Tag Archives: তারেক রহমান

তারেককে ত্যাগ করতে না পারলে বিএনপির ধ্বংস অনিবার্য: নানক

ডেস্ক রিপোর্ট:

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, লন্ডনে পালিয়ে থাকা তারেক রহমানকে পরিহার করতে না পারলে বিএনপির ধ্বংস অনিবার্য।

দল ভাঙার দোষ অন্যের ঘাড়ে চাপিয়ে বিএনপি নেতারা নেতৃত্বের ব্যর্থতা ঢাকার চেষ্টা করছে বলে দাবি করে তিনি বলেন, ‘আপনাদের নেতৃত্বের ব্যর্থতা, কাপুরুষতা ঢাকার চেষ্টা করছেন। এসব বলে লন্ডনে থাকা পলাতক কুলাঙ্গার তারেক রহমানের ব্যর্থতা ঢেকে রাখতে পারবেন না। লন্ডনের সুতা পরিহার করতে না পারলে বিএনপির দেশের রাজনীতিতে কোনো ভূমিকা রাখতে পারবে না, বিএনপির ধ্বংস অনিবার্য। এ দেশের রাজনীতিতে নিজেদের টিকিয়ে রাখতে হলে আওয়ামী লীগকে নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। বরং বিএনপিকে সুষ্ঠু ধারার রাজনীতিতে আসতে হবে।’

বুধবার রাজধানীর ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ-এ (আইডিইবি ভবন) এক আলোচনা তিনি এ কথা বলেন। গত ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে স্বেচ্ছাসেবক লীগ এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

আওয়ামী লীগ বিএনপিকে ভাঙার চেষ্টা করছে- দলটির নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে নানক বলেন, কোন দল ভাঙে? যেটা দল আস্ত থাকে সেটা ভাঙা যায়! যে দলটি (বিএনপি) ভাঙা ট্রেনে উঠে গিয়েছে, সে দল নিয়ে আওয়ামী লীগ কেন- বাংলার জনগণেরও কোনো মাথাব্যথা নেই। কত রাজনৈতিক দল ভুল রাজনীতির কারণে বিলীন হয়ে গিয়েছে। স্বাধীনতা পরবর্তীতে এমন নজিরও রয়েছে। বিএনপিও সেদিকে যাচ্ছে। যারা নির্বাচন ত্যাগ করেছে, যারা জনগণের রায় মেনে নেয়নি তাদের রাজনৈতিক অবশিষ্ট অংশটুকু বিলীন হয়ে যায়।

আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেছেন, যারা আজকে দেশে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার কথা বলে তারাই ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের বিরোধিতা করেছে। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে তারা দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে ক্ষতবিক্ষত করেছে।

বিএনপির রাজনীতি টিকিয়ে রাখতে হলে আগে তারেক রহমানকে পরিত্যাগ করতে হবে: নানক

ডেস্ক রিপোর্ট:

বিএনপি নেতা পলাতক দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি তারেক রহমান লন্ডনে বসে দলটিকে ধ্বংস করতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক এমপি। তিনি দলটির নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, বিএনপির রাজনীতি টিকিয়ে রাখতে হলে আগে তারেক রহমানকে পরিত্যাগ করতে হবে।

রবিবার দুপুরে মোহাম্মদপুরস্থ শ্যামলী আইডিয়াল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষার্থীদের নবীণবরণ অনুষ্ঠানে শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপি নেতা মঈন খানের দেওয়া এক বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের নেতা নানক বলেন, ড. মঈন খান তাদের অপরাধ আড়াল করতে চায়। বিএনপির ব্যর্থতা আড়াল করতে চায়। তারা এখনই যদি তাদের ধ্বংসের কারণ বুঝতে ব্যর্থ হন তবে তাদের ধ্বংস অনিবার্য।

মন্ত্রী বলেন, তাদের (বিএনপি) ধ্বংস করছে লন্ডনে বসে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি তারেক রহমান। নতুবা বারবার তারা অবিশ্যম্ভাবী ধ্বংসের দিকে এগিয়ে যাবে। আমি ড. মঈন খানসহ বিএনপি নেতাদের বলতে চাই-আপনারা আসল তথ্য বের করুন, আসল রহস্য বের করুন। জনসমক্ষে বলুন আর না বলুন। দলের অভ্যন্তরীণ সভায় আপনারা এ বিষগুলো আলোচনা করুন। নয়তবা তারেক রহমান এ দলটিকে নিশ্চিহ্ন করে দিবে। বিএনপি কেন কোনো রাজনৈতিক দলকে নিশ্চিহ্ন করার মাথা ব্যথা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেই।

সরকার বিরোধীদের সুস্থ্য ধারার রাজনীতিতে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারণী ফোরামের এই নেতা বলেন, আমরা চাই দেশে একটি শক্তিশালী বিরোধী দল। সেই ক্ষেত্রে যারা শান্তি-শৃঙ্খলায় বিশ্বাস করে, গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করে এ ধরনের শক্তিশালী বিরোধী দলকে আমরা অভিনন্দন জানাই।

মন্ত্রী নবীণ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে ইতিমধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছেন, এখন তিনি লক্ষ্য স্থির করেছে স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করার। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে “রূপকল্প-২০৪১” বাস্তবায়নের মাধ্যমে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে দক্ষ কারিগর হিসেবে শিক্ষার্থীদের অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে।

নবীণবরণ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান আলী আকবর খান, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, শ্যামলী আইডিয়াল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের সভাপতি অধ্যক্ষ এম.এ. সত্তারসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপি ফাউল করে ফাইনাল খেলার আগেই পালিয়েছে: কাদের

ডেস্ক রিপোর্ট:

বিএনপি ফাউল করে ফাইনাল খেলার (৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন) আগেই পালিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেছেন, খেলা শুরু হয়েছে। ৭ তারিখ ফাইনাল। বিএনপি কই? বিএনপি কোথায়? ফাউল করে লাল কার্ড পেয়ে পালিয়েছে। ফাইনাল খেলার আগেই পালিয়েছে।

সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় নারায়ণগঞ্জ শহরের ইসদাইর এলাকার শামসুজ্জোহা ক্রীড়া কমপ্লেক্স মাঠে আয়োজিত সমাবেশে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে তারেক রহমানের মতো সন্ত্রাসীকে দেখতে চাই না। আগামী ৭ জানুয়ারি লুটপাটের বিরুদ্ধে খেলা হবে। উন্নয়নের পক্ষে খেলা হবে। বিএনপির আন্দোলন ভুয়া। বিএনপি ভুয়া। বিএনপির সব আন্দোলন ভুয়া।’

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাইয়ের সভাপতিত্বে সমাবেশে জেলার নৌকার প্রার্থীরাসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

তারেক রহমানকে অপছন্দকারীরা নির্বাচনে আসতে নতুন প্ল্যাটফর্ম তৈরি করছে

ডেস্ক রিপোর্ট:

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানকে যারা নেতা হিসেবে মানতে পারছেন না তারা নির্বাচনে আসতে নতুন প্ল্যাটফর্ম তৈরি করছেন বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপি নির্বাচনে না এলে তো নির্বাচন প্রতিযোগিতাপূর্ণ হবে না। সাংবাদিকদের এ কথার পরিপ্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমার কাছে তথ্য আছে যে, তারেক রহমানকে যারা নেতা হিসেবে মানতে পারছে না এবং তারেকের নেতৃত্ব মানতে যাদের কষ্ট হচ্ছে, তারা নির্বাচনে আসবে বলে আমরা জানি। নির্বাচনে আসার জন্য তারা এরইমধ্যে বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মও তৈরি করেছে। আপনারা দেখেছেন, বিএনপির যে নেতৃত্ব, তা দলটির অনেকের পছন্দ না। যে কারণে তারা নতুন দল করে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার চেষ্টা করছে। আবার বিএনপিরও অনেকেই প্রার্থী হওয়ার চেষ্টা করছে বলে জেনেছি।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপির কথিত চেয়ারপারসন তারেক রহমান রাজনীতি করবেন না বলে মুচলেকা দিয়েছিলেন। এখন আবার তিনি রাজনীতির মাঠ গরম করছেন। তিনি একেক সময় একেক ঘোষণা দিচ্ছেন। ২৮ অক্টোবর সরকার পরিবর্তন হবে, তারপর বিএনপি যেভাবে চাইবে সেভাবেই দেশ চলবে— এমন ঘোষণাও দিয়েছিলেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘মানুষ যখন তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে, তখন তারা নিশ্চিত যে কোনোদিন নির্বাচনে আসতে পারবে না। যে কারণে তারা কুৎসা রটাচ্ছে ও অবান্তর কথা বলে যাচ্ছে। একটা কথা জোর দিয়ে বলতে পারি, নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তারিখ অনুযায়ী সঠিক সময়ই নির্বাচন হবে। দেশের মানুষের মধ্যে উৎসবের আমেজ চলে এসেছে। সবাই নিজেদের প্রার্থীকে কীভাবে বিজয়ী করা যায়, সেগুলো নিয়ে চিন্তা করছে। কে নির্বাচনে আসল না, বা কে কী বলল, তা নিয়ে মানুষের কোনো উদ্বেগ নেই।’

নির্বাচনে লেভেল-প্লেয়িং ফিল্ড আছে কি না, জানতে চাইলে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘আপনারা দেখবেন, সেটি আছে কি না। রাজনৈতিক দলগুলো তো প্রচার-প্রচারণা চালাবেই। সবাই প্রচারণায় নামবে। তারা নিজেদের প্রার্থী নিয়ে আনন্দ করবে, উৎসব করবে।’

কিন্তু বিএনপি নেতারা তো কারাগারে, এ বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘তাদের যতগুলো নেতা কারাগারে, তাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট মামলা আছে। তারা ভাঙচুর করেছে। বাস জ্বালিয়েছে ও মানুষ পুড়িয়েছে। এসব ঘটনা আমরা শনাক্ত করে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি ও তারা গ্রেপ্তার হয়েছে। এছাড়া, তারা বিভিন্ন সময়ে রাষ্ট্রদ্রোহী কর্মকাণ্ড করেছে। বিনা কারণে কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।’

নির্বাচনকে ঘিরে কোনো নাশকতার আশঙ্কা রয়েছে কি না এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো খবর পাইনি। আর নাশকতা কেবল বাংলাদেশের মানুষ না, বিশ্বের কোনো সভ্য দেশের মানুষ পছন্দ করেন না। যতই নাশকতা করবে, ততই জনবিচ্ছিন্ন হবে। এতে তাদের ভাগ্যে জনসমর্থনের চেয়ে ধিক্কার জুটবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন, মানুষ সেটিই চাচ্ছে। সেই আলোকিত বাংলাদেশ থেকে কেউ আর অন্ধকারে ফিরে যেতে চাচ্ছে না। নির্বাচনে নিজেদের পছন্দের মানুষকে নির্বাচিত করতে মানুষ তৈরি হয়ে আছে।’

হরতাল-অবরোধ স্বাভাবিক হয়ে গেছে। বিএনপি এখন কঠোর আন্দোলন করবে বলে ঘোষণা দিয়েছে। এ বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সেই কঠোর আন্দোলন কী আমি জানি না। আমরা তো দেখলাম তারা ট্রেনের লাইন কাটার জন্য গিয়েছিল। পরে জনগণ তাদের ধরিয়ে দিয়েছে। বাসে আগুন দেওয়ার চেষ্টা করলে জনগণ তাদের ধরে পুলিশে দিয়েছে। এতে প্রমাণ হয় যে, দেশের মানুষ সহিংসতা পছন্দ করে না। যেখানে জনসমর্থন নেই, সেখানে এ ধরনের চিন্তা কাম্য নয়।’

নির্বাচনে সহিংসতার হলে আগাম প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে বলেন, ‘আমি আগেই বলেছি, নির্বাচনে পরাজিত হবে জেনেই তারা আসছে না। ২০০৮ সালে তারা ৩০টি আসন পেয়েছিল। ২০১৪ সালে তারা নির্বাচনে আসেনি। তারপরে জ্বালাও-পোড়াও করল। তারা সারা বাংলাদেশে অগ্নিসন্ত্রাস করেছে।’

খালেদা জিয়াকে দেখতে ঢাকায় কোকোর স্ত্রী শর্মিলা

ডেস্ক রিপোর্ট:

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শাশুড়ি খালেদা জিয়াকে দেখতে দেশে এসেছেন প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথি।

বৃহস্পতিবার লন্ডন থেকে ঢাকায় আসেন শর্মিলা।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১টার দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান খালেদা জিয়ার পুত্রবধূ শর্মিলা। এরপর বনানী ডিওএইচএসে মায়ের বাসায় যান তিনি। আজই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দেখার জন্য এভারকেয়ার হাসপাতালে যাবেন শর্মিলা।

এর আগে গত মার্চে খালেদা জিয়াকে দেখতে ঢাকায় এসেছিলেন কোকোপত্নী। তিনি বর্তমানে লন্ডনে থাকেন। খালেদা জিয়ার বড় ছেলে ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও পরিবারকে নিয়ে লন্ডনে অবস্থান করছেন।

৭৮ বছর বয়সি খালেদা জিয়া হার্টের সমস্যা, লিভারসিরোসিস ছাড়াও নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন। বহু বছর ধরে আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, দাঁত ও চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতা রয়েছে তার। কারাগার থেকে বেরোনোর পর চিকিৎসার জন্য কয়েক দফা হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন তিনি।গত বছরের জুনে খালেদা জিয়ার এনজিওগ্রাম করা হলে তার হৃদযন্ত্রে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে। এর একটিতে রিং পরানো হয়।

সর্বশেষ গত ৯ আগস্ট শারীরিক অসুস্থতার কারণে আবারও রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন খালেদা জিয়া। এরপর থেকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

দুর্নীতির মামলায় সাজা হলে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে কারাগারে নেওয়া হয়। ২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শর্ত সাপেক্ষে সরকার খালেদা জিয়ার দণ্ড ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে। তখন থেকে তিনি গুলশানের ভাড়াবাড়িতে থাকেন। প্রতি ছয় মাস পরপর সরকার তার মুক্তির মেয়াদ বাড়াচ্ছে।

নোয়াখালীতে বিএনপির সমাবেশ, মামুনুল হকের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডা. জুবাইদা রহমানকে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদকের মামলায় সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে নোয়াখালীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি।

শুক্রবার ( ৪ আগস্ট) বিকেল ৪টার দিকে নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে এই কর্মসূচি পালন করে নোয়াখালী জেলা বিএনপি অঙ্গও সহযোগী সংগঠন গুলো। সমাবেশ শুরুর আগে খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে নেতাকর্মিরা সমাবেশস্থলে জড়ো হয়।

নোয়াখালী জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম হায়দার বিএসসির সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবদুর রহমান সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তৃতা করেন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন খান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সাবের আহমদ ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আজগর উদ্দীন দুখু প্রমূখ।

সমাবেশে বক্তারা এই রায়কে সরকারে পাতানো রায় বলে আখ্যায়িত করে, এই সাজার তীব্র নিন্দাও প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে এ মিথ্যা মামলা ও সাজা প্রত্যাহারের দাবি জানান। এই মিথ্যা রায় দিয়ে বিএনপির নেতাকর্মিদের ভয় দেখানোর সুযোগ নেই বলেও মন্তব্য করেন।

এর আগে, বৃহস্পতিবার ৩ আগস্ট এই সাজার প্রতিবাদে নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে থেকে শুরু করে মাইজদী বাজারের প্রধান সড়কে জেলা যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদল বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কর্মসূচি পালন করে। একই দিন দুপুরের দিকে নোয়াখালী বার অ্যাসোসিয়েশনের সামনে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা। সেখানে বক্তব্য দেন নোয়াখালী বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এবিএম জাকারিয়া। এছাড়া বুধবার রাতে তাৎক্ষণিক জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ আজাদের নেতৃত্বে বিক্ষোভ কর্মসূচি হয়েছে।

অপরদিকে, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হক সহ কারাবন্দি ওলামায়ে কেরামের মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে খেলাফত মজলিস নোয়াখালী জেলার উত্তর শাখার উদ্যেগে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে।

একই দিন দুপুর ২টার দিকে জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী বাজারের মোরশেদ কমপ্লেক্সের সামনে এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

এ সময় খেলাফত মজলিসের নেতাকর্মিরা বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হক সহ কারাবন্দি উলামায়ে কেরামের মুক্তি, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানান।

বাংলাদেশ যুব খেলাফত মজলিসের নোয়াখালী শাখার সভাপতি মুফতি মাওলানা নুর উদ্দিনের সভাপতিত্বে মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, খেলাফত যুব মজলিস নোয়াখালী শাখার সভাপতি মাওলানা খালেদ মাহমুদ, খেলাফত যুব মজলিস নোয়াখালী জেলার সহ-সভাপতি মাওলানা হাবিবুর রহমান , ইসলামী ছাত্র মজলিস নোয়াখালী জেলা শাখার সভাপতি মোবারক হোসেন প্রমূখ।

তারেক-জুবাইদার সাজা: নোয়াখালীতে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডা. জুবাইদা রহমানকে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদকের মামলায় সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে নোয়াখালীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি।

বৃহস্পতিবার (৩ আগস্ট) বেলা সোয়া ১১টার দিকে নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে থেকে শুরু করে মাইজদী বাজারের প্রধান সড়কে জেলা যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদল এই কর্মসূচি পালন করে।

পরে সমাবেশ বক্তব্য রাখেন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন খান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সাবের আহমদ ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আজগর উদ্দীন দুখু প্রমূখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেছেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডাঃ জুবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে যে রায় দেওয়া হয়েছে তা একটি ফরমায়েশি রায়। জুবাইদা রহমান রাজনীতি না করেও রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। এ রায় শেখ হাসিনার রায়, তার নির্দেশে এ রায় দেওয়া হয়েছে। বিএনপি নেতারা উক্ত রায়ের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে এ মিথ্যা মামলা ও সাজা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

অপরদিকে, একই দিন দুপুর সোয়া ২টার দিকে নোয়াখালী বার অ্যাসোসিয়েশনের সামনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডা. জুবাইদা রহমানকে সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বিএনপিপন্হি আইনজীবীরা।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের উদ্যেগে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডা. জুবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে ফরমায়েশি রায় বাতিল, গণতন্ত্রকামী জনতার ওপর নির্বিচারে গুলি ও নির্যাতনের প্রতিবাদে এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবিতে এই বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়। ।

বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নোয়াখালী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও আইনজীবী ফোরামের সাবেক সভাপতি এডভোকেট আবদুর রহমান, নোয়াখালী বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এবিএম জাকারিয়া, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এডভোকেট এবিএম কামরুল ইসলাম, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক খুরশিদ আলম, আইনজীবী ফোরামের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজম খান, আইনজীবী ফোরামের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি বাহার উদ্দিন খোকন প্রমূখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, এখন বিএনপির আন্দোলন চূড়ান্ত পর্যায়ে। এই পর্যায়ে মাত্র ২৮ দিনে সাক্ষী প্রমাণ নিয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রীকে ফরমায়েশি সাজা দেওয়া হয়েছে।

এর আগে, বুধবার (২ আগস্ট) রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাৎক্ষণিক জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার সাবেক মেয়র হারুনুর রশিদ আজাদের নেতৃত্বে তার অনুসারীরা জেলা শহর মাইজদী বাজারের প্রধান সড়কে এই রায়ের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কর্মসূচি পালন করে। বিক্ষোভ মিছিলে নেতাকর্মিরা তারেক-জুবাইদাকে সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে বিভিন্ন স্লোগান দেন। পরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে উপস্থিত নেতাকর্মিরা।

সমাবেশে জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও নোয়াখালী পৌরসভার সাবেক মেয়র হারুনুর রশিদ আজাদ বলেন, অবৈধ সরকারের অবৈধ এই রায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত এবং এটি প্রহসনের রায়। দেশের জনগণ এই রায় প্রত্যাখ্যান করেছে। এ রায়ের মাধ্যমে অগণতান্ত্রিক ফ্যাসিস্ট সরকারের ফরমায়েশি রায়ের আরও একটি নজির স্থাপন হলো। তারেক রহমান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে এই ষড়যন্ত্রমূলক মামলা এবং দন্ড প্রদানের মাধ্যমে তাদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার অপকৌশল করা হয়েছে। সরকারের ইশারাতেই এ রায় হয়েছে।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন, নোয়াখালী পৌরসভার ৩নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বিএনপি নেতা মোহাম্মদ সেলিম, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম মুক্তা, কাদির হানিফ ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আব্দুল মোতালেব আপেল, নোয়াখালী জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি কামরুজ্জামান হাফেজ, নোয়াখালী জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক আব্দুল কলিম প্রমূখ।

ছাত্রদলের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে তারেক জিয়ার সাথে কুমিল্লা ভার্চুয়াল আলোচনা সভা

দেলোয়ার হোসাইন আকাইদ:
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ৪২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে কুমিল্লায় ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার রাতে কুমিল্লা নগরীর ধর্মসাগরপারস্থ বিএনপির কার্যালয়ে ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

সভায় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপি’র ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সম্পাদক, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিনুর রশিদ ইয়াছিন, কুমিল্লা জেলা ছাত্রদলের সভাপতি, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নাদিমুর রহমান শিশির, কুমিল্লা মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন শিবলু, সিনিয়র সহ সভাপতি ফখরুল ইসলাম মিঠু, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল আহমেদসহ নেতাকর্মীরা।