Tag Archives: সরাইলে স্বর্ণের কানের দুলের জন্য শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যা করলো দুই তরুণ-তরুণী

সরাইলে স্বর্ণের কানের দুলের জন্য শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যা করলো দুই তরুণ-তরুণী

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে এক জোড়া স্বর্ণের কানের দুলের জন্য শ্বাসরোধে কাশফিয়া ওরফে শেফা নামের আট বছরের এক শিশুকে হত্যা করেন দুই তরুণ-তরুণী। হত্যার পর তার মরদেহ সাবেক এক চেয়ারম্যানের বাড়ির পার্শ্ববর্তী ঝোপঝাড়ে ফেলে দিয়ে চলে যান তারা। এ ঘটনায় তরুণী রনি ও তরুণ হোসেনকে আটক করে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাহিদ হোসেনের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন তারা। সরাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন আরও জানান, কাশফিয়া ওরফে শেফা ফার্নিচার ব্যবসায়ী আব্দুল কাদেরের মেয়ে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে সে নিখোঁজ ছিল। সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজ করেও শিশুটির সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না। শিশুটি কিছুদিন যাবত প্রতিবেশী তরুণী রনির সঙ্গে খেলাধুলা করে আসছিল। কয়েকদিন আগে শিশু কাশফিয়ার এক জোড়া স্বর্ণের কানের দুল নিয়ে একটি মন্তব্যও করেছিলেন তিনি। কাশফিয়াকে কোথাও খুঁজে না পাওয়ায় রনিকে কাশফিয়ার পরিবারের সদস্যরা সন্দেহ করেন।

পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন আরও জানান, বুধবার রনিকে নিহতের পরিবারের সদস্যরা কাশফিয়ার বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে প্রথমে অস্বীকার করেন। পরে স্থানীয়দের চাপে গ্রামের এজাজ মিয়ার ছেলে মো. হোসেন মিয়ার কাছে কাশফিয়াকে দিয়েছেন বলে জানান রনি। পরে রনিকে নিয়ে হোসেন মিয়ার বাড়িতে গেলে তিনি সব কিছু অস্বীকার করেন। এরপর রনি নিজে গিয়ে সাবেক এক চেয়ারম্যানের বাড়ির ঝোপঝাড়ে শিশু কাশফিয়ার মরদেহ দেখিয়ে দেন।

তিনি জানান, এ ঘটনায় তরুণী রনি, তার বাল্যবন্ধু হোসেন ও জামিল নামের অপর এক যুবককে থানায় আনা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে আদালতে এই হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে রনি ও হোসেন।

জবানবন্দিতে তারা জানান, শিশু কাশফিয়াকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রনি ফুসলিয়ে নিয়ে যান হোসেনের ঘরে। সেখানে তারা পূর্বপরিকল্পিতভাবে শিশু কাশফিয়ার স্বর্ণের কানের দুল খোলার চেষ্টা করেন। দুল খুলতে গেলে কাশফিয়া চিৎকার শুরু করে। এ সময় তার মুখে চেপে ধরে ও গলায় গামছা দিয়ে ফাঁস দিয়ে হত্যা করেন। হত্যার পর কাশফিয়ার মরদেহ পাশে ফেলে রেখে রনি ও হোসেন যৌনমিলন করেন। পরে সাবেক এক চেয়ারম্যানের বাড়ির পার্শ্ববর্তী ঝোপঝাড়ে কাশফিয়ার মরদেহ ফেলে দিয়ে চলে যান তারা।

পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন বলেন, ‘এ ঘটনায় জামিল নামের অপর আসামী মুখ এখনো খুলেনি। তবে কানের দুলটি সরাইল বিকাল বাজারের সুশীল পাল নামের এক স্বর্ণ ব্যবসায়ী কাছ থেকে উদ্ধার করে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হত্যা মামলায় রনি, হোসেন, জামিল ও স্বর্ণ ব্যবসায়ী সুশীল পাল জেলা কারাগারে রয়েছে।’