Tag Archives: তিতাসে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বাড়ীঘর ভাংচুর লুটপাট

তিতাসে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বাড়ীঘর ভাংচুর লুটপাট, দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার তিতাস উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের মানিককান্দি গ্রামে স্থানীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

মঙ্গলবার রাতে এঘটনার পর হকিস্টিক, লোহার পাইপসহ বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে রাত থেকেই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের সদ্য নির্বাচিত চেয়ারম্যান বাবুল মিয়া ও সাবেক চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লার সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্ব বিদ্যমান। বিবদমান দ্বন্দ্বের জেরে দু’পক্ষের সংঘর্ষ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানায়।

মানিককান্দি গ্রামের বর্তমান মেম্বার হাজি আব্দুর রব মিয়ার ছেলে মিজানুর রহমান বলেন, গতকাল হামলার পর থেকে আমরা ৪/৫টি পরিবার এলাকা ছাড়া। দুলারামপুর বাজারে ঈদেরদিন সন্ধ্যায় সাবেক চেয়ারম্যান আবু মোল্লার লোকজনের সাথে বর্তমান চেয়ারম্যান বাবুল মিয়ার লোকজনের কথা কাটাকাটি ও হাতাতির ঘটনা হয়েছে বলে শুনেছি। এরপর রাতে চেয়ারম্যানের লোক সাইফুল মেম্বারের লোকজন এসে আমাদের বাড়ীতে হামলা ও লুটপাট করে। আমাদের গ্রামের সেকান্দর মাষ্টার ও হাসন মিয়ার ঘরসহ আমাদের বাড়ী ঘর ভাংচুরসহ প্রায় ২০ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

সাবেক চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লা বলেন, ইউপি নির্বাচনের রেশ ধরেই বিভিন্ন সময় আমার লোকজনকে হুমকি ধমকি চলছে। গতকাল আমার অফিসের সামনে শুধু শুধু একটা ছেলেকে গালাগালি কওে পওে হাতাহাতি হয়। এরপরই রাতে আমার লোকজনের বাড়ীতে হামলা ও লুটপাট চালায় সাইফুল মেম্বারের লোকজন। এঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবী করছি।

সাবেক মেম্বার সাইফুল মিয়া অভিযোগ অস্বিকার করে বলেন, হামলা লুটপাটের ঘটনা সাজানো, মামলায় জয়ী হওয়ার জন্য এগুলো নিজেরাই করেছে। আর আমার বাড়ীর সিসি ক্যামেরা টিভি ও ঘরের জানালাও ভাংচুর করেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, ‘ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক প্রভাব ও পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ে প্রায়ই স্থানীয়দের মধ্যে দ্বন্দ্ব-সংঘাতের ঘটনায় হামলা পাল্টা হামলা, ভাঙচুর লুটপাটসহ হত্যার ঘটনাও সংঘটিত হয়েছে। তারই ধারাবাহিক যুক্ত হয়েছে ঈদের দিন মঙ্গলবারের ঘটনাটি। রমজান মাসের সংযম থেকেও আমাদের কোনো শিক্ষা হয়নি। বছরের এ দিনটিতে আনন্দ উৎসবের স্থলে সংঘাতে লিপ্ত। সংকটময় এ পরিস্থিতির সত্যিই কোনো অবসান করতে চাইলে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সদিচ্ছা ব্যতীত বিকল্প পথ নেই।
ভিটিকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বাবুল মিয়া বলেন, ঘটনার পর রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়েছি। ক্ষতিগ্রস্তরা বলছে যে সাইফুল মেম্বারের লোকজনদের দেখছে। সাইফুল মেম্বার আমার নির্বাচন করছে বলেই শুধু সে আমার লোকনা, ইউনিয়নের সবাই আমার লোক। বিষয়টি নিয়ে এমপি মহোদয়ের( স্থানীয় সাংসদ সেলিমা আহম্মাদ মেরী) সাথে কথা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। আর কোন পরিবার এলাকা ছাড়া রয়েছে কিনা বিষয়টি খবর নিচ্ছি।

তিতাস থানার ওসি সুধীন চন্দ্র দাস বলেন, স্থানীয় আধিপত্য নিয়েই এ ঘটনা ঘটেছে বলে ধারনা । ঘটনার পর পরই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং হকিস্টিক, লোহার পাইপসহ দেশীয় লাঠিসোটা উদ্ধার করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে রাত থেকেই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তবে হতাহতের কোন খবর পাইনি। এঘটনায় কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি।