বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কুসিক নির্বাচনে ভোটাররা ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে চান- আবুল হাসানাত বাবুল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৭, ২০২২
news-image

আবুল হাসানাত বাবুল:

আরেকটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন দুয়ারে। প্রার্থীদের সরব উপস্থিতিতে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন এলাকা এখন উৎসবমুখর। মহাকালের বুকে একসময় এই পরিবেশ ইতিহাস হয়ে যাবে। তখন সময়ের সজাগ প্রহরীরা বলবেন, ২০২২ সালের কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

এবার কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে, নির্বাচন কমিশনের তথ্যমতে মেয়রপদে ৫ জন, কাউন্সিলর পদে ১০৬ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৩৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ১৫ জুন যে প্রার্থী তাদের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী থেকে বেশি ভোট পাবেন তিনিই নির্বাচিত হবেন। গণতান্ত্রিক নির্বাচনী ব্যবস্থায় এইভাবেই গ্রহণযোগ্য প্রার্থী নির্বাচিত হন।

গোমতী পাড়ের শহর কুমিল্লা পৌরসভার বহু নির্বাচনের প্রত্যক্ষ সাক্ষী আমরা আজো বহুজন আছি। আমার কাছে আইয়ুব খানের বেসিক ডেমোক্রেসির নির্বাচন দেখার স্মৃতি চোখে ভাসছে। যা বাংলায় বুনিয়াদি গণতন্ত্রের নির্বাচন নামে পরিচিত। পৌরসভায় ছিল ওয়ার্ড। যা আজো আছে। সেই ওয়ার্ডে এক হাজার প্রাপ্তবয়স্ক ভোটার একজন মেম্বার নির্বাচিত করতেন। নির্বাচিত মেম্বারগণ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, পৌরসভার ওয়ার্ড চেয়ারম্যান ও পৌরসভার ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত করতেন। পদাধিকার বলে ডি এম থাকতেন পৌরসভার চেয়ারম্যান। বর্তমান ডেপুটি কমিশনার যিনি ডিসি নামে পরিচিত, পাকিস্তান আমলে তাদের পরিচিতি ছিল ডি এম নামে। বেসিক ডেমোক্রেসিতে মেম্বাররাই সবকিছুতে ভোট দেবার অধিকারী ছিলেন। সেই প্রেক্ষিতে আমার স্মৃতিতে আছে কুমিল্লায় মুসলীম লীগ নেতা আইনজীবী সাজেদুল হক জাতীয় পরিষদে এবং নূর উদ্দিন মাহমুদ আবাদ, আবদুল ওয়াদুদ(অদুদ মিয়া) প্রাদেশিক পরিষদে নির্বাচিত হয়েছিলেন। আবদুল ওয়াহিদ বগা মিয়া পৌরসভার ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৬৫ সালের জানুয়ারিতে হয়েছিল প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। প্রার্থী ছিলেন প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান এবং পাকিস্তানের জাতির জনক কায়দে আযম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর বোন ফাতেমা জিন্নাহ। সম্মিলিত বিরোধী দলের অন্যতম প্রধান নেতা ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তখনো তিনি বঙ্গবন্ধু খেতাবপ্রাপ্ত হননি। তিনি এবং বিরোধী দল ফাতেমা জিন্নাহকে সমর্থন দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু ছিলেন তখন আওয়ামীলীগের প্রধান। বঙ্গবন্ধু ফাতেমা জিন্নাহকে নিয়ে ঢাকা থেকে ট্রেনযোগে চট্টগ্রাম যান। আমার শ্বশুর ভাষাসৈনিক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, স্বাধীনতা উত্তর কুমিল্লা জেলার প্রথম প্রশাসক, আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট আহমেদ আলী থেকে শুনেছি যে ট্রেন সন্ধ্যায় কুমিল্লা স্টেশনে পৌঁছার কথা তা পৌঁছেছিল শেষ রাতে। কুমিল্লা রেল স্টেশন তখন লোকে লোকারণ্য। আমি কৈশোরকাল অতিক্রম করছিলাম। উৎসাহ নিয়ে কুমিল্লা রেল স্টেশনে আমিও গিয়েছিলাম। কতক্ষণ অপেক্ষা করেছিলাম জানিনা। কিন্তু একসময় ফিরে এসেছিলাম। পরবর্তীকালে সংবাদপত্রে যোগ দিলে সাপ্তাহিক আমোদ সম্পাদক মো: ফজলে রাব্বী থেকে অনেক তথ্য পেতাম। মো: ফজলে রাব্বী থেকে জানি শেষরাতে ট্রেন কুমিল্লা রেল স্টেশনে পৌঁছলে আহমেদ আলীর নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ নেতারা ফুলের মালা নিয়ে ট্রেনের কামরায় উঠে ফাতেমা জিন্নাহকে গলায় পরিয়ে দেন। এডভোকেট আহমেদ আলী ছিলেন তখন কুমিল্লা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক। জনতা ফাতেমা জিন্নাহর বক্তব্য শোনার জন্য শ্লোগান দিচ্ছিল। কিন্তু ফাতেমা জিন্নাহ বক্তব্য দিতে অস্বীকার করেন। তিনি ছিলেন ক্লান্ত, বয়োবৃদ্ধা। শেষ পর্যন্ত জনগণের অনুরোধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ফাতেমা জিন্নাহকে নিয়ে কোনরকমে ট্রেনের দরজার পাশে দাঁড়ান। ফাতেমা জিন্নাহ এবং বঙ্গবন্ধু হাত তুলে সালাম দিলে জনতা উল্লাসে ফেটে পড়েন। জনতার যত সমর্থনই থাকুক শেষ পর্যন্ত ফাতেমা জিন্নাহ পাশ করেন নাই। পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন আইয়ুব খান। কেননা পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানে ৮০ হাজার বেসিক ডেমোক্রেসির মেম্বাররাই ছিলেন ভোটার। ফলে ভোট কেনা সহজ হয়ে যায়। আইয়ুব খান বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন। ১৯৬৫ সালের সেপ্টেম্বরে হয় ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ। পূর্ব পাকিস্তান ছিল অরক্ষিত। পশ্চিমেই হয়েছে যুদ্ধ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পূর্বের সতেরো বছরের অভিজ্ঞতার সঙ্গে ১৯৬৫ সালের অভিজ্ঞতাকে পুঁজি করে ১৯৬৬ সালে লাহোরে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে উপস্থাপন করেছিলেন ঐতিহাসিক ছয় দফা। সেই ছয় দফার এক দফা ছিল প্রাপ্তবয়স্কদের এক ব্যক্তির এক ভোট। বঙ্গবন্ধু উপলব্ধি করেছিলেন কৃষক-শ্রমিক-জনতার কোন ভোট নেই। জাতির মেধাবী সন্তান সিএসপি, ইপিসিএস, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, কলেজ অধ্যক্ষ, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, স্কুল-কলেজের শিক্ষকদের কোন ভোট নেই। সেনা-নৌ-বিমানবাহিনীর কারো ভোট নেই। ভোট আছে কেবল বিডি মেম্বারদের। বঙ্গবন্ধুর ৬-দফা রাজনীতিতে নতুন মোড় নিল। বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা হলো। ১৯৬৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে জনতার তীব্র আন্দোলনের মুখে বঙ্গবন্ধু মুক্ত হলেন। মার্চে আইয়ুব খানের পতন হলো। গণতন্ত্রের বিজয় হলো। ১৯৭০ সালের ৭ ডিসেম্বরে হলো জাতীয় নির্বাচন। প্রাপ্তবয়স্কদের এক ব্যক্তির এক ভোটে হলো ঐতিহাসিক নির্বাচন। জাতীয় পরিষদে পূর্ব পাকিস্তানের ১৬৯টি আসনের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ পেল ১৬৭টি আসন। প্রাদেশিক পরিষদেও নিরঙ্কুশ জয়। তারপরের ইতিহাস সবার জানা। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেন। মুক্তিযুদ্ধ হলো। বাংলাদেশ স্বাধীন হলো।

গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতায় ১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ হলো জাতীয় নির্বাচন। সেই বছরের ডিসেম্বরে হলো কুমিল্লা পৌরসভার প্রথম নির্বাচন। প্রথম নির্বাচন এজন্য বলছি কারণ এক ব্যক্তির এক ভোট তখন থেকেই পৌরসভায় চালু হলো। যুদ্ধ পরবর্তী বাংলাদেশ। কুমিল্লা পৌরসভার প্রথম নির্বাচন। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন আবদুল আওয়াল। তাকে সমর্থন দিয়েছিলেন কুমিল্লা সদর আসন থেকে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যাপক মো: খোরশেদ আলম। প্রতিপক্ষ ছিলেন এডভোকেট বদিউল আলম। তাকে সমর্থন দিয়েছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আবদুল আজিজ খান। সেসময় আরো দুজন চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন; তাদের একজন হাজী তারু মিয়া। যিনি পঞ্চাশ দশকে এক মেয়াদে পৌরসভার চেয়ারম্যান ছিলেন। অপরজন ছোটরার ভোলা মিয়া। যিনি পাকিস্তান আমলে কালিয়াজুড়ি ওয়ার্ডের চেয়ারম্যান ছিলেন। আর্থিক দৈন্যে ভরা ছিল পৌরসভা। তবুও দক্ষতার সঙ্গে আবদুল আওয়াল পৌরসভা পরিচালনা করেছিলেন। সেবার ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন আফজল খান। তার প্রতিপক্ষ ছিলেন প্রখ্যাত সমাজসেবী তরণী মোহন রাহা ও মুসলিম লীগ নেতা আবদুল জলিল। এই সবকিছু আমার দেখা এবং জানা। ১৯৭৭ সালে কুমিল্লা পৌরসভার দ্বিতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেসময় পৌরসভার ওয়ার্ড ছিল ১৮টি। কমিশনার ছিলেন ১৮ জন। সেইসময়কালে নিয়মিত নির্বাচিত হতেন বাগিচাগাঁওয়ের আবদুর রশিদ। তিনি মোট ৫ বার মেম্বার ও কমিশনার নির্বাচিত হন। ১৯৮৪ সালেও তিনি নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেবছরের শেষের দিকে আবদুর রশিদ মারা গেলে বাগিচাগাঁও ওয়ার্ডে ১৯৮৫ সালে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। উপনির্বাচনে জমিরউদ্দিন খান জম্পি নির্বাচিত হন। সেই থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত জমিরউদ্দিন খান মোট ৬ বার নির্বাচিত হন। ১৯৭৭ সালে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন এডভোকেট আফজল খান, আবদুল জলিল, মো: আবদুর রউফ, আলহাজ্ব মো: ওমর ফারুক। যদিও সেসময় দলীয় পরিচয়ে কোন নির্বাচন হতো না তবুও আফজল খান, আবদুর রউফের পরিচয় ছিল আওয়ামীলীগ নেতা, আবদুল জলিলের পরিচয় ছিল মুসলীম লীগ নেতা, ওমর ফারুকের পরিচয় ছিল ন্যাপ নেতা। আফজল খানের পক্ষে ছিলেন সব আওয়ামীলীগ নেতা। অধ্যাপক মো: খোরশেদ আলম, এডভোকেট আহমেদ আলী, আবদুল আজিজ খান, অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার, মাইনুল হুদা, মফিজুর রহমান বাবলু, জহিরুল হক দুলাল, জহিরুল ইসলাম সেলিম, আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার। তাদের সকলকে আফজল খানের পক্ষে কাজ করতে দেখেছি। এডভোকেট আহমেদ আলীর বাগিচাগাঁওয়ের বাসায় এবং অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদারের প্রফেসরপাড়ার বাসায় আফজল খানের পক্ষে মিটিং লেগেই থাকতো। অপরদিকে আবদুল জলিলের পক্ষে ছিলেন মুসলীম লীগ নেতা সাজেদুল হক, নূরউদ্দিন মাহমুদ আবাদ, এম এ সামাদ। বিশেষ করে এম এ সামাদের বাগিচাগাঁওয়ের বাসায় আবদুল জলিলের পক্ষে নিয়মিত মিটিং হতে দেখতাম। আমি তখন রূপসী বাংলায় সাংবাদিকতা করতাম বলে এসব দৃশ্যপট নিয়মিত দেখতাম। সেসময় ইউনাইটেড পিপলস পার্টির নেতা লে. কর্ণেল(অব:) আকবর হোসেনকে দেখেছি আবদুল জলিলের নির্বাচনী জনসভায় বক্তৃতা করতে। আফজল খানের প্রতীক ছিল আম। আবদুল জলিলের প্রতীক ছিল দাড়িপাল্লা। সকলকে অবাক করে দিয়ে সেবার ৬৩ ভোট বেশি পেয়ে আবদুল জলিল নির্বাচিত হন। হঠাৎ করে শহরের রাজনৈতিক পরিবেশ হিংস্র হয়ে ওঠে। আফজল খানের পরাজয়ের জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী করা হয় মো: আবদুর রউফকে। কেননা আবদুর রউফ প্রায় ৯ হাজার ভোট পেয়েছিলেন। আবদুর রউফকে যারা সমর্থন দিয়েছিল তারা কেউ সেসময় ঠাকুরপাড়া দিয়ে আসা-যাওয়া করতে পারতো না। প্রকাশ্যে অপমানিত হয়েছিলেন কুমিল্লা নাইট কলেজের অধ্যক্ষ ওয়াজউদ্দিন ও অধ্যাপক তাজুল ইসলাম। তারা আজ আর কেউ নেই। কিন্তু সময়ের বহুকিছু সময়ে থেকে যায়। তারপরের কুমিল্লা পৌরসভার নির্বাচন হয় ১৯৮৪ সালে। আবারো এডভোকেট আফজল খান চেয়ারম্যান প্রার্থী হন। সংরাইশের আবদুল আওয়ালও প্রার্থী হন। পাঠকের হয়তো মনে আছে তিনি ১৯৭৩ সালে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। আরো একজন প্রার্থী ছিলেন কাজী আবদুল হক। তিনি ছিলেন গোবিন্দপুরের অধিবাসী অবসরপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেট। সকলকে অবাক করে দিয়ে একজন তরুণ যুবক সেবছর চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছিলেন। শহরের তরুণ সমাজে রটে যায় মুম্বাইয়ের ফিল্মস্টার অমিতাভ বচ্চন কুমিল্লা পৌরসভায় নির্বাচন করছেন। সংবাদকর্মী হলেও ভোটার হিসেবে এই নতুন প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে সমর্থন দিলাম। সেসময়ের তরুণসমাজ প্রকাশ্যে এই প্রার্থীর পক্ষে ছিলেন। আওয়ামীলীগের প্রবীণ নেতারা আফজল খানের পক্ষে আর সকল ছাত্রনেতা এই নতুন প্রার্থীর পক্ষে ছিলেন। প্রবীণদের মধ্যে কেবল মফিজুর রহমান বাবলু ছিলেন তার পক্ষে। এই বিষয়ে প্রচারণা ছিল কলেজের ছাত্রীরা কেবল ছবি দেখেই তাকে ভোট দিয়েছিলেন। সেইসময়ে এই প্রার্থীর একটি স্লোগান শহরবাসীর ভাল লেগেছিল। কাপড়ের ফেস্টুনে লেখা ছিল ‘কুমিল্লার হারানো ঐতিহ্যকে আমি ফিরিয়ে আনতে চাই’। কি অবাক কান্ড! প্রায় ২ হাজার ভোট বেশি পেয়ে দোয়াত-কলম প্রতীক নিয়ে এই তরুণ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেদিনের সেই তরুণ চেয়ারম্যান ছিলেন বর্তমান কুমিল্লা-৬ সংসদীয় আসনের তিনবারের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার। সেই সময়ে সারাদেশের পৌরসভার চেয়ারম্যানদের মধ্যে আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারই ছিলেন সবচেয়ে কমবয়সী চেয়ারম্যান। সম্ভবত তার বয়স ছিল ৩২ বছর। কুমিল্লা পৌরসভা সেই মেয়াদের শেষের দিকে প্রথম শ্রেণীর পৌরসভার মর্যাদা পায়। তখন ছিল প্রেসিডেন্ট এরশাদের জাতীয় পার্টির সরকার। প্রধানমন্ত্রী ছিলেন কুমিল্লার কাজী জাফর আহমেদ। আর সেজন্যই চেয়ারম্যান আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার তার প্রস্তাব পাশ করাতে সক্ষম হন। ১৯৮৯ সালের পৌরসভা নির্বাচনেও বিজয়ী হয়ে দ্বিতীয়বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার। এখানে একটা তথ্য দিতে চাই, প্রশাসন যদি নিরপেক্ষ হয় তাহলে জনগণ অবাধে ভোট দিতে পারেন। আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের প্রতিপক্ষ ছিলেন জাতীয় পার্টির এয়ার আহমেদ সেলিম। জাতীয় পার্টির অনেক প্রার্থীর নির্বাচনী কালচার ছিল কেন্দ্র দখল। এমন ৯টি কেন্দ্র দখল করেছিল জাতীয় পার্টির কর্মীরা। জেলা প্রশাসন অবগত হয়ে সেই ৯টি কেন্দ্র সিলগালা করে দেয়। কয়েকদিন পরে সেসব কেন্দ্রে ভোটাররা ভোটাধিকার প্রয়োগ করলে আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার নির্বাচিত হন। সেসময় জেলা প্রশাসক ছিলেন আবদুস সালাম। পুলিশ সুপার ছিলেন মালিক খসরু। এই প্রতিবেদনে তাদের ন্যায়পরায়ণ মানসিকতা স্মরণ করছি। তারপরের নির্বাচন হয় ১৯৯২ সালে। বিএনপির কামাল চৌধুরী নির্বাচিত হন। তার প্রতিপক্ষ ছিলেন জসিমউদ্দিন আহমেদ। নির্বাচনের আগে কামাল চৌধুরী হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন। বিধাতা যখন চোখ তুলে চায়, তখন সব অশুভ দূর হয়ে যায়। কামাল চৌধুরী পরপর দুবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। দ্বিতীয়বার কামাল চৌধুরীর প্রতিপক্ষ ছিলেন আওয়ামীলীগের শফিকুল ইসলাম শিকদার। সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হলেও শফিকুল ইসলাম শিকদার একটি সুন্দর মানসিকতার পরিচয় দেন। ফলাফল ঘোষণার কয়েকদিন পরে দুই মাইক্রো নিয়ে কয়েকজন কর্মীসহ কামাল চৌধুরীর চর্থার বাসায় হাজির হন। রাতের বেলায় কামাল চৌধুরী প্রথমে ভয় পেয়েছিলেন। পরে দেখা গেল ফুলের মালায় কামাল চৌধুরীর সমগ্র মুখাবয়ব ঢাকা পড়ে গিয়েছিল। শফিক শিকদারের এই কাজ দৃষ্টান্ত হয়েছিল। ২০০৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি কামাল চৌধুরী মারা যান। ২০০৫ সালে উপনির্বাচনে মনিরুল হক সাক্কু চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তার প্রতিপক্ষ ছিলেন আতিক উল্লাহ খোকন। অবশ্য মাঝপথে তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাড়ান। যেহেতু প্রার্থী তালিকায় তার নাম ছিল সেহেতু ভোট গণনা হয়েছিল। তখন খালেদা জিয়া দেশের প্রধানমন্ত্রী। বিএনপি সরকার ক্ষমতায়। তিনি সৃষ্টি করলেন এলিট ফোর্স ‘র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব)’। সেবছরই সেনাবাহিনীকে দিয়ে চালালেন ‘ক্লিন হার্ট অপারেশন’। দেখা গিয়েছিল বহু সরকারি সম্পত্তি সরকারের কাছে এসে যায়। অনেকে পলাতক জীবন বেছে নেন। এমনকি মনিরুল হক সাক্কুও তখন পলাতক ছিলেন। তারা তখন মামলা করেছিলেন। মামলায় তারা জয়ী হন। তার আগে পৌরসভার দায়িত্ব পালন করেন ম্যাজিস্ট্রেট আতাউল গণি। ২০০৭ সালের জানুয়ারি মাসে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠিত হলে প্রধান দুটি কাজ হয়। একটি প্রশাসন থেকে বিচার বিভাগ আলাদা হয়ে বিচার বিভাগের কাছে চলে যায়। আর সকল নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া হয়। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের ঐতিহাসিক জাতীয় নির্বাচনের কৃতিত্বের দাবীদার অবশ্যই তত্ত্বাবধায়ক সরকার। ২০১০ সালে হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার কুমিল্লা পৌরসভাকে সিটি কর্পোরেশনে পরিণত করবার জন্য প্রস্তাব করেন। আইনসভায়ও তিনি জোরালো বক্তব্য রাখেন। এইসময় কুমিল্লার জেলা প্রশাসক ছিলেন আবদুল মালেক। একইসময়ে তিনি ছিলেন যুগ্মসচিব। প্রস্তাব বাস্তবায়নে তিনি বিশেষ দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ততদিনে সদর দক্ষিণ পৌরসভা মিলে কুমিল্লা পৌরসভা বড় হয়ে যায়। কুমিল্লা পৌরসভা ২০১১ সালে সিটি কর্পোরেশনে পরিণত হয়। সেদিক থেকে মনিরুল হক সাক্কু পৌরসভার শেষ চেয়ারম্যান। আবার সিটি কর্পোরেশনের প্রথম মেয়র। পরে যুগ্মসচিব নাসিরউদ্দিন প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পান। ২০১২ সালে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৬৫ হাজার ৫৭৭ ভোট পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু মেয়র নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামীলীগ নেতা অধ্যক্ষ আফজল খান। তিনি পেয়েছিলেন ৩৬ হাজার ৪৭১ ভোট। ঐ নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী ছিলেন নূর উর রহমান মাহমুদ তানিম, আনিসুর রহমান মিঠু, এয়ার আহমেদ সেলিম, শিরীন আক্তার। নির্বাচিত মেয়র নগরীর সকল রাস্তাঘাট-ফুটপাথ সংস্কার ও ড্রেন পরিষ্কার কার্যক্রম নিজে দাঁড়িয়ে থেকে তদারকি করতেন। বিষয়টা নগরবাসী ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখেন। ২০১৭ সালে বিএনপির হয়ে ধানের শীষ প্রতীকে মনিরুল হক সাক্কু দ্বিতীয়বার নির্বাচনে অংশ নেন। তিনি ৬৮ হাজার ৯৪৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার প্রতিপক্ষ ছিলেন আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা। তিনি ৫৭ হাজার ৮৬৩ ভোট লাভ করেন। দ্বিতীয় মেয়াদে মনিরুল হক সাক্কু সংসদ সদস্য হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের খুব বেশি সান্নিধ্যে ছিলেন বলে অনেকে মন্তব্য করেন। ঠিক একইভাবে, এই বিষয়টাকে অনেক নাগরিক মনিরুল হক সাক্কুর বুদ্ধিমত্তা বলে মনে করেন। যারা যত বড় পদেই থাকুন, কেউ সমালোচনার উর্ধ্বে নন। মনে রাখতে হবে দুই মেয়াদে এর আগে আরো দুজন চেয়ারম্যান ছিলেন কিন্তু দ্বিতীয় মেয়াদ কেউই পূর্ণ করতে পারেননি। মনিরুল হক সাক্কুই প্রথম মেয়র যিনি দুই মেয়াদ পূর্ণ করেন। ১৫ জুন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের তৃতীয় নির্বাচন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুন্নবী চৌধুরী বলেছেন, নির্বাচন পরিচালনার জন্য তারা প্রস্তুত। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন ব্যর্থ হলে তার দায়ভার জেলা প্রশাসনকে নিতে হবে। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মোট ভোটার ২ লক্ষ ২৯ হাজার ৯২০ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ১ লক্ষ ১৭ হাজার ৯২ জন। পুরুষ ভোটার ১ লক্ষ ১২ হাজার ৮২৬ জন। দুজন তৃতীয় লিঙ্গের ভোটারও রয়েছেন। মোট ২৭টি ওয়ার্ডে ৭১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১০৫টি ভোটকেন্দ্রের ৬৪০টি কক্ষে ভোট গ্রহণ করা হবে। সকল কেন্দ্রে ইভিএমের মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এবার নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত। তাকে মনোনয়ন দিয়েছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার মনোনয়ন পাবার জন্য স্বয়ং হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপি নেতৃত্ব দিয়েছেন। আওয়ামীলীগের সব নেতা-কর্মী নৌকার জয়ের জন্য মাঠে এখন সক্রিয়। আরফানুল হক রিফাত আশি দশকের গোড়ায় ছাত্রলীগের রাজনীতি করতে গিয়ে নির্যাতিত হয়েছিলেন। রিফাত সেসময় মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসেন। নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন আওয়ামীলীগের আরেক নেতা মাসুদ পারভেজ খান ইমরান। তিনি প্রখ্যাত আওয়ামীলীগ নেতা প্রয়াত অধ্যক্ষ আফজল খানের জ্যেষ্ঠ পুত্র। তিনি এর আগে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলেন। নির্বাচনে অবশ্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার নির্বাচিত হয়েছিলেন। পরে কেন্দ্রীয় নেতাদের পরামর্শে নৌকাকে সমর্থন দিয়ে ইমরান প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেন।

বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় বিদায়ী মেয়র মনিরুল হক সাক্কু নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। তিনি ‘টেবিলঘড়ি’ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। বিদায়বেলায় তিনি বলেছেন, তিনি জনগণের জন্য মেয়র হিসেবে দশ বছর কাজ করেছেন। জনগণের মাঝে বহুজন তাকে পুনরায় নির্বাচন করার জন্য অনুপ্রাণিত করেছেন। বিএনপি থেকে বের হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন নিজামউদ্দিন কায়সার। তিনি ‘ঘোড়া’ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী আরো দুজন রয়েছেন। একজন নাগরিক ফোরামের কামরুল আহসান বাবুল যিনি ‘হরিণ’ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন, অপরজন ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা মো: রাশেদুল ইসলাম যিনি দলীয় প্রতীক ‘হাতপাখা’ নিয়ে নির্বাচন করছেন।

জনগণের একটাই আশা, যিনিই নির্বাচিত হন তিনি যেন জনগণের ভোটেই নির্বাচিত হন। ভোটারদের ইচ্ছা তারা ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে চান। নতুন নির্বাচন কমিশন ভোটারদের আশা পূরণে সর্বোচ্চটা দেবেন বলে জানিয়েছেন। আশা করি নতুন নির্বাচন কমিশন একটি সুষ্ঠু ও সফল নির্বাচন উপহার দেবেন।

আর পড়তে পারেন