Tag Archives: তরুণ-তরুণী

সঠিক সময়ে বিয়ে করলে নতুন দম্পতিরা পাবেন নগদ অর্থ

সঠিক সময়ে বিয়ে করলে নতুন দম্পতিরা পাবেন নগদ অর্থ

ডেস্ক রিপোর্ট:

বিশ্বের দ্বিতীয় জনবহুল দেশ চীনের তরুণ-তরুণীদের মধ্যে বিয়ের প্রতি অনাগ্রহ উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। আর তাদের এমন অনাগ্রহের কারণে দেশটির জনসংখ্যাও কমছে আশঙ্কাজনক হারে। ফলে তরুণ বয়সেই বিয়ের প্রতি আগ্রহী করে তুলতে দেশটির সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

এবার চীনের পূর্বাঞ্চলের চ্যাংসান কাউন্টি ঘোষণা দিয়েছে, যদি কোনো তরুণ-তরুণী বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এবং ওই নববধূর বয়স ২৫ বছর বা তার কম হয় তাহলে নতুন দম্পতিকে নগদ ১ হাজার ইউয়ান পুরস্কার দেওয়া হবে।

চ্যাংসান কাউন্টির অফিসিয়াল উইচ্যাট অ্যাকাউন্টে এ সংক্রান্ত একটি নোটিশ প্রকাশ করা হয়। এতে বলা হয়, ‘উপযুক্ত বয়সে বিয়ে’ এবং ‘গর্ভধারনের’ জন্য এই পুরস্কারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া যেসব দম্পতির সন্তান রয়েছে তাদের জন্য বিভিন্ন ধরনের বিশেষ সুযোগ-সুবিধাও রেখেছে তারা।

২০২২ সালে গত ৬০ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো চীনের জনসংখ্যা কমে যেতে দেখা যায়। জন্মহার খুবই কম হওয়ায় দেশটিতে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা কমে গেছে; অপরদিকে বেড়ে গেছে বয়স্কদের সংখ্যা। এ বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে চীন। এরপর জন্মহার বাড়াতে তারা বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার ঘোষণা দেয়।

চীনের আইন অনুযায়ী দেশটিতে ছেলেদের বিয়ের বৈধ বয়স হলো ২২। অপরদিকে মেয়েদের বিয়ের বৈধ বয়স হলো ২০। তবে এ বয়সী তরুণ-তরুণীদের মধ্যে বিয়ের কোনো চিন্তাভাবনাই দেখা যায় না। আর এ বিষয়টি জন্মহারে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে।

২০২২ সালে চীনে মাত্র ৬০ লাখ ৮০ হাজার বিয়ে হয়। যা ১৯৮৬ সালের পর সর্বনিম্ন। ২০২১ সালে যে সংখ্যক বিয়ে হয়েছিল ২০২২ সালে সে তুলনায় ৮ লাখ কম বিয়ে হয়েছিল।

শিশু লালন-পালনের ব্যয় ও নানান কারণে চীনে অনেক নারী বিয়ের পরও সন্তান নিতে চান না।

সূত্র: রয়টার্স

পর্নোগ্রাফির থাবায় বাস্থ্যঝুঁকিসহ ধ্বংসের পথে তরুণ সমাজ

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

টয়-পর্নোগ্রাফির সহজলভ্যতা তরুণ-তরুণীদের স্বাভাবিক বিকাশ ব্যাহত করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অনেকেই ইন্টারনেটের সহজলভ্যতার সুযোগ নিয়ে পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত হচ্ছেন বলে জানা গেছে।

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ মনে করেন, ‘পর্নোগ্রাফিতে ফ্যান্টাসি রয়েছে, যা বিকৃত যৌনাচারকে উৎসাহিত করে। এসব ভিডিও স্বাভাবিক শারীরিক সম্পর্কের পরিবর্তে ফরেন বডি বা টয় ব্যবহারে মানুষকে আসক্ত করে। ফলে, অনেকেই অস্বাভাবিক আচরণ করে এবং নানা নানারকম স্বাস্থ্যঝুঁকির শিকার হয়।
কলাবাগানে এক ছাত্রীর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে দুঃখজনক মৃত্যুর পর, তরুণদের শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে পরার বিষয়টি আলোচনায় চলে আসে। ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকের বক্তব্য গণমাধ্যমে আসার পর দেশে পর্নোগ্রাফির সহজলভ্যতা ও স্বাভাবিক সম্পর্কের পরিবর্তে প্রাপ্তবয়স্কদের টয় বিক্রির বিষয়টিও সামনে চলে আসে।

অনেকেই বলছেন এসব টয় বিক্রির বিজ্ঞাপন তারা অনলাইনে দেখেছেন। মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিকৃত যৌনাচারে আসক্ত অনেক রোগীই এখন চিকিৎসার জন্য তাদের কাছে যাচ্ছেন। যা থেকে তারা ধারণা করছেন, দেশে অস্বাভাবিক আচরণ বাড়ছে এবং ক্রমেই তরুণদের মাঝে বিস্তৃত হচ্ছে।

এই পরিস্থিতিতে পর্ণ সাইটগুলো বন্ধের দাবি জোরালো হচ্ছে। যদিও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাইবার ক্রাইম ইউনিট থেকে বলা হচ্ছে, পর্ণ সাইটগুলো বন্ধ করতে কার্যক্রম চলছে। অনেকগুলো সাইট এরই মধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

নীল জগতের হাতছানি থেকে বাঁচাতে, তরুণ-তরুণীদের নানা সৃজনশীল কাজে ব্যস্ত রাখার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। একই সঙ্গে অভিভাবকদের পরামর্শ দিয়েছেন সন্তানদের বন্ধু হওয়ার, পারিবারিক বন্ধন ও নৈতিকতার চর্চা বাড়িয়ে দেওয়ার।

একইভাবে মানুষের স্বাভাবিক প্রবণতা, নৈতিকতা ও সুস্থজীবন চর্চা বাড়াতে অনেকেই শারীরিক সম্পর্কের এডুকেশন সহজলভ্য করার তাগিদ দিচ্ছেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আজকের তরুণ-তরুণীরা দেশের আগামী দিনের নীতি নির্ধারক। ফলে, তরুণদের সুস্থ্য ও নিরাপদ রাখার তাগিদ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।