Tag Archives: যুবক গ্রেফতার

কুমিল্লার আলেখারচরে প্রকাশ্যে ব্যবসায়িকে হত্যাচেষ্টা, আসামী গ্রেফতার

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার আলেখারচরে প্রকাশ্যে ব্যবসায়িকে ছুরিকাঘাতে হত্যাচেষ্টার মামলায় মোঃ সাদ্দাম (৩০) নামের এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

গত ৪ মার্চ দুপুরে আলেখারচর আর. ইসলাম প্লাজার নিচে একটি দোকানের ভিতরে এ ঘটনা ঘটে।

পরবর্তীতে ভিকটিম মোঃ সাইফুল ইসলাম র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ কুমিল্লা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে, ১৬ মার্চ রাতে হবিগঞ্জ জেলার জিন্দাবাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় র‌্যাব।

ভিকটিম মোঃ সাইফুল ইসলাম (৩৯) কুমিল্লার আলেখারচর এলাকার মৃত রফিকুল ইসলাম সর্দ্দারের ছেলে।

গ্রেফতারকৃত আসামী সাদ্দাম পেশায় দিনমজুর এবং মাদক সেবনকারী। সে আলেখারচর এলাকার মোঃ মিজানুর রহমানের ছেলে। গ্রেফতারকালে তার কাছ থেকে একটি সুইচ গিয়ার উদ্ধার করা হয়।

শুক্রবার (১৭ মার্চ) কুমিল্লা র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ এর কোম্পানী অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

র‌্যাব জানায়, আলেখারচরের আর. ইসলাম প্লাজার ২য় ও তয় তলায় ব্যাংক অবস্থিত হওয়ায় সাধারণ মানুষ লেনদেনের উদ্দেশ্যে সেখানে গমন করত এবং গ্রেফতারকৃত আসামী বিভিন্ন সময় ব্যাংকে গমনকৃত ব্যক্তিদেরকে যাওয়া আসার সময় পথিমধ্যে ছুরি, সুইচ গিয়ারসহ অন্যান্য অস্ত্র দেখিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করত।

বিষয়টি উক্ত প্লাজার মালিক ভিকটিম মোঃ সাইফুল ইসলাম (৩৯) আসামী সাদ্দামের বড় ভাই নুরুল ইসলাম রানাকে জানায়। আসামী সাদ্দাম বিষয়টি জানতে পারে এবং তার মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এরই জের ধরে পরবর্তীতে সাইফুল ইসলাম প্লাজার নিচে একটি দোকানে অবস্থানকালীন সময়ে সাদ্দাম সুযোগ বুঝে ধারালো সুইচ গিয়ার দিয়ে ভিকটিমের হাতে, পিঠে, পায়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। এসময় উক্ত দোকানের কর্মচারী ও সাধারণ মানুষ ঠেকাতে এলে সাদ্দাম তাদের উপরও চড়াও হয়। পরবর্তীতে ভিকটিম ও উক্ত দোকানের কর্মচারীর চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এলে সাদ্দাম সেখান থেকে পালিয়ে যায় এবং ভিকটিমকে উদ্ধারপূর্বক কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে ভিকটিমের চাচা বাদী হয়ে গত ৭ মার্চ কোতয়ালী মডেল থানায় একটি হত্যাচেষ্টার মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে র‌্যাব-১১, সিপিসি-২, কুমিল্লা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ঘটনা পরবর্তীতে সে তৎক্ষনাত কুমিল্লা থেকে পালিয়ে তার পূর্বের কর্মস্থল সিলেট জেলার জিন্দাবাজার এলাকায় আত্মগোপনে থাকে এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। পরবর্তীতে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে সে তার পূর্ব পরিচিত একটি কাপড়ের দোকানে চাকুরী শুরু করে। এছাড়াও সে দীর্ঘদিন যাবত ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য সেবন করত এবং মাদকের অর্থ যোগাড় করার জন্য ইতিপূর্বে চাঁদাবাজি, চুরিসহ অন্যান্য অপরাধমূলক কার্যও সম্পাদন করেছে। গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে পূর্বে কুমিল্লা জেলার কোতয়ালী মডেল থানায় মাদক সংক্রান্তে ০৩ টি মামলা রয়েছে।

উক্ত বিষয়ে গ্রেফতারকৃত আসামীকে কুমিল্লা জেলার কোতয়ালী মডেল থানায় হস্তান্তর প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

যুবতীর অশ্লীল ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি, যুবক গ্রেফতার

 

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীর সদর উপজেলায় যুবতীর অশ্লীল ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এ সময় আসামির দেহ তল্লাশী করে ৩টি মোবাইল ও ১৩ হাজার টাকা উদ্ধার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত আব্দুল কাদের ওরফে কবির (৪০) উপজেলার ৪নং কাদির হানিফ ইউনিয়নের মৃত আলী বাহারের ছেলে।

বুধবার (১ জুন) সকালে গ্রেফতারকৃত আসামিকে নোয়াখালী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হবে। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার ৩১ মে সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে উপজেলার কাদির হানিফ ইউনিয়নের কাদির হানিফ গ্রামের নুরুল আমিনের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো.শহীদুল ইসলাম বলেন,গত ২২ মে ভুক্তভোগী যুবতী এসপি বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ওই অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, প্রতারণার মাধ্যমে কবির তাকে বিয়ে করা ও তার ছোট ভাইকে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তাঁর থেকে ১১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে যায়। পরে টাকা ফেরত দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে কবির তার ব্যবহৃত মোবাইলে ভিকটিমের অশ্লীল ভিডিও চিত্র ধারণ করে। পরবর্তীতে ভিকটিম টাকা ফেরত চাইলে ভিকটিমের ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয়ভীতি প্রদর্শন সহ আরো টাকা দাবি করে কবির।

এসপি আরো জানায়, এ ঘটনায় ভিকটিমের অভিযোগের প্রেক্ষিতে সুধারাম মডেল মামলা দায়েরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

লাকসামে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ, যুবক গ্রেফতার

সেলিম চৌধুরী হীরাঃ
কুমিল্লা লাকসামে তোরাব আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে রিপন হোসেন(৩৪) নামের এক যুবক কে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ।

গত ৫ই সেপ্টেম্বর রাত ১০টায় দিকে উপজেলা মুদাফরগঞ্জ (দঃ) ইউপি’র কাগৈয়া গুচ্ছ গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। পরে স্থানীয়ভাবে বিচার না পেয়ে গত রোববার রাতে ওই স্কুল ছাত্রীর মা থানায় একটি অভিযোগ করেন। অভিযোগ প্রেক্ষিতে সোমবার লাকসাম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত রিপন হোসেনকে গ্রেপ্তার করেন।

অভিযোগ ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায় গত ৫ই সেপ্টেম্বর বুধবার সন্ধায় উপজেলা মুদাফরগঞ্জ (দঃ) ইউপি’র কাগৈয়া গুচ্চ গ্রামে ডিসি’র আগমন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা আয়োজন করা হয়। স্কুল ছাত্রী’র বাবা-মা মেয়েকে ঘরে একা রেখে ওই অনুষ্ঠানে জান। এসময় পাশের প্লটের খলিলুর রহমানের ছেলে রিপন হোসেন ওই ছাত্রী’র নীজ ঘরে ঘুমান্ত অবস্থায় একা পেয়ে ঘরে ডুকে দরজা বন্ধ করে ধর্ষনের চেষ্টা চালালে স্কুল ছাত্রী অত্মচিৎকারে শুনে পাশের প্লটের জসিম, তাসলিমা বেগম বিষয়টি সভাস্থলে গিয়ে তার বাবা-মায়ের কাছে জানায়। তখন মা-বাবা সহ আশপাশের লোক জন ছুটে আসতে দেখে রিপন হোসেন দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাটি গুচ্চ গ্রামে জানাজানি হলে স্থানীয় মেম্বার বিষয়টিকে মিমাংসা করার কথা বলেন। কিন্তু দীর্ঘ ৪দিন স্থানীয়ভাবে বিচার না পেয়ে ছাত্রী’র মা বাদী হয়ে লাকসাম থানায় অভিযোগ করেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ফজজুল আলম মিয়াজী বলেন, ওইদিন স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের চেষ্টার বিষয়টি তার মা আমাকে জানালে আমি স্থানীয় লোকজনকে নিয়ে তা মিমাংসা করে দিব বলে আশ্বাস দেই। ওইদিনের পর থেকে আমার এলকায় বিশেষ কাজ থাকার কারনে বিষয়টি সমাধান করতে পারিনি। এরই মধ্যে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে বিষয়টি তদন্ত করেন। সোমবার রিপন হোসেনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায়।

লাকসাম থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মনোজ কুমার দে জানান, স্কুল ছাত্রীর ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়।