মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

অতিথি বেশে পূণ্যভূমি চায়ের দেশে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৮, ২০২১
news-image

মো: সুমন মিয়া:

বাংলা সাহিত্যের প্রথম ঔপন্যাসিক ও কবি প্যারি চাঁদ মিত্রের লেখায়:-
‘শ্রীহট্ট লক্ষ্মীর হাট আনন্দের ধাম,
সর্বাপেক্ষা প্রিয়তর এ ভূমির নাম।
প্রকৃতির ভান্ডারেতে শ্রীহট্টের মাঝে
কত শোভা, মনোলোভা সর্বত্র বিরাজে।’
‘শ্রীহট্ট’, কালের বিবর্তনে আজকের সিলেট বিভাগ বা সিলেট অঞ্চল। অবশ্য ১৯৪৭ সালে সিলেটের তৎকালীন করিমগঞ্জ মহকুমার আড়াই থানা ভারতে চলে যাওয়ায় আমরা আজপেয়েছিখন্ডিত সিলেটতাতেই বা কম কিসে।
ঐতিহাসিক দিক থেকে এ অঞ্চলের ঐতিহ্য অনেক সমৃদ্ধ। প্রাচীনকালে এ অঞ্চলের সভ্যতার কথা বিধৃত আছে অনেক ইতিহাস গ্রন্থে। নীহার রঞ্জন রায়ের ‘বাঙালির ইতিহাস’ গ্রন্থে সিলেটে সমৃদ্ধ সভ্যতার প্রমাণ পাওয়ার কথা উল্লেখিত হয়েছে। এমন সমৃদ্ধ সভ্যতার গৌরবময় ঐতিহ্যের উত্তরাধিকার নিয়ে গর্ব করা সিলেটবাসীর জন্য খুবই সংগত।
অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর দু‘টি পাতা একটি কুঁড়ির দেশ সিলেট। বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বে অবস্থিত এই প্রাচীন জনপদ বনজ, খনিজ ও মৎস সম্পদে ভরপুর এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য মন্ডিত। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য ছাড়াও সিলেটে রয়েছে প্রসিদ্ধ ইতিহাস। সিলেটে বসবাসকারী বিভিন্ন আদিবাসীদের রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন ভাষা ও সংস্কৃতি। চা বাগান, জাফলং, রাতারগুল জলাবন, হাকালুকি হাওর, লালাখাল, ভোলাগঞ্জ, বিছানাকান্দি, তামাবিল, পাহাড়, ঝর্ণা সব মিলিয়ে নানা বৈচিত্রের সম্ভার এই সিলেট দেশের অন্যতম পর্যটন নগরী।
আর সেখানে ভ্রমন যদি হয় ট্রেনে তাহলে কবি শামছুর রহমানের কবিতার পংক্তিটি তো মর্মেই বেজে উঠে।
একটু দাঁড়ায় ফের ছুটে যায় মাঠ পেরিয়ে বন,
পুলের উপর বাজনা বাজে ঝন ঝনা ঝন ঝন।
কবিতাটি মনে পড়তেই এক অন্যরকম অনুভূতি সৃষ্টি হয় আর কানে বেজে উঠে ট্রেনের ঝকঝক ঝনঝন শব্দগুলো।
বাংলাদেশ রেলওয়ে অনলাইনে ‘পারাবত এক্সপ্রেসে‘ টিকেট কাটা হলো ঢাকা টু সিলেট, ২০ নভেম্বর ২০২১ইং। ভোর ৬.২০ টায় উঠতে হবে কমালাপুর রেল স্টেশন থেকে। আমাদেরকে নারায়নগঞ্জ, রূপগঞ্জ, রূপসী থেকে ধরতে হবে সিলেটগামী ট্রেন। তাই আগেই গিয়ে পৌঁছতে হবে সেখানে। কারণ ইষ্টিশনের রেল গাড়ীটা যে ঘড়ির কাঁটা মেপে চলে সেটা কে না জানে।
তখন ভোর ৩.৪৫ মিনিট আমরা বাসা থেকে রওয়ানা দিই। আযান পড়েনি এখনও। রাস্তাঘাটে ভয় আছে কারণ সাথে আছে মিসেস (নাদিয়া) ও ১৫ মাসের সদ্য টুকটাক হাটতে শেখা ছোট শিশু (আব্দুল্লাহ্ ইয়ামিন)। সিএনজি কিংবা প্রাইভেটকারে এত রাত্রে নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে লোকাল বাসে করে রূপসী থেকে যাত্রাবাড়ী এবং যাত্রাবাড়ী থেকে কমলাপুর রেলস্টেশনে যথা সময়ের আগেই পৌঁছি।

যথা সময়, ৬.২০ বাজতেই ট্রেন চলতে শুরু করল। আমদের আরো কিছু লোক উঠবে এয়ারপোর্ট স্টেশন থেকে। ওনারা যাবেন একটি শো-রুম উদ্ভোধন করতে। আমার অফিস থেকে ছুটি নিয়েছি চারদিন মাত্র। আমার ফুফাত ভাই, নাম হারুনুর রশিদ (হারুন ভাই)। অনেক বছর যাবত সিলেটে থাকে। সেই ২০০৬ সালে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে গিয়েছিলাম বাবার সাথে। বাবা নেই সেই সব দিনগুলি স্মৃতি হয়ে আছে। তারপর আর যাওয়াও হয় নাই। ফোনে সম্পর্ক রক্ষার জন্য যোগাযোগ রাখা মাত্র।ভাই ভাবী আমাদের উপর অভিমান করে আছেন।

ভাইকে,ভাবী ও তাইনের পুরিরা নাকি আমাদের যাওয়ার কথাতাইনেরে অনেক জিগায়-
চাচা, এইবার আইবোনি কিতা? না আইলে কিন্তুক সম্পর্ক আর থাকব না। ফোনেও আর মাতবে না।
ঠিক আছে, এবার ছুটি নিয়ে আসব বলে তাদের কথা দিলাম। সেই কথা রাখতে পারব তাহলে এবার।সিলেট যাচ্ছি ভেবে মনটি আনন্দে ভরে উঠল।
আমাদের কেবিনে ছয়টি সিট। তার মধ্যে দুইটি সিট আমাদের (স্বমী-স্ত্রী) দু‘জনের। বিপরীত প্রান্তের একসিটে একজন মহিলা নীল রঙের বোরকা পরিহিত চোখে চশমা আছে। একজন টুপি ও পাঞ্জাবী পরিহিত কম বয়সী যুবক, একজন শার্ট প্যান্ট ইন করা কম বয়সী যুবক। তার বাবা তাকে মাথায় চুমু দিয়ে বিদায় জানাল। আমাদের পাশে আরেকজন চুলে জেল করা কলেজের ছাত্র। সকলের মধ্যে নিরবতা। ট্রেন চলার সাথে সাথে যার যার মোবাইলে দৃষ্টি নিক্ষেপ করলো। মাঝেমধ্যে ফোনে কথাবার্তা ছাড়া পারস্পরিক তেমন কোন কথাবার্তা হয় না।

ঘন্টা দু‘য়েক পর দুইজন নেমে গেল। ঘুমে আমাদের চোখ ঝিমঝিম করছে। ইয়ামিন ঘুমিয়ে আছে। তার মাও আশপাশ করছে আমার কাঁধে ঘুমানোর জন্যে। পাঞ্জাবী পরিহিত লোকটি জানালার দিকে তাঁকিয়ে কোরআন তেলোয়াত করছে আর পাশের লোকটি কতটুকু এসেছে মাকে ফোন করে জানাচ্ছে। ঔষধ খেয়েছে কিনা খোজ খবর নিচ্ছে। এর মধ্যে একজন ইউনিফর্মধারী স্টাফ এসে জানাল নাস্তার জন্য চিকেন বার্গার ও চা কফি সীমিত আছে যদি কেউ চায় অর্ডার করার জন্য। মাঝেমধ্যে পানি আর চিপস্ নিয়ে হকার উঠে। আমাদের সীট ট্রেনের পেছনের দিকের বগিতে হওয়ার কারনে জংশনে ট্রেন থামালেও বাহিরের কোন হকার বা দোকানপাট চোখে পড়ে না।

প্রায় চার ঘন্টা অতিবাহিত হওয়ার পর একজন পুরুষ ও একজন মহিলা (স্বামী-স্ত্রী) উঠল ইতস্ততা করেই সকলের সম্মতিতে খালি সিটে দু‘জন দুই দিকে বসল। এসে সবার সাথে পরিচয় হতে শুরু করল। তিনি স্থানীয় সিলেটি। ছোটখাট ব্যবসা করেন। পাশের জন হাফেজ, গুলশানে একটি মসজিদে চাকুরী করে। পাশের জন বুয়েট থেকে পাশ করে সরকারী চাকুরী পেয়েছে। এটাই প্রথম চাকুরী। কোয়ার্টার পেয়েছে। বাবা এসেছিল বিদায় দিতে তাকে। কুলাউড়া জংশনে নামবে সে।আমি আমার পরিচয়ও দিলাম। গল্প আর আড্ডায় মুখরিত হলো পুরো কেবিন। মুহুর্তের মধ্যে ভিন্ন একটি পরিবেশ তৈরী হল। গল্প করতে করতে আমরা পৌছে গেলাম সিলেট রেলওয়ে স্টেশনে। ট্রেন থামলে যার যার লাগেজপত্র নিয়ে নামতে শুরু করল সবাই।

ভাই ভাবী এর মধ্যে কয়েক বার ফোন করেছে; কোথায় আছি জানার জন্য। সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে আমরা চৌকিদেখির উদ্দেশ্যে সিএনজিতে উঠে বসলাম। চৌকিদেখি ছয় নাম্বার গলিতে ভাইয়ের বাসা। এখানে তিনি সরকারী জায়গায় থাকেন। চা বাগানের জায়গা এগুলো। অনেক বছর হলো তিনি এখানে এসেছেন। বিয়ে-সাদী এখানেই করেছেন। ছেলে মেয়ে বড় হয়েছে। ছোটখাট ব্যবসাও আছে। মধ্য বিত্তের গন্ডিতে থেকেও খুব ভালভাবে জীবন যাপন করেন। সোজা গিয়ে উঠলাম ভাইয়ের বাসায়।

দুপুরের খাওয়া দাওয়া শেষে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়েই আমরা আশে পাশের পাহাড় দেখতে বের হই। আমাদের উদ্দেশ্য বাসায় থাকা নয় বরং সময়কে কাজে লাগানো। সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে চা বাগান ঘুরে দেখার জন্য বের হয়ে গেলাম। সাথে গাইড হিসাবে আছে ভাতিজা ফাহিম ও ভাতিজি সোনিয়া। তারা পরিচয় করিয়ে দিল প্রথমে- লাক্কাতুরা চা বাগান।সেখানে তার মামা চাকুরী করে। আমরা সিএনজিতে উঠলাম লাক্কাতুরা চা বাগানের উদ্দেশ্যে।

দুইটি পাতা একটি কুঁড়ির দেশ হিসেবে পরিচিত সিলেট জেলার চৌকিদেখি উপজেলার ওসমানী বিমান বন্দরের উত্তর প্রান্তে টিলার উপর লাক্কাতুরা চা বাগান অবস্থিত। ন্যাশনাল টি বোর্ডের অধীনস্ত এই সরকারী চা বাগান প্রায় ১২৯৩ হেক্টর বা প্রায় ৩২০০ একর জায়গা জুড়ে বিস্তৃত। অসংখ্য চা গাছ ও উঁচু নিচু পাহাড়ে ঘেরা লাক্কাতুরা চা বাগান দেশের বৃহত্তম চা বাগানগুলোর মধ্যে অন্যতম।

অল্প কিছুক্ষণের মধ্যে আমরা পৌঁছে গেলাম চা বাগনের গেইটে। এখানে তার দুই মামা চাকুরী করে। অনেক পুরাতন স্টাফ তারা। পদের দিক দিয়ে ভাল অবস্থানে আছেন। ফাহিমরা প্রায়ই এখানে বেড়াতে আসে। ফাহিম মামার কাছ থেকে শুনেছে বছরে এই চা বাগান থেকে উৎপাদিত প্রায় ৫,০০,০০০ কেজি চা দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করা হয়।

ওসমানী এয়ারপোর্ট রোড থেকে ডানদিকে আগালেই লাক্কাতুরা বাগানের মূল প্রবেশদ্বার। বামদিকে রয়েছে চা ফ্যাক্টরি ও রাবার বাগান। ফ্যাক্টরি থেকে সামনে চলে গেছে আঁকাবাঁকা রাস্তা। রাস্তার পাশে চা বাগানের ম্যানেজার ও সহকারী ম্যানেজারের বাংলো। তার মামার সাথে আমাদেরকে পরিচয় করিয়ে দিল। তাদের বাড়ীও কুমিল্লা। কুমিল্লার আরও স্টাফ আছে এখানে। কুমিল্লাপাড়া নামে তাদের একটা সমিতিও আছে। মাঝে মধ্যে বিভিন্ন প্রোগ্রামের আয়োজন করে। সেই ছবিও দেখালেন।

আমরা চা বাগানে ঘুরলাম। মনকাড়া চা বাগানের প্রতিটি দৃশ্য। এই বড় বড় চা গাছগুলো বীজ করার জন্য রেখে দেয়।চা বাগানে আরও আছে কমলা, সুপারি, ট্যাং ফল, আগর, আতর সহ অনেক ধরণের গাছ।
লাক্কাতুরা চা বাগানের কাছে আছে বাংলাদেশের সর্বপ্রথম বাণিজ্যিক ভাবে প্রতিষ্ঠিত মালনীছড়া চা বাগান ও সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম।
ফাহিমকে জিজ্ঞেস করলাম- এখানে খাওয়ার ভাল হোটেল আছে কোথায়?
ফাহিম হাসি দিয়ে বল্ল- চাচাসিলেটের জিন্দাবাজার এলাকায় পানসী, বিগ বাইট রেস্টুরেন্ট, রেইনবো চাইনিজ, আড্ডা রেস্টুরেন্ট, স্পাইস কিচেন, হাংরী ষ্টেশন, প্রেসিডেন্ট রেস্টুরেন্ট, পালকি ও ট্রিট গ্যালারী সহ অসংখ্য ফাস্টফুড, চাইনিজ ও বাঙ্গালী খাবারের রেস্টুরেন্ট আছে।
হুম,
প্রাইজও সাধ্যের মধ্যে। তোমাদের সিলেটতো বড় লোকদের আবাসন, লন্ডনিদের বসবাস। সাধ্যও বিশাল।
জি চাচা।
তারা বাসায় ফেরার পথে আরও অনেক কিছু দেখাল। সিলেটের জনপ্রিয় সাতকড়ার আচার এবং আখনি বিরিয়ানির কথা জানাতেও ভুলেনি।অপরিচিত কেউ এখানে আসলে বিশেষ করে ফ্যাক্টরী ও বাংলো ঘুরতে হলে অবশ্যই কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হয়। তাদের পূর্বের অনেক অভিজ্ঞতার কথাও শেয়ার করল। তারপর গেলাম আরেকটি চা বাগানে। তার মামাত ভাই আমাদেরকে নিয়ে গেল সেখানে। সেটির নামমালনীছড়া চা বাগান। সে সবার জন্য চিপস, বিস্কুট ও কোক নিয়ে আসল।

বাংলাদেশের সিলেট জেলায় অবস্থিত মালনীছড়া চা বাগান উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় এবং সর্বপ্রথম প্রতিষ্ঠিত চা বাগান। ১৮৪৯ সালে লর্ড হার্ডসনের হাত ধরে ১৫০০ একর জায়গার উপর এই বাগানটির যাত্রা শুরু হয়। বর্তমানে চা বাগানটি বেসরকারী তত্ত¡াবধানে পরিচালিত হলেও সুন্দর সময় কাটানোর জন্য পর্যটকদের কাছে পছন্দের স্থান হিসাবে সুপরিচিতি পেয়েছে। বর্তমানে এখানে চা-এর পাশাপাশি কমলা এবং রাবারের চাষ করা হয়।

বড় ভাইয়ের একমাত্র ছেলে ফাহিম এবার এইচএসসি পরীক্ষা দিবে। ছোট মেয়ে দুইজন পড়াশুনা করে। বড় মেয়েটির বিয়ে হয়েছে প্রায় বারো বছর হলো। আরেক জন সোনিয়া। ডিপ্লোমা সম্পন্ন করে এখন চেম্বার নিয়ে বসেছে। তারা চার জন আমাদেরকে দেখে খুবই আনন্দিত। বিশেষ করে আমার ছেলে (ইয়ামিন) কে পেয়ে। নিজ হাতে সেবা যত্ন করা, খাইয়ে দেয়া, গোসল করানো, জামা কাপড় ধুয়ে দেয়ার মত কাজগুলোও করে দেয়। আমাদের সেবা আর গল্পগুজবে নিজেদের পড়ালেখা ভুলতে বসেছে। সামনে পরীক্ষা তাই আমিও তাদের সাথে পড়ালেখা নিয়ে গল্প করি যেন তাদের পড়াশুনার ক্ষতি না হয়।

রাতে আমরা পরামর্শ করি কোথায় কি আছে। কোথায় যাওয়া যায়। এখানে ঐতিহাসিক ও টুরিস্ট স্পটগুলোর কথা জানায় এবং বিভিন্ন অভিজ্ঞতার কথা নিয়ে দারুন গল্প জমে উঠে। যতটুকু জানলাম: সিলেটের দর্শনীয় স্থানের মধ্যে রাতারগুল, বিছানাকান্দি, জাফলং, ভোলাগঞ্জ সাদা পাথর, লোভাছড়া, হযরত শাহ্জালাল (রঃ) ও হযরত শাহ্ পরান (রঃ) এর মাজার, সংগ্রামপুঞ্জি ঝর্ণা, তামাবিল, জিতু মিয়ার বাড়ি, আলী আমজদের ঘড়ি, পান্থুমাই ঝর্ণা, লক্ষনছড়া, ক্বীন ব্রিজ, মালনীছড়া চা বাগান, জৈন্তা হিল রিসোর্ট, ড্রিমল্যান্ড পার্ক, নাজিমগড় গার্ডেন রিসোর্ট, সাতছড়ি জাতীয় উদ্দ্যান, লালাখান, হাকালুকি হাওর ও ডিবির হাওর অন্যতম।

সকাল ৯ টা বাজতেই সিএনজি ড্রাইভার এসে হাজির। ভাই রাতেই বলে রেখেছে।
ভাবি এসে বল্ল-দেবর সাহেবগোসল করে নেন।
আমিতো প্রথমে লজ্জা পেয়েছি। স্বামী স্ত্রী এক সাথে থাকলেই কি গোসল করতে হবে নাকি? এই শীতের সকালে।
-বাচ্চাটাকেও গোসল করিয়ে নেন। আমি গরম পানি করে দিচ্ছি। এটা নিয়ম মাজারে যাওয়ার আগে সবাইকে গোসল করে যেতে হয়।
শেষের কথাটা শুনে আশ্বস্ত হলাম এবং জটপট প্রস্তুতি নিতে শুরু করলাম। ভাবীকে বল্লাম আপনাকে ছাড়া কিন্তু যাচ্ছি না। ভাবীও স্বাগ্রহে রাজি হয়ে গেল। নিজ থেকেই বল্ল- বাচ্চারা হওয়ার পর আপনার ভাই আর একদিনও আমাকে নিয়ে বাহিরে যায়নি।
তাহলে তো ভালই হবে।
সিএনজি গিয়ে থামল মাজার গেটে: হযরত শাহজালাল (র:) মাজার ৩৬০ আউলিয়ার সিলেট নগরী ‘পূন্যভূমি’হিসাবে খ্যাত। সিলেটের মাটিতে যেসব পীর, দরবেশ শায়িত আছেন এদের মধ্যে হযরত শাহজালাল (র:) অন্যতম। আর এই জন্য তাঁকে ওলিকুল শিরোমণি বলা হয়। হযরত শাহজালাল (র:) সকল ধর্মের মানুষের কাছে সমাদৃত ছিলেন। প্রতি বছর হযরত শাহজালাল (র:) মাজার জিয়ারতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মানুষের ঢল লক্ষ্য করা যায়।

মাজারে প্রবেশ করে ওযু করে নিলাম। মহিলাদের আলাদা নামাযের জায়গা আর ভিতরে রয়েছে সুদর্শন মসজিদ। সেখানে গিয়ে দুই রাকাত নফল নামায পড়লাম। সিড়ি বেয়ে উপরে হযরত শাহজালাল (র:) এর কবর পশ্চিম পাশে সাধারন মানুষের কবরস্থান। কবর জিয়ারত শেষ করে নিচে নেমে আসলাম।

মাজারের উত্তরদিকে একটি পুকুর রয়েছে। এই পুকুরের শোভা বর্ধন করে আছে অসংখ্য গজার মাছ। কথিত আছে, হযরত শাহজালাল (র:) ৩৬০ আউলিয়া নিয়ে সিলেট আসার সময় গজার মাছ নিয়ে এসেছিলেন। এসব মাছ পুকুওে ভেসে বেড়াতে দেখে দর্শনার্থীরা আনন্দ লাভ করেন ও মাছদের খাবার খেতে দেন।আমরাও খাবার কিনে সকলের হাতে একেক করে খাবার দিলাম। মাজারের পাশে একটি কূপ রয়েছে। এই কূপে সোনালী ও রুপালী রঙের মাছ দেখা যায়।সেখানে আমরা ছবি উঠালাম এবং বোতলের পানি নিয়ে আসলাম।

জনশ্রুতি আছে, হযরত শাহজালাল (র:) এর আধ্যাত্মিক ক্ষমতার কথা জানতে পেরে হযরত নিজামুদ্দিন আউলিয়া (র:) তাঁকে সাদরে গ্রহণ করেন এবং নিদর্শন স্বরূপ তাঁকে একজোড়া সুরমা রঙের কবুতর উপহার দেন। সেই কবুতরই বর্তমানে জালালী কবুতর নামে ব্যাপকভাবে পরিচিত। মাজারের ঝাঁকেঝাঁকে কবুতর আগতদের বিনোদিত করে।

মাজারের দক্ষিণে গ্রীলঘেরা তারকা খচিত মাত্র দুইফুট চওড়া একটি ঘর রয়েছে। এটি হযরত শাহজালাল (রঃ) চিল্লাখানা হিসাবে ব্যবহার করতেন। লোকমুখে শুনা যায়, হযরত শাহজালাল (রঃ) এখানে প্রায় ২৩ বছর আরাধনা করে কাটিয়েছেন। দরগাহ মাদ্রাসা বিল্ডিংয়ের মধ্য দিয়ে বাঁ দিকে মুফতি নাজিমুদ্দিন আহমদের বাড়িতে হযরত শাহজালাল (রঃ) এর ব্যবহৃত তলোয়ার, খড়ম, প্লেট, বাটি ইত্যাদি বিভিন্ন জিনিস দর্শনার্থীদের দেখার ব্যবস্থা রয়েছে।

হযরত শাহজালাল (রঃ) এর মূল দরগা শরীফ একটি পবিত্র স্থান, ভ্রমণের ক্ষেত্রে দরগার পবিত্রতার দিকে লক্ষ্যরাখতে হয়।
আমাদের সিএনজি ছুটল হযরত শাহ পরান র: এর মাজারের দিকে: হযরত শাহ পরাণ (রঃ) এর মাজার সিলেট শহরের অন্যতম একটি আধ্যাতিক স্থাপনা। হযরত শাহ পরাণ (রঃ) ছিলেন মধ্যপ্রাচ্য হতে বাংলাদেশে আসা ইসলাম প্রচারক শাহ্ জালাল (রঃ) এর ভাগ্নে এবং প্রধান অনুসারী। হযরত শাহ জালাল (রঃ) এর দরগাহ থেকে শাহ পরাণ (রঃ) এর মাজারের দূরত্ব মাত্র ৮ কিলোমিটার। সিলেট শহরের পূর্ব দিকে খাদিম নগর এলাকায় বড় একটি টিলার উপর হযরত শাহ পরাণ (রঃ) এর মাজারের অবস্থান।

লোক মুখে প্রচলিত আছে হযরত শাহ পরাণ (রঃ) এর মাজার টিলায় উঠা-নামার জন্য তৈরী সিঁড়িটি মোগল আমলে নির্মিত। মাজারের পশ্চিম দিকে রয়েছে মোগল স্থাপত্বরীতিতে নির্মিত একটি মসজিদ। মূল মাজার টিলা থেকে অল্প দূরত্বেই রয়েছে নারী পর্যটকদের জন্য একটি ঘর, বিদেশী পর্যটকদের বিশ্রামাগার এবং অজু গোসলের জন্য একটি পুকুর।
১৩০৩ সালে হযরত শাহ জালাল (রঃ) এর সাথে হযরত শাহ পরাণ (রঃ) এর সিলেট আগমন সম্পর্কে তথ্য থাকলেও কিভাবে এবং কখন হযরত শাহপরাণ (রঃ) মৃত্যুবরণ করেন তা জানা যায়নি। প্রতিদিন শত শত ভ্রমণকারী দ্বারা মাজার দর্শন সিলেট অঞ্চলে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠা এবং ইসলামের প্রচারে হযরত শাহ জালাল (রঃ) এর অবদানকেই স্পষ্ট করে তোলে।
মাজারে উঠার সময় জুতা সিএনজিতে রেখে যাই। ফিরলে সিএনজি আবার ছুটে শাহ্ গাজী সৈয়দবুরহান উদ্দিন (র:) মাজার এর দিকে:ভাই আগেই বলে দিয়েছিল অনেকে যেই ভূলটা করে তা হল শাহজালাল, শাহ পরান মাজার ঘুরে চলে আসে বুরহান উদ্দিন (র:) মাজারেকেউ যায় না অথচ সেটি আরো অনেক সুন্দর। সেখানে রয়েছে আরেকটি ইতিহাস। তিনি সিলেটের প্রথম ইসলাম গ্রহণকারী। যিনি বেদ্বীন রাজা গৌরগবিন্দের নির্মম নির্যাতন সহ্য করে ইসলাম ধর্মে অবিচল থেকেছেন এবং তার ছেলে সৈয়দ গুলজার আলম (র:) গৌর গবিন্দের হাতে নিহত হওয়া প্রথম শহীদ।
সেখানে নামাযের স্থান রয়েছে। ইতিমধ্যে যোহরের আজান হয়েছে। সেখানে নামায আদায় করে কুমারপাড়ার দিকে রওয়ানা হলাম।সিলেট চেম্বারস্ অব কমার্সের সদস্য নাহিদ ভাই দুপুরের লান্স করার জন্য ইনভাইট করেছেন। গতকাল শো রুম উদ্ভোধন্ অনুষ্ঠানে যেতে পারি নাই। তবে শো রুমে যাব এবং কেনাকাটা করব এই প্রতিশ্রæতি দেই। তার পরেরদিন কক্সবাজার সফর আছে। টিকেটও ইতিমধ্যে ক্রয় করা হয়েছে। লেন্স লাইফ স্টাইল এর শো রুম উদ্ভোধন করা হয়েছে। কুমারপাড়া মেইন রোডের সাথে, গ্রাউন্ড ফ্লোরে ভাল লোকেশন। সাথে আছেন ল্যান্স এর ফিনান্স ডিরেক্টর শাহাদাত ভাই। গতকাল ঢাকা থেকে যারা এসেছিলেন তারা ফিরতি টিকেটে এয়ারে ঢাকা ফিরে গেছেন।

আমাদেরকে নিয়ে পাশে একটি রেস্তোরায় গিয়ে উঠলেন।আসার শুনে আগেই খাবার অর্ডার করে রেখেছেন। সেখানে আমরা পাঁচজন ওনারা চারজন এক সাথে খাওয়া শেষ করে শো রুমে কিছু কেনাকাটা করলাম। ভাতিজা (ফাহিম), ভাতিজি (ইমা ও উর্মির জন্য)ও কেনাকাটা করলাম। ভাবি কিছুই নিল না।
সন্ধ্যা ঘনিয়ে এল আমরা বাসার দিকে রওয়ানা হলাম। পথে ভাবির এক বোনের বাসায় নিয়ে গেল। একক পরিবার। সাজানো গোছানো সংসার। স্বামী চাকুরী করে দুইটি মেয়ে ক্যাডেট মাদ্রাসায় পড়ে। ইনকামও ভাল। চা নুডল্স সামনে দিল। তার মেহমানদারীতে আমরা মুগ্ধ। ওখান থেকে অনেক বলে কয়ে বাসায় ফিরলাম। তখন খুব ক্লান্ত।

আসা ও যাওয়ার পথে ফাহিম স্থানীয় বিভিন্ন স্থাপনা, ঐতিহাসিক স্থানগুলো পরিচয় করিয়ে দিলেন। তার মধ্যে রয়েছে: ক্বীন বীজ বাংলাদেশের বিভাগীয় শহর সিলেটের কেন্দ্রস্থল দিয়ে বয়ে গেছে সুরমা নদী। আর সুরমা নদীর উপর লৌহ নির্মিত সেতুর নাম ক্বীন ব্রীজ । সিলেট শহরের ‘প্রবেশদ্বার‘ খ্যাত এই স্থাপনাটি সিলেটের ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসাবে সকলের কাছে অত্যন্ত সুপরিচিত। ১৯৩৬ সালে নির্মিত ক্বীন ব্রিজের দৈর্ঘ্য ৩৫০.৫২ মিটার এবং প্রস্থ্য ৫.৪ মিটার।
ঊনিশ শতকের তিরিশ দশকে আসামের গভর্ণর মাইকেল ক্বীন সিলেট সফরে আসেন। তখন সুরমা নদীর উপর একটি ব্রীজ নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। মাইকেল ক্বীনের স্মরণে ব্রীজটি নির্মাণ এবং নামকরন করা হয়। মাইকেল ক্বীন ১৯৩২ থেকে ১৯৩৭ সাল পর্যন্ত আসামের গভর্ণর ছিলেন।
১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানী বাহিনী ডায়নামাইট দিয়ে ব্রীজের একাংশ উড়িয়ে দেয়। পরবর্তীতে ১৯৭৭ সালে বাংলাদেশ রেলওয়ের সহযোগিতায় ব্রীজটির বিধ্বস্থ অংশ পুনঃনির্মাণ করা হয়।

সুরমা নদীর তীরে অবস্থিত আলী আমজদের ঘড়ি ঊনবিংশ শতকের নির্মিত সিলেটের একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। সিলেটের কুলাউড়ার পৃত্থিমপাশার জমিদার আলী আহমদ খান ১৮৭৪ খ্রিস্টাব্দে ক্বীন ব্রীজের পাশে এই ঐতিহাসিক ঘড়িঘর নির্মাণ করেন। আলী আহমদ খানের ছেলের নামানুসারে ঘড়িঘরটি আলী আমজদের ঘড়ি নামে পরিচিতি লাভ করে। লোহার খুঁটির উপর ঢেউটিন দিয়ে তৈরী বিশালাকার গম্বুজাকৃতির আলী আমজদের ঘড়ি ঘরের উচ্চতা ২৬ ফুট। আর ঘড়ির দৈর্ঘ্য ৯ ফুট ৮ ইঞ্চি এবং প্রস্থ ৮ ফুট ১০ ইঞ্চি।

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে প্রাচীন এই ঘড়ি ঘরটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এরপর বিভিন্ন সময়ে ঘড়িটি সংস্কার করা হয়। সর্বশেষ ২০১১ সালে সিলেট সিটি কর্পোরেশন কতৃক মেরামতের ফলে আলী আমজদের ঘড়ি বর্তমানে চালু রয়েছে। ক্বীন ব্রীজ সংলগ্ন আলী আমজদের ঘড়ি দেখতে যাওয়া যায়।বলে সিএনজি সেদিকে মোড় নিল।
পরদিন সকালে সিএনজি এসে আবার হাজির। আমরা জাফলং এর উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিলাম।জাফলং প্রকৃতির কন্যা হিসাবে পরিচিত। সিলেট জেলার দর্শনীয় স্থান গুলোর মধ্যে জাফলং সবার পছন্দ। সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ভারতের মেঘালয় সীমান্ত ঘেঁষা প্রকৃতির দানে রূপের পসরা সাজিয়ে আছে জাফলং। পাথরের উপর দিয়ে বয়ে চলা পিয়াইন নদীর স্বচ্ছ পানির ধারা, ঝুলন্ত ডাউকি ব্রিজ, উঁচু উঁচু পাহাড়ে সাদা মেঘের খেলা জাফলংকে করেছে অনন্য। একেক ঋতুতে জাফলং একেক রকম রূপের প্রকাশ ঘটায়, যা পর্যটকদেরকে ভ্রমণের জন্য সারাবছরই আগ্রহী করে রাখে।

সিলেট থেকে জাফলং এর দূরত্ব প্রায় ৬০ কিলোমিটার। সিএনজি যোগে আসতে যেতে প্রায় ৫ ঘন্টা সময় লেগে যায় বাকিটা সময় ছবি উঠানো আর ঘুরতে বেলা সন্ধ্যা হয়ে আসে। বর্তমানে জাফলং যাবার রোড বেশ ভালো। মামার বাজার না গিয়ে গুচ্ছগ্রাম বিজিবি ক্যাম্প হয়ে জাফলং জিরো পয়েন্ট যাওয়ার রাস্তাটি অধিক জনপ্রিয়।সিএনজি ড্রাইভার এই বিষয়ে বেশ বাকপটু। এখানকার সব কিছু তার চেনা। হারুন ভাইয়ের পরিচিত। তার বাড়ীও কুমিল্লা। এখানে প্রতি মাসে তার দুইএকটি ট্রিপ এইদিকে থাকেই। যেতে যেতে রাস্তার দুইপাশে ও কাছাকাছি বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানগুলোর কথা একেক করে মুখস্থ বলে যেতে লাগল। জাফলং এর কাছাকাছি দর্শনীয় স্থানসমুহ:
লালাখাল
তামাবিল
জৈন্তাপুর
সংগ্রামপুঞ্জি ঝর্ণা / মায়াবী ঝর্ণা
সংগ্রামপুঞ্জি চা বাগান
ডিবির হাওর /শাপলা বিল
সিএনজি ড্রাইভার আমাদেরকে এখানের বিভিন্ন দিক নির্দেশনা জানিয়ে দিল।

জাফলং সীমান্তবর্তী এলাকা, তাই সীমান্ত এলাকার নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।
পানিতে নামার সময় সতর্ক থাকুন, পাথর উত্তোলনের ফলে অনেক জায়গা বেশ গভীর।
স্থানীয়দের সাথে সুন্দর ব্যবহার করুন।
এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন যা প্রকৃতি ও পরিবেশের জন্যে ক্ষতিকর।
ফেরার পথে ফাহিম আমাকে শাহী ঈদগাহ ও কবরস্থান দেখাল রাতের আলোতে ঝলমল করছে পুরো শহর। অনেক সুন্দর ও পরিপাটি শহর সিলেট।
কুমারপাড়া আসতে যেতে কবরস্থানটি চোখে পড়ে। পাহাড়ের টিলার মত দেখতে কবরস্থান। সাবেক সিটি মেয়র বদর উদ্দিন আহমেদ কামরান এর কবর গেইটের সামনেই দেওয়া হয়েছে।
সিলেট শাহী ঈদগাহ ( Sylhet Shahi Eidgah) বাংলাদেশের প্রাচীনতম ঐতিহাসিক স্থাপনার মধ্যে অন্যতম। নিপুণ কারুকার্যময় শাহী ঈদগাহটি ১৭০০ সালের দিকে মোগল ফৌজদার ফরহাদ খাঁ নির্মাণ করেন। ২২ টি সিঁড়ি মাড়িয়ে ১৫ টি গম্বুজ সজ্জিত শাহী ঈদগাহের মূল চত্বরে প্রবেশ করতে হয়। সীমানা প্রাচীরের ঘেরা ঈদগাহের চারদিকে ছোট বড় ১০টি গেইট রয়েছে। এই ঈদগায়ে প্রায় দেড় লাখ মুসল্লী একত্রে ঈদের নাযাজ আদায় করতে পারেন। শাহী ঈদগাহের উত্তর দিকে একটি মসজিদ আছে, যা শাহী ঈদগাহ মসজিদ নামে পরিচিত। আর মসজিদের পাশে সুউচ্চ টিলার উপর রয়েছে বন কর্মকর্তার বাংলো। ঈদগাহের সামনে অবস্থিত বিশাল পুকুরে মুসল্লিরা অজু করে থাকেন। এছাড়া দক্ষিণ দিকে বাংলাদেশ টেলিভিশনের সিলেট কেন্দ্র এবং পূর্ব দিকে হযরত শাহজালাল (র.) এর সফরসঙ্গী শাহ মিরারজী (র.) এর মাজার ও সিলেট আবহাওয়া অফিস রয়েছে।
বর্তমানে শাহী ঈদগাহ বিভিন্ন ঐতিহাসিক ঘটনা প্রবাহের সাক্ষী হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে। ১৭৮২ খ্রীষ্টাব্দে এই শাহী ঈদগাহে সৈয়দ মোহাম্মদ হাদী ও সৈয়দ মোহাম্মদ মেহেদী দুই ভাইয়ের নেতৃত্বে ইংরেজ বিরোধী অভ্যুত্থানের সূচনা হয়। এছাড়াও এখানে মহাত্মা গান্ধী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শেরে বাংলা আবুল কাশেম ফজলুল হকের সহ অনেক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নেতাদের আগমনের ঘটনা রয়েছে। কারণ অতীতে সিলেটে সকল ধরনের বড় জন সমাবেশের জন্য শাহী ঈদগাহকে বেছে নেয়া হত।

পরদিন ফেরার টিকেট কাটতে হবে। ভাই জানাল আজ বাস মালিক সমিতির ধর্মঘট।
কোন বাসের টিকেট পাওয়া যাবে না। বরং থেকে যা আরো কয়েক দিন। এখানে কি কোন অসুবিধা হয় নাকি?
না ভাই কি যে বলেন ? আপনার এখানে যতটুকু আপ্যায়ন পেয়েছি এতটা আশাও করি নাই।
যখনই বাসায় ফিরে আমার ছেলের খবর নেয় আমাদের খবর নেয়। পুরনো স্মৃতি, আত্মীয় গ্রামের হাজারো স্মৃতি নিয়ে সন্ধার পর আড্ডা গল্পে সময় কেটেছে খুবই ভাল। তারপরও যথা সময়ে ঢাকা ফিরতে হবে। টিকেট কাটতে আম্বরখানায় গেলাম। সেখান থেকে কিছু চা পাতি, আচার, মাজারের তাবারক, গ্রীন টি কিনে নিলাম। কাউন্টার থেকে জানাল টিকেট বিক্রি করে না। রাতে সম্ভাবনা আছে। ফোন নাাম্বারটা লিখে দিয়ে যান। আমি হতাশ হয়ে পড়লাম। বিকল্প কি ব্যবস্থা আছে রেলওয়ে এর টিকেট পাওয়া যাবে কিনা? তাও দুইদিন পর হবে। এয়ারেও টিকেট পাওয়া যাবে না। যারা বিদেশ যাত্রী, বিভিন্ন চাকুরী প্রার্থী তারা বিভিন্ন জায়গায় ভীড় করছে। বাসায় ফিরে আসলাম। ভাই ভাবী খুব খুশি। আমি বলেছিলাম না? যাওয়া হবে না?
রাতে কাউন্টার থেকে ফোন দিল। রাতে দুইটি হাইএস গাড়ী ছাড়বে ঢাকার উদ্দেশ্যে। আবার রিকশা নিয়ে গেলাম আম্বরখানায়। টিকেট শেষ। আগামী কাল গাড়ী ছাড়তে পারে। উচ্চ পর্যায়ে মিটিং চলছে।

আরেকটা জায়গা আছে সেখানে না গেলে নাকি আনন্দের ষোল কলা পূর্ণ হয় না। কষ্ট হলেও যাওয়া দরকার সেখানে। আমাদের টিকেট কাটা হয়েছে ২৩ নভেম্বর ২০২১ইং তারিখে দিনের ০১ টায় এর মধ্যে সেখানে যাওয়া হয়ে হয়ে যাবে। সকাল সকাল নাস্তা করেই সেখানে রওয়ানা হলাম।
সিলেট সৌন্দর্যের দিক দিয়ে, জাফলং এবং বিছানাকান্দি বেশ পরিচিত জায়গা। তবে এরকমই আরেকটি সুন্দর জায়গা আছে যার নাম সাদা পাথর। তবে এটি ভোলাগঞ্জে অবস্থিত। এই জায়গাটি হুবুহু বিছানা কান্দির মতই। কিন্তু পার্থক্য হলো একটাই এখানকার পাথরগুলো সাদা ও অনেক সুন্দর। সাদা রংয়ের পাথর গুলো দেখার জন্য, প্রতিদিন হাজার হাজার লোক ভিড় করে ।
সবাই সাদা পাথরের সমারোহের কারণেই, ভোলাগঞ্জের এই জায়গাটির নাম হয়ে গিয়েছে সাদা পাথর। এখন সিলেট সাদা পাথর বললে চলে, সবাই চিনে থাকে। সিলেট থেকে সাদা পাথরের দূরত্ব মাত্র ৩৩ কিলোমিটার। এখানে এসে আপনি অবাক হয়ে যাবেন এবং বুজতে পারবেন না যে এটা সিলেট। কারন এ অদ্ভুত এক সাদা পাথরের পৃথিবীতে আপনি এসেছেন।

নামক জাগায় অনেক সুন্দর সুন্দর কিছু দেখতে পারবেন। যা হয়তো আপনার জীবনে ও দেখেন নাই। সেখানে দেখতে পাবেন একটি নদী, যার নাম ধোলাই। ধোলাই নদীতে অনেক চমৎকার এবং সুন্দর। আরো দেখতে পারবেন, পাথর তোলার কাজে নিয়জিত অসংখ্য নৌকা। ভয়ঙ্কর সুন্দর এই জায়গাটিতে পাবেন সারি সারি সবুজ পাহাড়। দেখবন কি করে পাহাড় থেকে গড়িয়েগড়িয়েপড়ে স্বচ্ছ ঠান্ডা পানি। ভ্রমণকারীরা এই ঠান্ডা পানিতে এসে গোসল করে । অনেক মজা আর হৈ চৈ করে বেড়াই। অনেকে গোসল করে ভ্রমণের সকল ক্লান্তি অবসাদ দূর করেন।

সেখানকার অনেক লোক বলে থাকেন। ভারত থেকে বন্যার তোড়ে ভেসে আসা প্রচুর পাথর এখানে জমা হয়। এখানকার পাথর উত্তোলনের দৃশ্য ও দেখাটাও আনন্দময় অভিজ্ঞতা।

এই White pathor যেতে হলে, প্রথমেই যেতে হয় সিলেট ভোলাগঞ্জ। সিএনজিতে আমরা পৌছাই প্রথমে নৌকা ঘাটে। নৌকা ঘাট থেকে আটশ টাকার মধ্যে নৌকা ভাড়া নিয়ে উঠি। এই নৌকা সাদা পাথর নিয়ে যাবে আবার ভোলাগঞ্জে ফেরতও নিয়ে আসবে ।
বাংলাদেশের জনপ্রিয় ভ্রমণ স্পট গুলোর একটি হলো সিলেট। নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের ভরপুর সিলেট জেলার আনাচে কানাচে রয়েছে অনেক সুন্দর স্থান।

আমাদের ব্যাগ আগে থেকেই গুছানো ছিল। তবে ফেরার পথে তাড়াহুড়ো করে খাবার খেয়ে আমরা একই সিএনজি যোগে ফিরলাম। এরই মধ্যে কাউন্টার থেকে কয়েক বার ফোন দিল। যেই গাড়ীর টিকেট কেটেছি সেটা যাবে না। অন্য একটি গাড়ী আছে টিকেট এর মূল্য একটু বেশী। এটা এসি গাড়ী বিআরটিসি, শ্যামলী। যথা সময়ে কদমতলী বাস স্ট্যান্ডে হাজির হওয়ার জন্য। আর অতিরিক্ত টাকা কাউন্টারে ফকরুল নামে একজনের হাতে দেওয়ার জন্য। আমাদের সিএনজি ক্ষিপ্র গতিতে চলছে। এর মধ্যে কয়েক বার ফোন আসল। এই তো আম্বরখানা মসজিদের সামনে, এইতো কুমারপাড়া পার হয়েছি। অবশেষে শ্যামলীর কাউন্টারে পৌছাই। সোনিয়া এসেছে আমাদের সাথে। ফাহিম এ্যাডমিট কার্ড আনার জন্য কলেজে গিয়েছে। যাওয়ার আগে আমাদের সাথে দেখা করবে বলে বলে যায়। সোনিয়া ধৈর্য্য ধরে বসে আছে আমাদের সাথে। এদিকে রোগী আছে লান্সের পর তাই অপেক্ষা করছে। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে গাড়ী চলে এসেছে।

আমার অফিসের সাবেক কলিগ নজরুল ইসলাম(সার্জেন্ট অব:) ভাই ফোন দিয়ে বল্লেন, ভাই বাড়ীর কাছ থেকে ঘুরে গেলেন; দেখা করলেন না। অভিমানের সুর বুঝতে পেরে ক্ষমা চেয়ে আবার কখনও আসলে দেখা করার প্রতিশ্রুতি দিলাম।

গাড়ীর পিছনের বক্সে ব্যাগ উঠানো হয়েছে। ফাহিম ফোন দিল- চাচা আমি আসতেছি, পাঁচ মিনিট সময় লাগবে বাস স্ট্যান্ডে পৌঁছতে। আস, যদি দেখা হয় ভাল। গাড়ী ছেড়ে দিতে পারে; বলে আমরা গাড়ীতে উঠলাম। সূর্যের তাপে শীত অনেকটা কমে গেছে। সীটে বসে এসিটা ঘুরিয়ে নিজেদের দিকে করেনিলাম। সোনিয়া দাঁড়িয়ে আছে কাউন্টারের গেইটে। গাড়ী ছেড়ে দিলে সে হাত নেড়ে বিদায় জানল। ফাহিমকে ফোন দিলাম। ফাহিম গাড়ী ছেড়ে দিয়েছে, সোনিয়া কাউন্টারে আছে, দেখা হল না। ভাল থেকো। বেঁচে থাকলে আবার দেখা হবে। তার স্বর নিচু হয়ে গেল। আচ্ছা, চাচা ঠিক আছে। আল্লাহ হাফেজ। ফোনটা রেখে দিলাম। নাদিয়া পাশের সীটে ফুঁফিয়ে কাঁদছে। তোমার আবার কি হলো? তাদের জন্য অনেক মায়া লাগছে। সত্যিই তারা অনেক ভাল। যা আপ্যায়ন করেছে। আর এই কয়েক দিনে কত আপন করে নিয়েছে আমাদের কে তাই না?

জানালার পর্দাটা সরিয়ে আমিও উদাস নয়নে অভিরাম দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলাম। মনটাকে মিশিয়ে দিলাম দিগন্ত জোড়া ফসলের মাঠে। এই যে রাশি রাশি ধান ক্ষেত এগুলোর পিছনেও একেক জন চাষী আছে; যাদের প্রতিটি স্বপ্নেমিশে আছে প্রতিটি ধানের সোনালী শীষ। জুড়ে আছে সংসারের হিসাব নিকাশ। ভাবতে ভাবতে দু:খটা লাঘব হচ্ছে ক্রমান্বয়ে। আমার দেশের এত রূপ এত সৌন্দর্য দেখে বিমোহিত।

সিলেটের সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে ১৯৪৬ সালে পন্ডিত জওহর লাল নেহেরু সিলেট সফর এসে বলেছিলেন, “সিলেট ইজ বেঙ্গল বাট উইথ এ ডিফারেন্স”। একই বছর পাকিস্তানের মোহাম্মদ আলী জিন্নাহওসিলেট সফর এসে বলেছিলৈন, “ইচ্ছে হয় তোমাদের এই সবুজ সুন্দর পরিবেশে আমি ও একটি বাড়ি নির্মাণ করি”।
আনমনেই গেয়ে চলছি..
এমন দেশটি কোথাও খুজে পাবে নাকো তুমি,
সকল দেশের রানী সে যে আমার জন্মভূমি, সে যে আমার জন্মভূমি ।

 

আর পড়তে পারেন