Tag Archives: যুবসমাজ আন্দোলনের মাধ্যমে দেশকে মুক্ত করবে -ড. সাহিদা রফিক

নির্বাচনে যাওয়াটা আন্দোলনেরই অংশ -ড. শাহিদা রফিক

 

জাহাঙ্গীর আলম ইমরুল, কুমিল্লা:
বিএনপি চেয়ারপারসনের অন্যতম উপদেষ্টা ড. শাহিদা রফিক বলেন, মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা দেশ স্বাধীণ করেছিলাম ৪৭ বছর আগে। এই স্বাধীন দেশে মানুষ আজ নিজের ভোট নিজে দিতে পারছেন না। মানুষ এবার যাতে ভোট দিতে পারেন তারই অংশ এই নির্বাচন। বাংলাদেশের যে অবস্থা এথেকে বর্তমান তরুন প্রজন্ম তথা যুবসমাজ আন্দোলনের মাধ্যমে দেশকে মুক্ত করবে।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার স্ত্রীড. শাহিদা রফিককে কুমিল্লা-০৩ আসনে বিএনপি প্রার্থীহিসেবে দল থেকে মনোনয়ন দিলে তিনি বুধবার বিকেলে মনোনয়ন পত্র জমা দেন। শেষে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কার্যলয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি বাংলাদেশে বর্তমানে তিনটি ঢেউ দেখতে পাচ্ছি। একটি হলো জাতীয় ঐক্যের ঢেউ, একটি নির্বাচনের ঢেউ এবং আরেকটি হলো দেশে গণতন্ত্রহীনতা থেকে মুক্তি পাবার গণজাগরণ। নির্বাচনের এই তিনটি ঢেউ বাংলাদেশের মানুষের জন্যে ইতিবাচক দিক বয়ে আনবে এবং এই দুঃসময় থেকে মানুষ মুক্তি পাবে।এ কারনেই তিনিনির্বাচনে জয়ের ব্যপারে শত ভাগ আশাবদী বলেন উল্লেখ করেন।

জনগণ তাদের সাথে আছে উল্লেখ করে ড. শাহিদা রফিক বলেন, আমাদের ৭ দফা দাবি আছে। আমাদের প্রথম দফাটি হলো আমাদের দলের চেয়ারম্যান দেশ নেত্রী বেগম জিয়ার মুক্তি।এই নির্বাচনে আসার লক্ষ্যই হলো একটা আন্দালনের উপায়।

তিনি দৃঢ়তার সাথে বলেন, এই নির্বাচনে যাওয়াটা আন্দোলনেরই একটা অংশ। আমরা চাচ্ছি- বেগম জিয়ার মক্তি, সমস্ত বন্দীদেরমুক্তি, গুম-খুন থেকে মুক্তি, ব্যাংক লুট থেকে মুক্তি, গণতন্ত্র ফিরে পাওয়া, মানবাধিকার ফিরে পাওয়া, মানুষের কাছে মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেয়া।

বেগম খালেদা জিয়া, সাবেক প্রতিমন্ত্রী কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসাইন কায়কোবাদ এবং তার স্বামী ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা সকল মামলা থেকে মুক্তির দাবি করেন ড. শাহিদা রফিক। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার প্রতি অন্যা করা হয়েছে, অবিচার করা হয়েছে।গত মঙ্গলবার একটি নতুন আইন করে ওনাকে নির্বাচন থেকে বাইরে রাখা হয়েছে।শুধু তাই নয়, কিছু ভূয়া আইন তৈরী করেদলের চেয়ারপার্সনসহ অনেকের প্রতি অবিচার করা হয়েছে, রাজনীতির বাইরে রাখা হয়েছে।

শাহিদা রফিক আরো বলেন, এসব কারনেই আমি কুমিল্লা-০৩ আসন থেকে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করতে এসেছি। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েল শিক্ষক আমার অনেক ছাত্র আছে। সুতরাং আমি আশাবাদী এবং বিশ্বাস করি বাংলাদেশের যে অবস্থা এথেকে বর্তমান তরুন প্রজন্মযুবসমাজ আন্দোলনের মাধ্যমে দেশকে মুক্ত করবে।

বুধবার সকাল থেকে কুমিল্লা জেলা প্রশাসন কার্যলয়ে উৎসব মূখর পরিবেশে মনোনয়ন পত্র জমা দেন বিভিন্ন দলের মনোনীত প্রার্থীরা। বিকেলে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন ড. শাহিদা রফিক। বিকেল সাড়ে তিনটায় রিটার্নিং অফিসার ও কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোঃ আবুল ফজল মীর এর হাতে মনোনয়নপত্র জমা দেন ড. শাহিদা রফিক।

এসময় তার সাথে ছিলেন, বিএনপি’র প্রবীন নেতা জিও ফারুক জাহাঙ্গীর,কুমিল্লা উত্তর জেলা যুব দলের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রিয় যুবদলের সাঊেশ র্শিপ বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব গোলাম কিবরিয়া সরকার, অধ্যাপক সফিকুল ইসলাম,আমীরুল ইসলাম, মামুনুর রশিদ ভুইয়া,কামরুল হাসান কেনাল,অরূপ নারায়ন পোদ্দার পিংকু, এনামুল হক এনাম, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া ও ড. শাহিদা রফিকের পিএস বিএনপি নেতা আবীর প্রমূখ।