Tag Archives: মেঘনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

মেঘনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সংবাদ সম্মেলন

 

জাকির হোসেন হাজারীঃ

কুমিল্লা জেলার মেঘনা উপজেলার ভাওরখোলা ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক সরকার আব্বাসীর বিরুদ্ধে অপ-প্রচার ও ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে এলাকাবাসী।

২৭ অক্টোবর হোমনা-মেঘনা আঞ্চলিক সড়কের ভাওরখোলায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সাতজন ইউপি সদস্য বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ এনে অপসারনের দাবীতে মাননববন্ধন করে এলাকাবাসী। ওইদিনই মেঘনা আইডিয়েল স্কুলে সাংবাদিক সম্মেলন করে ওই ইউনিয়নের আটজন সদস্য লিখিত বক্তব্যে চেয়ারম্যানের বিভিন্ন অনিয়ম দূর্নীতি ও জমি দখল কওে মৎস্য প্রকল্প করার কথা তুলে ধরলে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া ফলাও প্রকাশ করে।

এর প্রতিবাদে মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) দুপুরে একই সড়কে চেয়ারম্যান ফারুক সরকার আব্বাসীর পক্ষে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে এলাকাবাসী। মানববন্ধনে জমির মালিক দাবীদার রায়হান আহম্মেদ, মনোয়ারা বেগম ও ঝর্ণা আক্তার বলেন, বর্ষাকালে আমাদের জমিতে পানি থাকার কারনে কোন ফসল হয় না। এই মৌসুমে আমাদের জমি পত্তন(পোষানী) নিয়ে চেয়ারম্যান ফারুক সরকার আব্বাসী মাছ চাষ করে. বাকী ৬ মাস আমরা চাষাবাদ করি।

পরে চেয়ারম্যান ফারুক সরকার আব্বাসী তাঁর বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে লিখিত বক্তব্যে বলেন, এখানকার জনগণ আমাকে ভোটের মাধ্যমে তিনবার চেয়ারম্যান বানিয়েছে। আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষন্বিত হয়ে এলাকায় আমার নামে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রসহ কুৎসা রটনা করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে কয়েকটি মিথ্যা অভিযোগ করেছে স্বার্থন্বেষী মহল, যার তথ্য প্রমাণ না পাওয়ায় ইতিমধ্যে খারিজ হয়ে গেছে।

মেঘনা উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক চেয়ারম্যান ফারুক সরকার আব্বাসী বলেন, কথিত আ’লীগ নেতা নামধারী ভূমিদস্যু মোবারক হোসেন লিটন এলাকায় খুটি, মিটারসহ নতুন বিদ্যুত সংযোগ দেয়ার নামে মানুষের সাথে প্রতারণা করার একাধিক অভিযোগ আমার নিকট করেছে এলাকাবাসী। এরপর থেকেই লিটন আমার নামে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র শুরু করে। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আমার নামে করা মিথ্যা বানোয়াট অভিযোগের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং সঠিক তদন্তের দাবি জানাচ্ছি।

মেঘনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

 

দাউদকান্দি প্রতিনিধিঃ
কুমিল্লার মেঘনা উপজেলা ভাওরখোলা ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক আবাবসীর বিরুদ্ধে সাতজন ইউপি সদস্য বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠেছে।

রবিবার (২৭ অক্টোবর) দুপুরে মেঘনা আইডিয়েল স্কুলে সাংবাদিক সম্মেলন করে ওই ইউনিনের আটজন সদস্য লিখিত বক্তব্যে এমন অভিযোগ করেন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ এবং চেয়ারম্যানের অপসারনের দাবীতে ভাওয়ারখোলা-মেঘনা উপজেলা সড়কে মাননববন্ধন করে এলাকাবাসী।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে ইউপি সদস্যরা জানান, বিএনপির আমলে থেকে শুরু করে টানা তিনবার ভাওরখোলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। মোঃ ফারুক হোসেন সরকার চেয়ারম্যান হওয়ার পর অস্ত্র আর সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে পুরো পরিষদ ও এলাকা নিয়ন্ত্রণ করার অভিযোগ রয়েছে।

ভাওয়রখোলা ইউনিয়ন পরিষদে ৯টি ওয়ার্ডে ৯জন ও তিনজন মহিলা মেম্বার থাকার পরও প্রতিটি ওয়ার্ডে সকল উন্নয়নমূলক কাজ চেয়ারম্যান ফারুক আব্বাসী তাঁর নিজস্ব বাহিনী দিয়ে করান। পরিষদের উন্নয়ন কাজ এডিপি, টিআর, খাবিখা, কাবিটা এবং ১% টাকার প্রকল্পের নাম মাত্র মেম্বারদেরকে সভাপতি করা হয়। প্রকল্পের টাকা ওঠানোর জন্য মেম্বারদেরকে পরিষদে নিয়ে দরজা বন্ধ করে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে স্বাক্ষর নিয়ে টাকা তুলে নেয়। কোন মেম্বার এর প্রতিবাদ করলেই লাঞ্চনার শিকার হতে হয়। তিন বছর যাবৎ সকল মেম্বারদেরকে বেতন ও সম্মানী না দেওয়ায় তারা ফুসে ওঠে। এ ইউনিয়নের মধ্যে কেউ দালান নির্মাণ করলেই তাকে মোটা অংকের টাকা চাঁদা দিতে হয় বলেও ভুক্তভোগিরার জানান। আর এ ক্ষোভের ফলেই আজ আটজন ইউপি সদস্য এবং এলাকাবাসী তার অপসারণ চেয়ে মানববন্ধন প্রতিবাদ সভা ও সাংবাদিক সম্মেলন করেছে।

ইউপি সদস্য সাব মিয়া ও মহিলা সদস্য ফাতেমা আক্তার বলেন, ফারুক অব্বাসী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর আমাদেরকে তিন বছর যাবৎ আমাদেরকে কোন বেতন ভাতা দিচ্ছে না। আমরা আমাদের পাপ্য চাইতে গেলে উল্টো হুমকি ও ধমকি দেয়। আর আমাদেরকে প্রকল্পের সভাপতি করে তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে কাজ করে আর আমাদের পরিষদে নিয়ে জোর করে স্বাক্ষর নিয়ে টাকা তুলে নেয়। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ করেছি। এর আগেও সে দুইবার চেয়ারম্যান ছিল বিধায় এলাকাবাসী কেউ ভয়ে প্রতিবাদ করে না।

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি নাজির হোসেন বলেন, সে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির শিকার হয়েছে। এ ইউনিয়নে কেউ দালান নির্মাণ করতে হলে তাকে মোটা অংকের চাঁদা দিতে হয়। তার সন্ত্রাসী বাহিনী আর অস্ত্রের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে ভয় পায়। আমরা তার অত্যাচার থেকে মুক্তি চাই।

চেয়ারম্যান ফারুক আব্বাসী অভিযোগ অস্বিকার করে বলেন, আমি টানা তিন বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান। সামনে নির্বাচনের দিন এগিয়ে আসায় একটি মহল আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।