বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

আগে থেকেই জানি কুমিল্লার নির্বাচন কী হবে, এ সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাওয়া মানেই তাদের বৈধতা দেওয়া

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৬, ২০২২
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আপনারা নিজেরাই দেখেছেন কুমিল্লার নির্বাচন কি হয়েছে। আমরা বহু আগে থেকেই জানি কি হবে। এজন্য আমরা কোনো নির্বাচনে যাচ্ছি না। এ সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাওয়া মানেই হচ্ছে তাদের বৈধতা দেওয়া। আমি মনেকরি, আমাদের বিচার বিভাগ, প্রশাসন, শিক্ষাব্যবস্থাসহ সবকিছু যদি আমরা রক্ষা করতে চাই তাহলে গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।

সংবাদপত্রের কালো দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি। এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) একাংশ।

‘সংবাদপত্রের স্বাধীনতা আর রাষ্ট্রের স্বাধীনতা আলাদা করে দেখার সুযোগ নেই’ মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘গণতন্ত্র এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতা বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। সংবাদপত্রের স্বাধীনতার সঙ্গে যেহেতু গণতন্ত্রের স্বাধীনতা একই জায়গায়, গণতন্ত্রের স্বাধীনতা না পেলে আমরা সংবাদপত্রের স্বাধীনতা কীভাবে পেতে পারি? সেজন্য আমাদের এখন মূললক্ষ্য হচ্ছে গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনা।’

‘যারা গণতন্ত্র হরণ করে বাকশাল গঠন করে তাদের কাছ থেকে তো গণতন্ত্র পেতে পারি না। এখন আমাদের রাষ্ট্রের অস্তিত্বের জন্য, জাতির অস্তিত্বের জন্য, সংবাদপত্র, আমাদের বিচার বিভাগ, বিচারব্যবস্থা, আমাদের প্রশাসন, শিক্ষাব্যবস্থা, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা সবকিছুকে যদি আমরা রক্ষা করতে চাই, তাহলে গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।’

‘আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রকে হরণ করেছে, সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকে হরণ করেছে, ব্যক্তি স্বাধীনতা হরণ করেছে। আর বিএনপি সেই গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে দিয়েছে, বহুদলীয় গণতন্ত্র দিয়েছে এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতা দিয়েছে।’

‘আমাদের মূল যে লক্ষ্য, সেই লক্ষ্যটি হচ্ছে গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে। গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনার জন্য আমাদের সব মানুষকে জাগিয়ে তুলতে হবে। সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে জাগিয়ে তুলে গণতন্ত্রের যে আন্দোলন শুরু হয়েছে, সেই আন্দোলনকে চূড়ান্ত রূপ দিতে হবে।’

‘এতকিছুর পরেও আমরা কিন্তু থেমে নেই। আমরা কাজ করছি এবং চূড়ান্ত আন্দোলনে যাওয়া এবং দেশকে মুক্ত করার ব্যাপারে আমাদের কোনো ঘাটতি নেই। আমরা নিঃসন্দেহে সেই আন্দোলনের মধ্যদিয়ে এ অবস্থার পরিবর্তন ঘটাবো, দেশের গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনবো, সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকে ফিরিয়ে আনবো। এ লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি এবং আমরা বিশ্বাস করি সফল হবো।’

বিএফইউজের সভাপতি এম আব্দুল্লাহর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএফইউজে ও ডিইউজের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আর পড়তে পারেন