শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

প্রিভেইল মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ কোম্পানি লিমিটেডের নিয়ম বর্হিভূত নির্বাচনের প্রস্তুতির অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লা জেলার সমবায় প্রতিষ্ঠান প্রিভেইল মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবসায়িক কার্যক্রম ২০১৩ সালের পর থেকে দেশের সমবায় সেক্টরের আইনি জটিলতার কারণে বন্ধ হয়ে যায়। এর মধ্যে অত্র প্রতিষ্ঠানের নিকট সদস্যদের আমানতকৃত টাকা ৮৫% পরিশোধ করা হয়েছে বলে প্রতিষ্ঠানটির কর্তৃপক্ষ জানায়। এ সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে বাদ দিয়ে, সব ভোটারকে অবহিত না করে সমিতির নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বর্তমানে সমিটির একটি অর্ন্তবর্তী ব্যবস্থাপনা কমিটি রয়েছে। এ কমিটির আহ্বায়ক হলেন নাঙ্গলকোট উপজেলা সমবায় অফিসার মোঃ কেফায়েত উল্লাহ খান। তিনি চলতি বছরের ১ আগষ্ট স্মারক নং .৮১ এর মাধ্যমে যুগ্ন নিবন্ধক, বিভাগীয় সমবায় , চট্টগ্রাম বিভাগ, চট্টগ্রাম বরাবর এক দরখাস্তের মাধ্যমে প্রিভেইল মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ কোম্পানি লিমিটেডের নির্বাচন কমিটির নিয়োগের আবেদন করেন। উনার সে আবেদনের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমবায় অফিস গত ২১ আগষ্ট অত্র প্রতিষ্ঠানের নির্বাচন কমিটির নাম ঘোষণা করে অধ্যাদেশ জারি করেন। নির্বাচন কমিটিতে সভাপতি হিসেবে দাউদকান্দি উপজেলা সমবায় অফিসার বিল্লাল হোসেন রয়েছেন। এছাড়া রয়েছে আরো ২ জনের নাম।

জানা যায়, অর্ন্তবর্তী ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক মোঃ কেফায়েত উল্লাহ খান নির্বাচন কমিটির অনুমোদনের পূর্বেই গত ৩১ জুলাই তার স্বাক্ষর সম্মিলিত সমিতির সদস্যদের উদ্দেশ্যে একটি নির্বাচনী সাধারণ নোটিশ প্রচার করেন। যেখানে নির্বাচনের তারিখ ৫ অক্টোবর নির্ধারণ করা হয়।
সমিতির একাধিক সদস্য জানান, যে ভোটার তালিকার উপর ভিত্তি করে উক্ত নির্বাচন করা হচ্ছে তা স্বচ্ছ নয়। কারণ ভোটার তালিকার মধ্যে অর্ন্তবর্তী ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়কের স্বাক্ষরযুক্ত এই ভোটার তালিকার মধ্যে ভোটারদের পিতার নাম ও ঠিকানা নাই। এই ভোটার তালিকার ৯০% লোক সদস্য ভোটার নহে। ভোটার তালিকাটি প্রশ্নবিদ্ধ। সমিতির সর্বশেষ অডিট অনুযায়ী সমিটির সদস্য সংখ্যা দেখানো হয়েছে ১ হাজার ৬৭০ জন। কিন্তু ভোটার তালিকার মধ্যে সদস্য সংখ্যা দেওয়া হয়েছে ৪২১ জন।

অভিযোগকারিরা আরো জানান, সমিতির নির্বাচন কমিটির তফসিলে নির্বাচনের মধ্যে অংশগ্রহণকারি সদস্যদেরকে ফরম সংগ্রহের স্থান দিয়েছে দাউদকান্দি উপজেলা সমবায় অফিসে। অথচ সমিতির নিবন্ধিত অফিস সদর দক্ষিণে। দাউদকান্দিতে সমিতির কোন শাখা নেই।
সমিতির সদস্য রৌশন আলী জানান, একটা পক্ষ আমাদের অবহিত না করে চুরি করে নির্বাচন করে ফেলার চক্রান্ত করছে। আমরা কোন নোটিশ পাইনি। আমরা এ বিষয়ে কিছুই জানি না।
সদস্য কাউছার আহম্মেদ জানান, শুনেছি নির্বাচন নাকি হবে। তবে কোন নোটিশ পাইনি।
সদস্য শাহজাহান মজুমদার জানান, উক্ত নির্বাচনের বিষয়ে আমরা কিছুই জানি না। আমরা কোন ধরণের নোটিশও পাইনি। গোপনে নির্বাচন করে ফেলার প্রক্রিয়া চলছে।

সমিতির সদস্যরা জানান, সমিতির সদস্যদের দায়েরকৃত মামলায় সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক জেলে রয়েছেন। তারাও এ নির্বাচনের বিষয়ে জানে না। কাদের ইংগিতে তাড়াহুড়া করে এ নির্বাচন করা হচ্ছে তা বোধগম্য নয়।

বুধবার রাত সোয়া ৮ টায় এ বিষয়ে জানতে সমিতির অর্ন্তবর্তী ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক মোঃ কেফায়েত উল্লাহ খানের মুঠোফোনে কল দিলে মুঠোফোন সংযোগে পাওয়া যায় নি।

আর পড়তে পারেন