শুক্রবার, ২রা জুন, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

৭ অক্টোবর থেকে ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ: চাঁদপুরসহ ৩৭ জেলায় চলবে বিশেষ অভিযান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৪, ২০১৮
news-image

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুর :
ইলিশ সম্পদ সংরক্ষণে ৭ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত মোট ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। প্রধান প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান-২০১৮ বাস্তবায়ন সংক্রান্ত জাতীয় টাস্কফোর্সের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক তথ্য বিবরণীতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম অর্থাৎ ৭ থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত মোট ২২ দিন প্রজনন ক্ষেত্রের তথা পদ্মা-মেঘনার ৭ হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকায় সবধরনের মাছ আহরণ, পরিবহন, মজুদ, বাজারজাতকরণ এবং ক্রয়-বিক্রয় সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। সে সুবাদে চাঁদপুরের পদ্মা ও মেঘনা নদীতে ইলিশসহ সবধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকবে।
প্রধান প্রজনন মৌসুম মা ইলিশ রক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সম্প্রতি জেলা টাস্কফোর্সের এক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় মা ইলিশ রক্ষায় শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া জেলে ও জনসাধারণকে এ বিষয়ে উদ্বুদ্ধকরণে প্রচার-প্রচারণা এবং নদীতে ও উপরে জোরদার অভিযান পরিচালনার প্রতি গুরুত্ব দেয়া হয়। নিষেধাজ্ঞার সময় চাঁদপুরের সকল বরফ কল বন্ধ থাকবে। অন্য জেলা থেকে যাতে কোনো বরফ চাঁদপুরের চরাঞ্চলে ঢুকতে না পারে এবং অভিযানের মধ্যে ইলিশ ধরে কেটে লবণ দিয়ে রাখা এবং অভিযান শেষে ঘাটে বিক্রি ঠেকাতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে। মা ইলিশ রক্ষা কার্যক্রম সফল করার লক্ষ্যে জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে আগামীকাল ২ অক্টোবর উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত হবে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে এ সভার আয়োজন করবে মৎস্য অধিদপ্তর।

তথ্য বিবরণীতে জানানো হয়, ইলিশের প্রজনন ক্ষেত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে চট্টগ্রামের মীরসরাই উপজেলার শাহেরখালী থেকে হাইতকান্দি পয়েন্ট; ভোলার তজুমুদ্দীন উপজেলার উত্তর তজুমুদ্দীন থেকে পশ্চিম সৈয়দপুর আওলিয়া পয়েন্ট; পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার লতা চাপালি পয়েন্ট এবং কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলার উত্তর কুতুবদিয়া থেকে গন-মারা পয়েন্ট।

চাঁদপুরসহ ৩৭ জেলায় ইলিশ রক্ষায় নদ-নদীতে চলবে বিশেষ অভিযান। বুধবার (৩ অক্টোবর) সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘোষণা দেন। মন্ত্রী বলেন, নিষিদ্ধ ২২ দিন বাংলাদেশ নৌ বাহিনী, কোস্টগার্ড, র‌্যাব, পুলিশ, নৌ-পুলিশ এবং স্থানীয় প্রশাসনকে সম্পৃক্ত করে এ অভিযান পরিচালনা করা হবে। সরকারি নিদেশ অনুসারে ইলিশের নিরাপদ প্রজননের জন্যে চাঁদপুর, লক্ষীপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, শরীয়তপুর, ঢাকা, মাদারীপুর, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, জামালপুর, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, মানিকগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, টাঙ্গাইল, মুন্সিগঞ্জ, খুলনা, সাতক্ষীরা, কুষ্টিয়া, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ, নাটোর, পাবনা, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও গোপালগঞ্জ জেলার সব নদ-নদীতে এ সময় সবধরনের মাছ ধরা বন্ধ থাকবে।

এছাড়াও দেশের সুন্দরবনসহ সমুদ্র উপকূলীয় এলাকা এবং মোহনাগুলোতেও এ ২২দিন মাছ ধরা বন্ধ থাকবে। দেশের মাছঘাট, আড়ত, হাটবাজার, চেইনশপসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় ওই ২২দিন অভিযানও পরিচালিত হবে। মন্ত্রণালয়ে টাস্কফোর্সের সভায় মৎস্যমন্ত্রী জেলে সমপ্রদায়, মৎস্য সমিতি, সাধারণ জনগণসহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট লোকজনের কাছে এ সময় সর্বাত্মক সহযোগিতা চান।

আর পড়তে পারেন