Tag Archives: পূর্ব জোড়কানন ইউনিয়ন

সামাজিক সংগঠন সময়ের বাতিঘরের প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

সামাজিক সংগঠন সময়ের বাতিঘরের প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

 

উজ্জ্বল হোসেন বিল্লালঃ

কুমিল্লার সদর দক্ষিণে সামাজিক সংগঠন সময়ের বাতিঘরের ১ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে।

শনিবার বিকালে পূর্ব জোড়কানন ইউনিয়নের লালবাগ রওশন আশরাফ উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন-  উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুর রহমান। সংগঠনের সভাপতি দেলোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক নির্বাহী সদস্য ও কুমিল্লা জেলা আবৃতি পারিষদের সভাপতি বদরুল হুদা জেনু, ৬নং পূর্ব জোড়কানন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়্যারম্যান মমিনুল ইসলাম, কুমিল্লা জেলা ফুটবল ফেডারেশনের কোচ জামাল হোসাইন,  উপেজেলা পিডিপির প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম হৃদয়।

সামাজিক সংগঠন সময়ের বাতিঘরের প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
 

অনুুষ্ঠানের শুরুতে ফিতা কাটা ও রঙ্গিন বেলুন উড়িয়ে সময়ের বাতিঘর ফুটবল একাডেমীর উদ্বোধন করা হয়।

সৈয়ম গোলাম সরওয়ার সিফাতের সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন সময়ের বাতিঘর ফুটবল প্রশিক্ষণ একাডেমীর চেয়্যারম্যান ইলিয়াছ মামুন মিয়াজী, ভাইস চেয়্যারম্যান সৈয়দ গোলাম মোস্তফা মাসুদ এবং সংগঠনের অন্যান্য সদস্যবৃন্দরা।

সংগঠনের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরে সাধারণ সম্পাদক গোলাম সরোয়ার মোবারক বলেন- নিরাপদ সমাজ নির্মাণে আমাদের সংগঠন বিভিন্ন সমস্যা নির্মুলে কাজ করছে। বাল্য বিবাহ দূরীকরণ, মাদক নিয়ন্ত্রন,সমাজের দরিদ্র ও অসহায় শিক্ষার্থীদের বিনামূল্য কোচিংসহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে কাজ চলমান। এছাড়া ও সংগঠনের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত বিনামূল্য ৫০০০ গাছের চারা রোপণ করেছি। আমাদের সংগঠনের এসব কাজ ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। আজকের যারা অতিথি আছেন প্রশাসনের কর্মকর্তা থেকে শুরু করে জন-প্রতিনিধিসহ সকলের সহযোগীতা কামনা করছি। আপনাদের সহযোগীতাই আধুনিক সমাজ বিনির্মাণে আমাদের এই সংগঠন গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে বলে আমি আশাবাদী।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মমিনুল ইসলাম বলেন, আপনাদের এসব উদ্দ্যোগকে স্বাগত জানায়। আপনারা আপনাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম চলমান রাখেন। সকলের সহযোগীতার মাধ্যমে আমরা আমাদের ইউনিয়নকে আধুনিক ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলছে চাই। আমাদের পক্ষে থেকে যত ধরনের সহযোগিতা প্রয়োজন আমরা করার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন- যারা মাদকচক্রের সাথে জড়িত তারা আমাদের কারো না কারো আত্মীয় আমরা সকলে মিলে যদি তাদেরকে সামাজিকভাবে বয়কট করি তাহলে মনে হয় মাদকচক্র কমানো সম্ভব হবে। খেলাধুলা, বিনোদন ও অন্যান্য সামাজিক কার্যক্রমের মাধ্যমে মাদক নির্মুল করা যাবে।