মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কোভিড ভ্যাকসিন: বুস্টার ডোজের গুরুত্ব ও বাস্তবতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২, ২০২১
news-image

 

লে.কর্ণেল নাজমুল হুদা খান:

প্রাণসংহারী করোনা অতিমারীতে বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২৪ কোটি, মৃতের সংখ্যা প্রায় ৪৯ লাখেরও বেশি। এ ভয়ঙ্কর অতিমারীকে রুখতে দ্রুতই আবিষ্কৃত হয় এ যুদ্ধের প্রধান অস্ত্র কোভিড ভ্যাকসিন। এ পর্যন্ত প্রায় ১৮টি ভ্যাকসিন বিশ^ব্যাপী অনুমোদিত ও ব্যবহৃত হচ্ছে। এর মধ্যে ১৮২টি দেশে অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকা, ১৩৬টি দেশে ফাইজার, ৭৬টি দেশে সিনোফার্ম ও মডার্না, ৫৬টি দেশে জনসন এন্ড জনসন, ৪৮টি দেশে স্পুতনিক-ভি, ৪১টি দেশে সিনোব্যাক, ৭টি দেশে ক্যানসিনো ও ভারত বায়োট্যাক, ৩ দেশে সিনোফার্ম-উহান, ২টি করে দেশে জেএফ-২০০১, আব্দালা, সোবারানা-০২, স্পুতনিক লাইট, ইপি ব্যাক করোনা এবং ১টি করে দেশে কোভিরান রাবেকাত, কাজব্যাক ও মেডিজেল প্রয়োগ করা হয়েছে।

কোভিড ভ্যাকসিন তৈরিতে মূলত ৪টি প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে, যথা: নিষ্ক্রিয় ভাইরাল ভ্যাকসিন, ভাইরাল ভেক্টর ভ্যাকসিন, মেসেঞ্জার আরএনএ ভ্যাকসিন, প্রোটিন ভ্যাকসিন। নিষ্ক্রিয় ভাইরাল ভ্যাকসিন তৈরিতে করোনা জীবাণুর মৃত কোষ ব্যবহার করা হয়, যা শরীরে রোগ সৃষ্টি করতে পারে না; কিন্তু প্রতিরোধী কোষসমূহকে উদ্দীপ্ত করে এন্টিবডি সৃষ্টিতে সহায়তা করে। সিনোফার্ম ও সিনোব্যাক ইত্যাদি এ প্রযুক্তিতে প্রস্তুতকৃত। এ ভ্যাকসিনসমূহের দুই ডোজ প্রায় ৮০% কার্যকর বলে প্রমাণিত। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও স্পুতনিক-ভি প্রভৃতি তৈরিতে ভাইরাল ভেক্টর ভ্যাকসিন প্রযুক্তি ব্যবহৃত হয়। মানবদেহে ক্ষতিকারক নয় এমন ভাইরাসের কোষে করোনাভাইরাসের উপাদান সংযুক্তির মাধ্যমে তৈরি এ ভ্যাকসিন শরীরে এন্টিবডি সৃষ্টি করে আক্রান্ত ভাইরাস ধ্বংসে সক্ষম। অক্সফোর্ড- অ্যাস্ট্রাজেনেকার পূর্ণাঙ্গ ডোজ করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রায় ৮৮% সুরক্ষা দেয়। করোনাভাইরাসের জেনেটিক উপাদান মেসেঞ্জার আরএনএ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ফাইজার ও মর্ডানা ভ্যাকসিন তৈরি। এ সব ভ্যাকসিন প্রায় ৯০ শতাংশের ওপর করোনারোধী হিসেবে কার্যকর। করোনাভাইরাস কোষস্থ প্রোটিনের একাংশ ব্যবহারের মাধ্যমে প্রোটিন ভ্যাকসিন প্রস্তুত করা হয়। নোভাভ্যাক্স ও স্যানফি-জিএসকে এ প্রযুক্তিতে তৈরি ভ্যাকসিন।  দুই ডোজের এ ভ্যাকসিনও করোনাভাইরাসকে ৮০ শতাংশ রুখে দেয়ার সক্ষমতা রয়েছে।

বর্তমানে প্রচলিত ও অনুমোদিত ভ্যাকসিনসমূহের কোনটিই করোনার সব ধরনের বিরুদ্ধে শতভাগ সুরক্ষা দেয় না। তবে রোগের তীব্রতা, হাসপাতালমুখিতা ও মৃত্যু হ্রাসে ভূমিকা রাখে প্রতিটি ভ্যাকসিন। তাই বলা হচ্ছে এ সব ভ্যাকসিনের ঘোষিত প্রতিরোধ ক্ষমতা বা সুরক্ষার কমতি ঘটলে বুস্টার ডোজের প্রয়োজন হতে পারে। কোন ভ্যাকসিনের প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরির মাত্রা ও নির্দিষ্ট সময় অতিক্রান্ত হওয়ার পর এর স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা কমে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকলে নির্দিষ্ট সময়ের পর বুস্টার ডোজ প্রদান করা হয়। সাধারণভাবে হেপাটাইটিস, পোলিও, হুপিং কাশি, ধনুস্টংকার ইত্যাদি ভ্যাকসিনে বুস্টার ডোজ দেয়ার বিধান রয়েছে। অপর দিকে কোন ভ্যাকসিনের প্রতিরোধ ক্ষমতা সৃষ্টির নির্দিষ্ট সময় অতিক্রান্তের পূর্বেই যদি হ্রাস পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে বা প্রমাণ মিলে তাহলে সুরক্ষার মাত্রা বজায় রাখতে অতিরিক্ত ডোজ ব্যবহার করা হয়।

কোভিড ভ্যাকসিনের বুস্টার ডোজ ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোন ভ্যাকসিনের প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস কিংবা প্রতিরোধ ক্ষমতা সৃষ্টি ও বজায় রাখার সময়সীমা গুরুত্বপূর্ণ। তবে করোনাভাইরাসের বিভিন্ন ধরন উদ্ভবের কারণে প্রায় সব ভ্যাকসিনের কর্মক্ষমতা ঝুঁকির মুখে পড়েছে। যদিও ভ্যাকসিনের সর্বোচ্চ কর্মদক্ষতা অনেক উপাদানের ওপর নির্ভর করে যথা : বয়সের প্রভেদ, জনগোষ্ঠীর তারতম্য এবং ভ্যাকসিন উপাদানের শ্রেণী বিভাগ ইত্যাদি। বুস্টার ডোজ প্রয়োগে ভ্যাকসিনের প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাসের বিষয়টি প্রথমে নিশ্চিত করতে হবে। মানবদেহে ভ্যাকসিন কর্তৃক তৈরি এন্টিবডির পরিমাণ কমতে শুরু করলেই ওই ভ্যাকসিনের কার্যক্ষমতা কম তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। কারণ এন্টিবডি তৈরির ক্ষমতা বয়স, লিঙ্গ, কো-মরবিডিটি ইত্যাদি নানাবিধ বিষয়ের ওপর নির্ভর করে।  তবে কোভিড ভ্যাক্সিনের দেহে তৈরি এন্টিবডি কম-বেশি ৬ মাস কার্যকরী থাকে; এ বিষয়ে সব ভ্যাকসিনই প্রায় নিশ্চিত করে বলেছে।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এফডিএ ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে যাদের বয়স, কো-মরবিডিটি রয়েছে এবং ক্রমাগত করোনা আক্রান্তের ঝুঁকিতে রয়েছে তাদের পূর্ণাঙ্গ ডোজ ভ্যাকসিন নেয়ার ৬ মাস পর মডার্না ও ফাইজার ভ্যাকসিনের বুস্টার ডোজ প্রদানের অনুমোদন প্রদান করেছে। সিডিসি ঝুঁকি পূর্ণ পেশায় নিয়োজিত রয়েছে যেমন স্বাস্থ্যকর্মী, অগ্নিনির্বাপক দলের সদস্য, পুলিশ, শিক্ষক, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের স্টাফ, খাদ্য ও কৃষি কর্মী, পরিবহন ও উৎপাদন শ্রমিক, মুদি দোকানদার ইত্যাদি কাজে নিয়োজিতদের বুস্টার ডোজ প্রদানের সুপারিশ করেন। তবে বুস্টার ডোজ প্রদানের পূর্বে ওই সব অঞ্চল বা দেশে সংক্রমণের হার, রোগের তীব্রতা, কো-মরবিডিটি, ঝুঁকির মাত্রা, ভ্যাকসিনের প্রকার ও সংক্রমিত করোনাভাইরাসের ধরনবিষয়ক তথ্যাদি নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের ভ্যাকসিন ও ইম্যুনাইজেশনবিষয়ক জয়েন্ট কমিটি অ্যাস্ট্রাজেনেকার বুস্টার ডোজের সুপারিশ করেছে সত্যি, কিন্তু কখন বা কাদের জন্য এ বুস্টার ডোজ প্রযোজ্য হবে তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়নি। তবে প্রতিরোধ ক্ষমতায় দুর্বল ব্যক্তিদের তৃতীয় ডোজের বিষয়ে তারা অনুমোদন দিয়েছেন এবং বুস্টার ডোজের বিষয়ে অ্যাস্ট্রাজেনিকা ভ্যাকসিনকে নিরাপদ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। চীন দুর্বল প্রতিরোধক্ষম ব্যক্তিদের দেহে সিনোফার্মের তৃতীয় ডোজ ব্যবহার শুরু করেছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাত সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার ৬ মাস পর বুস্টার ডোজ নেয়ার নির্দেশনা প্রদান করেছে সে দেশের নাগরিকদের।

গবেষণায় দেখা গেছে বুস্টার ডোজ গ্রহণকারীদের মধ্যে বুস্টার নেয়নি এমন লোকদের চেয়ে আক্রান্তের হার ১১ গুণ কম এবং রোগের তীব্রতা ১৯.৫ গুণ হ্রাস পায়। আরেক গবেষণায় বুস্টার ডোজ গ্রহণকারীদের দেহে ৫ গুণ বেশি এন্টিবডির অস্তিত্ব পাওয়া যায় এবং তৃতীয় ডোজ ব্যবহারে এন্টিবায়োটিকের কার্যক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়।

বুস্টার ডোজ ব্যবহারের ক্ষেত্রে বৈশ্বিক ভ্যাকসিন সরবরাহ ও প্রাপ্তির বিষয়টি সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ। এটা সত্য যে, বৈশ্বিক করোনা অতিমারীর সফল রোধে এ বিশ্বের সব দেশে সব মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনতে হবে। বিশ্বে এ পর্যন্ত মোট জনসংখ্যার ৩৭৫ কোটি অর্থাৎ ৪৮.৭% মানুষ কমপক্ষে ১টি ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণে সক্ষম হয়েছে। সম্পূর্ণ ডোজ সম্পন্ন করেছে এমন জনসংখ্যার শতকরা হার ৩৭%। বিশে^র প্রায় ২৫টি দেশে ভ্যাকসিন প্রদানের শতকরা হার ১০% এর নিচে, প্রায় ২০টি দেশে ২০% এর নিচে, ১৬টি দেশে < ৩০%, ৩২টি দেশে অর্ধেক মানুষ অর্থাৎ ৫০% লোককে ভ্যাকসিন প্রদান করা সম্ভব হয়েছে। বাংলাদেশে পূর্ণ ডোজ সম্পন্ন করেছেন এখন পর্যন্ত শতকরা ১১ ভাগ এবং প্রথম ডোজ শেষ করেছেন প্রায় ২৩%। ১৯ অক্টোবর ২০২১ পর্যন্ত বাংলাদেশে ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ সম্পন্ন করেছে ৩ কোটি ৯১ লাখ ৬৮ হাজার ৯৪৮ এবং পূর্ণাঙ্গ ডোজ সম্পন্ন করেছে এমন সংখ্যা ১ কোটি ৯৬ লাখ হাজার ৩২ হাজার ১০৭ জন। সেপ্টেম্বর ২০২১ অবধি যেখানে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশ গড়ে ২০ শতাংশ মানুষ প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন সম্পন্ন করেছে, সেখানে উন্নত দেশসমূহের ৮০ ভাগ মানুষ ভ্যাকসিন পেয়েছে। সুতরাং এটি নিশ্চিত যে, বৈশ্বিকভাবে করোনা রোধে বুস্টার ডোজ প্রদানের বাস্তবতা এখনও নেই।  তবে ইতোমধ্যে ভ্যাকসিনের লক্ষ্যমাত্রা পূর্ণ করে অতিরিক্ত ডোজ কিংবা বুস্টার ডোজ গ্রহণ শুরু করেছেন এমন দেশের সংখ্যাও কম নয়।

বিশ্বের সব দেশের মানুষের ভ্যাকসিন প্রাপ্তি নিশ্চিত করার স্বার্থে ধনী রাষ্ট্রগুলোকে আপাতত: বুস্টার ডোজ প্রদান কার্যক্রম স্থগিত রাখার পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তারা বলেছে বুস্টার ডোজ প্রয়োগ শুরু হলে বাংলাদেশসহ যে সব দেশের সিংগভাগ মানুষ ভ্যাকসিনের জন্য অপেক্ষায়, সে সব দেশে ভ্যাকসিন সরবরাহে ঘাটতি দেখা দেবে এবং সেক্ষেত্রে বৈশি^ক করোনা অতিমারীর সফল নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল যুদ্ধটিই দীর্ঘায়িত হবে।

[লেখক :লে.কর্ণেল নাজমুল হুদা খান

সহকারী পরিচালক,

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল]

আর পড়তে পারেন