Tag Archives: মেসিকে সেরা প্রমাণ করলেন বিজ্ঞানীরা !

মেসিকে সেরা প্রমাণ করলেন বিজ্ঞানীরা !

 

স্পোর্টস ডেক্সঃ

লিওনেল মেসিকে আপনার সেরা ফুটবলার মনে নাও হতে পারে। হয়তো আপনার চোখে পৃথিবীর সেরা খেলোয়াড় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তবে ভুল করেও এই কথা সাইমন ব্রান্ডিশের কানে তুলতে যাবেন না। বিশ্বখ্যাত এই ক্রীড়াবিজ্ঞানীর মতে পৃথিবীর সেরা একজনই। আর ‘মেসি যত দিন বেঁচে আছেন তাঁর মতো আর কেউ হবে না’।

তবু যদি আপনার মনে হয় মেসি নয়, সেরা অন্য কেউ, আপনার উদ্দেশে ব্রান্ডিশের জবাব, ‘আপনি তখনই মেসি বাদে অন্য কাউকে সেরা বলতে পারবেন, যদি মেসি পা ভেঙে এক বছর ধরে পড়ে থাকেন, কিংবা ধরুন মেসি মরেই গেছেন; অথবা আপনি মিথ্যা বলছেন।’ বিজ্ঞানীদের তত্ত্ব আবেগ দিয়ে চলে না। তা প্রমাণ করতে হয়। ব্রান্ডিশ মেসিকে সেরা প্রমাণ করতে দুটি পরিসংখ্যান হাজির করলেন। সিএনএনকে ব্রান্ডিশ বলেছেন, এই মুহূর্তে মেসি প্রতি ৪৮ মিনিটে একটি গোল করছেন বা কাউকে দিয়ে করাচ্ছেন। অর্থাৎ প্রতি ম্যাচে মেসি দুটি করে গোল বা অ্যাসিস্ট করেন। যে পরিসংখ্যানে মেসির ধারেকাছে কেউ নেই। আবার গোল করা বা করানোতেও শুধু নয়, মেসির আসল জাদু লুকিয়ে আছে খেলাটা বানিয়ে তোলায়। যদিও গোল করা বা করানোই সাধারণত চোখে পড়ে। কিন্তু বার্সেলোনার মতো দল খেলাটা গুছিয়ে আক্রমণে যায়। ফলে প্রতিটা গোলের পেছনে অনেকের অবদান থাকে। এই অবদান বের করার উপায় হলো এক্সজি-বিল্ড নামের একটি পরিসংখ্যান-তত্ত্ব।

এই পরিসংখ্যানে যিনি গোল করেছেন আর যিনি গোল করতে সহায়তা করেছেন তাঁদের বাদ দিয়ে বাকি সবার অবদান মাপা হয়। ধরা যাক একজন গোলরক্ষক প্রথমে একজন ডিফেন্ডারকে বল ঠেলেছিলেন। সেই ডিফেন্ডার বল দিয়েছিলেন এক মিডফিল্ডারকে। মিডফিল্ডার থেকে উইঙ্গার, সেখান থেকে গোলমুখে থাকা কোনো খেলোয়াড়কে বল ঠেলা হলো। তারপর এল গোল।

এক্সজি-বিল্ড তত্ত্বে অ্যাসিস্টকারী উইঙ্গার আর গোলদাতা বাদে বাকি সবার অবদান পরিমাপ করা হয়। এখানে গোলরক্ষক, ডিফেন্ডার, মিডফিল্ডার পয়েন্ট পাবেন, শেষের দুজন নয়।