পাওয়া যায়নি।

সোহেল সরকার জানান, মহাসড়ক রয়েছে এমন গুরুত্বপূর্ণ উপজেলায় এই যন্ত্র দিয়ে মদ্যপ চালক শনাক্ত করার কাজ শুরু হয়েছে।