Tag Archives: পানির নিচে ডুবে আছে দাউদকান্দির কৃষকদের স্বপ্ন

পানির নিচে ডুবে আছে দাউদকান্দির কৃষকদের স্বপ্ন

 

জাকির হোসেন হাজারীঃ

ঘূর্ণিঝড় “জাওয়াদ” এর প্রভাবে অসময়ের টানা তিন দিনের বৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন দাউদকান্দির কৃষকেরা। বিশেষ করে টমেটো, খিড়া , আলুসহ শীতকালীন নানা সবজি চাষিরা বিপাকে পড়েছেন বেশি। পানি নিস্কাষণের ব্যবস্থা না থাকায় আবাদি জমির গাছ নষ্ট হয়ে ব্যাপক ক্ষতির শঙ্কা করছেন চাষিরা। গত এক সপ্তাহের মধ্যে যারা আলুর বীজ রোপণ করেছিলেন তারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। রোপণকৃত আলুর বীজ ও প্রয়োগকৃত সার সবই বিনষ্ট হয়ে গেছে। এছাড়া ইরি বোরো ধানের বীজতলা, করলা, ধনিয়া, মুলা, লালশাক, মরিচ, মিষ্টি কুমড়া ইত্যাদি শাক-সবজির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিন ইউনিয়নের টামটা গ্রামে ২ দিনের টানা বৃষ্টিতে টমেটো, খিড়ার আবাদি জমি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। টামটা গ্রামের শাহনেওয়াজ, জয়নাল খা ও আবুল কাসেম জানান, অনেক টাকা খরচ করে রোপণ করা টমেটো, খিরা ক্ষেত পানিতে ডুবে পচে যাচ্ছে। আমাদের স্বপ্ন এখন পানির নিচে ডুবে আছে। আমরা ধার দেনা এবং লোন তুলে চাষ করে থাকি, ফসল বিক্রি করে তা আবার পরিশোধ করে যা থাকে তা দিয়ে সংসার চালাই। এবার বৃষ্টিতে আমাদের সব স্বপ্নই শেষ। আমরা কিভাবে এই ক্ষতি পোষাবো বুঝতে পারছি না।

একই গ্রামের মৃত সেলিম মিয়ার মর্জিনা বেগম কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, এককানি ক্ষেত (৩০ শতক) চার হাজার টাকায় পত্তন নিয়ে সাত হাজার টাকা খরচ করেছি। এখন সব পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এনজিও থেকে টাকা তুলে প্রতি বছরই আমি খিরা চাষ করে দুই ছেলে নিয়ে কোন রকমে খেয়ে না খেয়ে আছি। এখন আমি কি করব!

উপজেলার দৌলতপুর, বিটেস্বর, গোয়ালমারী, পদুয়া, মারুকা, সুন্দলপুর, মোহাম্মদপুর ও মালিগাও ইউনিয়নেও একই অবস্থা। রোপণকৃত আলু বীজ নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। ফলে একদিকে আলু উৎপাদনে ক্ষতিগ্রস্থ, অপরদিকে হাজার হাজার টাকা ধার দেনা করে লোকসানের আশঙ্কায় কৃষকরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। এতে অকাল বৃষ্টিতে আলু চাষিদের স্বপ্ন বৃষ্টির পানিতে ভেসে গেছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, উপজেলায় আলু ৮০০ হেক্টর, ভুট্টা ১১০ হেক্টর, সরিষা ১৪০ হেক্টর, শাক সবজি ২৮০ হেক্টর, খিরা ২০০ হেক্টর, মরিচ ৩৬ হেক্টর, ধনিয় ৮০ হেক্টর, বোরো বীজতলা ১৩০ হেক্টরসহ প্রায় দুই হাজার হেক্টর জমির বিভিন্ন আবাদি ফসল ক্ষতির আশংকা রয়েছে। এ ছাড়া ইরি বোরো ধানের বীজতলা, করলা, ধনিয়া, মুলা, লালশাক, মরিচ, লাউ, কুমড়া ইত্যাদি শাক-সবজির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তবে বৃষ্টিতে ক্ষতির পরিমান কত টাকা হবে তা এখনো নিরুপন করা যায়নি।
ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিন ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সামসুদ্দিন জানান, এখানে ৩০ হেক্টর জমির টমেটো, খিরা ২০ হেক্টর, মিষ্টি কুমড়া ৫ হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে টমেটো ২০ হেক্টর, খিরা ৫ হেক্টর এবং মিষ্টি কুমড়া প্রায় ২ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতির মুখে রয়েছে। আর পানি নিষ্কাসনের মুখ গুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কৃষকরা এই ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এ বিষয়ে কৃষকদের লিখিত অভিযোগ দেয়ার কথা বলেছি।

তিনি বলেন, যদি দ্রুত সময়ে বৃষ্টি চলে যায়, তাহলে ভালো। আর যদি বৃষ্টি আরো কয়েক দিন থাকে তাহলে কৃষকরা বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সারোয়ার জামান আজকের কুমিল্লাকে বলেন, এবার বৃষ্টির কারণে প্রায় দুই হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ইতিমধ্যে মাঠকর্মীদের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত আলু, টমেটো ও ভুট্টাসহ বিভিন্ন ফসলের তালিকা নিরূপন করে জেলায় পাঠানো হয়েছে। পানি নেমে গেলে ক্ষতির পরিমাণ বের করা সম্ভব হবে। আর ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা করে তাদের প্রণোদনার মাধ্যমে সহায়তা করার প্রস্তুতি চলছে।