Tag Archives: তিতাস ও মেঘনা উপজেলা

দুই বছর ধরে ভেঙ্গে পানিতে পড়ে আছে তিন উপজেলার মানুষের চলাচলের গোমতী শাখা নদীর সেতু

মো. লুত্ফুর রহমানঃ

কুমিল্লার দাউদকান্দি উত্তর ইউনিয়নের গোমতীর শাখানদীর ওপর নির্মিত পাকা সেতুটি গত দুই বছর আগে ধসে নদীর পানিতে পড়ে যায়। এর পর থেকে সড়কপথে এলাকার মানুষের সরাসরি যোগাযোগ একেবারে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। তখন থেকে জনগণের যাতায়াতের ভরসা হয়ে পড়ে নৌকা আর এলাকাবাসীর চাঁদায় সেতুর পাশে সম্প্রতি নির্মিত বাঁশের সাঁকো। এতে দাউদকান্দি, তিতাস ও মেঘনা উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের অন্তত অর্ধলক্ষাধিক মানুষকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, দাউদকান্দি উপজেলা সদর হতে কদমতলী পর্যন্ত সড়কের গোমতীর শাখানদীর ওপর নির্মিত দাউদকান্দি উত্তর ইউনিয়নের কেডিসি-সংলগ্ন পাকা সেতুটি ২০১৮ সালের ৮ অক্টোবর ইটবোঝাই ট্রাক পারাপারের সময় বিকট আওয়াজে নদীতে ধসে পড়ে।

দাউদকান্দি উপজেলার হাসনাবাদ গ্রামের শিক্ষক আবদুল মতিন, ব্যবসায়ী সফিকুল ইসলাম, কৃষক আবু হানিফ ও রাজ্জাকসহ অন্তত ১৬ জন বলেন, সেতুটি ভেঙে পড়ার পর থেকে গত দুই বছর ধরে এলাকার জনগণ দিনের বেলায় নৌকাযোগে চলাচল করেন। এতে কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণ ও ব্যবসায়ীদের মালামাল আনা-নেওয়ার ক্ষেত্রে হিমশিম খেতে হয়। এছাড়া রোগী ও বয়োবৃদ্ধদের সংকটাপন্ন মুহূর্তে চিকিত্সা দেওয়া যায় না।

তারা আরো বলেন, সেতুটি নির্মাণ না করায় নিরুপায় হয়ে যাতায়াতের সুবিধার জন্য এলাকার পরিবারগুলোর নিকট থেকে সামর্থ্য অনুযায়ী ২০০-৫০০ টাকা উত্তোলন করে ধসেপড়া সেতুর পাশে গত ১ অক্টোবর একটি বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু নদীর প্রবল স্রোতে বাঁশের সাঁকোটিও তেমন টেকসই হয়নি। দিনের বেলা সাঁকো দিয়ে যাতায়াত করা গেলেও রাতে ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষকে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। এ সাঁকো দিয়ে রোগী ও শিশুদের নিয়ে যাতায়াত করা অত্যন্ত বিপজ্জনক।

জনদুর্ভোগের বিষয়টি স্বীকার করে দাউদকান্দি উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. মাহবুবুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, সেখানে প্রায় ১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি নতুন সেতু নির্মাণের জন্য দরপত্র আহবান করে গত ২৬ জুলাই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। তারা এখনো কাজ শুরু করেনি। সহসা কাজ শুরু করা না হলে বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।