Tag Archives: ম্যারাডোনা

কাতার বিশ্বকাপে মেসির ৬ রেকর্ড

স্পোর্টস ডেস্ক:

মহানায়ক তো বিশ্বকাপ স্পর্শ করলেনই , সাথে সাথে অনেক রেকর্ডের মালিক বনে গেলেন তিনি।

বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলতে নামলে বেশ কয়েকটি রেকর্ড গড়বেন লিওনেল মেসি, এটা ছিলো জানা কথা। তবে কয়টি রেকর্ড তিনি গড়তে পারেন, সে দিকেই ছিল সবার দৃষ্টি। রেকর্ড তো গড়লেনই। সঙ্গে একে একে বেশ কয়েকজন কিংবদন্তির রেকর্ডও ছুঁয়ে ফেললেন তিনি। পেলে, ম্যারাডোনা, লোথার ম্যাথউজ, পাওলো মালদিনি- ফুটবল বিশ্বের সব রথি-মহারথির রেকর্ড ভেঙ্গে খান খান করে দিয়েছেন তিনি।

বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে গোল করে গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতাকে পেছনে ফেলে আর্জেন্টিনার হয়ে সবচেয়ে বেশি গোল করার রেকর্ড গড়েছিলেন। ফাইনালে মাঠে নেমেই একটি রেকর্ড গড়েন এবং আরেকটি ছুঁয়ে ফেলেন। অধিনায়ক হিসেবে বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ (১৯টি) খেলার রেকর্ড হয় তার।

আজ বিশ্বকাপ খেলতে নেমেই বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ড গড়ে ফেললেন তিনি। সেমিফাইনালেই জার্মানির লোথার ম্যাথাউসের সমান হয়েছিলেন ২৫টি ম্যাচ খেলে। আজ খেলতে নামার পার তার নামের পাশে শোভা পাচ্ছে ২৬টি ম্যাচ।

এক নজরে দেখে নেয়া যাক, কী কী রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন তিনি

০১ . সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ড:

২০০৬ সাল থেকে ফুটবল বিশ্বকাপ খেলছেন মেসি। আজ ফ্রান্সের বিপক্ষে ফাইনালে খেলতে নামার সঙ্গে সঙ্গেই তার নামের পাশে জ্বলজ্বল করছিলো ২৬তম ম্যাচ। বিশ্বকাপের ইতিহাসে যা সর্বোচ্চ। জার্মানির লোথার ম্যাথাউসকে (২৫ ম্যাচ) পেছনে ফেলেছেন তিনি।

০২. সবচেয়ে বেশি সময় খেলার রেকর্ড:

ফ্রান্সের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে মেসি বিশ্বকাপে খেলেছেন ২১৯৪ মিনিট। ২২১৭ মিনিট খেলে শীর্ষে ছিলেন ইতালিয়ান কিংবদন্তি পাওলো মালদিনি। ফ্রান্সের বিপক্ষে ২৪ মিনিট খেলার পরই মেসি তাকে পেছনে ফেলে সবচেয়ে বেশি সময় বিশ্বকাপে খেলার রেকর্ড গড়েন মেসি। সব মিলিয়ে আজ ফ্রান্সের বিপক্ষে মেসি খেলেছেন ১৪৪ মিনিট (ইনজুরি টাইম এবং এক্সট্রা টাইমসহ)। সময়ের হিসেবে সর্বমোট ২৩৩৮ মিনিট বিশ্বকাপে খেলেছেন মেসি।

০৩. বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি জয়:

ফাইনালে ফ্রান্সের বিপক্ষে টাইব্রেকারে জয়ের মধ্য দিয়ে বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ১৭টি ম্যাচে জয়ের রেকর্ড স্পর্শ করেছেন মেসি। ১৭টি জয় নিয়ে এতদিন শীর্ষে ছিলেন জার্মানির মিরোস্লাভ ক্লোসা। এবার তার পাশে বসলেন মেসি।

০৪. পেলেকে পেছনে ফেললেন, পেলেকে স্পর্শ করলেন:

বিশ্বকাপে মোট ৯টি গোল করিয়েছেন সতীর্থদের দিয়ে। নিজে গোল করেছেন মোট ১৩টি। সব মিলিয়ে বিশ্বকাপে মোট ২১টি গোলে অবদান মেসির। বিশ্বকাপে সব মিলিয়ে ১২ গোল করেছিলেন পেলে। আজ দুই গোল করে পেলেকে পেছনে ফেললেন তিনি। সে সঙ্গে সর্বমোট গোলে অবদানের ক্ষেত্রেও পেলেকে ছুঁলেন তিনি। পেলে ১২ গোলের পাশাপাশি ১০টি গোলে অ্যাসিস্ট করেছেন। মোট ২২ গোলে তার অবদান। মেসিরও মোট ২২টি গোলে অবদান রাখার রেকর্ড হলো।

০৫. প্রথম ফুটবলার হিসেবে দুটি গোল্ডেন বল:

বিশ্বকাপের ইতিহাসে এই প্রথম দুটি গোল্ডেন বল জয়ের রেকর্ড গড়লেন মেসি। ১৯৮২ সাল থেকে টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার গোল্ডেন বল চালু করা হয়। এরপর আর কোনো ফুটবলার ২বার গোল্ডেন বল জেতেননি। ২০১৪ সালে দেশকে বিশ্বকাপ জেতাতে না পারলেও প্রতিযোগিতার সেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছিলেন মেসি। এবার বিশ্বকাপই জিতলেন। সে সঙ্গে গোল্ডেন বলও উঠলো তার হাতে। বিশ্বকাপের ৯২ বছরের ইতিহাসেও কোনো ফুটবলার ২বার টুর্নামেন্ট সেরা নির্বাচিত হননি।

০৬. সব রাউন্ডেই গোল: এই প্রথম কোনো ফুটবলার হিসেবে বিশ্বকাপের প্রতিটি রাউন্ডে গোল করার রেকর্ড রয়েছে তার। প্রথম রাউন্ড, দ্বিতীয় রাউন্ড, কোয়ার্টার ফাইনাল, সেমিফাইনাল এবং ফাইনাল- সব রাউন্ডেই গোল পেয়েছেন তিনি। গ্রুপ পর্বে শুধু পোল্যান্ডের বিপক্ষে গোল পাননি। এছাড়া বাকি ৬ ম্যাচের প্রতিটিতেই একটি করে এবং ফাইনালে ২ গোল করলেন তিনি।

ফুটবল ঈশ্বর ম্যারাডোনার নামে ব্যাংকনোট চালু করলো ইতালি

স্পোর্টস ডেস্ক :

সারা বিশ্বকে কাঁদিয়ে গত বছরের ২৫ নভেম্বর না ফেরার দেশে পাড়ি জমান ফুটবলের রাজপূত্র দিয়েগো ম্যারাডোনা। ম্যারাডোনার নামে আর্জেন্টিনা কর্তৃপক্ষ ব্যাংক নোট প্রকাশ করবে এমন খবর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

এরইমধ্যে ইতালির ক্যাস্টেলিনো ডেল বিফার্নো নামে ছোট্ট শহরে প্রকাশ পেল ফুটবল রাজপূত্রের ছবি ও নামঙ্কিত ব্যাংক নোট। ইতোমধ্যে তারা ম্যারাডোনার নামে ব্যাংক নোট ইস্যু করেছে।

এ উদ্যোগের মূল পরিকল্পনাকারী হলেন ওই শহরের মেয়র এনরিকো ফ্রাটাঙ্গেলো। তিনি জানান, ম্যারাডোনাকে দক্ষিণ গোলার্ধের একজন নায়ক মনে করি আমরা। আর্জেন্টিনা আমাদের কাছে একজন সত্যিকারের নায়ককে পাঠিয়েছিল। যিনি সব সময়ই দরিদ্র মানুষের পক্ষে দাঁড়িয়েছেন এবং কখনোই ভুয়া কথা বলেননি।

তিনি আরও জানান, দিয়েগোই আমাদেরকে, বিশেষ করে দক্ষিণ ইতালি এবং দক্ষিণ গোলার্ধের মানুষদের চিন্তা-চেতনাকে উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। আমাদেরকে চিন্তায় প্রোথিত করে দিতে পেরেছেন যে, সব মানুষই সমান। সুতরাং, চীর অমর হয়ে থাকুন ম্যারাডোনা, চির অমর হয়ে থাকুক স্বাধীনতা জানান ওই মেয়র।

তবে ম্যারাডোনার ছবি দিয়ে তৈরি করা ওই ব্যাংক নোট পুরো ইতালিতে চলবে না। শুধুমাত্র ওই নির্দিষ্ট শহরটিতেই পণ্য কেনা-বেচার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হবে বিশেষ ব্যাংক নোট।

ইতালির ওই শহরের ১০০ টাকার ব্যাংক নোটের সামনের অংশে ম্যারাডোনার ১৯৮৬ বিশ্বকাপের সেই বিখ্যাত ‘হ্যান্ডস অব গড’ এর ছবিটি ব্যবহার করেছে ক্যাস্টেলিনো ডেল বিফার্নোর কর্তৃপক্ষ।

ম্যারাডোনার মৃত্যুর শোকে ৭ দিন ধরে না খেয়ে নাটোরের বাবু

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

কিছুদিন আগে না ফেরার দেশে চলে গেছেন ফুটবলের ঈশ্বর ম্যারাডোনা। তবে ম্যারাডোনার মৃত্যু কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার রুহুল আমিন সরকার বাবু।

প্রিয় ফুটবলারের মৃত্যুতে ভাত, মাছ ও মাংস খাওয়া বন্ধ রেখেছেন। গত বুধবার থেকে ম্যারাডোনার জন্য শোক পালন করছেন তিনি।

উপজেলার বিহারকোল বাজারের ভাই বন্ধু মুদি দোকানের স্বত্বাধিকারী রুহুল আমিন সরকার বাবু।

দেখা যায়, রুহুল আমিন সরকার বাবু কালোব্যাজ ধারণ করেছেন। তার দোকানে প্রিয় ফুটবলারের মৃত্যুতে সাত দিনের শোক পালনের ব্যানার, কালো পতাকা উত্তোলন এবং আর্জেন্টিনার পতাকা উত্তোলন করে রেখেছেন। একই সঙ্গে সবার ওপর বাংলাদেশের জাতীয় পতাকাও উত্তোলন করে রেখেছেন।

তিনি জানান, আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়াগো ম্যারাডোনার মৃত্যুতে তিনি সাত দিন শোক পালনের সিদ্ধান্ত নেন। তার মৃত্যুর দিন থেকে তিনি ভাত, মাছ ও মাংস খাওয়া বন্ধ রেখেছেন। মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে ম্যারাডোনার আত্মার শান্তি কামনায় শোক পালন কর্মসূচি শেষ করার কথা রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, দোকানি বাবু অসম্ভব ম্যারাডোনা ভক্ত। তিনি প্রত্যেক বিশ্বকাপের সময় দোকান থেকে তার বাড়ি পর্যন্ত এক কিলোমিটার আর্জেন্টিনার পতাকা টানান। এছাড়া আর্জেন্টিনার ম্যাচের দিন তিনি দর্শকদের জন্য বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা করতেন। ম্যারাডোনার মৃত্যুতে তিনি ভেঙে পড়েছেন।

ম্যারাডোনার মৃত্যু: যেসব প্রশ্নের উত্তর এখনো অজানা

 

স্পোর্টস ডেস্কঃ

ফুটবল ঈশ্বর ম্যারাডোনার শোকে কাঁদছে পুরো পৃথিবী। শোক, শ্রদ্ধা, ভালোবাসায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বুয়েনাস আয়ার্সের অদূরে বেলা ভিস্তা সমাধিস্থলে মা-বাবার পাশেই সমাহিত করা হয়েছে দিয়েগো ম্যারাডোনাকে। তবে এর মধ্যেই কিছু বিষয় নিয়ে মানুষের মনে প্রশ্ন জেগেছে। আর্জেন্টিনার প্রভাবশালী দৈনিক ‘টিওয়াইসি স্পোর্টস’ সে বিষয়গুলো তুলে ধরার চেষ্টা করেছে। খোঁজার চেষ্টা করেছে প্রশ্নগুলোর সম্ভাব্য সমাধান। সাম্প্রতিক সময়ে ম্যারাডোনার চিকিৎসায় কোনো গলদ ছিল কিনা, তার সম্পদের উত্তরাধিকারী কারা হবেন, তিনি যে ক্লাবের কোচ ছিলেন সেই জিমনেশিয়ার ভবিষ্যৎ কী হবে- এসব বিষয়ে আলোকপাত করেছে আর্জেন্টাইন দৈনিকটি

*বাড়িতে কি পুনর্বাসন করছিলেন?

টেলেফের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে চেহে বলেন, ‘অতি সতর্কতার সঙ্গে বিশ্নেষণ ও ক্লিনিক্যাল চেকআপের সুবিধা নেই এমন জায়গায় মস্তিস্কের অস্ত্রোপচার হওয়া উচিত নয়।’ তাকে সারিয়ে তোলার জন্য কেমন ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন ছিল, সেটাও ব্যাখ্যা করেছেন এই চিকিৎসক, ‘তাকে একটা ভিন্ন অবকাঠামোতে রাখা উচিত ছিল। অনেকটা তাকে আমরা কিউবাতে নিয়ে যাওয়ার পর যে পরিবেশে রাখা হয়েছিল।’

*বুধবার সকালে (যখন মৃত্যুবরণ করেন) কী হয়েছিল?

ম্যারাডোনার বন্ধু ও আইনজীবী ম্যাথিয়াস মোরলা আঙুল তুলেছেন তার দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা স্বাস্থ্যকর্মীদের দিকে, ‘এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না যে, ১২ ঘণ্টা ধরে আমার বন্ধুর কোনো চেকআপ হয়নি বা চিকিৎসা পাননি।’ তিনি আরও যোগ করেন, অ্যাম্বুলেন্স আসতে আধঘণ্টা দেরি করেছে।

*উত্তরাধিকারের কী হবে?

ম্যারাডোনার মৃত্যুতে পাদপ্রদীপের আলোয় চলে এসেছেন তার পাঁচ সন্তান দালমা, জিয়ানিন্না, দিয়েগো জুনিয়র, দিয়েগুইতো ফার্নান্দো ও জানা। বুয়েনাস আয়ার্স থেকে দুবাই পর্যন্ত থাকা ম্যারাডোনার সম্পত্তির অধিকাংশই ব্যক্তিগত (বাড়ি, গাড়ি, অলংকার)। এ ছাড়া আর্জেন্টিনাসহ তিনি বিশ্বের যেসব জায়গায় কাজ করেছেন এবং বসবাস করেছেন সেসব জায়গায় তার বড় বড় বিনিয়োগ রয়েছে। এই সম্পদ কি পাঁচ স্বীকৃত সন্তান পাবে? নাকি আরও অংশীদার রয়েছে?

*জিমনেশিয়া ডে লা প্লাটার টেকনিক্যাল ডিরেক্টর কে হবেন?

২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে ম্যারাডোনার হাত ধরেই জিমনেশিয়ায় এসেছিলেন সেবাস্তিয়ান মেন্দেজ। ম্যারাডোনার মৃত্যুর পর খেলোয়াড় ও ক্লাব কর্তাদের পূর্ণ সমর্থন সত্ত্বেও পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন তিনি। তার কাছে ম্যারাডোনাই ছিলেন সব। এ জুটির স্থলাভিষিক্ত হতে যাচ্ছেন মারিয়ানো মেসেরা ও লিওনার্দো মার্তিনি।

*ভক্তরা কোথায় শ্রদ্ধা জানাবেন?

অনেকটা হুট করেই মৃত্যুবরণ করেছেন ম্যারাডোনা। কোথায় তাকে সমাহিত করা হবে সে বিষয়ে কোনো কিছুই বলে যাননি তিনি। যে কারণে পারিবারিক সিদ্ধান্তে বুয়েনাস আয়ার্সের অদূরে বেলা ভিস্তা মিসেট্রিতে মা-বাবার পাশে সমাহিত করা হয়েছে ম্যারাডোনাকে। এটা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত জায়গা। এখানে সাধারণ জনগণের প্রবেশের কোনো সুযোগ নেই। তাহলে ম্যারাডোনাকে ভক্তরা কোথায় শ্রদ্ধা জানাবেন?

*মৃত্যুর পর কী কী শ্রদ্ধাঞ্জলির ব্যবস্থা হয়েছে?

ম্যারাডোনার মৃত্যুর পর জাতীয় শোকের অংশ হিসেবে শুক্রবার পর্যন্ত বন্ধ ছিল আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। শনিবার থেকে তারা স্বাভাবিক কার্যক্রমে ফিরে যাবে। সব মাঠেই তাকে বিপুল শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানানো হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। তবে এই ক’দিন যেভাবে পুরো দেশবাসী তার জন্য উদ্বেল হয়ে উঠেছিল, তাতে ধারণা করা হচ্ছে মাঠ ছাড়িয়ে এই শ্রদ্ধা সর্বত্র ছড়িয়ে পড়বে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, মাঠ, রাস্তা, বিমানবন্দরসহ বিভিন্ন স্থাপনা তার নামকরণ হতে পারে। এরই মধ্যে ইতালির ন্যাপলসে ‘সান পাওলো’ স্টেডিয়ামের নাম পাল্টে দিয়েগো আরমান্ডো ম্যারাডোনার নামে করার ঘোষণা দিয়েছে ন্যাপোলি কর্তৃপক্ষ।