শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় ঘূর্ণিঝড়ে বাড়িঘর বিধ্বস্ত, বিদ্যুৎবিহীন ৪ উপজেলা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৫, ২০২২
news-image

 

দাউদকান্দি প্রতিনিধি:
ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে দেশের অন্যান্য স্থানের মতো কুমিল্লার দাউদকান্দি, মেঘনা তিতাস উপজেলায় ঝোড়ো হওয়া ও ভারী বৃষ্টি হয়েছে। ফলে উপড়ে পড়েছে গাছ, ভেঙে গেছে অসংখ্য ঘরবাড়ি। সোমবার থেকে বন্ধ রয়েছে বিদ্যুৎ।

কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর জেনারেল ম্যানেজার জানিয়েছে, সন্ধ্যার মধ্যে সব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ চালুর জন্য তারা কাজ করছেন।

ঘুর্নিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর এলাকার পেন্নাই গ্রামের বর্গাচাষী সালাউদ্দিন বলেন, গত বছর নরসিংদী জেলায় কলা চাষের উপর প্রশিক্ষন নিয়েছি। এবছর প্রথম ৭৫০ টি কলা গাছ রোপন করি। অনেক গাছে ছড়ি এসেছে, কিন্তু ঝড়ে আমার প্রায় ২৫০ টি গাছ ভেঙ্গে গেছে। তিতাস উপজেলার জগতপুর পুর্ব সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের উপর হেলে পড়েছে বড় একটি কড়ই গাছ। স্থানীয় শরীফ আহমেদ সুমন বলেন, গাছটিকে দ্রুত অপসারণ করা না হলে যেকোন সময় ভেঙ্গে গিয়ে ভবনটি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মেঘনা উপজেলার চালিভাঙ্গা ইউনিয়নের নলচর ও রাম প্রসাদেরচর গ্রামে। নদী পাড়ের গ্রাম নলচরের ষাটোর্ধ আফিয়া বেগম বলেন, আমার বয়সে এমন তুফান দেখি নাই, রাত ১০টায় আমার দুইটা ঘর উড়াইয়া নিছেগা তুফানে। একই গ্রামের গ্রামপুলিশ রানা মিয়ার দোচালা ঘরটিও নিয়ে গেছে।

এই গ্রামের মতিন মিয়া ও আহম্মদ মিয়াসহ প্রায় ১৫টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে সরেজমিন পরিদর্শন করে মেঘনা থানার উপপরিদর্শক মিলন মিয়া জানান। তিনি বলেন, স্বরস্বতিরচর গ্রামের অনেকেই ভয়ে নদীর পাড়ের বসত ঘর ভেঙ্গে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাচ্ছেন।

মেঘনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাবেয়া আক্তার বলেন, ঝড়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে চালিভাঙ্গা ইউনিয়নে। বিদ্যুৎ না থাকায় সার্বিক তথ্য এখনো পাইনি। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের তালিকা তৈরির কাজ চলছে। আর বিভিন্ন এলাকায় রাস্তায় গাছ পড়েছে তা অপসারন করা হয়েছে।

কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর জেনারেল ম্যানেজার মোঃ কেফায়েত উল্লাহ বলেন, সোমবার রাত থেকেই আমাদের দাউদকান্দি, হোমান, তিতাস ও মেঘনা উপজেলার সবকটি লাইন বন্ধ ছিল । ভোর থেকে আমাদের লোকজন কাজ করছে। কিছু এলাকায় লাইন স্বচল করেছি। প্রাথমিকভাবে আমরা যেটুকু জেনেছি, ঝড়ে বিভিন্ন এলাকায় আমাদের ১৭টি খুঁটি ভেঙ্গে গেছে। ১৫টি খুটি নষ্ট হয়েছে এবং প্রায় ২৫০টি স্থানে তার ছিড়ে গেছে। আশা করছি সন্ধানাগাদ সব এলাকায় বিদ্যুৎ লাইন স্বাভাবিক হবে ।

আর পড়তে পারেন