মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগ: বিভিন্ন উপজেলায় মেয়াদহীন আহ্বায়ক কমিটি বিদ্যমান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৩, ২০২১
news-image

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
রাজনৈতিক এলাকা হিসেবে কুমিল্লা উত্তর জেলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ এলাকা থেকে বহু মন্ত্রী দেশ শাসন করেছেন। কুমিল্লার দেবিদ্বার, চান্দিনা, মুরাদনগর, দাউদকান্দি, হোমনা , মেঘনা ও তিতাসসহ ৭ উপজেলা ও বাঙ্গরা নামক এক থানা নিয়ে কুমিল্লা উত্তর রাজনৈতিক জেলা বিবেচিত হয়ে আসছে। চলতি বছরের ২ অক্টোবর সাংগঠনিক কার্যক্রমে স্থবিরতা ও দলীয় শৃঙ্খলা বিরোধী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের শাখা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। এ শাখার আওতাধীন উপজেলা শাখাগুলোও আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে চলছে বছরের পর বছর ধরে। নতুন কমিটি গঠনে সক্রিয়তা কম দেখা গেলেও করোনাকালে অসহায় মানুষের পাশে ছিল উত্তর জেলা যুবলীগ।যুবলীগের সাংগাঠনিক কর্মকান্ড নিয়ে এই প্রতিবেদন।

২০০৪ সালের শেষের দিকে সোহেল মোস্তফা স্বপনকে সভাপতি ও বাহাউদ্দিন বাহারকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কুমিল্লা (উত্তর) জেলা যুবলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয় । নিয়ম অনুযায়ী ২০০৭ সালের শেষের দিকে এ কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরও কমিটি চলমান থাকে। ২০১৩ সালে যুবলীগ সভাপতি সোহেল মোস্তফা স্বপন মেঘনায় একটি কোম্পানিতে এক দুঘর্টনায় নিহত হওয়ার পর সভাপতির পদটি শূণ্য হয় । প্রায় সাড়ে ১০ বছর পর ২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর মোঃ বাহাউদ্দিন বাহারকে আহ্বায়ক ও মোঃ সারওয়ার হোসেন বাবুকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে তিন মাস মেয়াদী কুমিল্লা (উত্তর) জেলা যুবলীগের ২১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় যুবলীগ। বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের তৎকালিন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশীদ আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেন। কমিটিতে সদস্য হিসেবে ছিলেন মোঃ আনোয়ার হোসেন, মোঃ গোলাম ফারুক রানা, মোঃ খায়রুল আলম সাধন, মোঃ আবুল কাশেম ওমানী, মোঃ জাকির নেওয়াজ সোহেল, মোঃ আবুল খায়ের, মোঃ জহিরুল ইসলাম কিশোর, মোঃ মহিউদ্দিন খন্দকার, মোঃ সালাউদ্দিন রিপন, মোঃ এনামুল হাছান খান, মোঃ সাইফুল আলম মুরাদ, মোঃ শাহ জালাল, মোঃ হুমায়ন কবির, মোঃ মনিরুজ্জামান টিপু, মোঃ নজরুল ইসলাম কাজল, মোঃ মিলন সরকার, মোঃ মাজেদুল ইসলাম রাসেল, মোঃ কাজী ফসিউল হাসান ও মোঃ ফারুক মিয়া। এই আহ্বায়ক কমিটি চলে ৬ বছর ১৬ দিন। এই ৬ বছরে তারা পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে পারেনি। অবশেষে ২ অক্টোবর কমিটি বিলুপ্তি ঘোষণা করা হয়। তবে এই কমিটি করোনা মহামারির সময়ে অসহায় ও কর্মহীন মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে খাবার পৌছে দিয়েছেন। মুঠোফোনে কল পেলেই যুবলীগ কর্মীরা খাবার পৌছে দিয়েছে অসহায়দের ঘরে। সেই সাথে অক্সিজেন সেবা দিয়েছেন যুবলীগ নেতাকর্মীরা। এছাড়া মশক নিধন, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানসহ নানা কর্মসূচী পালন করেছেন যুবলীগ। যুবলীগের আহ্বায়ক মোঃ বাহাউদ্দিন বাহার ও যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ সারওয়ার হোসেন বাবু এ মানবিক কর্মকান্ডের রূপকার। করোনাকালে বিশেষ করে সারওয়ার হোসেন বাবুর মানবিক অবদান ছিল অনস্বীকার্য।

সাড়ে ৪ বছর ধরে চলছে চান্দিনা উপজেলা যুবলীগের ৩ মাসের আহ্বায়ক কমিটি:
২০১৭ সালের ২৯ মার্চ জহিরুল ইসলাম মুন্সিকে আহ্ব্য়াক এবং গিয়াস উদ্দিন ও ইমাম হোসেনকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ২১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেন যুবলীগের তৎকালিন কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো: হারুনুর রশীদ। ৩ মাসের মধ্যে সম্মেলন করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার নির্দেশনা থাকলেও সাড়ে ৪ বছরে কোন সম্মেলন হয়নি । আহ্বায়ক কমিটি আর পূর্ণাঙ্গ হয়নি।

চান্দিনা পৌর যুবলীগ:
চলতি বছরের জুলাইয়ে চান্দিনা পৌর যুবলীগের ৬১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটিতে সভাপতি পদে মো: জাকির হোসেন সরকার ও সাধারণ সম্পাদক পদে রাকীব মাহমুদকে রাখা হয়েছে। এর আগে পূর্বের কমিটির মেয়াদ ছিল সাড়ে ৩ বছর।

মুরাদনগর যুবলীগ- ৩ মাসের আহ্বায়ক কমিটি সাড়ে ৩ বছরেও পূর্ণাঙ্গ হয়নি:
২০১৮ সালের ১৯ মার্চ মুরাদনগর উপজেলা যুবলীগের ৩ মাস মেয়াদী ২১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় কমিটি । ৩ মাসের সেই আহ্বায়ক কমিটি সাড়ে ৩ বছরেও পূর্ণাঙ্গ হয়নি। এছাড়া এ কমিটর আহ্বায়ক খায়রুল আলম সাধনের মরদেহ পাওয়া যায় মহাসড়কের পাশে । ফলে যুগ্ম আহ্বায়ক রুহুল আমিন এখন ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ।

২০ বছর ধরে দুইজনের হাতেই দেবিদ্বার উপজেলা যুবলীগ :
২০ বছর ধরে চলছে দেবিদ্বার উপজেলা যুবলীগের কমিটি । ২০০০ সালের পর হাজী আবুল কাশেম ওমানীকে সভাপতি ও মোঃ বাবুল হোসেন রাজুকে সাধারণ সম্পাদক করে ৬১ সদস্য বিশিষ্ট যুবলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। এই কমিটি ১৫ বছর চলার পর গত ৫ বছর আগে আগের কমিটির সভাপতি হাজী আবুল কাশেম ওমানীকে আহ্বায়ক ও পূর্বের কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ বাবুল হোসেন রাজুকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে আহ্বায়ক কমিটি করা হয়। এটা ৫ বছর শেষ করে ৬ বছরে পা দিয়েছে।

দেবিদ্বার পৌর যুবলীগের বয়স ২ বছর:
২০১৯ সালের অক্টোবর মাসে ৪১ সদস্য বিশিষ্ট পৌরসভা যুবলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে সভাপতি হিসেবে মোঃ কামরুল খালেদ সুমন ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মোঃ ওয়াহেদ সরকারকে রাখা হয়। এ কমিটিও ২ বছর ধরে চলছে।

দাউদকান্দি উপজেলা যুবলীগ:
২০১৯ সালের ৭ এপ্রিল মো: আনোয়ার হোসেনকে আহ্বায়ক এবং মো: হেলাল মাহমুদ ও মো: মেহেদী হাসান সুমনকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ২৫ সদস্য বিশিষ্ট ৩ মাস মেয়াদী দাউদকান্দি উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় যুবলীগ।এই ৩ মাসের কমিটি আড়াই বছর ধরে চলছে।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের যুবলীগের কমিটিগুলো নিয়েও বির্তক রয়েছে। এদিকে ২০১৯ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর দাউদকান্দি উপজেলার মারুকা ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মোস্তাক আহমেদ মেম্বারকে ওই ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক পদে দায়িত্ব দেয়া হয়। উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আনোয়ার হোসেন ও দুই যুগ্ম আহ্বায়ক স্বাক্ষরিত কমিটিতে যুবদলের সাবেক এ নেতাকে আহ্বায়ক করে ২২ সদস্যের এ কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। দাউদকান্দি উপজেলা যুবলীগের দুই যুগ্ম আহ্বায়ক হেলাল মাহমুদ ও মেহেদি হাসান সুমন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক ও উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাজারুল সরকারকে আহ্বায়ক করে ২১ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করেন। একদিন পরেই আহ্বায়ক আনোয়ার হোসেন ও উল্লিখিত দুই যুগ্ম আহ্বায়ক যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক মোস্তাক মেম্বারকে আহ্বায়ক করে ২২ সদস্যের আরেকটি কমিটি ঘোষণা করেন। এ কমিটি ঘোষণার পর ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়। জানা যায়, যুবদল থেকে পদত্যাগ করার পর একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের এমপি মেজর জেনারেল (অব.) সুবিদ আলী ভূঁইয়া ও উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচনে মেজর (অব.) মোহাম্মদ আলী সুমনকে বিজয়ী করতে ভূমিকা রাখায় তাকে মারুকা ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক করা হয়।

২ জনের হাতে হোমনা উপজেলা যুবলীগ:

অস্থিরতা বিরাজ করছে হোমনা উপজেলা যুবলীগে। প্রায় সময়ই কোন্দলে জর্জরিত থাকে এ কমিটি। হোমনা উপজেলা যুবলীগের কমিটি ২০১২ সালে করা হয়েছিল। এটি ছিল ৩ বছর মেয়াদের। এই কমিটি ৫ বছর চলার পর ২০১৭ সালের ৩০ ডিসেম্বর হোমনা উপজেলা যুবলীগের ৩১ সদস্যবিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি দেয় কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগ। এতে খন্দকার নজরুল ইসলামকে আহ্বায়ক ও মো. মনিরুজ্জামান টিপু, মো. মাহবুবুর রহমান, মো. মোবারক হোসেন ও মো. মাজেদুল হক রাসেলকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়। আহ্বায়ক কমিটি গঠনের প্রতিবাদে ওই সময় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এসএম আলালের নেতৃত্বে তিন শতাধিক নেতাকর্মী গতকাল লঞ্চঘাট এলাকার উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে একটি মিছিল বের করে। একই সময় বেলা ১১টার দিকে যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক খন্দকার নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে পৌর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে পৃথক পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে দুপুর ১২টার দিকে আহ্বায়ক কমিটির সদস্যরা পৃথক একটি মিছিল বের করে। ২০২০ সালের ২২ ডিসেম্বর হোমনা হাইস্কুল মাঠে সম্মেলনের মাধ্যমে খন্দকার নজরুল ইসলামকে সভাপতি এবং কায়সার আহম্মেদ ব্যাপারীকে সাধারণ সম্পাদক হোমনা উপজেলা যুবলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছিলো। চলতি বছরের ২৩ মে পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করা হয়েছিল। চলতি বছরের (২০২১) ২৫ সেপ্টেম্বর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে বহাল রেখে কমিটির অন্য সব সদস্যকে বিলুপ্ত করে জেলা কমিটি।

মেঘনা উপজেলা যুবলীগ চলছে ৫ বছর ধরে:
মেঘনা উপজেলা কুমিল্লা-১ সংসদীয় আসনের আওতাভুক্ত। এখানে আ’লীগের মধ্যে একাধিক গ্রুপ সক্রিয়। ফলে আ’লীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের কমিটি গঠনে বেশ বিপত্তি দেখা যায়। ২০১২ সালের ২ নভেম্বর ৩১ সদস্য বিশিষ্ট মেঘনা উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। ওই কমিটিতে মোঃ মজিবুর রহমান মজিবকে আহ্বায়ক করা হয়। মোঃ লিটন আব্বাসী ও মোঃ মিলন সরকারকে যুগ্ন আহ্বায়ক করা হয়। এরপর ৫ বছর পূর্বে একটি আহ্বায়ক কমিটি করা হয়। ওই কমিটিতে শামীমকে আহ্বায়ক ও দেলোয়ার ও আমানকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়। এই আহ্বায়ক কমিটি ৫ বছরে ধরে চলছে।

তিতাস উপজেলা যুবলীগ চলছে ৫ বছর ধরে:

২০১৭ সালে সাইফুল আলম মুরাদকে আহ্বায়ক করে তিতাস উপজেলা যুবলীগ গঠন করা হয়। ওই কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক হিসেবে রয়েছেন লালন ও মকবুল। এই আহ্বায়ক কমিটিও ৫ বছর ধরে চলছে।

দীর্ঘমেয়াদী আহ্বায়ক কমিটির বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সারওয়ার হোসেন বাবু জানান, বেশিরভাগ কমিটিগুলোই কেন্দ্র থেকে ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া বিগত ২ বছর ধরে করোনা মহামারির কারণে সাংগাঠনিক কার্যক্রমে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়েছে। তবে এই করোনা মহামারিতে আমরা “হ্যালো যুবলীগ’’ গঠন করে প্রায় ১০ হাজার অসহায় ও কর্মহীন মানুষের ঘরে খাবার পৌছে দিয়েছি। এছাড়া করোনা সুরক্ষাসামগ্রী নিয়মিত সরবরাহ করেছি। দিয়েছি অক্সিজেন সেবা। সব মিলিয়ে করোনা সংকটময় সময়ে মানুষের পাশেই ছিলাম আমরা।

 

আর পড়তে পারেন