Tag Archives: মামলা

ধান কাটার মেশিনে শিশুর মৃত্যু, চালক গ্রেপ্তার

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর চাটখিলে ধান কাটার মেশিনের ধাক্কায় জান্নাতুল ফেরদাউস (৮) নামে এক শিশু মৃত্যুর ঘটনায় চালককে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

গ্রেপ্তার মো.আবু ছিদ্দিক (৪৭) লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর থানার উত্তর চর মার্টিন গ্রামের মো. সুফির ছেলে।

রোববার (২৬ মে) লক্ষ্মীপুর জেলার সদর উপজেলার তেমুহনী এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে, গত ২২ এপ্রিল উপজেলার বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার হাটপুকুরিয়া ঘাটলাবাগ ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের গোবিন্দপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মামলার বরাতে র‍্যাব জানায়, নিহত জান্নাতুল হাটপুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। গত ২২ এপ্রিল বিকেলে তাদের জমিতে ধান কাটার গেলে ভিকটিম জান্নাতুল ধান কাটার মেশিনটি দেখতে যায়। একপর্যায়ে ধান কাটার রোলার মেশিনের চালক ছিদ্দিক বেপরোয়া ও তাচ্ছিল্যপূর্ণভাবে ধান কাটার রোলার মেশিন চালিয়ে জান্নাতুলকে পিছন দিক থেকে ধাক্কা দেয়। এতে সে ধান কাটার রোলার মেশিনের নিচে চাপা পড়ে ডান কানে, নাকে, চোখে ও কপালে মারাত্মক জখম পায়। তখন ভিকটিমের অবস্থা বেগতিক দেখে ঘটনাস্থল চালক পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় ভিকটিমের বাবা হেলাল হোসেন (৪৫) বাদী হয়ে চাটখিল থানায় মামলা করেন। যাহার মামলা নং-১২।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‍্যাব-১১, সিপিসি-৩, নোয়াখালী কোম্পানি কমান্ডার (ভারপ্রাপ্ত) সহকারী পুলিশ সুপার মো. গোলাম মোর্শেদ। তিনি বলেন, আসামির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চাটখিল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে জখম করায় তরুণকে পিটিয়ে হত্যা

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে আহত করার অভিযোগে এক তরুণকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। তবে পুলিশ তাৎক্ষণিক এ হত্যাকান্ডের কোন কারণ জানাতে পারেনি।

রোববার (২৬ মে) ভোর রাতের দিকে উপজেলার নোয়াখলা ইউনিয়নের ১নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম নোয়াখলা গ্রামের আকবর পাটোয়ারি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আহাদ আহমেদ ওরফে হাম্বা (২০) উপজেলার নোয়াখলা ইউনিয়নের ১নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম নোয়াখলা গ্রামের আকবর পাটোয়ারি বাড়ির বাবর হোসেনের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পূর্ব শক্রতার জের ধরে ভোর রাতের দিকে নোয়াখলা ইউনিয়নের ১নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য (মেম্বার) ওমর ফারুক পাটোয়ারীকে তার ভাড়া বাসা মাদরাসা আলা পাঠান বাড়িতে ঢুকে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে গুরুত্বর জখম করে। খবর পেয়ে মেম্বারের অনুসারী ও স্থানীয় এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে অভিযুক্ত আহাদের বাড়িতে পাল্টা হামলা চালায়। একপর্যায়ে তাকে তার বাড়িতে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করলে সে ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

নোয়াখলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মো.মানিক বলেন, আহাদ আগে থেকেই মাদকাসক্ত ও বেপরোয়া ছিল। রোববার ভোর রাতের দিকে সে মেম্বারের ঘরের দরজায় হাত দিয়ে টোকা দেয়। এরপর মেম্বার ফারুক দরজা খুলতেই তাকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুত্বর জখম করে। খবর পেয়ে এলাকাবাসী আহাদের বাড়িতে গেলে সেখানে সে ছালেহ আহমদ নামে আরও এক ব্যক্তিকে জখম করে। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন আহাদের বাড়িতে তাকে ধরে বেধড়ক পিটুনি দেয়। এতে সে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। গুরুত্বর আহত মেম্বারকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ফারুক মেম্বারের ঘরে গিয়ে আহাদ নামে এক ছেলে তাকে কুপিয়ে আহত করে। পরে এলাকার লোকজন একত্রিত হয়ে অভিযুক্তের বাড়িতে গিয়ে তাকে মারধর করে। এক সময় গণপিটুনির মত অবস্থায় সে মারা যায়।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি বলেন, নিহত আহাদ শরীফ বাহিনীর সদস্য ছিল। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তবে তার বিরুদ্ধে থানায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা ছিলনা। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে এসেছে। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে।

ফেনীতে বাগানবাড়ি থেকে ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার, দুই নারী আটক

ডেস্ক রিপোর্ট:

ফেনীর ছাগলনাইয়া পৌর এলাকার বাঁশপাড়ার একটি বাগানবাড়ি থেকে ব্যবসায়ী করিম উল্যাহ ওরফে কালা মিয়ার (৬৫) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বুধবার সকাল ৭টার দিকে জমাদ্দার বাজারের উত্তর পাশে গাছ বাগান থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

করিম উল্যাহকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক ধারণা পুলিশের। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই নারীকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত করিম উল্যাহ পৌরসভা ৬ নম্বার ওয়ার্ডের (বাঁশপাড়া) বাসিন্দা। তিনি হাজী রাজা মিয়ার ছেলে।

নিহতের ছেলের বউ নুরের নেছা মিনু জানান, জমাদ্দার বাজারে তার শ্বশুরের একটি কনফেকশনারি দোকান রয়েছে। মঙ্গলবার রাতে বাড়ি না ফেরায় রাত ১১টার দিকে শ্বশুরের নম্বারে একাধিকার ফোন করেন তিনি।

ফোন না ধরায় তার স্বামী আনোয়ার হোসেনকে দোকানে পাঠান। দোকান খোলা থাকলেও কালামিয়া দোকানে ছিলেন না। অনেকক্ষণ অপেক্ষা করে আশপাশে লোকজন না থাকায় দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফেরেন আনোয়ার।

নিহতের বড় মেয়ে সাহেনা আক্তার জানান, সকালে এক ব্যক্তির মাধ্যমে খবর পান তার বাবার লাশ তাদের বাড়ির পাশে গাছ বাগানে পড়ে রয়েছে। তার ধারণা, তার বাবাকে দোকান থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

তবে তার বাবার সাথে কারও বিরোধ ছিলনা বলে দাবি তার। তিনি এ হত্যার সঙ্গে জড়িতদের আটক এবং বিচার দাবি করেন তিনি।

ছাগলনাইয়া থানার ওসি হাসান ইমাম জানান, সকাল ৬টার দিকে খবর পেয়ে এএসপি সার্কেলসহ ঘটনাস্থলে যান। সেখানে গিয়ে গাছ বাগানে কালামিয়ার মরদেহ পড়ে থাকতে তারা দেখেন। ধারণা করা হচ্ছে কালা মিয়ার অন্ডকোষ চেপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঘটনাস্থলের পাশের বাড়িতে ভাড়ায় থাকা দুই নারীকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ছাগলনাইয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মো. ওয়ালী উল্যাহ জানান, ঘটনা তদন্ত করা হচ্ছে। মনে হচ্ছে এটি হত্যা হতে পারে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের সনাক্তের কাজ চলছে। রহস্য উদঘাটনে আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

চৌদ্দগ্রামে সবজি বোঝাই ট্রাক উল্টে চালক নিহত

ফখরুদ্দীন ইমন:

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সজবি বোঝাই একটি ট্রাক মহাসড়কের পাশের খাদে উল্টে পড়ে ট্রাক চালক মো: উজ্জ্বল (৪০) নিহত হয়েছে। নিহত উজ্জ্বল ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জ থানার পূর্ব বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের আনিসুর রহমানের ছেলে। এ ঘটনায় ট্রাক হেলপার মো: জয়নাল আবেদীন (২৫) আহত হয়েছে। আহত জয়নাল আবেদীন একই এলাকার মো: জহির উদ্দিনের ছেলে। মঙ্গলবার (২১ মে) সকালে তথ্যটি নিশ্চিত করেন মিয়াবাজার হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ এস এম লোকমান হোসাইন।

জানা গেছে, সোমবার রাত দশটায় উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের নানকরা এলাকার মোহাম্মদ আলী ফিলিং স্টেশনের সামনে চট্টগ্রামগামী একটি সবজি বোঝাই ট্রাক (ঝিনাইদহ-ট-১১-১২১৯) নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চট্টগ্রামমুখী লেনের পশ্চিম পাশের খাদে পড়ে যায়। এতে ট্রাক চালক মো: উজ্জ্বল ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছে।

এ ঘটনায় ট্রাক হেলপার মো: জয়নাল আবেদীন আহত হয়েছে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সংবাদ পেয়ে চৌদ্দগ্রাম ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর সাব স্টেশন অফিসার বিপ্লব কুমার নাথ এর নেতৃত্বে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ও মিয়াবাজার হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক মো: গিয়াস উদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের লাশ ও দুর্ঘটনা কবলিত ট্রাকটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে আইনী প্রক্রিয়া শেষে নিহতের স্বজনদের নিকট লাশ হস্তান্তর করা হয়। এ ঘটনায় হাইওয়ে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা রুজু করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মিয়াবাজার হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ এস এম লোকমান হোসাইন জানান, ‘সোমবার দিবাগত রাত দশটায় মহাসড়কের নানকরা এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে চট্টগ্রামগামী একটি সবজি বোঝাই ট্রাক খাদে পড়ে ট্রাক চালক উজ্জ্বল নিহত হয়। এ ঘটনায় ট্রাক হেলপার জয়নাল আবেদীন আহত হয়। সংবাদ পেয়ে নিহতের লাশ ও দুর্ঘটনা কবলিত ট্রাকটি উদ্ধার করা হয়। আইনী প্রক্রিয়া শেষে স্বজনদের নিকট লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।’

চৌদ্দগ্রামে ৬০ কেজি গাঁজা সহ কাভার্ডভ্যান জব্দ

ফখরুদ্দীন ইমন:

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে ৬০ কেজি গাঁজা সহ একটি কাভার্ডভ্যান জব্দ করেছে থানা পুলিশ। এ সময় কাভার্ডভ্যান চালক সহ আরো দুই ব্যক্তি পালিয়ে গেছে।

জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার (১৮ মে) ভোর রাত ৪টায় চৌদ্দগ্রাম থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক মো: আলমগীর হোসেন এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্স সহ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ঘোলপাশা এলাকার ইশানচন্দ্রনগর দীঘির উত্তরপাড়ে কাশেম স্টোর এর সামনে নিয়মিত চেকপোস্ট ডিউটি করাকালীন সময়ে সন্দেহভাজন একটি কাভার্ডভ্যানকে (ঢাকা-মেট্রো-ট-১২-১৪৮৮) থামানোর সংকেত দিলে গাড়ীটি থামিয়ে কাভার্ডভ্যান চালকসহ আরো দুইজন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি দ্রুত গাড়ী থেকে নেমে কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে কাভার্ডভ্যানে তল্লাশী চালিয়ে ৬০ কেজি গাঁজা উদ্ধার ও মাদক পরিবহনকাজে ব্যবহৃত কাভার্ডভ্যানটি জব্দ করা হয়।

এ ঘটনায় শনিবার দুপুরে চৌদ্দগ্রাম থানায় অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শনিবার বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করে চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ত্রিনাথ সাহা বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মহাসড়কের ঘোলপাশা এলাকার ইশানচন্দ্রনগর দীঘির উত্তর পাশে বিশেষ অভিযান চালিয়ে ৬০ কেজি গাঁজা সহ একটি কাভার্ডভ্যান জব্দ করা হয়েছে।

এ সময় কাভার্ডভ্যান চালক সহ আরো দুইজন পালিয়ে গেছে। এ সংক্রান্তে থানায় মাদক আইনে মামলা রুজু হয়েছে। মাদকের বিরুদ্ধে থানা পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

চাঁদপুরে ভুয়া ডিবি পরিচয়ে ৫ যুবক আটক

ডেস্ক রিপোর্ট:

চাঁদপুরে সড়কে সাধারণ মানুষকে অবরুদ্ধ করে চাঁদাবাজির সময় ডিবি পুলিশের পরিচয় দেওয়া পাঁচ যুবককে আটক করা হয়েছে।

বুধবার (১৫ মে) দিনগত রাত ১০টার দিকে সদর উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের মধুরোড রেল স্টেশনের পাশে চাঁদাবাজিকালে তাদেরকে আটক করেন স্থানীয়রা।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) সকালে এসব তথ্য জানান চাঁদপুর সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জসিম উদ্দিন।

তিনি বলেন, খবর পেয়ে পাঁচ যুবককে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। স্থানীয়রা তাদেরকে ঘটনাস্থলে আটক করে রেখেছিলেন।

আটকরা হলেন জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম গোবিন্দিয়ার ইলিয়াস কাজীর ছেলে নাজির হোসেন (৩৬), শাহরাস্তির উয়ারুকের ফকির বাড়ীর তাজুল ইসলামের ছেলে মহিবুল ইসলাম (৩০), মতলব দক্ষিণের গোবিন্দিয়া পিংড়ার মিলন খানের ছেলে দিদার খান (৪২), একই উপজেলার ভাঙ্গারপাড় এলাকার সোহরাব উদ্দিনের ছেলে শরিফুল্লা প্রধানিয়া (৪০) এবং সদরের মান্দারি এলাকার মৃত ওসমান গনির ছেলে খোকন সর্দার (৪০)।

স্থানীয়রা জানান, এর আগেও এই পাঁচ যুবক অটোরিকশা নিয়ে এসে গোয়েন্দা পুলিশের নাম ব্যবহার করে সবাইকে বোকা বানিয়ে তল্লাশির নামে হয়রানি করতেন। এছাড়া প্রতারণার মাধ্যমে চাঁদাবাজিও করেছেন।

বুধবার কয়েক জায়গায় এরা লোকজনকে হয়রানি করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। এরপর মধুরোড রেল ষ্টেশন এলাকায় কয়েকজনকে তল্লাশিকালে অনেকের সন্দেহ হয়। পরে তাদেরকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়।

মধুরোড স্টেশন এলাকার ব্যবসায়ী অলী আহমদ বেপারী বলেন, রেলস্টেশনের ক্যান্টিনের পাশে পাকা রাস্তার ওপর (চাঁদপুর-থ-১১৪২২৫) সিএনজি চালিতে অটোরিকশা নিয়ে ওৎ পেতে ছিলেন পাঁচ যুবক। তাদের গায়ে প্রেস অ্যাণ্ড এন্টি-করাপশন লেখা কটি গায়ে দিয়ে এখানে এসে অবস্থান নেন। তাদের আচার আচরণে সন্দেহ হলে অবরুদ্ধ করে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবদুর রাজ্জাক মীর বলেন, আটক পাঁচজনের প্রেস এণ্ড এন্টি-করাপশন লেখা কটি গায়ে দিয়ে সাধারণ লোকজনকে অবরুদ্ধ করছিলেন। স্থানীয়রা জানিয়েছে তারা ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়েছে। পরে লোকজন তাদেরকে আটক করে আমাদেরকে জানায়। বর্তমানে অটোরিকশাসহ তারা থানা হেফাজতে আছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা প্রস্তুতি চলছে।

কাচ্চি ভাইয়ের মালিক সিরাজ গ্রেপ্তার, দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

ডেস্ক রিপোর্ট:

রাজধানীর বেইলি রোডে আগুনের ঘটনায় ‘কাচ্চি ভাই’ রেস্তোরাঁর মালিক সোহেল সিরাজকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (০৭ মে) রাতে মালয়েশিয়া থেকে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করলে তাকে গ্রেপ্তার করে ইমিগ্রেশন পুলিশ।

আটকের পর অভিযুক্ত সোহেল সিরাজকে মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

বুধবার সন্ধ্যায় সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার (মিডিয়া) মো. আজাদ রহমান বাংলানিউজকে সোহেল সিরাজের গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, বেইলি রোডে আগুনের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সোহেল সিরাজকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। আগুনের ঘটনায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

সিআইডি জানায়, বুধবার সকালে পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে সোহেল সিরাজকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে পাঠানো হয়। শুনানি শেষে আদালত তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

বেইলি রোডে গ্রিন কোজি কটেজ ভবনে আগুন লাগার পর থেকেই কাচ্চি ভাই রেস্তোরাঁর মালিক সোহেল দেশ থেকে পালিয়ে যান। এ নিয়ে আগুনের মামলায় এ পর্যন্ত মোট সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছ।

২৯ ফেব্রুয়ারি রাতে বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজ নামে ওই আটতলা ভবনে আগুন লাগে। ওই ভবনের দ্বিতীয় তলায় ছিল বিরিয়ানির দোকান কাচ্চি ভাই। ভবনটির অন্যান্য তলায়ও ছিল অনেকগুলো খাবারের দোকান। সাপ্তাহিক ছুটির আগের দিন বৃহস্পতিবার রাতে ভবনটিতে ছড়িয়ে পড়া আগুনে ৪৬ জনের মৃত্যু হয়।

নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ১৮ জন নারী এবং ৮ শিশু ছিল। তারা সবাই খাবার খেতে ভবনটির বিভিন্ন রেস্তোরাঁয় গিয়েছিলেন। এ ঘটনায় অবহেলার কারণে মৃত্যুর অভিযোগে পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করে। বর্তমানে মামলাটি তদন্ত করছে সিআইডি।

চৌদ্দগ্রামে আড়াই লাখ টাকা সহ আন্তঃজেলা অজ্ঞান পার্টির ২ সদস্য আটক

ফখরুদ্দীন ইমন:

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯ এর মাধ্যমে সংবাদ প্রাপ্তির মাত্র এক ঘন্টার মধ্যে বিশেষ অভিযান চালিয়ে চোরাই যাওয়া আড়াই লাখ টাকা সহ মো: নাছির উদ্দিন (৩৬) ও কামাল হোসেন (৪০) নামে আন্তঃজেলা অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ।

আটককৃত মো: নাছির উদ্দিন নোয়াখালীর সেনবাগ থানাধিন পদুয়া গ্রামের মৃত লকিয়ত উল্লাহ এর ছেলে ও কামাল হোসেন একই থানাধিন হাজারী বাড়ী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক এর ছেলে। বৃহস্পতিবার বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ত্রিনাথ সাহা।

জানা গেছে, গত বুধবার সকাল সাড়ে আটটায় ভিকটিম ফেনী জেলার সদর উপজেলার বালিগাঁও গ্রামের মৃত দলিলুর রহমানের ছেলে মো: রবিউল হক সুমন (৪৫) একই গ্রামের তাহার পরিচিত মো: নুরুল আফছার এর ছেলে মো: নজরুল ইসলাম (৩৪) সহ ফেনী মহিপাল বাসস্ট্যান্ড থেকে লোকাল যাত্রীসেবা বাসে (ঢাকা মেট্রো-জ-১১-১৪১৮) করে কুরবানীকে সামনে রেখে গরু কিনার উদ্দেশ্যে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা নিয়ে চৌদ্দগ্রাম থানাধিন মীরশ্বানী গরু বাজারের যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা করে। সকাল অনুমান দশটায় যাত্রীবাহী বাসটি মহাসড়কের চৌদ্দগ্রাম থানা এলাকার বাবুচি বাজারে থামলে ভিকটিম মো: রবিউল হক সুমনের মুখ হতে ফেনা বের হচ্ছে দেখে পিছন থেকে কয়েকজন যাত্রী শোরগোল শুরু করে। এ সময় সন্দেহজনক দুই ব্যক্তি গাড়ী থেকে দ্রুত নেমে যেতে চাইলে যাত্রীরা একজনকে আটক করে রাখে এবং অপর সন্দেহভাজন ব্যক্তি পালিয়ে যায়।

পরে জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯ এর মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার মো: আব্দুল মান্নান (বিপিএম) এর নির্দেশনায় চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ত্রিনাথ সাহার সার্বিক তত্বধানে থানার উপ-পরিদর্শক মোহাম্মদ ওসমান গণির নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্স সহ পুলিশের একটি টিম দ্রূতু ঘটনাস্থলে পৌঁছে জনতা কর্তৃক আটককৃত আসামী নাছির উদ্দিন ও তার কাছ থেকে উদ্ধারকৃত ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা পুলিশি হেফাজতে নেয়। পরে তথ্য প্রযুক্তি ও স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় উপজেলার ঘোলপাশা ইউনিয়নের বাবুচি বাজার জামে মসজিদের টয়লেট থেকে চোরাই যাওয়া ১ লাখ টাকা সহ অপর আসামী কামাল হোসেনকে আটক করে পুলিশ। এরপর চোরাই যাওয়া অর্থের মালিক মো: নুরুল আফছার চৌদ্দগ্রাম থানায় উপস্থিত হয়ে আটককৃত দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে এজাহার (মামলা নং-০১/০১.০৫.২০২৪ খ্রিস্টাব্দ) দায়ের করলে বৃহস্পতিবার দুপুরে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, আটককৃত ০১ নং আসামী নাছির উদ্দিনের বিরুদ্ধে একটি ডাকাতির প্রস্তুতি মামলা, একটি চুরির মামলা এবং ০২নং আসামী কামাল হোসেনের বিরুদ্ধে একটি চুরির মামলা বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ত্রিনাথ সাহা বলেন, ‘জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯ এর মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে মাত্র এক ঘন্টার মধ্যেই চোরাই যাওয়া আড়াই লাখ টাকা সহ আন্তঃজেলা অজ্ঞান পার্টির দুই সদস্যকে আটক করা হয়েছে। এ সংক্রান্তে আটককৃতদের বিরুদ্ধে চৌদ্দগ্রাম থানায় মামলা দায়ের শেষে বৃহস্পতিবার তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ডাকাতির প্রস্তুতি ও চুরির একাধিক মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ সার্বক্ষণিক তৎপর রয়েছে।’

চৌদ্দগ্রামে ৫০ কেজি গাঁজা সহ ৬ মাদক কারবারি আটক

ফখরুদ্দীন ইমন:

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৫০ কেজি গাঁজাসহ ছয় মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলো, নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানার গাবতলী নতুন বাজার (মাজদাইর গোরস্থান সংলগ্ন তুহিন মিয়ার ভাড়াটিয়া) এলাকার মৃত মাসুদ পারভেজ এর ছেলে হায়দার আহম্মেদ উৎসব প্রকাশ উৎসব শিকদার (৩০), একই থানার পশ্চিম ইসদাইর গ্রামের আলমাছ ঢালীর ছেলে মাহফুজুর রহমান প্রকাশ মুন্না (৩০), মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী থানার বাহারপাড়া গ্রামের মৃত হয়দার আলীর প্রকাশ হাসান আলীর ছেলে মো: রাকিব হোসেন প্রকাশ রকি (৩৫), লক্ষীপুর জেলার রামগঞ্জ থানার করপাড়া গ্রামের আবুল খায়েরের ছেলে সুফিয়ান হোসেন সজল (২৪), জামালপুর জেলার ইসলামপুর থানার নোয়াপাড়া গ্রামের আব্দুল বাসেত মন্ডলের ছেলে মো: ইব্রাহিম (২৬) ও কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার পৌরসভাধিন কমলপুর গ্রামের মৃত শিহাবুল আলম মিলন এর ছেলে রবিউল আলম পিয়াস (২৬)।

বুধবার বিকালে তথ্যটি নিশ্চিত করেন চৌদ্দগ্রাম থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক আলমগীর হোসেন।

জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার (০৩ এপ্রিল) সকাল পৌঁনে সাতটায় চৌদ্দগ্রাম থানার উপ-পরিদর্শক মো: মশিউর আলম সঙ্গীয় ফোর্স সহ চৌদ্দগ্রাম পৌরসভাধিন কমলপুর রাস্তার মাথা এলাকায় চৌদ্দগ্রাম উপ-কর কমিশনারের কার্যালয়ের সামনে মহাসড়কের ঢাকামুখী লেনে বিশেষ অভিযান চালিয়ে চটের বস্তায় স্কচটেপ মোড়ানো মোট ১৩ পোটলায় ৫০ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়।

এ সময় ৬ মাদক কারবারিকে আটক করে পুলিশ। পরে আটককৃতদের বিরুদ্ধে থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের শেষে বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। আটককৃত রকির বিরুদ্ধে ৫টি মাদক মামলা সহ মোট ৬টি মামলা, উৎসব এর বিরুদ্ধে ৪টি মাদক মামলা সহ মোট ৫টি মামলা, মাহফুজ মুন্নার বিরুদ্ধে ১টি মাদক ও ১টি ধর্ষণের মামলা বিচারাধিন রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ৫০ কেজি গাঁজা সহ ৬ মাদক কারবারিকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে থানায় আইনগত ব্যবস্থা শেষে বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। আটককৃত ৩ আসামীর বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় মাদক মামলা সহ একাধিক মামলা রয়েছে। মাদকের বিরুদ্ধে থানা পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

পুরো দেশটাই এখন জুলুমের নগরীতে পরিণত হয়েছে: মির্জা ফখরুল

ডেস্ক রিপোর্ট:

সারাদেশটাই এখন জুলুমের নগরী বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ মন্তব্য করেন তিনি।

‘আজ মিথ্যা, বানোয়াট ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় আদালত কতৃর্ক বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের জামিন নামঞ্জুর এবং কারাগারে পাঠানোর ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে’ এ বিবৃতি দেন ফখরুল।

তিনি বলেন, সারাদেশটাই এখন জুলুমের নগরী। হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর ঘটনা আওয়ামী জুলুমের আরেকটি বহিঃপ্রকাশ। আইনের শাসন ও সুশাসন দেশ থেকে চিরতরে বিদায় করে জনগণকে অত্যাচার আর উৎপীড়নের মধ্যে রাখা হয়েছে, যাতে কেউ প্রতিবাদী হয়ে রাস্তায় নেমে আসতে না পারে। এক সর্বগ্রাসী অরাজকতা দেশকে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে ফেলেছে। দেশে এক ব্যক্তির ইচ্ছা-অনিচ্ছা ও নব্য বাকশালী শাসন প্রতিষ্ঠিত করতেই শহর থেকে গ্রাম সর্বত্র মানুষের মধ্যে ভীতি ও আতঙ্কের বিস্তার ঘটানো হচ্ছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ৭ জানুয়ারি ডামি নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে আওয়ামী শাসকগোষ্ঠী অতি মাত্রায় বেপরোয়া ও হিংস্র হয়ে উঠেছে। মিথ্যাচার, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও অপকৌশলের মাধ্যমে অবৈধ রাষ্ট্রক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনসহ গণতন্ত্রমনা বিরোধী দল, ভিন্ন মত ও পথের মানুষদের ওপর নিষ্ঠুর দমন-পীড়ন চালানো হচ্ছে অব্যাহতভাবে। কারাগারে বন্দি করা হচ্ছে নির্বিচারে। মিথ্যা ও বানোয়াট মামলায় জামিন নামঞ্জুর করে বিরোধী নেতাকর্মীদের কারাগারে পাঠানোর মাধ্যমে স্বাধীন দেশটাকে আওয়ামী লীগের জমিদারী বানানো হয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, সারাদেশে প্রতিনিয়ত সরকারের মদদে বিরোধী নেতাকর্মীদের জামিন নামঞ্জুরের মাধ্যমে কারান্তরীণ করার ঘটনায় আমি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি এবং অবিলম্বে হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ তার নিঃশর্ত মুক্তির জোর আহ্বান জানাচ্ছি।