সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

আমার সাংবাদিকতার স্মৃতিতে তোয়াব খান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৪, ২০২২
news-image

 

আবুল হাসানাত বাবুল :

১৯৮০ সালের আগস্ট মাসে ঢাকার সার্কিট হাউজ সড়কে বাংলাদেশ প্রেস ইন্সটিটিউটের সাংবাদিকতার বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে সাংবাদিকতায় বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ পাবার সুযোগ পেয়েছিলাম। সিলেট, চট্টগ্রাম, কুমিল্লার তিনজন এই প্রশিক্ষণ পাবার সুযোগ লাভ করে। তার মধ্যে আমি একজন। সাপ্তাহিক আমোদ থেকে আমার নাম পাঠিয়েছিলেন আমার সাংবাদিকতার অভিভাবক আমোদ সম্পাদক মোহাম্মদ ফজলে রাব্বী।

আমাদের থাকার ব্যবস্থা করেছিলেন হোটেল গোল্ডেন গেইটে। একদিন আগে যাই। রাত্রিযাপন করি। সকাল সাড়ে সাতটায় পিআইবির গাড়ি হোটেল থেকে আমাদের নিয়ে যায়। পিআইবির পুরনো ভবনের প্রশিক্ষণ কক্ষে প্রবেশ করি। ঢাকার ১২ জন সহ মোট ১৫ জন দশদিনের এই প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করি। অংশগ্রহণকারীদের নাম, পত্রিকার নাম টেবিলে দেখতে পেলাম। এসব দেখে গৌরববোধ করলাম। দৈনিক বাংলা, সংবাদ, বিচিত্রা, সচিত্র সন্ধানী, হলিডে, দৈনিক দেশ, সংগ্রামসহ আরো কিছু পত্রিকার নাম দেখলাম।

সূচনায় যিনি পরিচয়পর্ব জানতে চাইলেন তিনি নিজেকে পরিচয় দিলেন ঊর্মি জাহাঙ্গীর নামে। পাশে ছিলেন পিআইবির প্রশিক্ষণ বিভাগের প্রশিক্ষক আমার অগ্রজ সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম নাসিম। একইসঙ্গে ঊর্মি জানালেন আপনাদের প্রথম ক্লাশ নেবেন পিআইবির ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক তোয়াব খান। তাকে প্রথমে দেখে আমার মনে হয়েছিল তিনি নিশ্চয়ই ইউরোপীয়। সুন্দর, সুপুরুষ। গায়ের রঙ চাঁপাফুলের মতো। যখন কথা বলা শুরু করলেন তখন বুঝতে পারলাম তিনি খাঁটি বাঙ্গালী। প্রথমে সবার পরিচয় আরেকবার জানলেন। আমরা যারা ঢাকার বাইরের তাদের হোটেলে কোন সমস্যা হয়েছে কিনা, কোন অসুবিধা আছে কিনা তা জানতে চেয়ে এত সহজে আমাদের সঙ্গে মিশে গেলেন তারপর তাঁর থেকে আর চোখ ফিরিয়ে নিতে পারি নাই। বুনিয়াদি সাংবাদিকতায় আমার প্রথম প্রশিক্ষক তোয়াব খানের প্রথম কথাটাই ছিল, “আপনার লেখা সংবাদটাকে পাঠক সবচেয়ে বেশি বিশ্বাস করে।” এই শ্রদ্ধেয় প্রশিক্ষকের সেদিনের প্রথম কথাটা ৪২ বছর ধরে আজো অন্তরে ধারণ করি। একজন সাংবাদিক হবেন সবচেয়ে বিশ্বাসী মানুষ। তারপরে কঠিন বাস্তব কথাটা বললেন। “যত প্রশিক্ষণই আপনারা গ্রহণ করেন আপনাদের মালিক-সম্পাদক আপনাদেরে যেভাবে খবর রচনা করতে বলবেন আপনারা সেভাবেই সংবাদ লিখতে বাধ্য হবেন। কেননা মালিক-সম্পাদকের লক্ষ্যই বাণিজ্য। বাণিজ্যে সফল হলেই সংবাদপত্র সফল।” ৪২ বছর আগে তার কথাগুলো জীবনের প্রতিটি ধাপে দেখতে পেয়েছি। পাচ্ছি। তারপর পাঁচ ডব্লিউ ভাল করেই বুঝালেন। এও বললেন কম করে হলেও তিন ডব্লিউ লাগবেই। কিভাবে যে চল্লিশ মিনিট চলে গেল বুঝতেই পারিনি। পাশের কক্ষে প্রবেশ করলাম। সকালের নাস্তা করলাম। পরের ক্লাস নিতে এলেন দৈনিক বাংলার সম্পাদক আহমেদ হুমায়ুন। তিনিও সুন্দর-সুপুরুষ। দীর্ঘদেহী কিন্তু তোয়াব খানের শারীরিক গঠন, কথা বলার ধরণ এতটা আন্তরিক ছিল যেকারণে কোনদিন তাকে ভুলে যাইনি। আহমেদ হুমায়ুনের হাতে সেদিনের দুটি পত্রিকা থাকতো। একটি দৈনিক বাংলা। অপরটি কলকাতার আনন্দ বাজার। নিজে যে সংবাদপত্রের সম্পাদক সেই পত্রিকার খবরের এবং শিরোনামের ভুল ধরতেন। পাশাপাশি আনন্দবাজারের খবরের, খবরের শিরোনামের বৈশিষ্ট্য তুলে ধরতেন। সেই সময়কালে মহানায়ক উত্তম কুমার মারা গিয়েছিলেন। খবরের প্রতিক্রিয়া কেমন হতে পারে তার উপমা দিয়েছিলেন আনন্দবাজার থেকে। উত্তম কুমারের মৃত্যুর পর অমর নায়িকা সুচিত্রা সেন যে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন তা ছিল, “আমি হেরে গেলাম”, তার নিচে সুচিত্রা সেন।

পিআইবিতে ১৯৯১ সালে দৈনিক রূপসী বাংলা থেকে ‘পরিবেশ বিষয়ক সাংবাদিকতা’য় প্রশিক্ষণ কোর্সে অংশগ্রহণ করেছিলাম। ১৯৯৬ সালে নিজের সংবাদপত্র অভিবাদন থেকে ‘নির্বাচনে সাংবাদিকতা’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কোর্সেও অংশগ্রহণ করেছিলাম কিন্তু ১৯৮০ সালে তোয়াব খানের ক্লাসের সঙ্গে আর কারো ক্লাসকে মিলাতেই পারি না। ১৯৮৬ সালে পিআইবি’র মহাপরিচালক হিসেবে তোয়াব খান কুমিল্লা সাংবাদিক সমিতির সম্মেলনে এসেছিলেন। সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন চৌধুরী।

সমিতির নীতিমালা অনুযায়ী দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ এবং পরিচয়পত্র থাকতে হয়। দৈনিক রূপসী বাংলায় রাতদিন কাজ করলেও আমার নিয়োগপত্র ছিল চট্টগ্রামের দৈনিক মিছিলের। এর ফলে সেই সময়কালে সমিতির সক্রিয় সদস্য ছিলাম। সম্মেলন উপলক্ষে অনুষ্ঠান উপস্থাপন করতে গিয়ে সমিতির সব দাবী-দাওয়া তুলে ধরি। এবিষয়ে সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী আবেগ দিয়ে দাবীনামা পেশ করেছিলেন। অতিথি অধ্যাপক মফিজুল ইসলাম এডভোকেট, কুমিল্লা পৌরসভার তৎকালীন চেয়ারম্যান আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার সাংবাদিকদের দাবী মেনে নিয়েছিলেন। সবার শেষে তোয়াব খান বলেছিলেন, “আমরা সবাই আপনাদের দাবী মেনে নিলাম কিন্তু আপনাদের মালিক-সম্পাদকরা কি আপনাদের দাবী মেনে নেবেন?” একজন পেশাদার অসাধারণ সাংবাদিক তোয়াব খানের পক্ষেই এমন মন্তব্য মানায়। প্রশিক্ষণ কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সাংবাদিকতায় আমার প্রথম প্রশিক্ষক তোয়াব খানের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই। ৮৭ বছর বয়সে তিনি চিরবিদায় নিলেও বাংলাদেশের সাংবাদিকতার ইতিহাস থেকে তিনি কোনদিন বিদায় নেবেন না।

আর পড়তে পারেন