শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা-৮ আসনের সাংসদ নজরুলকে রাজাকারের ছেলে বলে মন্তব্য

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৬, ২০২২
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লা-৮ (বরুড়া) আসনের সংসদ সদস্য নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুলকে এবার রাজাকারের সন্তান বলে মন্তব্য করেছেন উপজেলা বীর মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের সদস্য আবদুল ওহাব।

বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) দুপুরে উপজেলা অডিটোরিয়ামে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল আয়োজিত শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভা এবং দোয়া মাহফিলে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। অনুষ্ঠান শেষে এক মিনিট ৪৪ সেকেন্ডের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে কুমিল্লাজুড়ে আলোচনা সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

বক্তব্যে আবদুল ওহাব বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে আবার হত্যাও করেছে। এরা কারা? অন্য কেউ করে নাই। আমাদের মতো লোকেরাই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে। সেই রাজাকার আর রাজাকারের সন্তানরাই দলে প্রবেশ করেছে। বর্তমান বরুড়ার সংসদ সদস্য নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল একজন রাজাকারের সন্তান।’ এ কাথা বলার সঙ্গে সঙ্গে উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের অন্য সদস্যরা সমর্থন জানিয়ে সোরগোল সৃষ্টি করেন।

ওহাব আরও বলেন, ‘কারও মনে যদি কোনো দুঃখ আসে, আমার সঙ্গে মোকাবিলা করবেন। আমি জানি, আমার বয়স ৭৪ বছর। আমার বাবা বিয়ে করেছেন সংসদ সদস্য নজরুলের গ্রাম আদ্রায়। সেখানে আমার নানাবাড়ি। কুট্টু মিয়া (নজরুলের বাবা) একজন রাজাকার। আর সেই কুট্টু মিয়ার সন্তান নাসিমুল আলম নজরুল। প্রমাণ আছে, দলিল আছে, আসেন আমার সঙ্গে প্রটেস্ট করবেন? আমি প্রমাণ দেবো।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বরুড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ এন এম মইনুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন বরুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবরিনা আফরিন মুস্তফা, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবুল বাশার ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল মান্নান, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আলী মোহাম্মদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মফিজুর রহমান ও মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার।

এর আগে ২৬ মার্চ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুলের উপস্থিতিতে রাজাকারের সন্তান ও ভাতিজা বলে মন্তব্য করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান এ এন এম মইনুল ইসলাম। ওই বক্তব্যের ২ মিনিট ১২ সেকেন্ডের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়। এ নিয়ে কুমিল্লাজুড়ে বেশ আলোচনা সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

উপজেলা চেয়ারম্যান এ এন এম মইনুল ইসলাম তার বক্তব্যে বলেন, ‘বরুড়ার মাটিতে যার নেতৃত্বে রাজাকার-আলবদর-আলশামস বাহিনী গঠন করা হয়েছিল তিনি হলেন আদ্রা ইউনিয়নের বিতর্কিত কুট্টু মিয়া। কুট্টু মিয়ার ভাই সিএসপি অফিসার শামসুল আলম মিয়া, যার নাগরিকত্ব দেশবিরোধী অবস্থানের কারণে ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু বাতিল করেন। অথচ যাকে আজ প্রধান অতিথি করা হয়েছে তিনি আর কেউ নন, সেই কুট্টু মিয়ার ছেলে ও শামসুল আলম মিয়ার ভাতিজা নাছিমুল আলম চৌধুরী। যে স্বাধীনতাবিরোধীরা মা-বোনের ইজ্জত লুটেছে, ভাইদের পাখির মতো গুলি করে মেরেছে, শহীদদের রক্তে রঞ্জিত যাদের হাত, সেই রাজাকারপুত্রের হাতে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দেওয়া হলে একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে আমি এটা কীভাবে মেনে নেব?’

তিনি আরও বলেন, ‘বিষয়টি অবশ্যই সত্যি। তার চাচার নাগরিকত্ব বঙ্গবন্ধু বাতিলই করে দিয়েছেন। আমার বাবা মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন, সে কারণে এটি আমাদের নলেজে আছে। মুক্তিযোদ্ধা ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন কর্তৃক প্রকাশিত ‘এক সাগর রক্তের বিনিময়ে’ বইয়ের ৩৫ নম্বর পৃষ্ঠায় এর প্রমাণ আছে।’

এ বিষয়ে জানতে সংসদ সদস্য নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুলের মোবাইল নম্বরে একাধিকবার ফোন করেও বন্ধ পাওয়া যায়।
সূত্র-জা:নি

আর পড়তে পারেন