সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

করোনার ধকল কাটিয়ে উঠেছে ইতালির পর্যটন খাত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২১, ২০২২
news-image

সরকার মোখলেছুর রহমান, ইতালি থেকে :
করোনার ধকল কাটিয়ে অর্থনীতির সঙ্গে চাঙা হয়ে উঠেছে ইতালির পর্যটন খাতও। লোকসান কাটিয়ে আশার আলো দেখতে শুরু করেছেন দেশটিতে বসবাসরত দুই লাখেরও বেশি প্রবাসী বাংলাদেশি। পর্যটন খাত চাঙা হওয়ায় হোটেল, বার ও রেস্টুরেন্ট ব্যবসার সম্পৃক্ত বাংলাদেশিরাও খুশি।

ইতালির মোট জিডিপির ১৩ শতাংশই আসে পর্যটন খাত থেকে। দেশটির জনসংখ্যা প্রায় ছয় কোটি হলেও প্রতিবছর এখানে আগমন ঘটে সাড়ে ছয় কোটিরও বেশি পর্যটকের। করোনায় ২০২০ সালে ইতালির পর্যটন শিল্পের ক্ষতির পরিমাণ ছিল প্রায় ১২০ বিলিয়ন ইউরো। এ খাতে ক্ষতির সূচকে প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা ছিলেন সামনের সারিতে।

অতীতের ক্ষতি কাটিয়ে ২০২২ সালে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে দেশটির পর্যটন খাত। বর্তমানে ইতালির পর্যটন শিল্পের অর্থনৈতিক বিকাশে খুশি এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

করোনা ভাইরাসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পর্যটন খাত। কিন্তু ২০২১ সালের গ্রীষ্মে ইতালিতে রেকর্ডসংখ্যক পর্যটক এসেছে। ইতালির পর্যটন করপোরেশনের রিপোর্ট অনুসারে, গেলবছরের জুলাই ও আগস্ট মাসে দেশটিতে প্রায় তিন কোটি পর্যটক এসেছেন। এর মধ্যে দুই কোটি ৩৪ লাখ স্থানীয়, বাকিরা বিদেশি।

মহামারির প্রথম ধাক্কায়, সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ইতালি। দেশটিতে প্রতি বছর গড়ে প্রায় সাড়ে ছয় কোটি পর্যটক ভ্রমণ করলেও করোনার কারণে ২০২০ সালে ইতালির পর্যটন খাতে ক্ষতির পরিমাণ ১২০ বিলিয়ন ইউরো। তবে আশার কথা হলো ২০২১ সালের জুলাই-আগস্ট মাসে, ইতালিতে পর্যটকের আগমন ঘটেছে প্রায় ৩ কোটি, যা প্রত্যাশার চেয়ে বেশি বলে জানান ইতালির পর্যটন ও ব্যবসার গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিএনএ।

ইউরোপের অধিকাংশ দেশের তুলনায় ইতালিতে ভ্রমণ ব্যয় অনেক বেশি। দেশটির লাভজনক পর্যটন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক হওয়া প্রবাসীদের জন্য ছিল বেশ কঠিন। তবে মহামারি করোনায় পাল্টে যায় পুরো পরিস্থিতি। লোকসানের মুখে বন্ধ হয়ে যায় হাজার হাজার পর্যটন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান। সেই সুযোগে কাজে লাগিয়ে ২০২১ সালের শেষাংশে এবং ২০২২ এর শুরুর দিকে নামমাত্র দামে এসব প্রতিষ্ঠানের মালিকানা কিনে নেন অনেক প্রবাসী বাংলাদেশি। এ খাতে বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশি যুক্ত হওয়ায় ভবিষ্যতে তা দেশের অর্থনীতির বিকাশে সহায়তা করবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

 

আর পড়তে পারেন