Tag Archives: পদ ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য কুবি উপাচার্যকে চিঠি

পদ ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য কুবি উপাচার্যকে চিঠি

 

কুবি প্রতিনিধি:

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০৬ না মেনে অধ্যাপক থাকাকালীন এক সহযোগী অধ্যাপককে বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এতে পদ বঞ্চিত অধ্যাপক বিষয়টিকে আইনের স্পষ্ট লঙ্ঘন ও মান-মর্যাদা ক্ষুণ্ন হয়েছে দাবি করে রোববার (৯ জুলাই) পদ পেতে ফের উপাচার্য বরাবর চিঠি দিয়েছেন। এছাড়াও পদ ফিরিয়ে দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন এবং প্রচলিত নিয়ম সুরক্ষা করার দাবি জানান তিনি। এদিকে গত ১৮ জুন পদ ফেরত চেয়ে রেজিস্ট্রার বরাবর চিঠি দিয়েছিলেন তিনি।

পদ বঞ্চিত ঐ অধ্যাপক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক রেজিস্ট্রার ও পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড. মো. আবু তাহের।

চিঠি সূত্রে জানা যায়, গত ১৫ জুন রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত একটি অফিস আদেশে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মোহাম্মদ জুলহাস মিয়া, সহযোগী অধ্যাপককে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উক্ত বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে দায়িত্ব অব্যাহত রাখতে বলা হয়েছে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন-২০০৬ এর ২৪ নং ধারা অনুযায়ী বিভাগীয় অধ্যাপকদের মধ্য হইতে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে পালাক্রমে তিন বছর মেয়াদে ভাইস-চ্যান্সেলর কর্তৃক বিভাগীয় প্রধান নিযুক্ত হওয়ার কথা বলা হয়েছে। সেই জেষ্ঠ্যতা অনুসারে বিভাগীয় প্রধান হওয়ার কথা ছিল অধ্যাপক ড. মো. তাহেরের।

পদ ফেরত চেয়ে চিঠিতে অধ্যাপক তাহের বলেন, জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করে ড. মোহাম্মদ জুলহাস মিয়াকে বিভাগীয় প্রধানের পুনরায় দায়িত্ব প্রদান করায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন লঙ্ঘিত হয়েছে এবং প্রচলিত নিয়মেরও ব্যত্যয় ঘটেছে, যা ইতিপূর্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬ বছরের ইতিহাসে কখনো ঘটেনি। এতে আমার মান-মর্যাদা ক্ষুণ্ন হয়েছে এবং আমি সামাজিকভাবে ও হেয় প্রতিপন্ন হয়েছি। আমি বর্তমানে বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করতে শারীরিক ও মানসিক ভাবে সম্পূর্ণরূপে প্রস্তুত আছি এবং দায়িত্ব পেলে সততা ও নিষ্ঠার সহিত আমি আমার দায়িত্ব পালন করতে পারব বলে বিশ্বাস করি।

উপচার্যকে উদ্দেশ্য করে চিঠিতে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিভাবক হিসেবে আপনি বিষয়টি সু-বিবেচনার সহিত দেখবেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন এবং প্রচলিত নিয়মের সুরক্ষা করবেন।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে গত ১৮ জুন রেজিস্ট্রার বরাবর চিঠি দিয়েছিলেন অধ্যাপক তাহের। কিন্তু কোনো প্রতিকার না পেয়ে বাধ্য হয়েই তিনি উপাচার্যকে চিঠি দিয়েছেন বলে উল্লেখ করেন।

এ বিষয়ে কথা বলতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈনের সাথে মুঠোফোন ও খুদেবার্তা পাঠিয়েও কোন সাড়া পাওয়া যায়নি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহম্মদ হুমায়ুন কবির কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, যেহেতু বিষয়টি আমার কাছে আসেনি, সেহেতু আমি কোনো মন্তব্য করতে পারব না।