Tag Archives: মেঘনায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত প্রবাসীর মৃত্যু

মেঘনায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত প্রবাসীর মৃত্যু

জাকির হোসেন হাজারী:
কুমিল্লার মেঘনা উপজেলায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়ে কুদ্দুস আলী (৪৫) নামে এক মালয়েশিয়া প্রবাসী মারা গেছেন। হামলার ৪৩ দিন পর মঙ্গলবার (২৯ জুন) রাতে রাজধানীর একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

সে উপজেলার উপজেলার চালিভাঙ্গা ইউনিয়নের ফরাজিকান্দি গ্রামের মৃত নুর আহম্মদের ছেলে।

সরেজমিনে গেলে নিহতের বড় ভাই আমীর হোসেন বলেন, আমার ভাই শুক্কুর আলীসহ আমরা ধান কাটার শ্রমিকের কাজ করি। গত ১৬মে পাশের বাড়ীর মোতালেব মিয়া তার জমির ধান কাটতে বলে। আমরা আরেকজনের জমির ধান কাটবো বলে কথা দিয়েছি, আজ পারবো না, কেনো কাটতে পারবো না, এখনই ধান কেটে দিতে হবে বলে আমাকে এবং আমার ভাই শুক্কুর আলীর সাথে মোতালেব মিয়া ও তার লোকজনের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এঘটনার পর আমরা বাড়ীতে চলে আসি এবং আমাদের প্রতিবেশী ও বাড়ীর লোকজনকে জানাই। বাড়ীর লোকজন তাদের সাথে আলোচনা করে সমাধান করে দিবে বলে আশ্বাস দেয়। পরে রাত সাড়ে ১০টায় হঠাৎ মোতালেব মিয়া লোকজন নিয়ে আমাদের বাড়ীতে হামলা করে। আমার আমার উপড় গুলি করে এবং ছোট ভাই কুদ্দুস আলীকে কুপিয়ে আহত করে। আমার ভাই ৪৩ দিন অজ্ঞান থেকে মঙ্গলবার রাতে মারাযায়।
প্রতিবেশী ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি আমিন উদ্দিন বলেন, সামান্য ধান কাটার বিষয় নিয়ে হামলার ঘটনায় শুকুর আলীর ভাই কুদ্দুস আলীসহ ৫জন আহত হলেও আশঙ্কাজনক অবস্থায় কুদ্দুস আলীকে ওই রাতেই ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়।

বুধবার(৩০ জুন) বিকাল সোয়া ৫টায় ন স্বামীর মরদেহ বাড়ীতে আনার পর নিহতের স্ত্রী রেনুজা বেগম বার বার মূর্ছা যেতে দেখা যায় । বড় তিন মেয়ে এবং ১২ ও১৪ বছরের দুই ছেলের চিৎকারে দেখতে লোকজনকে চোখের পানি মুছতে দেখা গেছে। রেনুজা বেগম বলেন, আমার স্বামী তিন মাস আগে মালয়েশিয়া থেকে দেশে এসে কৃষি কাজ শুরু করেছিলো। সে কখনো কারো সাথে ঝগড়া বিবাদ করেনি। মোতালেবসহ লোকজন নিয়ে রাতে আমাদের বাড়ী হামলা করে। আমার স্বামীকে অজ্ঞান অবস্থায় ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেল দেড় মাস পর আজ লাশ বাড়ীতে আসলো। আর দেড় মাসের চিকিৎসা খরচ চালাতে মানুষের কাছে ধার দেনাসহ আমার দুইটি গাভী ও ৩২ শতাংশ জমি বিক্রি করতে হয়েছে। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমার স্বামী হত্যার বিচারসহ আমার এতিম ছেলে মেয়েদের নিরাপত্তা চাই।

১৬ মে হামলার ঘটনার সাতদিন পর ২৩ মে নিহত কুদ্দুস আলীর ছোট ভাই জহির মিয়া ২৫ জনের নামে মেঘনা থানায় একটি মামলা করেন।

এদিকে মোতালেব মিয়ার বাড়ীতে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। ঘরটি তালা অবস্থায় দেখা গেছে। মোতালেব মিয়ার প্রতিবেশী আমেনা বেগম জানান, ঘটনার পর থেকেই বাড়ীটি তালা দেয়া থাকে, ২-৩দিন পরপর রাতে খুলতে দেখা যায়।

মেঘনা থানার ওসি আব্দুল মজিদ  জানান, গত মে মাসে ফরাজীকান্দি গ্রামের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। অভিযুক্তরা জামিনে রয়েছে। এ ঘটনায় যেহেতু আগেই মামলা হয়েছে এখন এর সাথে নতুন ধারা যুক্ত হবে।