সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

তুরস্কে দুই বাড়ি পুতিনের ‘প্রেমিকা’ কাবায়েভার!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৬, ২০২২
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

রাশিয়ার বিরোধী একটি সূত্র দাবি করেছেন যে, ন্যাটোর সদস্য তুরস্কে নতুন দুটি বিলাসবহুল বাড়ির মালিক এখন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কথিত ‘মিসট্রেস’ ও প্রেমিকা এলিনা কাবায়েভা (৩৯)। দীর্ঘদিন ধরে তার সঙ্গে পুতিনের সম্পর্ক নিয়ে নানা গুজব, জল্পনা, কল্পনা ডালপালা মেলেছে। বলাবলি আছে যে, পুতিনের চারটি সন্তান জন্ম দিয়েছেন এলিনা। কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে কখনোই স্বীকৃতি দেননি পুতিন। সর্বশেষ রাশিয়ায় জন্মগ্রহণকারী ইসরাইলি ব্যবসায়ী লিওনিদ নেভজলিন (৬২) দাবি করেছেন, তুরস্কে এলিনা কাবায়েভার জন্য ওই দুটি বাড়ির ব্যবস্থা করেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়্যিপ এরদোগানের এক ঘনিষ্ঠ সহযোগী। এর মধ্যে একটি বাড়ি তুরস্কের দক্ষিণে। এই বাড়িটি গ্রীষ্মকালে ব্যবহারের জন্য। অন্য বাড়িটি ইস্তাম্বুলে। এসব তথ্য দিয়ে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে বৃটেনের একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকার অনলাইন সংস্করণ।

লিওনিদ নেভজলিন তেল বিষয়ক জায়ান্ট ইউকোসের সাবেক মালিকদের অন্যতম এবং পুতিনের শীর্ষ স্থানীয় শত্রু। তিনি একজন জনহিতৈষীও।

মস্কোর প্রথম সারির লোকজনের সঙ্গে তার যোগাযোগ আছে বলে দাবি করেন। গ্রুপ মেনাটেপে উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা তিনি। ফলে তার দাবি কতটা সত্য তা যাচাই করা সম্ভব হয়নি। নিভজলিন বলেন, এরদোগানের একটি ঘনিষ্ঠ সহযোগীর মধ্যস্থতা করে এলিনা কাবায়েভার জন্য ওই দুটি বাড়ি কিনেছেন। তিনি আরও বলেন, বিলাসবহুল এই বাড়িগুলোতে নিজের প্রেসিডেন্সিয়াল গার্ড মোতায়েন করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট। তবে ওই সম্পত্তি সম্পর্কে সুনির্দিষ্টভাবে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি। তিনি কোনো সুনির্দিষ্ট প্রমাণও দিতে পারেননি।
নিভজলিন এই দাবি করেছেন এমন এক সময়ে যখন বলা হচ্ছে ৩ কোটি ২৬ লাখ পাউন্ডের ফলকন ৭এক্স ব্যবহার করছেন এলিনা কাবায়েভা। এর আকাশযানের টেইল নাম্বার আরএ-০৯০০৯। এই আকাশযানটি লিজ দেয়া হয় রাশিয়ার উচ্চ পদস্থ যাত্রীদের জন্য, যাদেরকে ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিস সুরক্ষা দিয়ে থাকে।

এপ্রিলে তিনি অভিযোগ করেন যে, বড় রকমের হার্ট এটাকে ভোগার পর দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগুকে। কিন্তু পরে ৯ই মে মস্কোতে বিজয় দিবসের প্যারেডে একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে দেখা যায় তাকে।

ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে এলিনা কাবায়েভার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বৃটেন, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও কানাডা। তিনি বর্তমানে কোন দেশে অবস্থান করছেন তা নিশ্চিত করে বলা যায় না।

আর পড়তে পারেন