বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ঈদের ছুটিতে পর্যটক নেই রাজেশপুর ইকোপার্কে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১২, ২০২২
news-image

 

মোঃ উজ্জ্বল হোসেন বিল্লাল:

নাগরিক কোলাহল ও কর্মব্যস্ত জীবন থেকে একটু প্রশান্তি পেতে খুঁজে বেড়ান দেশ-দেশান্তরে থাকা বিনোদন কেন্দ্র। ঈদের আনন্দ হোক সবার, তারই ধারাবাহিকতায় কেউ সপরিবারে, কেউ বন্ধুদের নিয়ে ঘুরতে যাচ্ছেন বিনোদন কেন্দ্র গুলোতে। কেউ বা ছুটে চলছেন ঘরের বাহিরে দুরে কোথায় প্রকৃতির মাঝে নিজেকে হারিয়ে খুঁজে পাওয়ার জন্য।

ঈদ ছুটিতে কুমিল্লার বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে দর্শনার্থীর ভিড় থাকলেও সরজমিনে ঘুরে দেখা যায় একবারে দর্শনার্থী শূন্য রাজেশপুর ইকোপার্ক।

কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলায় অবস্থিত রাজেশপুর ইকোপার্ক। বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে সরকারি ভাবে টিকেট পদ্ধতি চালু করা যায় ২০০৮ সাল থেকে। প্রকৃতি ঘেরা রাজেশপুর ইকোপার্ক সরকারি ভাবে চালু হওয়ার পর থেকে দর্শনার্থীদের অনেক ভিড় ছিলো। ঈদের ছুটি থেকে শুরু করে সরকারি বিভিন্ন ছুটি ছাড়া ও সবমসময় দর্শনার্থীর উপস্থিত ছিলো লক্ষ্যনীয়। কিন্তু বিগত দুই বছর দেখা যাচ্ছে তার উল্টোচিত্র।

স্থানীয় কয়েকজন থেকে জানা যায়, ২-৩ বছর আগে এখানে অনেক মানুষ আসতো। এখন আর তেমন আসে না। এ পার্কের চারদিকে বসত-বাড়ি এবং রাস্তা থাকার কারনে নির্দিষ্ট সীমানা নাই। যার কারনে দর্শনার্থী আসলে অনেকসময় বিভিন্নভাবে হয়রানি সহ নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতো। দর্শনার্থী আসলে নিরাপত্তা হীনতাায় ভুগতো। তাছাড়া সীমান্তবর্তী এলাকার থাকার কারনে মাদকের প্রভাব বিস্তার করে। মূলত এসব সমস্যার কারনে দিন দিন দর্শনার্থী হারিয়ে যাচ্ছে।

ঈদের দ্বিতীয় দিনে পার্কে বসা বুট দোকানদার জাহাঙ্গীর জানায়, আমি ৫-৬ বছর যাবৎ এখানে বুট বিক্রি করতে আসতাম। বিগত বছরে দর্শনার্থী বেশি থাকার কারনে আমার বেচাকেনা ভালো ছিল। কিন্তু এ বছর তেমন কোনো দর্শনার্থী নাই। সকল থেকে বিকেল পর্যন্ত আমি ৩০০ টাকা বিক্রি করেছি।

পার্ক কাউন্টার সংলগ্ন দোকানদার সোলেমান স্টোর জানায়, দর্শনার্থী না আসার কারনে আমাদের বেচাকেনা বেশি ভালো না। অন্যান্য বছর ঈদের দিন থেকে শুরু ৩-৪ দিনে ২ লক্ষ টাকা উপর বিক্রি করতাম। কিন্তু আজকের দ্বিতীয় দিন সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ৫ হাজার টাকা বিক্রি করেছি। বাহিরের কাস্টমার নাই বললেই চলে। দোকানে বসে কোনো রকম সময় কাটাচ্ছি।

পার্কের সামনে থাকা রিক্সাচালক এয়াকুব মিয়া বলে, আমি সকাল থেকে এখন পর্যন্ত রিক্সা নিয়ে বসে আছি। পকেটে একটি টাকা ও আসে নাই। পার্কের ভিতরে ও তেমন কোনো মানুষ নাই। মানুষ না থাকায় রিক্সায় বসে আলস সময় কাটাইতেছি।

প্রবেশ টিকেট বিক্রি করা হানিফ মিয়া জানায়, গত বছর ঈদের দ্বিতীয় দিনে ১০-১৫ হাজার টাকা টিকেট বিক্রি করেছি। এবছর মানুষ একেবারে নাই বললেই চলে। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত দর্শনার্থীর উপস্থিতি লক্ষ্যনীয়। সকাল থেকে ১ থেকে ২ হাজার টিকেট বিক্রি করেছি। আবার অনেক আসছে বিভিন্ন ভাইয়ের পরিচয় দিয়ে বিনা টিকেটে প্রবেশ করতেছে। এতে করে টিকেট বিক্রি করতে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা জামাল হোসেন বলেন, সরকারি ভাবে পার্কটি চালু হওয়ার পর হাজার হাজার দর্শনার্থীর ঢল ছিল। বর্তমান সময়ে দর্শনার্থীর উপস্থিতি নেই বললেই চলে। স্থানীয় বিভিন্ন সমস্যাই এটার মূল কারন। পার্কের চারদিকে যেন সীমানার ব্যবস্থা করতে হবে। ঘুরতে আসা মানুষের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হবে। দর্শনার্থী যেনো বিভিন্ন হয়রানির শিকার না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। তাহলে আমরা আশাবাদী পূর্বের মতো মানুষ আসতে শুরু করবে।

গ্রামবাসীর দাবি সরকার যেনো পার্কের বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কাজ করে। পার্কে থাকা বিভিন্ন ভাস্কর্য গুলো পুনরায় সংরক্ষণ করতে হবে। পার্কের ভিতরের রাস্তা-ঘাট মেরামত করতে হবে। পার্কে শিশুদের জন্য বিভিন্ন বিনোদন জায়গা তৈরি করা। আমাদের পার্কে কোনো চিড়িয়াখানা নাই। আমরা চাই ভালো মানের একটা চিড়িয়াখানা তৈরি করা । পার্কে থাকা সকল সমস্যার সমাধান করলে আমরা আশাবাদী আমাদের এ পার্ক আবার পূর্বের অবস্থানে ফিরে আসবে। এলাকাটি জমজমাট হবে। এতে করে পার্কের সামনে থাকা ব্যবসায়ি থেকে শুরু অনেকই লাভবান হবে। আমাদের গ্রামের সুনাম অক্ষুণ্ণ থাকবে।

আর পড়তে পারেন