রবিবার, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ডিজিটাল তথ্য প্রযুক্তি ও স্বনির্ভর বাংলাদেশ বাস্তবায়নে আওয়ামীলীগের বিকল্প নেই – ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১৯, ২০১৭
news-image

 

ইমতিয়াজ সিদ্দিকী তোহা ঃ

ডিজিটাল বাংলাদেশ একটি প্রত্যয়, একটি স্বপ্ন। বিরাট এক পরিবর্তন ও ক্রান্তিকালের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ এখন এগিয়ে চলছে দুর্বার। ২০২১ সালে স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীতে দেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ, তথ্য ও প্রযুক্তি নির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ বির্নিমানে, স্বনির্ভর ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে স্বাধীনতার স্বপক্ষ শক্তি আওয়ামীলীগের বিকল্প নেই। আসন্ন নির্বাচনে তাই আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীর জয়ের জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। উল্লেখিত কথাগুলো দৈনিক আজকের কুমিল্লার সাথে একান্ত আলাপচারিতায় বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান।

সমাজ সেবার আইডল ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান বাংলাদেশের গৌরব। তিনি একাধারে একজন প্রকৌশলী, সফল ব্যবসায়ী, সংগঠক ও হ্যাম্স গ্র“পের প্রতিষ্ঠাতা। সামাজিক সেবায় অসামান্য অবদান রাখায় বিভিন্ন সংগঠন থেকে একাধিক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি। মন জয় করেছেন সমাজের সকল শ্রেণী পেশার মানুষের।

সদা হাসোজ্জল, বিনয়ী, নম্র ও ভদ্র ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান চাঁদপুর জেলার শাহ্রাস্তি উপজেলার দৈয়ারা গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ১৯৬২ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম মোঃ আবু হাশেম এবং মায়ের নাম মনোয়ারা বেগম, ভাই বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। তাঁর বাবা একজন আদর্শবান শিক্ষক ছিলেন। ফলে সব সময় সন্তানদেরকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে উৎসাহ দিতেন। তিনি ও ছিলেন দুঃস্থ -অসহায় মানুষের একজন সাথী।

মেধাবী ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান জীবনের ঊষা লগ্ন থেকেই উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করার প্রয়াসে বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি ইন ইঞ্জিনিয়ার (টেক্সটাইল) সাফল্যের সাথে শেষ করে গৌরবময় উজ্জ্বল জীবনে প্রবেশ করেন।

শিক্ষা জীবনের শুরুতেই ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান সমাজ সেবায় মনোনিবেশ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় সমাজের দুঃস্থ অসহায় মানুষের সার্বিক সহযোগিতায় সদা তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। পাচ্ছেন সবার প্রশংসা আর ধন্য করছেন নিজেকে। আলোকিত হচ্ছে সমাজ ব্যবস্থা।

স্বাধীনতার পর থেকেই বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক অবস্থা খুবই দুর্বলতার পাশাপাশি জীবন ধারা আরও দুর্বল হয়ে পড়ে। এ অবস্থা কর্মময় ব্যস্ত জীবনের অধীকারী ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমানের চোখে পড়লে তিনি ভীষন ক্ষত বিক্ষত হন। তিনি ভাবতে শুরু করেন দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য আরো বেশি কিছু করা দরকার। যাতে দেশের মানুষ বাঁচতে পারে, দেশের উন্নয়ন হয় বিশেষ করে হাজীগঞ্জ-শাহ্রাস্তিবাসীর। তাই তিনি গরীব মেধাবী অসহায় ও দারিদ্র শিক্ষার্থীদের শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নের প্রয়াসে শুরু করলেন এম এ হাসেম ফাউন্ডেশন। যা আজ হাজারো অবহেলিত মেধাবী শিক্ষার্থীদের স্বপ্নের ঠিকানা।

স্বপ্নের পুরুষ ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান গ্রামের সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের জীবন মানের উন্নয়নে হাজীগঞ্জ-শাহ্রাস্তিতে আর্থিক অনুদান, ঘর- বাড়ী তৈরি, রাস্তা- ঘাট মেরামত ও গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষার প্রসারে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান সহ দরিদ্র ও অসহায় পরিবারে সন্তানদের বিয়ে – উৎসব- পার্বনে ব্যাপক দান -অনুদান দিয়ে ইতিমধ্যে দানশীল সফিক নামে পরিচিতি পেয়েছেন। এ ছাড়াও তিনি সমাজ থেকে মাদক পরিহার এবং প্রতিরোধ করতে সমাজের কিছু যুবক নিয়ে ধারাবাহিক সামাজিক কার্যক্রম চালাচ্ছেন।

সদা হাসি মুখের মানুষ সংগঠক ইঞ্জি. মো. সফিকুর রহমান বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠিত হ্যামস্ গ্র“পের আওতাধীন হ্যামস্ গামেন্টর্স লিঃ, হ্যামস্ ওয়াশিং এন্ড ডাইয়িং লিঃ, হ্যামস্ ফ্যাশন লিঃ ও ঢাকা গার্মেন্টর্স লিঃ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ১০ হাজারের ও অধিক লোকের কর্মসংস্থান করে আত্মমানবতার সেবায় অনেকটাই ভূয়শী প্রশংসা অর্জন করেছেন। নতুন করে এনে দিয়েছেন মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির সোঁপান। সামাজিক কাজের স্বীকৃতি হিসেবে বর্তমানে তিনি সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন, দি ইনস্টিটিউশন অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স এন্ড টেকনোলজিস্ট, (আইটিইটি) চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন দি ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (টেক্সটাইল ডিভিশন) (আইইবি), সভাপতি হিসেবে খিলাবাজার স্কুল এন্ড কলেজ শাহ্রাস্তি, চাঁদপুর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারর্স অ্যাসোসিয়েশন, বিবিটিএ, বাংলাদেশ এক্সপোর্ট ওরিয়েন্টেড গার্মেন্টস ওয়াশিং ইন্ডাস্ট্রিজ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে হ্যামস গ্র“প অব ইন্ডাস্ট্রিজ, ভাইস্ চেয়ারপার্সন হিসেবে লায়ন্স ক্লাব, সদস্য হিসেবে বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ গুরু দায়িত্ব পালন করে সততার এক অনন্য প্রতীক হয়ে সফল সংগঠক হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

শুধু শিক্ষা খাতই নয়! ক্রীড়া- বিনোদন, সাহিত্য- সাংস্কৃতি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উৎকর্ষ তাঁর রয়েছে অসামান্য অবদান। ধারাবাহিক সামাজিক কাজের সফল অগ্রযাত্রার পথিকৃত ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান বর্তমানে সভাপতি হিসেবে সততা ও নিষ্ঠার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় খিলা বাজার স্কুলকে কলেজে রূপান্তরিত করেন এবং ধারাবাহিক সফলতার অংশ হিসেবে প্রতিষ্ঠানটিকে দীর্ঘ ত্যাগ তিতিক্ষারপর কলেজের রুপদান করেন। এন্ড কলেজের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে উক্ত প্রতিষ্ঠানটি শাহ্রাস্তির সেরা বিদ্যাপীঠে পরিণত হয়েছে।
অবহেলিত নিষ্পেশিত সমাজের সাধারণ মানুষের জীবনমান উন্নয়নের পাশাপাশি রাজনৈতিক অঙ্গনেও সমান সফলতার দাফটে বেড়াচ্ছেন ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান। সর্বকালের সর্ব শ্রেষ্ঠ বাঙালী, স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদের্শে অনুপ্রাণিত হয়ে এশিয়ার প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের তিনি একজন গর্বিত সদস্য। দলের জন্য কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ বঙ্গবন্ধু কন্যা আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদকের দায়িত্ব প্রদান করেন। যা পালনে তিনি সর্বদা নিরলসভাবে অগ্রসরমান। তাই আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হাজীগঞ্জ- শাহ্রাস্তির অকুতভয় মুজিব সেনানীসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ তাঁকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে পেতে ব্যাকুল বলে সর্বত্র আলোচনার ঝড় বইছে।

ডিজিটাল তথ্য প্রযুক্তি ও স্বনির্ভর বাংলাদেশ বাস্তবায়নে
আওয়ামীলীগের বিকল্প নেই
– ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান

ইমতিয়াজ সিদ্দিকী তোহা ঃ

ডিজিটাল বাংলাদেশ একটি প্রত্যয়, একটি স্বপ্ন। বিরাট এক পরিবর্তন ও ক্রান্তিকালের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ এখন এগিয়ে চলছে দুর্বার। ২০২১ সালে স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীতে দেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ, তথ্য ও প্রযুক্তি নির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ বির্নিমানে, স্বনির্ভর ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে স্বাধীনতার স্বপক্ষ শক্তি আওয়ামীলীগের বিকল্প নেই। আসন্ন নির্বাচনে তাই আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীর জয়ের জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। উল্লেখিত কথাগুলো দৈনিক আজকের কুমিল্লার সাথে একান্ত আলাপচারিতায় বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান।

সমাজ সেবার আইডল ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান বাংলাদেশের গৌরব। তিনি একাধারে একজন প্রকৌশলী, সফল ব্যবসায়ী, সংগঠক ও হ্যাম্স গ্র“পের প্রতিষ্ঠাতা। সামাজিক সেবায় অসামান্য অবদান রাখায় বিভিন্ন সংগঠন থেকে একাধিক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি। মন জয় করেছেন সমাজের সকল শ্রেণী পেশার মানুষের।

সদা হাসোজ্জল, বিনয়ী, নম্র ও ভদ্র ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান চাঁদপুর জেলার শাহ্রাস্তি উপজেলার দৈয়ারা গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ১৯৬২ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম মোঃ আবু হাশেম এবং মায়ের নাম মনোয়ারা বেগম, ভাই বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। তাঁর বাবা একজন আদর্শবান শিক্ষক ছিলেন। ফলে সব সময় সন্তানদেরকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে উৎসাহ দিতেন। তিনি ও ছিলেন দুঃস্থ -অসহায় মানুষের একজন সাথী।

মেধাবী ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান জীবনের ঊষা লগ্ন থেকেই উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করার প্রয়াসে বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি ইন ইঞ্জিনিয়ার (টেক্সটাইল) সাফল্যের সাথে শেষ করে গৌরবময় উজ্জ্বল জীবনে প্রবেশ করেন।

শিক্ষা জীবনের শুরুতেই ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান সমাজ সেবায় মনোনিবেশ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় সমাজের দুঃস্থ অসহায় মানুষের সার্বিক সহযোগিতায় সদা তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। পাচ্ছেন সবার প্রশংসা আর ধন্য করছেন নিজেকে। আলোকিত হচ্ছে সমাজ ব্যবস্থা।

স্বাধীনতার পর থেকেই বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক অবস্থা খুবই দুর্বলতার পাশাপাশি জীবন ধারা আরও দুর্বল হয়ে পড়ে। এ অবস্থা কর্মময় ব্যস্ত জীবনের অধীকারী ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমানের চোখে পড়লে তিনি ভীষন ক্ষত বিক্ষত হন। তিনি ভাবতে শুরু করেন দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য আরো বেশি কিছু করা দরকার। যাতে দেশের মানুষ বাঁচতে পারে, দেশের উন্নয়ন হয় বিশেষ করে হাজীগঞ্জ-শাহ্রাস্তিবাসীর। তাই তিনি গরীব মেধাবী অসহায় ও দারিদ্র শিক্ষার্থীদের শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নের প্রয়াসে শুরু করলেন এম এ হাসেম ফাউন্ডেশন। যা আজ হাজারো অবহেলিত মেধাবী শিক্ষার্থীদের স্বপ্নের ঠিকানা।

স্বপ্নের পুরুষ ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান গ্রামের সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের জীবন মানের উন্নয়নে হাজীগঞ্জ-শাহ্রাস্তিতে আর্থিক অনুদান, ঘর- বাড়ী তৈরি, রাস্তা- ঘাট মেরামত ও গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষার প্রসারে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান সহ দরিদ্র ও অসহায় পরিবারে সন্তানদের বিয়ে – উৎসব- পার্বনে ব্যাপক দান -অনুদান দিয়ে ইতিমধ্যে দানশীল সফিক নামে পরিচিতি পেয়েছেন। এ ছাড়াও তিনি সমাজ থেকে মাদক পরিহার এবং প্রতিরোধ করতে সমাজের কিছু যুবক নিয়ে ধারাবাহিক সামাজিক কার্যক্রম চালাচ্ছেন।

সদা হাসি মুখের মানুষ সংগঠক ইঞ্জি. মো. সফিকুর রহমান বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠিত হ্যামস্ গ্র“পের আওতাধীন হ্যামস্ গামেন্টর্স লিঃ, হ্যামস্ ওয়াশিং এন্ড ডাইয়িং লিঃ, হ্যামস্ ফ্যাশন লিঃ ও ঢাকা গার্মেন্টর্স লিঃ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ১০ হাজারের ও অধিক লোকের কর্মসংস্থান করে আত্মমানবতার সেবায় অনেকটাই ভূয়শী প্রশংসা অর্জন করেছেন। নতুন করে এনে দিয়েছেন মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির সোঁপান। সামাজিক কাজের স্বীকৃতি হিসেবে বর্তমানে তিনি সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন, দি ইনস্টিটিউশন অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স এন্ড টেকনোলজিস্ট, (আইটিইটি) চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন দি ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (টেক্সটাইল ডিভিশন) (আইইবি), সভাপতি হিসেবে খিলাবাজার স্কুল এন্ড কলেজ শাহ্রাস্তি, চাঁদপুর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারর্স অ্যাসোসিয়েশন, বিবিটিএ, বাংলাদেশ এক্সপোর্ট ওরিয়েন্টেড গার্মেন্টস ওয়াশিং ইন্ডাস্ট্রিজ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে হ্যামস গ্র“প অব ইন্ডাস্ট্রিজ, ভাইস্ চেয়ারপার্সন হিসেবে লায়ন্স ক্লাব, সদস্য হিসেবে বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ গুরু দায়িত্ব পালন করে সততার এক অনন্য প্রতীক হয়ে সফল সংগঠক হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

শুধু শিক্ষা খাতই নয়! ক্রীড়া- বিনোদন, সাহিত্য- সাংস্কৃতি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উৎকর্ষ তাঁর রয়েছে অসামান্য অবদান। ধারাবাহিক সামাজিক কাজের সফল অগ্রযাত্রার পথিকৃত ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান বর্তমানে সভাপতি হিসেবে সততা ও নিষ্ঠার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় খিলা বাজার স্কুলকে কলেজে রূপান্তরিত করেন এবং ধারাবাহিক সফলতার অংশ হিসেবে প্রতিষ্ঠানটিকে দীর্ঘ ত্যাগ তিতিক্ষারপর কলেজের রুপদান করেন। এন্ড কলেজের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে উক্ত প্রতিষ্ঠানটি শাহ্রাস্তির সেরা বিদ্যাপীঠে পরিণত হয়েছে।
অবহেলিত নিষ্পেশিত সমাজের সাধারণ মানুষের জীবনমান উন্নয়নের পাশাপাশি রাজনৈতিক অঙ্গনেও সমান সফলতার দাফটে বেড়াচ্ছেন ইঞ্জি. মোঃ সফিকুর রহমান। সর্বকালের সর্ব শ্রেষ্ঠ বাঙালী, স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদের্শে অনুপ্রাণিত হয়ে এশিয়ার প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের তিনি একজন গর্বিত সদস্য। দলের জন্য কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ বঙ্গবন্ধু কন্যা আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদকের দায়িত্ব প্রদান করেন। যা পালনে তিনি সর্বদা নিরলসভাবে অগ্রসরমান। তাই আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হাজীগঞ্জ- শাহ্রাস্তির অকুতভয় মুজিব সেনানীসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ তাঁকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে পেতে ব্যাকুল বলে সর্বত্র আলোচনার ঝড় বইছে।

আর পড়তে পারেন