Tag Archives: যুদ্ধাপরাধী

বিএনপির কর্মীর চাকরির জন্য নিজামীর কাছে তদবির করেছিলেন এমপি প্রাণ গোপাল !

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
আবারও বক্তব্য দিয়ে ভাইরাল কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) সংসদীয় আসনের সাংসদ অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল। যুদ্ধাপরাধি, জামায়াত ইসলামির শীর্ষ নেতা, চারদলীয় জোট সরকারের সময় শিল্পমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকাকালিন সময়ে মতিউর রহমান নিজামিকে অনুরোধ করে বিএনপির এক ছেলেকে চাকরি নিয়ে দিয়েছিলেন বর্তমান সাংসদ অধ্যাপক ডাঃ প্রাণ গোপাল দত্ত ।

চলতি বছরের মার্চ মাসে চান্দিনার হারং পশ্চিমপাড়া শাহী ঈদগাহ কমপ্লেক্স এর উদ্বোধনের পর প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদানকালে চান্দিনার সাংসদ অধ্যাপক ডাঃ প্রান গোপাল দত্ত নিজের মুখেই এ কথা স্বীকার করেন। এমপি প্রাণ গোপালের এই বক্তব্য এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল।

এমপি অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল ওই অনুষ্ঠানে বলেন, আমার এক ভাগিনা আছে। মিঠু তার নাম। তারা আবার বিএনপি করে। তারে যদি আমার কাছে দেখে, তখন আবার মানুষে বলবে বিএনপি নিয়ে ঘুরতেছে। তার চাকরিটা স্টিল ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশনে কিভাবে হয়েছিল , তা আপনারা শোনেন। মতিউর রহমান নিজামী (জামায়াত ইসলামীর শীর্ষ নেতা) তখন শিল্পমন্ত্রী । মতিউর রহমান নিজামী তার পাবনার সব রোগী আমাকে দেখাইতো। আমি উনার কাছে গেলাম। বললাম, আমার ভাগিনা। তার বাবা বিএনপি করে। আপনি যদি তাকে চাকরিটা দেন । তখন তিনি একটা কথাই বলছেন- মওদুদ সাহেবের তদবির আছে, হাওয়া ভবনের তদবির আছে। পদ একটা, আমি কি করে দিবো? তখন আমি উনাকে বললাম- আমি আপনার কাছে আবদার করেছি, আপনি পারলে দেন। তিনি পরে চাকরিটা দিয়েছেন। তিনি কথা রেখেছেন।

এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে শনিবার (১ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলার কেরণখাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ এর বাড়িতে সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ এবং কেরণখাল ইউনিয়ান আওয়ামীলীগ সভাপতির পিতা মরহুম হাজী সুন্দর আলীর স্মরণ সভা, মিলাদ মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মাও. মো: মনিরুজ্জামান বলেছেন, বিগত ইউপি নির্বাচনে চান্দিনায় নৌকাকে জোরপূর্বক হারানো হয়েছে। নৌকার বিরুদ্ধে আওয়ামী বিরোধী সমস্ত সিন্ডিকেটকে ঐক্যবদ্ধ করে নৌকার বিরুদ্ধে লেলিয়ে দেওয়া হয়েছে। শুধু ইউনিয়ন পরিষদ না, জেলা পরিষদ নির্বাচনেও কারচুপি করে আমাদের প্রার্থীকে হারানো হয়েছে। এসবের নেপথ্যের নায়ক আমাদের এমপি অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল। আমি অবাক হয়েছিলাম নৌকার মনোনয়ন পেয়ে বিনাভোটে শেখ হাসিনার করুণায় নির্বাচিত হয়ে একজন সাংসদ কিভাবে নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নেয়। পরে শুনলাম জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামী শিল্পমন্ত্রী থাকা অবস্থায় চাকরি চাওয়ার জন্য সেখানে যান এবং মতিউর রহমান নিজামী তার কথা রেখেছিলেন। মতিউর রহমান নিজামীর অনুকম্পা যার উপর আছে (এমপি প্রাণ গোপাল) ,তার কাছে নৌকা নিরাপদ না। জোবায়দা রহমানের ব্যক্তিগত ডাক্তার যিনি ছিলেন, তার হাতে নৌকা বিজয়ী হতে পারে না ।

এছাড়া এমপি প্রাণ গোপালের এমন বক্তব্যের পর চান্দিনার আ’লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

চান্দিনার বাড়েরা ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো: খোরশেদ আলম বলেন, যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামীর কাছে এমপি প্রাণ গোপাল বিএনপির এক ছেলের চাকরির জন্য গিয়েছিলেন। নিজামী চাকরিও দিয়েছিলেন। এই বিষয়টিতে চান্দিনা আওয়ামীলীগ গভীরভাবে নিন্দা জানাচ্ছে।

কেরনখাল ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো: হারুন আর রশীদ্ বলেন, যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামীর কাছে চাকরির জন্য এমপি প্রাণ গোপাল গিয়েছিলেন। এ ঘটনায় আমরা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে  সাংসদ অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপালের মুঠোফোনে কল দিলে মুঠোফোন সংযোগে পাওয়া যায়নি।