Tag Archives: তিতাস আ’লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক আলমের উপর সন্ত্রাসী হামলা

তিতাস আ’লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক আলমের উপর সন্ত্রাসী হামলা

 

জাকির হোসেন হাজারীঃ
কুমিল্লার তিতাস উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলম সরকারের উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার কালাইগোবিন্দপুর গ্রামের শিকদার বাড়ীতে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান পারভেজ হোসেন সরকারের সামনেই এ হামলার ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ উঠেছে। খবর পেয়ে উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিন ভূইয়া পুলিশ নিয়ে আহত অবস্থায় আলমকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করেছেন।

জানা যায়, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলম সরকার ও কলাকান্দি ইউনয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন ঈদের পরদিন সন্ধ্যায় পারভেজ হোসেন সরকারের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যান। গত উপজেলা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী পারভেজ হোসেন সরকারের বিপক্ষে এবং নৌকার মার্কার পক্ষে কাজ করে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যাওয়ায় আলম সরকারের উপর হামলা করে পারভেজের লোকজন। ওইসময় উপস্থিত বলরামপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নুরনবী তাকে রক্ষার জন্য একটি ঘরে আটকে রাখেন। সাথে থাকা গিয়াস উদ্দিন ফোনে উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিন ভূইয়াকে হামলার ঘটনা জানান। পরে পুলিশ নিয়ে মহসিন ভূইয়া আলম সরকারকে আহত অবস্থায় উদ্ধার উদ্ধার করে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

কলাকান্দি ইউনয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন জানান, আলম সরকারসহ আমরা ৭/৮জন পারভেজ সরকারের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যাই। পারভেজ সরকারের সামনেই কলাকান্দিও শাহজাহান ও বাতাকান্দির আবির আলমকে চর থাপ্পর মারতে শুরু করে। আমরা তাকে(পারভেজ)বললে সে কিছু না বলে উঠে চলে যায়। তখন আমি দৌড়ে পালিয়ে গিয়ে মহসিন ভাইকে ফোন করলে পুলিশ এসে আমাদের সবাইকে উদ্ধার করে।

উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিন ভূইয়া আজকের কুমিল্লাকে বলেন, হামলার খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক পুলিশ এবং এমপি মহোদয়কে জানাই। পরে এমপি মহোদয়ের নির্দেশে আলমকে উদ্ধার করে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করি। আমার সভাপতি শওকত ভাইসহ আমরা এ হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

পারভেজ হোসেন সরকার বলেন, আমার বাড়ীকে কোন হামলার ঘটনা ঘটেনি। আমার সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় কওে যাওয়ার সময় কে বা কারা হামলা করেছে আমি জানিনা। তারা দৌড়ে আমার বাড়ীতে আসলে আমার লোকজন তাদেরকে নিরাপত্তা দেয়।

তিতাস থানার ওসি সৈয়দ আহসানুল ইসলাম হামলার ঘটনার সত্যতা স্বিকার করে বলেন, হামলাকারীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।