Tag Archives: ধর্ষণ

চৌদ্দগ্রামে ৫০ কেজি গাঁজা সহ ৬ মাদক কারবারি আটক

ফখরুদ্দীন ইমন:

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৫০ কেজি গাঁজাসহ ছয় মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলো, নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানার গাবতলী নতুন বাজার (মাজদাইর গোরস্থান সংলগ্ন তুহিন মিয়ার ভাড়াটিয়া) এলাকার মৃত মাসুদ পারভেজ এর ছেলে হায়দার আহম্মেদ উৎসব প্রকাশ উৎসব শিকদার (৩০), একই থানার পশ্চিম ইসদাইর গ্রামের আলমাছ ঢালীর ছেলে মাহফুজুর রহমান প্রকাশ মুন্না (৩০), মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী থানার বাহারপাড়া গ্রামের মৃত হয়দার আলীর প্রকাশ হাসান আলীর ছেলে মো: রাকিব হোসেন প্রকাশ রকি (৩৫), লক্ষীপুর জেলার রামগঞ্জ থানার করপাড়া গ্রামের আবুল খায়েরের ছেলে সুফিয়ান হোসেন সজল (২৪), জামালপুর জেলার ইসলামপুর থানার নোয়াপাড়া গ্রামের আব্দুল বাসেত মন্ডলের ছেলে মো: ইব্রাহিম (২৬) ও কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার পৌরসভাধিন কমলপুর গ্রামের মৃত শিহাবুল আলম মিলন এর ছেলে রবিউল আলম পিয়াস (২৬)।

বুধবার বিকালে তথ্যটি নিশ্চিত করেন চৌদ্দগ্রাম থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক আলমগীর হোসেন।

জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার (০৩ এপ্রিল) সকাল পৌঁনে সাতটায় চৌদ্দগ্রাম থানার উপ-পরিদর্শক মো: মশিউর আলম সঙ্গীয় ফোর্স সহ চৌদ্দগ্রাম পৌরসভাধিন কমলপুর রাস্তার মাথা এলাকায় চৌদ্দগ্রাম উপ-কর কমিশনারের কার্যালয়ের সামনে মহাসড়কের ঢাকামুখী লেনে বিশেষ অভিযান চালিয়ে চটের বস্তায় স্কচটেপ মোড়ানো মোট ১৩ পোটলায় ৫০ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়।

এ সময় ৬ মাদক কারবারিকে আটক করে পুলিশ। পরে আটককৃতদের বিরুদ্ধে থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের শেষে বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। আটককৃত রকির বিরুদ্ধে ৫টি মাদক মামলা সহ মোট ৬টি মামলা, উৎসব এর বিরুদ্ধে ৪টি মাদক মামলা সহ মোট ৫টি মামলা, মাহফুজ মুন্নার বিরুদ্ধে ১টি মাদক ও ১টি ধর্ষণের মামলা বিচারাধিন রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ৫০ কেজি গাঁজা সহ ৬ মাদক কারবারিকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে থানায় আইনগত ব্যবস্থা শেষে বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। আটককৃত ৩ আসামীর বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় মাদক মামলা সহ একাধিক মামলা রয়েছে। মাদকের বিরুদ্ধে থানা পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

নোয়াখালীতে সিঁধ কেটে মা-মেয়েকে গণধর্ষণ

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে সিঁধ কেটে মা-মেয়ে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।

মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টার ভুক্তভোগী গৃহবধূর বরাত দিয়ে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে চরজব্বর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.রফিকুল ইসলাম। এর আগে, গতকাল সোমবার দিবাগত রাত পৌনে ২টার দিকে উপজেলার চর ওয়াপদা ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

নির্যাতিত গৃহবধূর বয়স (৩০) ও তার মেয়ের বয়স (১২)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ভুক্তভোগী গৃহবধূর স্বামী পেশায় একজন দিনমজুর। সে ৩-৪দিন পর পর বাড়িতে আসে। তাকে কাজের জন্য প্রায় বাহিরে থাকতে হয়। ভুক্তভোগী গৃহবধূর ভাষ্যমতে এ সুযোগে গতকাল সোমবার দিবাগত রাত পৌনে ২টা থেকে ২টার মধ্যে তার বসত ঘরের সিঁধ কেটে তাকে এবং তার মেয়েকে ধর্ষণ করে তিন ধর্ষক। এর মধ্যে তাকে ধর্ষণ করে দুই ধর্ষক ও তার মেয়েকে ধর্ষণ করে এক ধর্ষক।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, কিছু দিন আগে নির্যাতিত গৃহবধূ নতুন এ বাড়িতে উঠে। ওই বাড়িতে সিঁধ কেটে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। গৃহবধূ ও তার মেয়েকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। ভুক্তভোগীর ভাষ্যমতে পুলিশ অভিযুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চালাচ্ছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটের দিন নোয়াখালীল সুবর্ণচর উপজেলায় এক গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে দেশব্যাপী ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। গতকাল সোমবার বেলা ১২টার দিকে নোয়াখালী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক (জেলা জজ) ফাতেমা ফেরদৌস ওই দলবদ্ধ ধর্ষণ মামলায় ১৬ আসামির মধ্যে ১০ জনের মৃত্যুদন্ড ও ছয় আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন। একই সাথে তাদের অর্থদন্ডও করা হয়। এ উপজেলা গণধর্ষণের জন্য দেশব্যাপী বারবার আলোচনায় আসছে।

নোয়াখালীতে কিশোরীকে এক মাস আটকে রেখে ‘ধর্ষণ’, যুবক গ্রেপ্তার

ডেস্ক রিপোর্ট:

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে অষ্টম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে (১৫) এক মাস আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগে সৌরভ হোসেন আলিফ (২১) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ শনিবার দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের মামলায় নোয়াখালীর বিচারিক আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গ্রেপ্তার সৌরভ বসুরহাট পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের রামদি গ্রামের শাহাদাত হোসেনের ছেলে।

মামলার বাদী ওই স্কুলছাত্রীর মা বলেন, ‘আমার মেয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। গত ২০ ডিসেম্বর সকালে আলিফ তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তুলে নিয়ে যায়। পরে চট্টগ্রামের একটি বাসায় এক মাস ছয় দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করে। পরে বিয়ে না করে গতকাল শুক্রবার দুপুরে মেয়েকে বাড়ি পাঠালে বিস্তারিত জানতে পারি। পরে রাতেই থানায় মামলা করি।’

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রণব চৌধুরী বলেন, ‘মামলা দায়েরের পর রাতেই আলিফকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ভুক্তভোগীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

প্রেমিকাকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ, গ্রেফতার যুবক

প্রেমিকাকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ, গ্রেফতার যুবক

ডেস্ক রিপোর্ট:

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে প্রেমিকাকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের ঘটনায় মোহাম্মদ হোসেন (২৫) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বুধবার দিনগত রাতে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় কবিরহাট থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

মোহাম্মদ হোসেন সোনাইমুড়ী উপজেলার বজরা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বজরা গ্রামের আবদুল গফুরের ছেলে। তাকে সোনাইমুড়ী থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

র‌্যাব-১১ (সিপিসি-৩) নোয়াখালী কার্যালয়ের কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মাহমুদুল হাসান গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, রাত সাড়ে ১১টার দিকে কবিরহাট থানা এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি মোহাম্মদ হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এর আগে ৭ সেপ্টেম্বর সোনাইমুড়ী থানায় আসামি মোহাম্মদ হোসেনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন তার প্রেমিকা। মামলার পর আসামি মোহাম্মদ হোসেন পালিয়ে যান।

মামলা সূত্রে জানা যায়, চাকরীজীবী এক নারীর সঙ্গে পরিচয়ের সূত্রধরে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন মোহাম্মদ হোসেন। পরে গত ৭ সেপ্টেম্বর জরুরি কথা আছে বলে নিজ বাড়িতে ডেকে নিয়ে ওই নারীকে ধর্ষণ করেন তিনি। পরে ভুক্তভোগী বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন।

সোনাগাজীতে কিশোরীকে রাতভর ‘ধর্ষণ’: বহিষ্কার ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সম্পাদক

সোনাগাজীতে কিশোরীকে রাতভর ‘ধর্ষণ’: বহিষ্কার ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সম্পাদক

ডেস্ক রিপোর্ট:

ফেনীর সোনাগাজীতে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে চরদরবেশ ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইমাম হোসেনকে বহিষ্কার করেছে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ।

রোববার সেপ্টেম্বর উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ফারুক হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ মিয়া স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের গঠনতন্ত্রবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হওয়ায় ফেনীর সোনাগাজী উপজেলা শাখার ৫ নং চরদরবেশ ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদককে বহিষ্কার করা হয়েছে।

২৩ সেপ্টেম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে এক কিশোরীকে রাতভর গণধর্ষণের অভিযোগে ইমামের বিরুদ্ধে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন কিশোরীর বাবা। বর্তমানে ওই মামলায় ইমাম হোসেন গ্রেফতার হয়ে কারাগারে রয়েছেন।

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে স্বামী পরিত্যক্তা নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে স্বামী পরিত্যক্তা নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে স্বামী পরিত্যক্তা চল্লিশর্ধো এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে কুমিল্লা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে অভিযোগ দায়ের করেছেন। আদালত অভিযোগটি দাউদকান্দি মডেল থানার ওসিকে তদন্তের দায়িত্ব প্রদান করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের সুরেরবাগ গ্রামের মৃত. তারু মিয়ার ছেলে নাছির উদ্দিন ওরফে ড্রেজার নাছির গত ছয় মাস যাবৎ বিভিন্ন সময়ে বাড়ির আশপাশে ঘুরাঘুরি করে অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে কুপ্রস্তাব দিত। তার প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় পরে সে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। এত রাজি না হওয়ায় গত ৬ সেপ্টেম্বর রাতে প্রকৃতির ডাকে ওই নারী ঘরের বাইরে গেলে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা নাছির উদ্দিন মুখ চেপে ধরে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরদিন সকালে এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয়ভাবে মীমাংসার কথা বলে এলাকার গণ্যমান্য লোকজন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ সেলিম মিয়া বলেন, কয়েকদিন আগে সুরেরবাগ গ্রামের নাছির উদ্দিন এক মহিলাকে জোড়পূর্বক ধর্ষণ করেছে বলে শুনেছি। ওই মহিলাকে সে বিয়ে করবে বলে এলাকার লোকজন বলাবলি করতো। বিষয়টি স্থানীয় লোকজন সমাধান করার জন্য চেষ্টা করেছে। এ নিয়ে গ্রামের মসজিদের সামনে বৈঠক বসলেও নাছির উদ্দিন উপস্থিত না হওয়ায় কোন সমাধান হয়নি। গ্রামবাসী পরে ওই মহিলাকে আইনের আশ্রয় নেয়ার জন্য বলে দিয়েছে।

ধর্ষণের শিকার ওই নারী বলেন, আমার স্বামী অনেক বছর খোজ খবর নেয়না।এক ছেলে এক মেয়ে চট্টগ্রামে থাকে। বাড়িতে আমি একা থাকি, প্রায় সময়ই নাছির আমাকে বিয়ে করার কথা বলে সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করতো। গত ৬ সেপ্টেম্বর প্রকৃতির ডাকে ঘর থেকে বের হলে সে কখন ঘরে ঢুকে যায় দেখিনি। আমি ঘরে যাওয়ার সাথে সাথে আমার মুখ চেপে ধরে নির্যাতন করে। আমার চিৎকার শুণে প্রতিবেশিরা আসলে নাসির পালিয়ে যায়।

মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ দুলাল মিয়া বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি, লিখিত বা মৌখিকভাবে কেউ জানায়নি।

দাউদকান্দি মডেল থানার ওসি মোঃ মোজাম্মেল হক বলেন, যেহেতু ধর্ষণের বিষয় আদলতে মামলা হয়েছে, তাই মামলার কপি না পাওয়া পর্যন্ত এ বিষয়ে কিছু বলতে পারবো না।

ফেনীতে ভিক্ষুককে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলার মূলহোতাসহ গ্রেফতার ২

ফেনীতে ভিক্ষুককে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলার মূলহোতাসহ গ্রেফতার ২

ডেস্ক রিপোর্ট:

ফেনীতে এক ভিক্ষুককে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ মামলার মূলহোতা মেহরাজসহ এজাহারনামীয় ২ আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শুক্রবার অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গ্রেফতাররা হলেন- নোয়াখালীর হাতিয়ার ইউনুছপুর ফকিন্নিপাড়া গ্রামের মৃত রুহুল আমিনের ছেলে মো. মেহরাজ ও নোয়াখালী সদরের চরজুবলী গ্রামের মৃত আলী আহম্মদের ছেলে সালাউদ্দিন (৩৫)

র‌্যাব জানায়, ৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টার দিকে লেমুয়া বাজার এলাকায় ভিক্ষা করছিলেন এক নারী। তখন মেহেরাজ নামে এক যুবক তাকে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার কথা বলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক সংলগ্ন ছনুয়া ইউনিয়নের এবিএম ব্রিক ফিল্ডে নিয়ে যায়। সেখানে শ্রমিকদের থাকার কক্ষে মেহেরাজ তাকে ধর্ষণ করে। এরপর পালাক্রমে সমির, দেলোয়ার হোসেন, তারেক, রমজান আলী, বাবু, মেহরাজ, রিদনসহ কয়েকজন ওই নারীকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে তাকে বাসে উঠিয়ে দেওয়ার জন্য মহাসড়কে নিয়ে গেলে ওই নারীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন জড়ো হয়। স্থানীয়দের সহায়তায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ওই নারীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালে পাঠান।

ঘটনায় ভুক্তভোগী বাদী হয়ে আটজনকে এজাহারনামীয় ২-৩ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে ফেনী মডেল থানায় ধর্ষণ মামলা করেন।

মামলার পর থেকেই পলাতক আসামিদের গ্রেফতারে গোয়েন্দা নজরদারি ও ছায়াতদন্ত অব্যাহত রাখে র‌্যাব। পরে র‌্যাবের একটি দল ১৫ সেপ্টেম্বর অভিযান চালিয়ে সালাউদ্দিনকে গ্রেফতার করে। সালাউদ্দিনের দেওয়া তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় র‌্যাব জানতে পারে গণধর্ষণের মূলহোতা পলাতক আসামি মেহরাজ ফেনীর দাগনভূঞার দিলপুর এলাকায় অবস্থান করছে। পরে ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে মেহরাজকে গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাবের কোম্পানি অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লিডার মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম জানায়, গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ফেনী মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

কক্সবাজারে আবাসিক কটেজে ২ কিশোরী নৃত্যশিল্পীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, আটক ১

কক্সবাজারে আবাসিক কটেজে ২ কিশোরী নৃত্যশিল্পীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, আটক ১

ডেস্ক রিপোর্ট:

কক্সবাজারের কলাতলীর হোটেল-মোটেল জোনে দুই নৃত্যশিল্পীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ওই দুই শিল্পীর মধ্যে একজন কক্সবাজার সদর হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তবে তার নাম-পরিচয় জানায়নি পুলিশ।

সোমবার রাতে এই ঘটনা ঘটে। তবে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি প্রকাশ পায়। ধর্ষণের শিকার দুই কিশোরী ঢাকার বাসিন্দা বলে জানা যায়। এ ঘটনায় জড়িতদের মধ্যে রিয়াদ (৩০) নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার দিবাগত রাতে কক্সবাজার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশের দেওয়া তথ্য মতে, কলাতলী এলাকার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের বিপরীতে অবস্থিত রাজন কটেজে সোমবার রাতে দুই কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করা হয়। কয়েকদিন আগে তাদের দুজনকে একটি অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশনের জন্য ঢাকা থেকে তাদের কক্সবাজারে আনা হয়েছিল। যার মাধ্যমে তারা আসেন সেই ব্যক্তি তাদের একটি চক্রের হাতে তুলে দেয়।

ওই চক্রের সদস্যরা রাজন কটেজে নিয়ে তাদের ধর্ষণ করেন। মঙ্গলবার সকালে তাদের ঢাকার একটি বাসে তুলে দেওয়া হয়। কিন্তু ভুক্তভোগী এক কিশোরী অসুস্থ হয়ে পড়লে বাস থেকে রামু বাইপাস এলাকায় নেমে যায়। অপরজন ঢাকার উদ্দেশ্যে চলে যায়। রামুতে নেমে যাওয়া কিশোরীকে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার সময় চিকিৎসক ঘটনার বিস্তারিত জেনে পুলিশকে জানান। পুলিশ তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে।

রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা নোবেল কুমার বড়ুয়া জানায়, সকালে ওই কিশোরীকে চিকিৎসা দিয়েছেন চিকিৎসক নুরুল হুদা শাওন। কিশোরীর বক্তব্য পাওয়ার পর তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. রফিকুল ইসলাম জানায়, এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার একজন চিকিৎসাধীন রয়েছে। একজন আটক হয়েছে। অপরদের আটকের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও তিনি জানান।

৬৫ বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার দুই যুবক

৬৫ বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার দুই যুবক

ডেস্ক রিপোর্ট:

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে এক বৃদ্ধাকে (৬৫) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে দুই যুবকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দুই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার দুপুরে উপজেলার জাগছড়া চা বাগান সংলগ্ন ছড়ায় ব্রিজের নিচে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- শ্রীমঙ্গলের নওয়াগাঁও গ্রামের আদর করের ছেলে মিঠু কর (২০) ও পরেশ করের ছেলে পলাশ কর (২২)।

পুলিশ জানান, রোববার আনুমানিক দুপুর ২টার দিকে শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালীঘাট ইউনিয়নের অন্তর্গত জাগছড়া চা বাগান সংলগ্ন পানির ছড়ায় গোসল করতে যান ওই বৃদ্ধা। এ সময় আগে থেকে সেখানে ওঁৎ পেতে থাকা দুই যুবক ওই বৃদ্ধাকে মুখ চেপে ধরে ছড়ার ব্রিজের নিচে বালুর ওপর নিয়ে যায়। সেখানে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে তারা।

পরে বৃদ্ধাকে ঘটনাস্থলে ফেলে চলে যায়। ঘটনাস্থল থেকে ওই বৃদ্ধা অতিকষ্টে জনৈক মোস্তফা মিয়ার বাড়িতে গিয়ে তার কাছে ঘটনাটি জানান। তখন মোস্তফা মিয়াকে অভিযুক্তদের বাড়িতে নিয়ে গেলে মোস্তফা মিয়া তাদের পরিচয় শনাক্ত করেন। এ ঘটনায় ওই বৃদ্ধার ছেলে রাত ১১টার দিকে শ্রীমঙ্গল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করে।

শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের পরিদর্শক (অপারেশন) তাপস চন্দ্র জানান, ধর্ষণের ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার দুজনকে আজ আদালতের মাধ্যমে করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

নির্জন রাস্তায় একা পেয়ে প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণ, দুই ভাই গ্রেফতার

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে প্রতিবন্ধী শিশু (৮) ধর্ষণ মামলার এক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধর্ষণ মামলার আসামিকে পলায়নে সহযোগিতা করায় ধর্ষকের বড় ভাইকে ও গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলো, ধর্ষক মো.আব্দুল মালেক (২৬) ও তার বড় ভাই আব্দুল খালেক (৩৫) । তারা উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের দেবকালা গ্রামের আব্দুল করিম মুন্সি বাড়ির মমিন উল্যার ছেলে।

শনিবার (৮ জুলাই) দুপুরে আসামিদের নোয়াখালী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়। এর আগে, গতকাল শুক্রবার চট্রগ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, গত ৩০ জুন সকাল সাড়ে ৮টার দিকে প্রতিবন্ধী শিশু তার বাড়ির কাছে দোকানে যাওয়ার সময় নির্জন রাস্তায় একা পেয়ে আসামি আব্দুল মালেক জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। রক্তাক্ত অবস্থায় ভিকটিমের মা তাকে উদ্ধার করে পুলিশের সহায়তায় প্রথমে বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল ভর্তি করে। ভিকটিম বর্তমানে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে বেগমগঞ্জ থানায় নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ আরও জানায়, মামলার দায়েরের পরপরই আসামি আব্দুল মালেক তার পরিবারের সদস্যেদের সহায়তায় প্রথমে কক্সবাজার যায়। সেখান থেকে চট্টগ্রামে আসামির বড় ভাই আব্দুল খালেকের পরিচিত চট্রগ্রামের ডবলমুরিং এলাকার হাজী পাড়ার একটি মসজিদ সংলগ্ন একটি কক্ষে আত্মগোপন করে। পরবর্তীতে আসামি আব্দুল মালেকের ভাই খালেক কে জিজ্ঞাসাবাদ করিলে সে ভিন্ন তথ্য প্রদান করে। একপর্যায়ে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তার দেখানো মতে হাজীপাড়া মসজিদ সংলগ্ন একটি কক্ষ থেকে আসামিকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় আসামি পলায়নে সহায়তাকারী ও আশ্রয়দাতা আসামির বড় ভাই আব্দুল খালেক কে ও গ্রেফতার করা হয়।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো.শহীদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, আসামিদের নোয়াখালী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হলে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়।