Tag Archives: তদন্ত কমিটি

সাংবাদিক ইকবালকে আবারও ডেকেছে বিতর্কিত তদন্ত কমিটি

সাংবাদিক ইকবালকে আবারও ডেকেছে বিতর্কিত তদন্ত কমিটি

কুবি প্রতিনিধি:

সংবাদ প্রকাশের জেরে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ক্যাম্পাস সাংবাদিক ইকবাল মনোয়ারের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের গঠিত তদন্ত কমিটির স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ইকবালকে লিখিত বক্তব্যসহ কমিটির সম্মুখে উপস্থিত হওয়ার জন্য চিঠি দেয়া হয়েছে।

তবে বিতর্কিত ওই কমিটির মাধ্যমে হয়রানি করার উদ্দেশ্য রয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনবহির্ভূতভাবে ইকবালকে দেয়া সাময়িক বহিষ্কারাদেশের ওপর ইতোমধ্যে স্থগিতাদেশ দিয়েছেন উচ্চ আদালত।

ওই সাময়িক বহিষ্কারাদেশের আগে উপাচার্যপন্থি যেসব শিক্ষকরা মানবন্ধন করে ইকবালের শাস্তি দাবি করেছিলেন, তাদের নিয়েই গঠিত হয়েছে তদন্ত কমিটি। একই সঙ্গে অভিযোগের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট করে ইকবালকে জানায়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর লিখিত বক্তব্যসহ তদন্ত কমিটির সম্মুখে উপস্থিত হওয়ার জন্য ইকবালকে চিঠি দিয়েছে প্রশাসন। গত ২১ সেপ্টেম্বর রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) মো. আমিরুল হক চৌধুরী স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়, উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈনের বক্তব্যকে ‘বিকৃত করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বিভ্রান্তমূলক মিথ্যা তথ্য’ প্রচার করা হয়েছে।

এ প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুণ্ণ করার কারণ ও উদ্দেশ্য উদঘাটনের জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। উপাচার্যের বক্তব্য ‘বিকৃত করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বিভ্রান্তিমূলক মিথ্যা তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশের’ বিষয়ে লিখিত বক্তব্যসহ হাজির হতে বলা হয়েছে ইকবালকে।

এর আগে এক চিঠিতে গত ১০ আগস্ট তদন্ত কমিটির সামনে উপস্থিত হওয়ার জন্য বলেছিল প্রশাসন। তবে অভিযোগ, তদন্ত ও তদন্ত কার্যক্রমের বিষয়ে অবহতিকরণের জন্য গত ৯ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারকে চিঠি দেন ইকবাল। ওই চিঠিতে ইকবাল কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিল, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ সুনির্দিষ্ট করে অবহিত না করেই তদন্ত কমিটি গঠন ও ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে।

তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কী অভিযোগ দেওয়া হয়েছে, কে অভিযোগ দিয়েছে, কোন আইনে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে, অভিযোগের ভিত্তি কী, কাদেরকে নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে, কোথায় ও কোন গণামাধ্যমে তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে, তা জানেন না তিনি। বিষয়গুলো অবহিত করতে রেজিস্ট্রারকে অনুরোধ জানান ইকবাল। তবে রেজিস্ট্রার সেসব বিষয় অবহিত না করেই নতুন করে চিঠি দিয়ে ইকবালকে তদন্ত কমিটির সামনে উপস্থিত হতে বলেছেন।

এ বিষয়ে ইকবাল মনোয়ার বলেন, ‘অভিযোগ, অভিযোগকারী ও তদন্ত কমিটি সম্পর্কে আমাকে জানাতে লিখিত দিয়েছিলাম আমি। আমার চিঠির উত্তর না দিয়ে আবারও আমাকে তদন্ত কমিটির সামনে লিখিত বক্তব্যসহ উপস্থিত হতে বলা হয়েছে। অথচ আমি জানিই না, কী ও কার অভিযোগের বিষয়ে আমি লিখিত দেব। প্রশাসন স্পষ্টতই আমাকে ফাঁসাতে প্রহসনমূলক সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

ইকবালের বিরুদ্ধে অভিযোগ ও তদন্ত কার্যক্রমের আইনগত ভিত্তি জানতে তদন্ত কমিটির সদস্য সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. আমিরুল হক চৌধুরীর মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হয়। এরপর খুদেবার্তা পাঠিয়েও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত ওই চিঠির অনুলিপিতে তদন্ত কমিটির আহবায়ক হিসেবে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন এন. এম. রবিউল আউয়াল চৌধুরীর নাম উল্লেখ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে তদন্ত কমিটির সদস্য হিসেবে আছেন প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) কাজী ওমর সিদ্দিকীও।

উভয়ই গত ২ আগস্ট উপাচার্যের পক্ষে মানববন্ধনে অংশ নিয়ে ইকবালের শাস্তি দাবি করে বক্তব্য দিয়েছিলেন। তাঁদের দিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করায় তদন্ত কার্যক্রমে স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক মো. জাকির হোসাইন বলেন, ‘স্বাভাবিক ন্যায়বিচারের নীতি হলো স্বার্থসংশ্লিষ্ট কেউ তদন্ত প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত হতে পারবেন না। তদন্ত কমিটির সদস্যরা যদি শাস্তি দাবি করে থাকেন, তাঁর মানে আগে থেকেই তিনি এ বিষয়ের সাথে যুক্ত আছেন। কাজেই তাঁর কাছ থেকে নিরপেক্ষ তদন্ত আশা করা যাবে না। কারণ, তিনি ইতিমধ্যে একটি পক্ষ অবলম্বন করে ফেলেছেন।’

গত ২ আগস্ট প্রক্টরিয়াল বডি ইকবালকে বহিষ্কার করতে সুপারিশ করে প্রতিবেদন তৈরি করে। সে প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই ইকবালকে বহিষ্কার করে প্রশাসনের ‘উচ্চ পর্যায়ের সভা’। সে সভার প্রধান ছিলেন স্বয়ং উপাচার্য নিজে। উপাচার্যের বক্তব্যকে কেন্দ্র করে পরিচালিত কার্যক্রমে তিনি সভা প্রধান হওয়ায় ব্যক্তিক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটতে পারে বলে মত দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় আইনে ‘উচ্চ পর্যায়ের সভা’ নামেও কোনো প্রশাসনিক কাঠামো নেই।

এদিকে প্রক্টরিয়াল বডির ওই প্রতিবেদন কী অভিযোগের ভিত্তিতে ও কোন আইনের আলোকে দেওয়া হয়েছিল তা সম্পর্কে ইতোপূর্বে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে সুনির্দিষ্ট কোনো উত্তর দেননি প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী। সর্বশেষ গতকালও তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ইকবালকে দেওয়া চিঠিতে বিষয়টিকে ইতোমধ্যে ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, বিভ্রান্তিমূলক, মিথ্যা তথ্য’ বলে উল্লেখ করেছে প্রশাসন। প্রমাণ হওয়ার আগেই এমন বলা আইনসম্মত নয়। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (কুবিসাস) সাধারণ সম্পাদক আহমেদ ইউসুফ আকাশ বলেন, ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ একটি আপেক্ষিক শব্দ।

কোনো সংবাদ কারও বিপক্ষে গেলে তিনি বিভিন্নভাবেই বিষয়টিকে ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করবেন। প্রশাসন যে অভিযোগের কথা বলেছে, তা নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো কিছুই বলেনি। তদন্ত কমিটি ও কার্যক্রম জানানো হয়নি। উপাচার্য যা বলেছেন, সাংবাদিক তা লিখেছেন। এখানে কোনো মিথ্যাচার হয়নি।

আহমেদ ইউসুফ আরও বলেন, ‘ইকবাল পেশাগত দায়িত্বে প্রতিবেদন লিখেছেন। তিনি শিক্ষার্থী হয়ে কাজ করেনি। এখানে পেশাগত পরিচয় ও একাডেমিক পরিচয় প্রশাসন গুলিয়ে ফেলেছে। এই বিষয়টি শুরু থেকেই আমরা বলে আসছি। কেউ সংবাদে সংক্ষুব্ধ হলে তার প্রতিকারের জন্য সুনির্দিষ্ট আইন ও উপায় রয়েছে। সে দিক দিয়ে মোকাবেলা না করে অন্যায় ও সম্পূর্ণ নিয়মবহির্ভূতভাবে একজন সাংবাদিককে হয়রানি করা হচ্ছে।’

পেশাগত কাজের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের তদন্ত কমিটি গঠনের আইনি ভিত্তি নেই বলে জানান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান। তিনি বলেন, ‘সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য নিয়ে কারও প্রশ্ন থাকলে তিনি সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমে প্রতিবাদলিপি কিংবা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা বিধি লঙ্ঘন ছাড়া শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে এ ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার সুযোগ নেই।’

উল্লেখ্য, ইকবাল মনোয়ার কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী। তিনি দৈনিক যায়যায়দিনের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি পদে কর্মরত এবং কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (কুবিসাস) অর্থ সম্পাদক।

গত ৩১ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের নবীন বরণ ও বিদায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন উপাচার্য অধ্যাপক এ এফ এম আবদুল মঈন। তিনি সেই বক্তৃতায় ‘দেশে দুর্নীতি হচ্ছে দেখেই উন্নতি হচ্ছে’ বলে উল্লেখ করেন। ইকবাল মনোয়ারসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের কর্মীরা উপাচার্যের ওই বক্তব্য তুলে ধরে প্রতিবেদন করেন।

পরে ২ আগস্ট ইকবালকে আইনবহির্ভূতভাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিস্কার করে কর্তৃপক্ষ। বহিষ্কারাদেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্টে রিট করলে ১৪ আগস্ট হাইকোর্ট বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দেওয়া বহিষ্কারাদেশ স্থগিত করেন।

এছাড়া বহিষ্কারাদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, সে বিষয়েও রুল জারি করেন হাইকোর্ট। এরপর হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে চেম্বার আদালতে আপীল করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। চেম্বার আদালত হাইকোর্টের আদেশ বহাল রেখেছেন। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন চাইলে বিভাগীয় কার্যক্রম চালিয়ে নিতে বাধা নেই বলেও রায় দিয়েছেন।

হারুনকাণ্ডে আরও ৫ দিন সময় পেল তদন্ত কমিটি

হারুনকাণ্ডে আরও ৫ দিন সময় পেল তদন্ত কমিটি

ডেস্ক রিপোর্ট:

হারুনকাণ্ডে তদন্ত কমিটি রিপোর্ট জমা দিতে আরও ৫ কার্যদিবস অতিরিক্ত সময় দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) তদন্ত কমিটি সময় বাড়ানোর আবেদন করেছিল। বুধবার বেলা ১১টার দিকে ডিএমপি কমিশনার সময় বাড়ানোর অনুমতি দিয়েছেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি) ফারুক হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, আজকে সময় বাড়ানোর আবেদন অনুমোদন দেয়া হয়েছে। তদন্ত শেষ করে রিপোর্ট দিতে অতিরিক্ত ৫ দিন সময় দেয়া হয়েছে।

এদিকে এডিসি সানজিদাকে রংপুর বদলি করার খবরের সত্যতা নেই বলে জানিয়েছেন ফারুক হোসেন। তিনি জানায়, আজ পর্যন্ত এমন কোনো অর্ডার হয়নি। এডিসির বদলি বিষয়ে কোনো আদেশের কপি পাই নাই।

এর আগে গত ১০ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় দুই নেতাকে পুলিশের রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (এডিসি) হারুন অর রশিদ থানায় ধরে নিয়ে পেটানোর অভিযোগে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

এ কমিটিকে দুই দিনের মধ্যে তদন্ত করে ডিএমপি কমিশনার বরাবর প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়। পরবর্তীতে গতকাল মঙ্গলবার তদন্তের সময় বাড়ানোর জন্যে আবেদন করে কমিটি। তার পরিপ্রেক্ষিতেই আজ আরও পাঁচদিন সময় বাড়ানো হলো।

উল্লেখ্য, ৯ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানীর শাহবাগ থানায় ছাত্রলীগের দুই কেন্দ্রীয় নেতাকে পুলিশ নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করা হয় বলে অভিযোগ ওঠে।

আহত ব্যক্তিরা হলেন- ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও ফজলুল হক হলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন এবং ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় বিজ্ঞানবিষয়ক সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হলের সাধারণ সম্পাদক শরীফ আহমেদ।

কুমিল্লার দেবিদ্বারে ১৬টি নতুন কবর, পরিচয় শনাক্তে তদন্ত কমিটি

কুমিল্লার দেবিদ্বারে ১৬টি নতুন কবর, পরিচয় শনাক্তে তদন্ত কমিটি

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে একই স্থানে ১৬টি নতুন কবর দেখা গেছে। ঘটনাটি কুমিল্লার দেবিদ্বার পৌর সদরের প্রাণকেন্দ্রের নিউমার্কেটস্থ মোল্লা বাড়ির পুকুর পাড়ের গোরস্তানের পাশে। এই নিয়ে এলাকাবাসীর মনে জন্ম নিয়েছে নানান প্রশ্ন। কারা এই কবর গুলো খোড়ল? এই ১৬ টি কবর কার? এ কবরে আছে কাদের লাশ? কখন, কে, কিভাবে মারা গেলেন? জানাযা কারা দিলেন? এ নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে কৌতুহলের শেষ নেই। পুরো এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে চাঞ্চল্য।

রমিজ মিয়া নামে একব্যক্তি এই রহস্যজনক ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত আবেদন জানালে রবিবার তাৎক্ষণিক তদন্ত কমিটি গঠন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিগার সুলতানা বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, লিখিত আবেদনের প্রেক্ষিতে উপজেলা সহকারি কমিশনারকে (ভূমি) আহবায়ক, পৌর উপ-সহকারি ভূমি কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন ও উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ারকে সদস্য করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন।
তিনি আরো জানান, বিষয়টা স্পর্শকাতর, তাই এসিল্যান্ডকে আহবায়ক করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছি। কমিটিকে দ্রুত তদন্তের রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। রিপোর্ট পেলেই কবর সঠিক নাকি গায়েবি কবর তা নিশ্চিত হওয়া যাবে।

নিউমার্কেটের প্রবীণ ব্যবসায়ী হাজী আব্দুল লতিফ মোল্লা বলেন, আমি প্রায় ৪০ বছরেরও আগে দেবিদ্বার নিউমার্কট মোল্লা বাড়ির পুকুর পাড়ে বাঁশঝাড়ের জমি কিনে মার্কেট তৈরি করে ব্যবসা করে আসছি। আমার মার্কেটের পাশে হঠাৎ এতগুলো নতুন কবর দেখে শঙ্কিত হয়ে পড়ি। কারা মারা গেলেন, কারা কবর দিলেন? জানাযা, মৃত্যুর বিষয়ে প্রচার- প্রচারণার সংবাদও পাইনি।

এদিকে ঘটনার পর একাধিকবার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কমল কৃষ্ণ ধর জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এ কবরের রহস্য উদঘাটনে ইউএনও মহোদয় তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন।