Tag Archives: মোবাইল

বুড়িচংয়ে গান বাজিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে এসএসসি’র পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা!

কুমিল্লা প্রতিনিধি:

‘সে আমারে আমার হতে দেয় না’ মোবাইলে এমন গান বাজিয়ে ঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলে ছিল বুড়িচং উপজেলার ফকির বাজার স্কুল এন্ড কলেজের এসএসসি পরীক্ষার্থী মোঃ সাকিবুল হাসান।

(২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪) সোমবার বিকেলে বুড়িচং উপজেলার বাকশীমূল ইউনিয়নের খারেরা পশ্চিম পাড়া প্রবাস ফেরত মাহবুব হোসেন মিস্ত্রির বাড়িতে ঘটনাটি ঘটে। তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন বাকশীমূল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল করিম ও ইউপি সদস্য আলহাজ্ব ফয়েজ আহমেদ। খবর পেয়ে সন্ধ্যায় বুড়িচং থানার এসআই জামশেদ ও সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,এবছর ফকিরবাজার স্কুল এন্ড কলেজের ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। ওই দিন পরীক্ষা না থাকায় সকালে অনিক মাস্টারের কাছে প্রাইভেট পড়ে বাড়িতে ফিরে আসে সাকিবুল হাসান। ওই দিন সোমবার সাকিবুল হাসানের মা পাখি আক্তার ও বাবা মাহবুব হোসেন কুমিল্লা কোটবাড়ি ছোট আলমপুর এক আত্মীয় বাড়িতে দাওয়াতে চলে যায়। বিকেলে তাদের বাড়িতে তার মামা রুবেল মিয়া ঘরের দরজা বন্ধ থাকায় তাকে অনেক ডাকাডাকি করে। ঘরের ভিতরে গানের আওয়াজ শোনা যায় কিন্তু তার কোনো সাড়াশব্দ না শুনে স্থানীয় মানুষকে জানান।

অনেক চেষ্টার পর দরজা না খুলতে পেরে পূর্ব-ভিটার বিল্ডিং ঘরের টিনের চাল কেটে দেখতে পায় সাকিবুল হাসান তীরের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলে আছে। পরে স্থানীয়রা বুড়িচং থানাকে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। স্থানীয়রা আরো জানান,সাকিবুল হাসানের লাশ তীরের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় ছিল আর নিচে তার খাটের বিছানায় মোবাইলে ‘সে আমারে আমার হতে দেয় না’ এমন একটি গান বাজতে ছিল। তবে তার মৃত্যুর আসল কারণ পরিবার সহ স্থানীয়রা বলতে পারে নাই। তার এমন মৃত্যুকে ঘিরে এলাকায় চাঞ্চল্যকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।

তার মৃত্যুতে মা পাখি আক্তার -বাবা মাহবুব হোসেন ও তার বোন মিনহাজ আক্তার, নানী মোমেনা বেগম সহ আত্মীয় স্বজনের আহাজারী কোনো মতেই থামছে না। পুলিশ জানান, মৃত্যুর কারণ জানান জন্য তাদের তদন্ত চলমান রয়েছে এবং লাশের ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

কুমিল্লায় ডাকাতি মামলায় চারজনকে ১০ বছরের কারাদণ্ড

ডেস্ক রিপোর্ট:

যাত্রী বেশে বাসে উঠে ধারালো চা-পাতি ও চুরি দ্বারা ভয়ভীতি প্রদর্শনসহ গুরুতর আঘাত করে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোন ও হাতঘড়ি ডাকাতির অপরাধে চারজনের প্রত্যেককে দু’টি ধারায় ১০বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন কুমিল্লার আদালত। কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ৫ম আদালতের বিচারক জাহাঙ্গীর হোসেন এ রায় দেন। সোমবার এই তথ্য নিশ্চিত করেন অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট মো. রফিকুল ইসলাম।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার হীরাঝিল গ্রামের মৃত মোঃ আজিজের ছেলে রাতুল ওরফে কাউছার, একই জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার তারারকান্দি গ্রামের সিরাজ উদ্দিনের ছেলে জামসেদ মোল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের দক্ষিণ পৈরতলার আবদুল হাকিমের ছেলে ইলিয়াস প্রকাশ সুমন ও নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন তারাব গ্রামের সরুফ মিয়ার ছেলে মোঃ সফিকুল ইসলাম প্রকাশ রফিক।

মামলার বিবরণে জানা যায়- ২০১০ সালের ২০ জুলাই ঢাকা সায়দাবাদ বাসস্ট্যান্ড হতে বাস ছেড়ে যায়। ডাকাতদল যাত্রীবেশে বাসে উঠে। মেঘনা ব্রিজ অতিক্রম করার পরপরই চা-পাতি ও ছোরা বের করে বাসটির চালককে গাড়ির স্টিয়ারিং হতে উঠিয়ে ডাকাতদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে যায়। যাত্রীদের উপর হামলা করে টাকা-পয়সা, মোবাইল ফোন, স্বর্ণালংকার লুন্ঠন করে নিয়ে যায়। যাত্রীদের শোর চিৎকার করলে ভবেরচর হাইওয়ে পুলিশ বাসটির পিছু ধাওয়া করে। বাসটি দাউদকান্দি আসলে দাউদকান্দি থানা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ গৌরীপুর বাস স্ট্যান্ডে ব্যারিকেড দিয়ে কয়েকজন ডাকাতকে আটক করে। এ ব্যাপারে ২০১০ সালের ২০ জুলাই চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার চন্দ্রাকান্দি গ্রামের কামাল হোসেন বাদী হয়ে ডাকাত রাতুল ওরফে কাউছার, জামসেদ মোল্লা, মোঃ সফিকুল ইসলাম রফিক ও ইলিয়াস প্রকাশ সুমন এবং পলাতক ডাকাত মোঃ ফারুক (২২) ও সোলায়মানসহ (২৫) অজ্ঞাতনামা আরও ৫ জনকে আসামি করে দাউদকান্দি থানায় একটি ডাকাতি মামলা করেন। অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আসামি রাতুল ওরফে কাউছার, জামসেদ মোল্লা, মো. সফিকুল ইসলাম রফিক, ইলিয়াস প্রকাশ সুমনের বিরুদ্ধে সাত বৎসরের সশ্রম ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থ দণ্ড, অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদণ্ড এবং তিন বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড ও তিন হাজার টাকা অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়। আসামি সোলাইমানের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে অভিযোগের দায় হতে খালাস প্রদান করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট মো. রফিকুল ইসলাম এবং আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট মো. তৌহিদুল ইসলাম বাবু।

মোবাইল ব্যবহারের সময় মুখের সামনে বিস্ফোরণে প্রাণ গেল শিশুর

 

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

ভারতের কেরালায় ৮ বছর বয়সী এক কন্যা শিশুর মুখের সামনে মোবাইল ফোন বিস্ফোরিত হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে।

ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে প্রকাশ, ওই সময় মোবাইল ব্যবহার করছিলেন কেরালার তিরুভিলভামালার বাসিন্দা আদিত্যশ্রী।

পুলিশ জানিয়েছে, সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। আদিত্যশ্রী তখন মোবাইল ব্যবহার করছিল।

আদিত্যশ্রী স্থানীয় একটি স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী।