বুধবার, ১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

করোনাকালে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১৩, ২০২১
news-image

 

লে. কর্নেল নাজমুল হুদা খান

দুই বছর ধরে বিশ্ববাসী যুদ্ধ করে যাচ্ছে অদৃশ্য করোনা অতিমারির বিরুদ্ধে। বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত কভিড-১৯ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৬৮ কোটি, মৃতের সংখ্যা ৫৩ লাখ। বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬ লাখের কাছাকাছি; মৃত্যু ঘটেছে ২৮ হাজারের বেশি। অনেকটাই অপরিচিত এই অতিমারির মুখোমুখি হয়ে পৃথিবীর অন্যতম উন্নত দেশগুলোর স্বাস্থ্যব্যবস্থাও ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে। এই অতিমারি মোকাবেলায় হাসপাতালগুলোর দক্ষতা ও সক্ষমতায় ঘাটতি, স্বাস্থ্যকর্মীর অপর্যাপ্ততা, স্বাস্থ্যসেবায় ব্যবহৃত লজিস্টিকস সরবরাহে অপ্রতুলতা ইত্যাদির কারণে সারা বিশ্বকে হিমশিম খেতে হয়েছে। উপরন্তু কভিড-১৯ যুদ্ধে লিপ্ত থাকা এবং এ খাতে বিশালাকার বাজেট বরাদ্দের আবশ্যকতার কারণে বৈশ্বিক অন্যান্য স্বাস্থ্যব্যবস্থাও অনেকটা অবহেলিত থেকে গেছে। বাংলাদেশের শহর ও গ্রামীণ বহু হাসপাতাল শুধু কভিড-১৯ রোগীদের সেবায় নিয়োজিত রয়েছে। ফলে অন্য রোগীরা সাধারণ ও অতিপ্রয়োজনীয় সেবা থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

বৈশ্বিক এই প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে ১২ ডিসেম্বর পালিত হচ্ছে বিশ্ব সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা দিবস ২০২১।

‘Leave no one’s health behind: Invest in health systems for all.’ এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে বিশ্বের সব দেশে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির জন্য স্বাস্থ্যব্যবস্থার উন্নয়নকে মূল চাবিকাঠি হিসেবে বিবেচনা করে বিশ্বনেতা ও বিশ্ববাসীকে এই কর্মসূচি সফল করতে এগিয়ে আসতে আহ্বান জানানো হয়।

এ প্রসঙ্গে বলে রাখা প্রয়োজন, ২০০০ সালে ১৮৯টি দেশের নেতাদের এমডিজি বা সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় শিশুমৃত্যুর হার হ্রাস, মাতৃস্বাস্থ্যের উন্নয়ন এবং এইডস, ম্যালেরিয়া ও অন্যান্য রোগ প্রতিরোধসহ আটটি লক্ষ্য নির্ধারণ করে ২০১৫ সালের মধ্যে তা বাস্তবায়নে সূচক নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। পরে ২০১৫ সালে জাতিসংঘ সাধারণ সভায় ১৭টি লক্ষ্য নির্বাচন করে ২০৩০ সাল পর্যন্ত ১৫ বছরের সময়সীমা বেঁধে দিয়ে এসডিজি বা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। তন্মধ্যে স্বাস্থ্যবিষয়ক লক্ষ্যমাত্রাকে বলা হয় SDG-3: Good health and well-being. এই কর্মসূচিকে সফল করতে ১৩টি লক্ষ্যমাত্রার অন্যতম প্রতিপাদ্য বিষয় Achieve universal health coverage বা সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকরণ কর্মসূচি, যাতে বিশ্ববাসীর আর্থিক ঝুঁকি নিরাময়ের মাধ্যমে সব প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা; নিরাপদ, কার্যকরী, উন্নত ও সুলভমূল্যে ওষুধ এবং ভ্যাকসিন নিশ্চিত করার নির্দেশনা রয়েছে। এই সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে বিশ্বের নেতাদের প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং বিশ্ববাসীর মধ্যে জনসচেতনতা সৃষ্টির প্রয়াসে জাতিসংঘ ২০১৭ সাল থেকে প্রতিবছর ১২ ডিসেম্বর সারা বিশ্বে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা দিবস পালনের উদ্যোগ গ্রহণ করে। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘Protect and invest health and care workers’. বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবারের লক্ষ্যমাত্রায় ৩০০ কোটি মানুষকে অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা নিয়েছে। ১০০ কোটি মানুষের কাছে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছানো, ১০০ কোটি মানুষকে জরুরি সেবা ও সুরক্ষা প্রদান এবং অপর ১০০ কোটি মানুষের উন্নত স্বাস্থ্য বিনির্মাণে ভূমিকা রাখতে পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিশ্বব্যাপী সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবাকে সফল করতে চারটি ক্যাটাগরিতে ১৬টি প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবাকে চিহ্নিত করেছে। প্রথমত, প্রজনন, মা, শিশু ও নবজাতকের স্বাস্থ্যসেবার গ্রুপে পরিবার পরিকল্পনা, গর্ভবতী ও প্রসব-পরবর্তী মায়ের যত্ন, শিশুকে প্রতিষেধক ভ্যাকসিন প্রদান এবং নিউমোনিয়া চিকিৎসা গ্রহণে সচেতন করে তোলা। দ্বিতীয়ত, সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ ও চিকিৎসা উপদলে যক্ষ্মা, এইডস, ম্যালেরিয়া এবং রোগ প্রতিরোধে স্যানিটেশন ব্যবস্থা জোরদার। তৃতীয়ত, অসংক্রামক রোগ শ্রেণিতে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, জরায়ুর ক্যান্সার এবং ধূমপানজনিত রোগ প্রতিরোধ ও চিকিৎসা। চতুর্থত, সেবা সক্ষমতা বৃদ্ধি অধ্যায়ে হাসপাতালের সেবার পরিধি বৃদ্ধি, স্বাস্থ্যকর্মীর সংখ্যা বাড়ানো, প্রয়োজনীয় ওষুধপত্রের পর্যাপ্ত সরবরাহ এবং আন্তর্জাতিক নীতিমালা অনুযায়ী স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ।

তবে দুই বছর ধরে কভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে যুদ্ধে বিশ্বের সব দেশের মনোযোগ, এই রোগ প্রতিরোধ চিকিৎসায় বিশাল বাজেট বরাদ্দ ও খরচ এবং জীবনযাত্রার সব পর্যায়ে ক্ষতিকর প্রভাব বিস্তার করায় দরিদ্র, নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলো তো বটেই, উন্নত দেশগুলোও সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে হিমশিম খাচ্ছে। বলা যায়, কিছু ক্ষেত্রে টেকসই লক্ষ্যমাত্রা মুখ থুবড়ে পড়ার উপক্রম হয়েছে বহু দেশে। এই অতিমারি প্রতিরোধ ও চিকিৎসার প্রস্তুতি, দক্ষ জনবল ও সরবরাহ ঘাটতি ছিল সারা বিশ্বে। তাই মৃত্যুর হার বৃদ্ধিসহ নানামুখী প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হতে হয়েছে প্রথম থেকেই। পরে উন্নত বিশ্বে চাহিদামাফিক জনশক্তি, চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা ও প্রাতিষ্ঠানিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা গেলেও বেশির ভাগ দরিদ্র ও স্বল্প আয়ের দেশে বিদ্যমান সম্পদ দিয়ে এই অতিমারিকে ঠেকাতে পুরো স্বাস্থ্যব্যবস্থা ঝুঁকির সম্মুখীন হয়। ভ্যাকসিন আবিষ্কারের পরও ভ্যাকসিনপ্রাপ্তি ও সরবরাহ পর্যাপ্ততায় উন্নত দেশের বিপরীতে উন্নয়নশীল দেশগুলোর চিত্রে ভিন্নতা পরিলক্ষিত হয়। উপরন্তু করোনাভাইরাসের ঘন ঘন ধরন পরিবর্তনের কারণে যুদ্ধটি দীর্ঘায়িত হতে থাকে। ফলে কভিড-১৯-এর স্বল্পমেয়াদি প্রভাবকে কোনোমতে রোধ করা গেলেও অর্থনীতি, জীবনযাত্রা ও স্বাস্থ্যের অন্যান্য খাতে মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব রোধে দীর্ঘ সময় ব্যয় হবে, তাতে সন্দেহ নেই। এর প্রভাব সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবার পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়াবে, তা অনেকটাই নিশ্চিত।

বাংলাদেশ কভিড-১৯ অতিমারি মোকাবেলার প্রথম থেকেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসরণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, মাস্কের ব্যবহার, চলাচলে নিষেধাজ্ঞা, হাত ধোয়া, পরিচ্ছন্নতা ও জীবাণুনাশক ব্যবহারের উদ্যোগ গ্রহণ করে। পাশাপাশি নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও হাসপাতালগুলোর সক্ষমতা; যথা—আইসিইউ বেড বৃদ্ধি, পর্যাপ্ত অক্সিজেন ও পিপিই সরবরাহ, টেস্টিং যন্ত্র ও কিট সরবরাহে সর্বশক্তি নিয়োগ করে। ফলে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার নিয়ন্ত্রণে সফলতা লাভে সক্ষম হয়। ভ্যাকসিন আবিষ্কারের পরও বিভিন্ন উৎস থেকে বিশ্বসেরা ফাইজার, মডার্না, অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও সিনোফার্ম ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও সর্বস্তরের সাধারণের মাঝে প্রয়োগ করা হয় এবং অদ্যাবধি প্রায় পাঁচ কোটি প্রাপ্তবয়স্ক ও দুই লাখ শিক্ষার্থীকে ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে।

তবে করোনা অতিমারিতে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশকেও সামলাতে হয়েছে অতিমারি প্রতিরোধ ও ব্যবস্থাপনার সংকট। স্বাস্থ্যকর্মীর অপ্রতুলতা, পর্যাপ্ত ও কার্যকরী পিপিইর ঘাটতি, কভিড-১৯ রোগ নির্ণয়ের যন্ত্রপাতির অভাব, আইসিইউ সুবিধা ও সংশ্লিষ্ট ওষুধপত্রের অপর্যাপ্ততার মতো কঠিন পরীক্ষার মুখোমুখি হতে হয়েছে। ফলে অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবার সূচকগুলো অর্জনে বেগ পেতে হচ্ছে, যদিও বাংলাদেশ গত এক যুগব্যাপী সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি সাধন করেছে। শিশুমৃত্যুর হার হ্রাস এবং তথ্য-প্রযুক্তির সফল ব্যবহারের জন্য ২০১০ সালে জাতিসংঘের ৬৫তম অধিবেশনে বাংলাদেশ বিশেষ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছে। তথাপিও প্রায় ৬৫ শতাংশ মানুষের অদ্যাবধি জরুরি ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসাপ্রাপ্তিতে নিজের অর্জিত অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে। তবে জাতিসংঘের মতে, বাংলাদেশে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশের তুলনায় শ্রেয়তর স্বাস্থ্য অবকাঠামো রয়েছে; যথা—৫০০টি উপজেলা পর্যায়ে স্বাস্থ্যকেন্দ্র, পাঁচ হাজার ইউনিয়ন সাবসেন্টার এবং ১৩ হাজারের অধিক কমিউনিটি ক্লিনিক মাঠ পর্যায় এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সেবা প্রদানে নিয়োজিত রয়েছে। আমাদের দেশের পাঁচ বছরের নিচে শিশুমৃত্যুর হার হ্রাস, গড় আয়ু বৃদ্ধি, প্রতিষেধক টিকা প্রয়োগের হার বৃদ্ধি এবং যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নিয়ন্ত্রণে অগ্রগতি করোনা অতিমারিতেও উল্লেখযোগ্য অর্জন। উপরন্তু আমাদের মাতৃমৃত্যুর হার ৭৫ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে, শিশুমৃত্যুর হার অর্ধেকে নেমে এসেছে এবং গড় আয়ু আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত ও পাকিস্তানের চেয়েও এগিয়ে।

করোনা অতিমারির সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার বহু সংকট ও ঘাটতির মধ্যেও সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা খাতে অনেক ক্ষেত্রে ইতিবাচক সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। অতিমারি প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, পরিচ্ছন্ন জীবনযাত্রা এবং স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণের অভ্যাসের কারণে অন্যান্য সংক্রামক রোগের বিস্তার কমেছে। করোনার কো-মর্বিডিটির কারণে করোনা রোগের তীব্রতা ও মৃত্যুর হার বেড়ে যাওয়ার জন্য অসংক্রামক রোগব্যাধির বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টি হয়েছে। অতিমারি মোকাবেলায় গৃহীত সব পদক্ষেপের কারণে দেশের স্বাস্থ্যকাঠামো, জনশক্তি ও সংক্রামক রোগ ব্যবস্থা শক্তিশালী হয়েছে, বহুদিন ধরে ঝিমিয়ে পড়া ভ্যাকসিন প্রযুক্তি ও উৎপাদন খাত উন্নত ও অগ্রসর হয়েছে। স্বাস্থ্য খাতে নিয়োজিত সরকারি, বেসরকারি, এনজিওসহ সব সংস্থা আরো বেশি কার্যকর ও সুসংহত হয়েছে। এসব অগ্রগতি সব দেশে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে সহায়তা করবে। এসব অগ্রগতি যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবায় সফলতা আনয়নে কাজে লাগাতে হবে।

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় স্বাস্থ্যবিষয়ক এসডিজি-৩ সুস্থ বিশ্ব বিনির্মাণের পূর্বশর্ত। এর ১৩টি লক্ষ্যমাত্রায় সফলতা আনয়নে যে সূচক নির্ধারণ করা হয়েছে, তা নিম্ন আয়ের এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য দুরূহ বটে। তবে ২০৩০ সালের মধ্যে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকরণই উন্নত ও সমৃদ্ধ জাতি গঠনের পূর্বশর্ত—এ বিষয়ে সারা বিশ্বের নেতারা নিজ নিজ দেশ এবং সর্বোপরি সুস্থ ও শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গঠনে একমত হয়েছেন। সুতরাং বৈশ্বিক করোনা অতিমারিকে পরাস্ত করেও সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা সম্ভব।

এ জন্য দেশের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ব্যবস্থাপনাকে শক্তিশালীকরণ, নিয়ন্ত্রণ সংস্থাগুলোকে আরো বেশি কার্যকর ও জবাবদিহির আওতায় আনা, স্বাস্থ্য খাতে ভূমিকা পালনকারী সব সংস্থার যথাযথ সমন্বয় গঠন, দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে শক্ত ভিতে দাঁড় করানো, সব পর্যায়ের স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার উন্নয়ন, তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের যথাযথ ব্যবহার, রোগ প্রতিরোধ খাতের কার্যক্রমকে জোরদারকরণ, স্বাস্থ্যব্যবস্থার বিকেন্দ্রীকরণ পদ্ধতিকে কার্যকরী করা, সবাইকে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা বিষয়ে সচেতন করে তোলা, স্বাস্থ্যসেবা খাতে সব পর্যায়ে সামাজিক সম্পদ ও উৎসগুলোকে কাজে লাগানো, সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে প্রতিনিয়ত গবেষণা করা এবং গবেষণালব্ধ তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে দেশের স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন এগিয়ে নিতে হবে।

লেখক : জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ। সহকারী পরিচালক, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, কুর্মিটোলা, ঢাকা

আর পড়তে পারেন