Tag Archives: পরীক্ষার্থী

"ঘোষণা ছাড়াই নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল: ক্ষুব্ধ পরীক্ষার্থী-অভিভাবকরা"

“ঘোষণা ছাড়াই নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল: ক্ষুব্ধ পরীক্ষার্থী-অভিভাবকরা”

ডেস্ক রিপোর্ট:

সিদ্ধেশ্বরী কলেজের মূল ফটকের সামনে মহিলা অধিদপ্তরের ডে কেয়ার ইনচার্জের নিয়োগ পরীক্ষা ঘোষণা ছাড়াই বাতিল করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন অভিভাবক ও পরীক্ষার্থীরা।

এক পরীক্ষার্থী দাবি করেন, ‘কেন হঠাৎ করে পরীক্ষা বাতিল (স্থগিত) করা হলো? আমাদেরকে জানাতে হবে। অধিদপ্তরের লোক এসে কারণ জানাতে হবে।’

আরেক পরীক্ষার্থী জানান, ‘আমরা গতকাল (বৃহস্পতিবার) জার্নি করে এসেছি। সারাদিন খাওয়াদাওয়া নেই। এখন আমাদেরকে বলা হচ্ছে পরীক্ষা স্থগিত। এটা অবশ্যই অব্যবস্থাপনা।’

এ সময় পরীক্ষার্থী প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ প্রার্থনা করে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের আবেদন। আপনি বিষয়টি দেখুন। দুর্নীতির কারণেই এই অব্যবস্থাপনা।

কুমিল্লার চান্দিনা থেকে মেয়ে পরীক্ষা দিতে নিয়ে আসা একজন অভিভাবক জানায়, ‘পরীক্ষার আধা ঘণ্টা আগে আমি মেয়েকে নিয়ে এসেছি। এসে শুনছি, পরীক্ষা বন্ধ (স্থগিত)। সারা বাংলাদেশ থেকেই পরীক্ষার্থীরা আসছে। আমরা এত কষ্ট করে ছেলেমেয়েদের টাকাপয়সা দেই। এই অবস্থার জন্য?’

পাবনা থেকে আসা আরেক অভিভাবক জানান, ‘(সকাল) ১০টার দিকে মেয়েকে নিয়ে এসেছি। সাড়ে ১০টার সময় আমাদের বলা হলো যে পরীক্ষা হবে না।’

রাস্তা অবরোধের একপর্যায়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরীক্ষার্থীদের রাস্তা ছেড়ে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

উল্লেখ্য, সিদ্ধেশ্বরী কলেজের মূল ফটকের সামনে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা রাস্তা অবরোধ করেন। এ ঘটনায় ওই রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

বুড়িচংয়ে নকল করায় এসএসসি’র ২ পরীক্ষার্থীকে বহিস্কার

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার বুড়িচংয়ে এসএসসি পরীক্ষায় গণিত বিষয়ে নকল করায় ২ পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বিষয় নিশ্চিত করেন বুড়িচং উপজেলা সহ-কারী কমিশনার ভূমি (নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট) মোঃ সামিউল ইসলাম।

মঙ্গলবার (৯ মে) উপজেলার সদরে অবস্থিত ফজলুর রহমান মেমোরিয়্যাল কলেজ অব টেকনোলোজি কেন্দ্রে গণিত বিষয়ে পরীক্ষা চলাকালে পরিদর্শনে যায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সামিউল ইসলাম। নকল চলছে এমন সন্দেহে দেহ তল্লাশির মাধ্যমে দুজনের সাথে নকল পাওয়া যায়।তখন ওই দুই শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়।

কলেজের কেন্দ্র সচিব মো. আবু তাহের জানান, নকল করার দায়ে দুই শিক্ষার্থীকে বহিস্কার করা হয়েছে। তারা দু’জন তার ভোকেশনাল শাখার অধীনে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন।

চান্দিনায় পরীক্ষা চলাকালে দাখিল পরীক্ষার্থীদের পেটালেন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা

 

চান্দিনা প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার চান্দিনায় পরীক্ষা চলাকালে হলের ভিতরেই দাখিল পরীক্ষার্থীদের পিটিয়েছেন কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। এঘটনায় পরীক্ষার্থীদের পিটিয়ে ৩টি স্কেল ভাঙার অভিযোগ উঠেছে।

পরীক্ষার্থীদের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সালাউদ্দীনকে পরিবর্তন করে অন্য কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে বিষয়টি ষড়যন্ত্র বলে দাবী করেন ওই কর্মকর্তা।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড ঢাকা’র অধীনে অনুষ্ঠিত দাখিল পরীক্ষার প্রথম দিনে চান্দিনা আল-আমিন ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা পরীক্ষা কেন্দ্রের ০৯ ও ১০ নাম্বার কক্ষে ওই ঘটনা ঘটে। কোরআন মাজীদ বিষয়ের পরীক্ষা চলাকালে কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সহকারী প্রোগ্রামার মো. সালাউদ্দীন ওই অপ্রীতিকর ওই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবী করেন পরীক্ষার্থীরা।

সরেজমিনে, শনিবার গণিত পরীক্ষার পর চান্দিনা আল-আমিন ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে ১১ জন দাখিল পরীক্ষার্থীকে প্রহারের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। তারা হলো- চান্দিনা আল-আমিন ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসার ৮জন, উপজেলার আবেদা নূর ফাযিল মাদ্রাসার ৩ জন বিজ্ঞান ও সাধারণ বিভাগের ছাত্র। তারা জানিয়েছেন এ বিষয়ে তারা কেন্দ্র সচিব বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থীরা জানান, ‘কোরআন মাজীদ বিষয়ে এমসিকিউ অংশের পরীক্ষা চলাকালে ওএমআর (অপটিক্যাল মার্ক রিডার) এ সেট কোড এর বৃত্ত ভরাট না করায় ক্ষিপ্ত হয়ে কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সালাউদ্দীন আমাদের স্কেল দিয়ে পিটিয়েছেন।’

পরীক্ষার্থীদের অভিভাবকগণ অভিযোগ করেন- ‘ওই ঘটনার পর তাদের সন্তানরা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। অনেকেই ঠিকমত পরীক্ষা দিতে পারেনি।’

এ ব্যাপারে ওই কেন্দ্রের ৯ নাম্বার কক্ষের প্রত্যবেক্ষক শিক্ষিকা মোসা. রুজিনা আক্তার জানান, ‘এমসিকিউ পরীক্ষার সময় ২০ মিনিট। ১৫ মিনিট অতিবাহিত হলেও কোন পরীক্ষার্থী সেট কোড ভরাট করেনি। শিক্ষার্থীরা আমাদের কথাও শুনছিল না। এ বিষয়টি নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরীক্ষার্থীদের নির্দেশ দিলেও তারা হট্টগোল করে। এক পর্যায়ে তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে এক জনকে স্কেল দিয়ে হাতে প্রহার করেন।’

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সহকারী প্রোগ্রামার মো. সালাউদ্দীন বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, কোন পরীক্ষার্থীকে পিটানোর ঘটনা ঘটেনি। সেট কোড ভরাট না করায় আমি শুধুমাত্র ধমক দিয়েছি। প্রত্যাহারের বিষয় সম্পর্কে তিনি বলেন- সেটিও আমার জানা নেই, ইউএনও মহোদয় আমাকে তাঁর সাথে থাকার জন্য বলেছেন। আমি শনিবার ইউএনও’র স্যারে সাথে ছিলাম। এছাড়া বৃহস্পতিবার আমি স্বচ্ছতার সাথেই দায়িত্ব পালন করছিলাম। সে কারণে তারা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে অভিযোগ দিচ্ছে।

এ বিষয়ে কেন্দ্র সচিব ও আল-আমিন ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো. জাকির হোসেইন বলেন- ‘আমি লিখিত অভিযোগ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিষয়টি অবগত করি। আজকে (শনিবার) তিনি ওই দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার পরিবর্তে অন্য অফিসারকে দায়িত্ব দিয়েছেন।

এ ঘটনায় চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাপস শীল জানান, ‘অফিসার সালাউদ্দীন পরীক্ষার ভিজিলেন্স টিমের সদস্য। তাকে প্রত্যাহার করা হয়নি, পরীক্ষার কাজে শনিবার তাকে অন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পরীক্ষা গ্রহণে আমরা সর্বদা সচেষ্ট। শিক্ষার্থীদের লিখিত অভিযোগটি তদন্ত করে দেখবো’।