মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের কেনাকাটাকে সহজ করছে অনলাইন পেমেন্ট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১০, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার পথে যাত্রা শুরুর পর থেকেই দেশে তথ্য-প্রযুক্তির ব্যাপক উন্নয়ন ঘটতে শুরু করে। স্মার্টফোন ও ব্রডব্যান্ড সংযোগের বদৌলতে শহর ও গ্রামের সকল স্তরের মানুষের কাছেই এখন ইন্টারনেটের সংযোগ পৌছে গেছে। তথ্যমতে, ২০০৬ সালে বাংলাদেশে মোবাইল ফোনের সংখ্যা ছিল ২ কোটি, যা এ বছরের জানুয়ারিতে এসে দাড়িয়েছে প্রায় সাড়ে ১৬ কোটিতে। এসব মোবাইলের বেশিরভাগই স্মার্টফোন হওয়ায় দেশের বিশাল একটি জনগোষ্ঠী এখন ডিজিটাল জগতের সাথে সংযুক্ত আছেন।

প্রযুক্তিগত উন্নয়ন এবং ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত হওয়ার পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে মানুষের রুচি ও চাহিদায়ও এসেছে পরিবর্তন। একবিংশ শতাব্দীতে এসে সবাই জীবিকার প্রয়োজনে আগের চেয়ে আরও বেশি ব্যস্ত হয়ে উঠেছে। ফলে, প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের জীবনকে আরও স্বাচ্ছন্দ্যময় করে তুলতে মানুষ প্রতিনিয়তই নতুন নতুন উপায় বের করছে। তারই ধারাবাহিকতায়, ব্যস্ত হয়ে ওঠা মানুষের সময়ের সাথে পরিবর্তনশীল চাহিদা পূরণে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারে বিশ্বব্যাপী এখন অনলাইন-ভিত্তিক ব্যবসার প্রসার বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশেও বৃদ্ধি পাচ্ছে ই-কমার্সের জনপ্রিয়তা।

ই-কমার্স মানুষের জীবনকে আগের চেয়ে আরও সহজ করে তুলেছে। কয়েক দশক আগেও কেউ ভাবতে পারেনি যে কষ্ট করে বাজারে না গিয়ে ঘরে বসেই প্রয়োজনীয় পণ্য কেনা যাবে, অথচ ই-কমার্সের বদৌলতে তা এখন বাস্তবতা। দোকান ঘুরে পণ্য পছন্দের চেয়ে ক্রেতারা এখন ঘরে বসে অনলাইন মার্কেটপ্লেসে বিস্তারিত দেখে তাদের পছন্দমতো পণ্য কিনতে বেশি আগ্রহী হয়ে উঠছেন। তার ফলশ্রুতিতে, ব্যস্ত হয়ে ওঠা আধুনিক জীবনে ই-কমার্স বা অনলাইন ভিত্তিক শপিং এখন দৈনন্দিন বিষয়ে পরিণত হয়েছে।

ই-কমার্স বিকাশের যাত্রায় অনলাইন পেমেন্টের ব্যাপক অবদান রয়েছে। ২০০৯ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনলাইন পেমেন্টের অনুমোদন ও ২০১৩ সালে অনলাইন পেমেন্টে ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের অনুমোদন দেয়ার মাধ্যমে দেশে ই-কমার্সের যাত্রা ত্বরাণ্বিত হয়। নগদ টাকায় পেমেন্ট করার তুলনায় অনলাইনে পেমেন্ট করা আরও নিরাপদ ও সহজ হওয়ায় ক্রেতাদের মাঝেও অল্প সময়ের মধ্যেই এর জনপ্রিয়তা বাড়তে শুরু করে। ফলে, সারা বিশ্বেই এখন অনলাইন কেনাকাটা থেকে শুরু করে সকল ধরনের লেনদেনেই অনলাইনে পেমেন্ট করার প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ই-কমার্স থেকে পণ্য কেনার সময় অনলাইনে পেমেন্ট করলে ক্রেতারা বিভিন্ন ধরনের সুবিধাও উপভোগ করতে পারেন। সাধারণত, অনলাইন শপিং প্ল্যাটফর্মগুলো থেকে অনলাইনে পেমেন্ট করলে বিভিন্ন ধরনের ছাড় ও ক্যাশব্যাক অফার থাকে। এসব অফারের মাধ্যমে ক্রেতারা কম মূল্যে পছন্দের পণ্য কিনতে পারেন।

উদাহারণ হিসেবে দারাজের ১১.১১ ক্যাম্পেইনের কথাই বলা যাক। দারাজের অনলাইন পেমেন্ট অপশনে মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট এবং বিভিন্ন ব্যাংকের কার্ড সেভ করে খুব সহজেই নিরাপদ উপায়ে পণ্যের মূল্য পরিশোধ করা যায়। দারাজের এবারের ক্যাম্পেইনে পেমেন্ট পার্টনার হিসেবে আছে বিকাশ, ব্র্যাক ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক, এইচএসবিসি, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, প্রাইম ব্যাংক, সাউথইস্ট ব্যাংক এবং স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক। ক্রেতারা বিশ্বব্যাপী সমাদৃত এই ক্যাম্পেইন থেকে এসব ব্যাংকের মাধ্যমে পণ্যের মূল্য পরিশোধ করলে বিভিন্ন ধরণের ছাড় ও ক্যাশব্যাক উপভোগ করতে পারবেন।

সময়ের সাথে ক্রেতাদের অনলাইনে পেমেন্ট করার প্রবণতা বাড়ছে। তথ্যমতে, গত বছর থেকে এ বছর দারাজের ইয়ার-অন-ইয়ার বা বছরপ্রতি প্রিপেমেন্ট প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪১ শতাংশ। দীর্ঘ সাত বছরের যাত্রায় মানুষের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করায় দারাজের ৪৫ শতাংশ লেনদেনই এখন প্রি-পেমেন্টে হয়। এসব পরিসংখ্যানই প্রমাণ করে দেশে অনলাইন পেমেন্টের পরিমাণ বাড়ছে। এটি বিক্রেতাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রমকে যেমন ত্বরান্বিত করছে, তেমনি ক্রেতাদের অনলাইন কেনাকাটাও আরও সহজ ও সাচ্ছন্দ্যময় করে তুলছে।

আর পড়তে পারেন