Tag Archives: যানবাহন ও যাত্রীদের অসহনীয় ভোগান্তির সেই চিরচেনা রূপে আর্বিভূত হয়েছে দেশের লাইফল্যানখ্যাত এই মহাসড়ক

মহা যানজটে নাকাল ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক, কুমিল্লা থেকে ঢাকার দূরত্ব ৯/১০ ঘন্টা !

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
ঈদ আসছে । ঘরমুখো মানুষের যাতায়াতও শুরু হয়েছে। যানবাহনের সংখ্যাও বাড়ছে । সেই সাথে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কও তার পূর্বের রূপে ফিরে এসেছে। কৃত্রিম যানজট, যানবাহন ও যাত্রীদের অসহনীয় ভোগান্তির সেই চিরচেনা রূপে আর্বিভূত হয়েছে দেশের লাইফল্যানখ্যাত এই মহাসড়ক। গত দুদিন ধরে যানজট বিরাজ করছে এই মহাসড়কে। তবে বৃহস্পতিবার ভোররাত থেকে এই যানজট তীব্র আকার ধারণ করেছে।

মহাসড়কের কুমিল্লার দাউদকান্দির জিংলাতলী থেকে কাচঁপুর ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ৬৭ কিঃমিঃ অংশ যানজটের কবলে । ফলে এক কিঃমিঃ সড়ক অতিক্রম করতে অনেক ক্ষেত্রে সময় লাগছে এক ঘন্টা । গত দুদিনে কুমিল্লা থেকে ঢাকা যেতে সময় লাগছে গড়ে ৮/৯ ঘন্টা। এতে করে ফোরলেনের সুবিধার বদলে মহাভোগান্তি দেখা দিয়েছে।

স্থানীয় সূত্রমতে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লায় রয়েছে ২৫ কিঃমিঃ যানজট। দাউদকান্দির গোমতী সেতুর টোলপ্লাজা থেকে জিংলাতলী পর্যন্ত ২৫ কিলোমিটার এলাকায় তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে।

কুমিল্লা থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাওয়া কুবি শিক্ষার্থী শাহাদাত জানান, বুধবার সন্ধ্যায় বাসে উঠেছি । ঢাকায় পৌছতে ১২ ঘন্টা সময় লেগেছে। অসহনীয় ভোগান্তি।

বৃহস্পতিবার সকাল ৭ টায় কুমিল্লা থেকে বাসে উঠেছেন ডাঃ রাসেল। তিনি জানান, এক জায়গায়ই বসেছিলাম প্রায় ২ ঘন্টা। এমন ভোগান্তি আর কতদিন।

মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকাঘুরে জানা যায়, আপাতত পাঁচটি কারণে মহাযানজটে আবৃত রয়েছে এই সড়ক।

প্রথমত, দাউদকান্দি টোলপ্লাজা ও মেঘনা সেতুতে টোল আদায়ে ধীর গতি, টোল আদায়কারিদের সাথে অতিরিক্ত টোল আদায় নিয়ে মালবাহি যানবাহন চালক-হেলপারদের কথা কাটাকাটিতে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করার ফলে সেতুর দুপাশে যানবাহনের লম্বা সারি সৃষ্টি হয়। এতে যানজট বৃদ্ধি পাচ্ছে।

দ্বিতীয়ত, মহাসড়কে প্রতিদিন প্রায় ৩০ হাজার যানবাহন চলাচল করে। এর মধ্যে বেশিরভাগই মালবাহি যানবাহন। গত দুয়েকদিনে মালবাহি যানবাহনের সংখ্যা অনেকটা বেড়েছে। ফলে যানজটও বেড়েছে।

তৃতীয়ত, মেঘনা সেতুর পাশে সড়ক কাজ হচ্ছে, দ্বিতীয় সেতুর কাজ চলছে। এটার ফলে কয়েক মাস ধরে এক লাইন গাড়ি বন্ধ রেখে আরেক লাইনে গাড়ি ছাড়া হয়। আর এখন তো যানবাহনের সংখ্যাও বেড়েছে। ফলে এখানেই সময় ব্যয় হচ্ছে ৩/৪ ঘন্টা।

চতুর্থত, ট্রাফিক সপ্তাহে মামলার ভয়ে ফিটনেসবিহীন গাড়িগুলো সড়কে নামানো হয়নি। কিন্তু গত দুয়েকদিনে এসব গাড়ি মহাসড়কে চলাচল শুরু করেছে।

পঞ্চমত, মহাসড়কে কোরবানির গরুবাহী যানবাহনের সংখ্যাও অধিক হারে বেড়েছে। যা আগামী কয়েকদিনে আরো বাড়বে। ফলে যানজট আরো তীব্র হবে।  সব মিলিয়ে এবারের ঈদ যাত্রা সুখের বদলে মহাভোগান্তিতে রূপ নিচ্ছে।

দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, মহাসড়কে যানজট রয়েছে। আমরা নিরসনের চেষ্টা করে যাচ্ছি।