Tag Archives: পরিবারের দাবি হত্যা

শ্বশুর বাড়ি থেকে কিশোরী গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার, পরিবারের দাবি হত্যা

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর চাটখিলে ফাতেমা মরিয়ম অর্পিতা নামে এক কিশোরী গৃহবধুর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) সকাল ৯টার দিকে উপজেলার নোয়াখোলা ইউনিয়নের সিংবাহুড়া গ্রাম থেকে এ মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত অর্পিতা চাটখিল পৌরসভার শাহনেয়ামতপুর এলাকার বেলাল হোসেনের কন্যা এবং সিংবাহুড়া গ্রামের ইতালি প্রবাসী রবিউল ইসলাম রুবেলের স্ত্রী।

অর্পিতার বাবা-মা এবং স্বজনরা দাবি করেছেন অর্পিতাকে (১৭) হত্যা করেছে তার শাশুড়ি সহ পরিবারের লোকজন। নিহতের শরীরে বিভিন্ন নির্যাতনের চিহ্ন পেয়েছেন দাবি করেছেন তারা। তবে অর্পিতার শ্বশুরের পরিবার অর্পিতা রাত ৩ টার দিকে বাথরুমে গলায় ওড়না পেছিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে দাবি করছে।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে অর্পিতার সাথে রুবেলের গোপনে বিয়ে হয় পরিবারের সম্মতিতে। গোপনে বিয়ে হওয়ার কারণ হিসেবে জানা যায়, দু পরিবার তাদের আনুষ্ঠানিক বিয়ে দেওয়ার সময় অভিযোগের ভিত্তিতে চাটখিল উপজেলা প্রশাসন বাল্য বিয়ের অপরাধে বিয়েটি ভেঙে দেয় এবং অর্পিতা পরিবারকে জরিমানা করে। পরে তারা প্রশাসনের দৃষ্টি এড়াতে গোপনে বিয়ের আয়োজন করে।
জানা যায়,বিয়ের পর থেকেই শাশুড়ির নানা নির্যাতনের শিকার হয়ে আসছিল কিশোরী গৃহবধূ অর্পিতা।

চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদ হোসেন বলেন, খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি। প্রাথমিকভাবে শরীরের কোথাও নির্যাতনের চিহৃ পাওয়া যায়নি। মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হচ্ছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়া গেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

কুমিল্লায় শশুর বাড়ি থেকে যুবকের ফাঁস দেয়া লাশ উদ্ধার, পরিবারের দাবি হত্যা

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কুমিল্লায় শ্বশুর বাড়িতে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় যুবক ইমতিয়াজ হোসেন অপুর (৩০) মৃতদেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে নিহতের পরিবারের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা হলেও পরিবারটির দাবি এটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। ঘটনাটি কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার লক্ষনপুর ইউনিয়নের লক্ষনপুর (বাজার) গ্রামের।

মামমলার অভিযোগ ও পরিবার সুত্রে জানা যায়, নিহত ইমতিয়াজ হোসেন অপু বিগত কয়েক বছর ধরে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের বাখরাবাদ এলাকায় চার নম্বর গেটে স্টেশনারী ব্যবসায় করতেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার কেরোয়া গ্রামে। তার বাবার নাম সামছুল হক। বোনের বাড়ি সুবাদে তিনি কুমিল্লায় ব্যবসায় করতেন ও থাকতেন। বিগত দুই বছর আগে পারিবারিকভাবে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার লক্ষনপুর ইউনিয়নের লক্ষনপুর গ্রামের আবুল হোসেনের মেয়ে আছমা আক্তারের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের দাম্পত্য জীবনে তাফছির ইবনে ইমতিয়াজ নামের একটি ছেলে সন্তানও রয়েছে। ইমতিয়াজ হোসেন অপু পেশায় ছিলেন ব্যবসায়ী। বিয়ের কিছুদিন পরই স্ত্রী আছমা আক্তারের সাথে পারিবারিক কলহ সৃষ্টি হতে থাকে। এক পর্যায়ে স্ত্রীর কথায় গত ছয় মাস আগে কুমিল্লা থেকে ব্যবসা বিক্রি করে শ্বশুর বাড়িতে স্ত্রী, সন্তান নিয়ে বসবাস করে আসছেন।

এরই মধ্যে স্ত্রী ও স্ত্রীর পরিবারের সাথে অর্থনৈতিক সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অপুর ঝামেলা বাড়তে থাকে। স্ত্রী, শ্বশুর বাড়ির লোকজনের দেয়া মানুষিক অত্যাচারের বিষয়টি স্বজনদের একাধিকবার জানান অপু। গত ১২ জানুয়ারি বেলা ৩টায় ইমতিয়াজ হোসেন অপুর বড় ভাই ইমন হোসেন পাভেল জানতে পারেন অপু গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। খবর পেয়ে মনোহরগঞ্জ ছুটে যান নিহত ইমতিয়াজ হোসেন অপুর বড় ভাই সহ অন্যান্যরা। তারা গিয়ে লাশ পুলিশের হেফাজতে দেখতে পান। ঘটনার পরদিন ১৩ জানুয়ারি মনোহরগঞ্জ থানায় আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে আছমা আক্তার, তার বাবা আবুল হোসেন (শ্বশুর) ও মা জেসমিন আক্তারকে(শাশুরি) আসামী করে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়ের হওয়ার পর এখনো কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

নিহতের ছোট বোন আমেনা আক্তার কুমিল্লায় বসবাস করেন, তিনি জানান ইমতিয়াজ হোসেন অপুর ব্যবসায় বিক্রির টাকা ও পরবর্তীতে তাঁর স্বামীর কাছ থেকে ব্যবসার কথা বলে নিহত অপু ও তাঁর স্ত্রী আছমা স্টাম্পে স্বাক্ষর দিয়ে ২০ লাখ টাকা হাওলাত নেন। ২০ লাখ টাকা ও ব্যবসায় বিক্রির টাকা সব আছমার পরিবারের কাছে রক্ষিত ছিল। টাকা পয়সা থেকে মূলত অশান্তির সূত্রপাত হয়। নিহত অপুর ছোট বোনে আমেনা আক্তারের দাবি টাকা আত্মসাত করার জন্য অপুকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছে পরিবারটি। তিনি আরো বলেন, অপুর লাশ দরজা ভেঙ্গে বের করা হয়েছে বললেও দরজা ভাঙ্গার কোন আলামত আমরা দেখিনাই। লাশটি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে আমাদের জানানো হয়েছিল। কোন ভিডিও বা আলামত আমরা পাইনি। আমাদের দাবি যাতে দ্রুত আসামীদের গ্রেফতার করে প্রকৃত বিষয়টি পুুলিশ উন্মোচন করেন।

নিহত ইমতিয়াজ আহমেদ অপুর ছোট বোন জামাই কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার বাখরাবাদ এলাকার ব্যবসায়ী মঈনুল ইসলাম মামুন। তিনি জানান, বিষয়টি খুবই দু:খজনক। আমরা শুরুতে থানায় মামলা করতে চাইনি। পরে হত্যা মামলা করতে চাইলেও বিভিন্ন চাপে ও নিরাপত্তা ঝুঁকির কারনে আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা করতে হয়েছে। আমরা মর্মাহত। এখন পর্যন্ত কোন আসামিও গ্রেফতার হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মনোহরগঞ্জ থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মিজানুর রহমান জানান, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এখনো পাওয়া যায়নি। রিপোর্ট পেলে নিশ্চিত হওয়া যাবে হত্যা না আত্মহত্যা। মামলার আসামিরা পলাতক আছে। তাদের মোবাইল নাম্বারও বন্ধ রয়েছে। আমরা গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছি।

মালয়েশিয়ায় কুমিল্লার যুবকের মরদেহ উদ্ধার, পরিবারের দাবি হত্যা

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

মালয়েশিয়াতে মনির হোসেন (২৪) নামে বাংলাদেশি যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে দেশটির পুলিশ।

শনিবার (২১ মে) বাংলাদেশ সময় সকাল ৭টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত মনির কুমিল্লার বুড়িচংয়ের বাকশীমূল গ্রামের মৃত মো. লিয়াকত আলীর ছেলে।

নিহতের ভাই মো. মান্নান মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, সকালে মনির হোসেনকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেন তার এক বন্ধু। পরে তিনি মনিরের মায়ের মোবাইলে কল করে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তবে পরিবারের দাবি, এটি আত্মহত্যা নয়, পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করা হয়েছে।

নিহতের ভাই মো. মান্নান বলেন, এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। সঠিক তদন্তের মাধ্যমে এর বিচার চাই।

কুমিল্লার বরুড়ায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, পরিবারের দাবি হত্যা

 

সাকিব আল হেলালঃ

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ৬নং চিতড্ডা ইউনিয়নের মুড়িয়ারা (শীতলপুর) গ্রামে শিউলী আক্তার (২৫) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

রোববার (৩০ মে) সকাল সাড়ে ৮ টায় নিজ ঘর থেকে শিউলী আক্তারের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে বরুড়া থানা পুলিশ।

শিউলি আক্তার বরুড়া উপজেলার মুড়িয়ারা (শীতলপুর) গ্রামের জয়নাল মিয়ার পুত্র মোঃ সীমারের স্ত্রী ও একই গ্রামের পূর্বপাড়ার জয়নাল মিয়ার মেয়ে।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, আজ সকালে ঘরের তীরের সাথে শিউলীকে রশিতে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে চিৎকার শুরু করলে প্রতিবেশীরা ছুটে আসে। পরে প্রতিবেশীরা থানায় ফোন দিলে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

শিউলীর পিতা জয়নাল মিয়া জনুর দাবি, শিউলিকে যৌতুকের জন্য তার স্বামী হত্যা করেছে। এটা পরিকল্পিতভাবে হত্যাকান্ড। আমরা এ হত্যাকান্ডের বিচার চাই”।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার জাকির হোসেন মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে বরুড়া থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক উত্তম কুমার বলেন, আমি খবর পেয়ে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে যাই।সুরতহাল তৈরি করে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি।কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ পাঠানো হয়েছে।ময়না তদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে। এ ব্যাপারে বরুড়া থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

বরুড়ায় এক ব্যক্তির রহস্যজনক মৃত্যু, পরিবারের দাবি হত্যা

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ১নং আগানগর ইউনিয়নের আগানগর মোল্লা বাড়িতে সিরাজুল ইসলামের ছেলে কবির হোসেন(৫৫) নামে এক গৃহকর্তাকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়,২৯ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে ফজর নামাজ পড়তে গিয়ে নিজ বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন কবির হোসেন। পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুজি করেও কবির হোসেনের কোন সন্ধান পাননি। নিখোঁজের ৪৮ ঘন্টা পর নিজ বাড়ির লাকড়ির ঘরে তার একমাত্র ছেলে বাবার ঝুঁলন্ত লাঁশ দেখতে পেয়ে চিৎকার দিয়ে উঠানে এসে পড়লে পরিবারের অন্যান্যরা এসে দেখে ফাঁসিতে ঝুঁলন্ত তার লাঁশ।পরে প্রতিবেশীরা এসে কবিরের ঝুঁলন্ত লাঁশের আলামত দেখে সবার মনে প্রশ্ন এটা আত্মহত্যা নয় এটা পরিকল্পিত হত্যা।

পারিবারিক সূত্রে জানায়,কবির হোসেন এইচএসসি পাশ করে স্থানীয় বিজয়পুর রেজিস্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১০ বছর শিক্ষকতা করে।বিদ্যালয়টি সরকারি না হওয়ায় চাকরি ছেড়ে দিয়ে ২০০৮ সালে জীবিকার সন্ধানে সৌদিআরবে চলে যান। সেখানে মোটামুটি ভালোই টাকা উপার্জন করেছেন। বাড়িতে দালান কোটাসহ জমিয়েছেন অনেক টাকা। প্রবাসে যাবার পর প্রথমে ছোট ভাই প্রাথমিক শিক্ষক নাসিরের নিকট টাকা পাঠালেও মাঝে মাঝে সংসার খরচের জন্য নিজের স্ত্রী হাসিনার কাছে টাকা পাঠাতেন।পরে স্ত্রী’র ছোট ভাই (বরুড়া বাজারের ফার্মেসী ব্যবসায়ী) কাছে টাকা পাঠাতেন। ২০১৯ সালের প্রথম দিকে তিনি দেশে চলে আসেন। দেশে এসে একটি হোমিওপ্যাথিক ঔষধের দোকানের সহকারি হিসেবে কাজ করতেন।

তবে নিহত কবিরের এ মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না এলাকাবাসী। তাদের দাবী পারিবারিক জামেলা বা কলহের কারনে এ হত্যাকান্ড হতে পারে। তা না হলে নিহতের পরিবারের লোকজন এ হত্যার বিচার চায় না কেন ? এ ব্যাপারে নিহতের স্ত্রী,সন্তান ও মা চুপ কেন প্রশ্ন এলাকাবাসির ? এলাকাবাসী ও প্রতিবেশীরা এ হত্যাকান্ডের মূল রহস্য উদঘাটন চায়।

প্রায় শতাধিক এলাকাবাসির সাথে কথা হলে তারা বলেন,নিহত কবির  সৌদি আরব থাকাকালে শ্যালককে  অনেক টাকা পয়সা পাঠিয়েছে । হয়তো এই টাকা আত্মসাৎ করার জন্য কবিরকে হত্যা করতে পারে।

তারা আরো জানান,কবির খুব সহজ সরল ভালো মানুষ। তাকে এভাবে মৃত্যু সত্যিই খুব কষ্টের।

নিহতের ছোট ভাই প্রাথমিক শিক্ষক নাসির উদ্দিন বলেন,আমি আমার ভাইয়ের মৃত্যুটাকে স্বাভাবিক মৃত্যু মনে করি না।এটা নিশ্চিত পরিকল্পিত হত্যা ’’।

নিহত কবিরের মা বলেন,আমি হত্যার বিচার চাই না। যারা আমার ছেলেকে হত্যা করেছে তাদের বিচার আল্লাহ করবে”।

নিহতের স্ত্রী হাসিনা বেগম এ ব্যাপারে মামলা করতে উদাসিন। পরে স্থানীয়দের চাপে পড়ে মামলা করবে বলে জানায়।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা মেম্বার ও প্রতিবেশী বলেন, আলামত দেখে স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে এটা পরিকল্পিত হত্যা। আমি সকলের পক্ষ থেকে মূল রহস্য উদঘাটনসহ দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

এ বিষয়ে বরুড়া থানা পুলিশ বলেন,এ ব্যাপারে বরুড়া থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। লাঁশের ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে এটা হত্যা নাকি আত্মহত্যা ।