Tag Archives: সংঘর্ষ

চাঁদপুরে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষে প্রাণ গেল ৩ জনের

ডেস্ক রিপোর্ট:

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে বালুবাহী ট্রাক ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে ৩ জন নিহত হয়েছেন।দুর্ঘটনায় আহত হন চালকসহ আরও এক যাত্রী।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক সড়কের হাজীগঞ্জ গোগরা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

হাজীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আবদুর রশিদ দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিহতদের মধ্যে সবুজ (২৫) একজনের নাম জানা গেছে। বাকি দুইজেনের নাম এখনো জানা যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক সড়কের বাকিলা এলাকার গোগড়া এলাকায় চাঁদপুর থেকে হাজীগঞ্জগামী বালুবাহী ট্রাক চাঁদপুরগামী সিএনজিচালিত অটোরিকশার সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই অটোরিকশার যাত্রী সবুজ নিহত হন। এ সময় আহত আরও চারজনকে সদর হাসপাতালে পাঠানো হলে দুইজন মারা যান। অটোরিকশা চালক আ. আহাদসহ দুইজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ওসি মুহাম্মদ আবদুর রশিদ জানান, অটোরিকশা ও বালুবাহী ট্রাক জব্দ করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ট্রাক চালক পলাতক। এছাড়া ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাটি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কুমিল্লায় পিকআপ ভ্যানচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

স্টাফ রিপোর্টার:

হানিমুন থেকে ফিরার দিন পিকআপ ভ্যানচাপায় মোটরবাইক আরোহী মো. জাহিদুল ইসলাম সবুজ (২৫) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন।

কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার কালকেপাড় এলাকায় শনিবার এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মো. জালাল উদ্দিন।

সবুজ পাশের বুড়িচং উপজেলার গাজীপুর এলাকার হুমায়ুন কবিরের ছেলে। তিনি কুমিল্লা ইপিজেডের একটি কোম্পানিতে কর্মরত ছিলেন।

পরিবারের বরাত দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য জালাল উদ্দিন বলেন, ২০ দিন আগে সবুজ বিয়ে করেন। গেল বৃহস্পতিবার সবুজ তার বউকে নিয়ে কক্সবাজার হানিমুন করতে যান। শনিবার ভোরে বাড়ি ফিরেন। সকালে ইপিজেডের উদ্দেশ্য মোটরবাইক নিয়ে যাওয়ার পথে বিপরীতমুখী একটি পিকআপ ভ্যানের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই সবুজ মারা যান। পরিবারের লোকজন মরদেহ বাড়ি নিয়ে যান।

নোয়াখালীতে আধিপত্য বিস্তারে প্রবসাীকে কুপিয়ে হত্যার, আটক ৭

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর সদর উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্রকে করে মো. সৌরভ হোসেন সাজ্জাদ (২০) নামে এক প্রবাসী যুবককে কুপিয়ে হত্যার

আটককৃতরা হলো, রিয়াজ উদ্দিন (২৩), আরিফ উদ্দিন (২৫), আরমান রাহাত (২১), পারভেজ রাজু (২০), আবু নাছের (২৫), মো. ফারুক (৪২), রাকিব উদ্দিন (২৫)। আটককৃত সবাই সদর উপজেলার নোয়ান্নই ইউনিয়নের বাসিন্দা। ঘটনায় ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

নিহত মো. সৌরভ হোসেন সাজ্জাদ উপজেলার নোয়ান্নই ইউনিয়নের ৩নং রামকৃঞ্চপুর গ্রামের আহাম্মদ মুন্সি বাড়ির মো. সবুজের ছেলে।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান আটকের বিষয়টি নিশিত করে জানান, এ ঘটনায় থানা মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই মামলায় আসামিদের গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, উপজেলার নোয়ান্নই ইউনিয়নের তিন গ্রামের মানুষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিরোধ চলে আসছিলো। ওই বিরোধের জের ধরে সোমবার দুপুরের দিকে কিশোর গ্যাংয়ের দুই গ্রুপ স্থানীয় বাধেরহাট বাজারে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ওই সংঘর্ষে আবুধাবি প্রবাসী সৌরভকে কুপিয়ে আহত করে সন্ত্রাসীরা।

পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। স্থানীয়দের অভিযোগ, সংঘর্ষে জড়ানো দু’গ্রুপই স্থানীয় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আশরাফুল করিম বাবুর অনুসারী।

নোয়াখালীতে প্রতিবাদ সভায় হামলা

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালী কবিরহাটে একটি প্রতিবাদ সভায় হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৪জন আহত হয়।

সোমবার (২৯ জানুয়ারি) বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার ধানসিঁড়ি ইউনিয়নে নবগ্রাম চিরিঙ্গা বাজারে আনসার বিডিপির অফিসের একটি ভিটি নিয়ে বিরোধের জের ধরে দখলদাররা এ হামলা চালায়।

আহতরা হলেন, ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের ৯নম্বর ওয়ার্ড নবগ্রামের বেলায়তে হোসেনের ছেলে মামুন (৩৫), বদিউজ্জামানের ছেলে। সাইফুল ইসলাম (৩৫), সফিউল্যার ছেলে মমিনউল্যা (৩২) ও মো.আলমের ছেলে শাহিন (২৩)

স্থানীয়রা জানায়, সোমবার বিকেলে নবগ্রাম চিরিঙ্গা বাজারে একটি ভিটি ভুয়া দখলদারদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ ও আলোচনা সভার আয়োজন করেন আনসার বিডিপি সদস্যরা ও এলাকাবাসী। একপর্যায়ে ভিটির দাবি নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন নবগ্রাম চিরিঙ্গা বাজারের ব্যবসায়ী সাহাব উদ্দিন গং এবং একই গ্রামের আব্দুল হক সওদাগরের ছেলে। ওই সময় তাদের হামলায় প্রতিপক্ষের ৪জন আহত হয়।

কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ূন কবির বলেন, আনসার বিডিপির অফিসের একটি ভিটি নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ ছিল। আনসার বিডিপির অফিসের সদস্যরা ও এলাকাবাসির একটি প্রতিবাদ সভাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষই হটাৎ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে কেউ এখনো কোন লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বুড়িচংয়ে মোটরসাইকেল-সিএনজি অটোর সংঘর্ষ: কলেজ ছাত্র নিহত

কুমিল্লা প্রতিনিধি:

কুমিল্লার বুড়িচং -গোবিন্দপুর – রামপুর পোষ্টাফিস সড়কে সোমবার সন্ধ্যায় মোটর সাইকেল ও সিএনজির সংঘর্ষে মোটর সাইকেল আরোহী অনিক রহমান ( মোজাম্মেল) (১৬) নামের এক কলেজ ছাত্র নিহত হয়। তার সঙ্গে থাকা আপন চাচাত ভাই একই কলেজের ছাত্র রাফি আহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সন্ধ্যায় কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়ন এর গোবিন্দপুর বাজার এলাকায়।

প্রত্যক্ষ দর্শী স্থানীয় ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ বিল্লাল হোসেন ঠিকাদার ও অন্যান্য সূত্র জানায় সোমবার সন্ধ্যায় কুমিল্লার বুড়িচং – গোবিন্দপুর – রামপুর সড়কের গোবিন্দপুর এলাকায় একটি মোটর সাইকেল ও বুড়িচং গামী একটি যাত্রী সিএনজির সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এতে মোটর সাইকেল আরোহী দুই জন মারাত্মক ভাবে আহত হয়। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে কুমিল্লা রেফার করে। কুমিল্লা ট্রমা সেন্টারে ভর্তি করলে রাতে চিকিৎসাধীনে অনিক রহমান (১৬) বুড়িচং এরশাদ ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র। সে বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়ন এর গোবিন্দপুর গ্রামের কুয়েত প্রবাসী আলী আক্কাসের একমাত্র পুত্র সন্তান।

তার সঙ্গে থাকা অপর আহত রাফি (১৬) তার আপন চাচাত ভাই আবুল হাশেমের ছেলে এবং একই কলেজের একই শ্রেণির ছাত্র। এঘটনার খবর পেয়ে কুয়েত প্রবাসী আলী আক্কাস মঙ্গলবার সকালে বিমান যোগে বাংলাদেশ আসে এবং দুপুর ৩ টায় জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে কলেজ ছাত্র অনিক রহমান কে দাফন করা হয়।

কুমিল্লায় আ’লীগের দু'গ্রুপের সংঘর্ষে নি’হত ১, আ’হত ১০

কুমিল্লায় আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নি’হত ১, আ’হত ১০

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার মেঘনায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নিজাম উদ্দিন নামে এক সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় দুপক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে।

সোমবার সকালে উপজেলার চালিভাঙ্গা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নিহত নিজাম উদ্দিন (৪০) চালিভাঙ্গা ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এবং নলডাঙ্গা গ্রামের আব্বাস উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, আধিপত্য বিস্তার এবং বালু ব্যবসা নিয়ে জেলা পরিষদ সদস্য কাইয়ুম হোসেন এবং ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির গ্রুপের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এরই সূত্র ধরে গত তিনদিন যাবত বেশ কয়েকবার ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

সোমবার সকালে চালিভাঙ্গা এলাকায় দুটি গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে কাইয়ুম গ্রুপের হানিফ (৪৫) ওয়াসিম (৩৫) আহত হন। হুমায়ন চেয়ারম্যান গ্রুপের টিটু (৩০), রমজান (৩৫), ইব্রাহীম (২৮), শাকিল (২২), খালেদ হাসান (১৯), দেলোয়ার (৩২), আনিছ সরকার (২৫), সুমন (২৪) আহত হন।

আহত সবাইকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এতে গুলি এবং টেটাবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নিজাম উদ্দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢামেকে মারা গেছে।

এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মেঘনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ রতন শিকদার বলেন, নানা অপরাধ কর্মকাণ্ড পরিচালনার পর কাইয়ুম গ্রুপের ক্যাডাররা বেশ কিছুদিন যাবত এলাকার বাইরে অবস্থান করছিল। গত দুই তিনদিন থেকে এলাকায় এসে আধিপত্য প্রতিষ্ঠার জন্য মহড়া দেয়া শুরু করে। এতে হুমায়ন কবির চেয়ারম্যান গ্রুপের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়।

মেঘনা থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেওয়া হয়েছে। হত্যাকাণ্ডে জড়িতদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

বরুড়ায় জমি নিয়ে দু'পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ২

বরুড়ায় জমি নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ২

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার জমির দখল নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ২ জন মারা গেছে। এ ঘটনায় আরও ৫ জন গুরুরত আহত হওয়ার সংবাদ পাওয়া গেছে।

বরুড়া উপজেলার ঝালগাও গ্রামে (১ সেপ্টেম্বর) শুক্রবার সকালে এ ঘটনা ঘটছে।

জানা যায়, আবদুস সাত্তার গং জমি চাষ করতে গেলে খোরশেদ আলম গং এতে বাঁধা দেয়। বাধাঁ কে কেন্দ্র করে দু পক্ষের সংঘর্ষ হয়। এতে খোরশেদ আলম (৩২) আবদুস সাত্তার (৫৫) মারা যায়। গুরুতর আহত জয়নাল, মোশাররফ সহ ৫ জনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সদর হসপিটালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বরুড়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ফিরোজ হোসেন দুজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছাত্রদলের সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের পৃথক মামলা

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রদলের নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটি ও পদবঞ্চিতদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় পৃথক দুইটি মামলা করেছে পুলিশ। বিস্ফোরণ ও সরকারি কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগে সদর মডেল থানার দুই এসআই বাদী হয়ে মামলাগুলো করেন।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে জেলা ছাত্রদলের ৭ সদস্যের আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। শুক্রবার বিকালে জেলা শহরের টিএ রোড ও পাওয়ার হাউস রোডে বিক্ষোভ মিছিল করে ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা। মিছিল শেষে তারা কান্দিপাড়ায় জেলা ছাত্রদলের নবগঠিত কমিটির আহ্বায়ক শাহীনুর রহমান ও কৃষক দলের যুগ্ম আহবায়ক কাউসারের বাড়িতে হামলা করে ভাঙচুর চালায়।

শনিবার রাতে শহরের কান্দিপাড়ায় সদ্য ঘোষিত ছাত্রদলের কমিটির নেতারা পাল্টা হামলার প্রস্তুতি নেয়। এই খবরে পদবঞ্চিত ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা উল্টো তাদের ওপর হামলা করে। এতে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে এবং ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় রোববার পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করে।

সোমবার (১২ জুন) সকালে শহরের লোকনাথ দিঘীর মাঠ থেকে নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করায় একপক্ষ আনন্দ মিছিল বের করার ঘোষণা দেয়। একই সময় ও স্থানে আওয়ামী সরকারের দুর্নীতি এবং লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দেয় পদবঞ্চিত ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা। এমন পরিস্থিতিতে নতুন কমিটি তাদের কর্মসূচির স্থান পরিবর্তন করে শহরতলীর বিরাসার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আয়োজন করে। সকাল থেকে নেতা-কর্মীরা মিছিলে অংশ নিতে বিরাসার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জড়ো হতে থাকেন। এই খবরে পদবঞ্চিত ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা বিরাসার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় হামলা করে। এ সময় প্রায় অর্ধ শতাধিক ককটেল বিস্ফোরণ হয়। উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ার গ্যাস ছুড়ে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ওসি এমরানুল ইসলাম বলেন, ছাত্রদলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় দুটি মামলার একটিতে ৪৯ জনের নাম উল্লেখস আরও ১৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে। অপর মামলায় ৩৩ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৫০-৬০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আবারও ছাত্রদলের দুই পক্ষের সংঘর্ষ

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রদলের নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটির আনন্দ মিছিলে পদবঞ্চিতরা হামলা করে। পরে দুই পক্ষের মধ্যে ফের সংঘর্ষ ও পালটাপালটি ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের বিরাসার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষ চলাকালে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনায় কারও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

পুলিশ ও ছাত্রদল সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়। পরে অনেকটা আকস্মিকভাবে নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এ নিয়ে সদ্য সাবেক আহ্বায়ক ফাজিল চৌধুরীর অনুসারীরা ও পদবঞ্চিতরা কমিটি মেনে নিতে পারেননি। কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে ছাত্রদলের দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে। শুক্র ও শনিবার এ ঘটনায় নতুন কমিটির আহ্বায়ক শাহীনুর রহমান ও কৃষক দলের আহ্বায়ক ভিপি শামিমসহ কয়েকজন নেতার বাড়িতে পদবঞ্চিতরা হামলা ও ভাঙচুর চালান।

সোমবার লোকনাথ ট্যাংক এলাকায় দুই গ্রুপ আলাদা কর্মসূচির ডাক দেয়। এতে কোনো পক্ষই পুলিশের অনুমতি পায়নি। তাই নতুন আহ্বায়ক কমিটি স্থান পরিবর্তন করে নেতৃবৃন্দদের নিয়ে আনন্দ মিছিল করার জন্য বিরাসার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জড়ো হতে থাকেন। এ ঘটনার খবর পেয়ে সদ্য সাবেক কমিটির আহ্বায়ক ফাজিল চৌধুরী ও পদবঞ্চিতরা একই স্থানে এলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে পালটাপালটি ধাওয়া এবং ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। পুলিশ খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে টিয়ারশেল ও লাঠিপেটা করে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দিয়ে পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, কমিটি নিয়ে ছাত্রদলের দুই গ্রুপের মধ্যে বেশ কয়েক দিন ধরে একে অপরের ওপর হামলা চালাচ্ছে। শহরের পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ রাখতে গত দুই দিনে ছাত্রদলের সাতজনকে আটক করা হয়েছে। তবে আজকের ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে আটক করা হয়নি। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কমিটিতে পদ নিয়ে ছাত্রদলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার রাত ১০টার দিকে জেলা শহরের কান্দীপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

সংশ্লিষ্টরা জানায়, গত বৃহস্পতিবার ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জেলা ছাত্রদলের ৭ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি ঘোষণা করে। কমিটিতে শাহিনুর রহমানকে আহবায়ক ও সমীর চক্রবর্তীকে সদস্যসচিব করা হয়। কমিটি গঠনের খবর ছড়িয়ে পড়লে পদবঞ্চিত ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ ফেটে পড়েন।

এর প্রতিক্রিয়ায় পরদিন শুক্রবার পদঞ্চিতরা বিক্ষোভ ও নেতাদের বাড়িতে হামলা চালায়। সে সময় কৃষকদলের আহ্বায়ক ভিপি শামীম ও নতুন কমিটির আহ্বায়ক শাহিনুর রহমানসহ কয়েকজন নেতাকর্মীর বাড়িতে হামলা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ওসি মো. এমরানুল ইসলাম জানান, ছাত্রদলের নতুন কমিটিকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এখন পর্যন্ত হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। তবে ঘটনাস্থল থেকে অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করা হয়েছে।