Tag Archives: পশ্চিম জোড়কাননে ভোটের দিন এলাকাজুড়ে ছিল অস্ত্রধারি সন্ত্রাসীদের আধিপত্য

পশ্চিম জোড়কাননে ভোটের দিন এলাকাজুড়ে ছিল অস্ত্রধারি সন্ত্রাসীদের আধিপত্য

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার পশ্চিম জোড়কানন ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনে এলাকাজুড়ে ছিল বহিরাগত ও স্থানীয় অস্ত্রধারি সন্ত্রাসীদের আনাগোনা। যার ফলে অনেক ভোটারই কেন্দ্রে যাওয়ার সাহস পায়নি। তবে কেন্দ্র দখলের কোন ঘটনা ঘটেনি। কেন্দ্রের বাইরে যখনই গুলিবর্ষণ, ককটেল বিস্ফোরণ ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে তখনই ম্যাজিষ্ট্রেট, পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করেছেন।

নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী হাসু মিয়া ৭ হাজার ১৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি চশমা প্রতিকের প্রার্থী শাহাদাত হোসেন পেয়েছেন ৪ হাজার ৫০৫ ভোট।

সরেজমিন, স্থির চিত্র, ভিডিও ও স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, দুপুরের আগেই প্রায় কেন্দ্রে ভোটার শূণ্য হয়ে যায়। ইউপির সুয়াগন্জ, প্রমিন্যান্ট চাইল্ড একাডেমি, সুবর্ণপুর, রসুলপুরসহ সিংহভাগ কেন্দ্রই ভোটার শুন্য হয়ে যায়।

প্রায় কেন্দ্রগুলোর বাইরের সড়কগুলোতে বহিরাগত অস্ত্রধারিরা পাহারা দিচ্ছিল। ভোটাররা যখন বের হতে চায়,তখনই অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে বাড়িতে পাঠানো হয়েছে।

কামাল মিয়া নামের এক ভোটার জানান, আমার দা-ছেনি ও পিস্তলের ভয়ে কেন্দ্রে যেতে পারি না। তারা সন্দেহ করছে আমরা নৌকায় ভোট দিবো না। তাই পথ আটকে রাখছে। এমন কথা বলেছেন আরো কয়েকজন ভোটার।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্র জানায়, কুমিল্লা মহানগরের বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে অস্ত্রধারিরা ভোটের দুইদিন আগেই জোড়কানন ইউনিয়নে এসে বিভিন্ন বাড়িতে অবস্থান নেন। ভোটের দিন সকাল থেকে তারা বিভিন্ন সড়কে উৎপাত শুরু করেন।

ভোটের দিন ভোটকেন্দ্রগুলোর আশেপাশে মহানগর ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীদের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মত।

চশমা প্রতিকের প্রার্থী শাহাদাত জানান, আমার ভোটারদের অস্ত্র দেখিয়ে বাড়ি থেকে বের হতে দেয়া হয়নি। সব কেন্দ্রে জালভোট দিয়ে আমাকে হারানো হয়েছে।

সকাল সোয়া ৯ টার দিকে মুরাদ কালিকাপুর আর্দশ ইসলামিয়া মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্রের বাইরে প্রায় ৮/৯টি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ সময় এক প্রার্থীর চেয়ার টেবিল ভাংচুর করা হয়। খবর পেয়ে বিজিবি ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় ভোটারদের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। অনেক ভোটার ভোট না দিয়ে কেন্দ্র ছেড়ে চলে যায়।

সকাল ১০ টার দিকে সুবর্ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ভোটকক্ষে প্রবেশ করে এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর এজেন্টকে মারধর করে রক্তাক্ত করে বহিরাগতরা। আহত এজেন্টের নাম মো: আলী। তিনি অটোরিক্সা প্রতিকের প্রার্থীর এজেন্ট। খবর পেয়ে ম্যাজিষ্ট্রেট ও পুলিশ কেন্দ্রে যান। ম্যাজিস্ট্রেটকে দেখে বহিরাগতরা পালিয়ে যান।

এছাড়া প্রায় কেন্দ্রেই জালভোট দেয়ার খবর পাওয়া গেছে। সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে প্রমিন্যান্ট চাইল্ড একাডেমি ভোটকেন্দ্রে জালভোট দেয়ার সময় নৌকা প্রতিকের দুই ভোটারকে আটক করে পুলিশের গাড়িতে তুলে দেন ম্যাজিষ্ট্রেট। তবে তাদের নাম জানা যায়নি।