রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুসিক নির্বাচনে সদর দক্ষিণে নৌকার পরাজয়ে হতাশ নেতাকর্মীরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১১, ২০১৭
news-image

রকিবুল হাসান রকি, সদর দক্ষিণ ঃ
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কুমিল্লা-১০ আসনের এম. পি, বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের শত চেষ্টার পরও সদর দক্ষিণে ৯ ওয়ার্ডে নৌকার ভরাডুবি হয়েছে। এসব ওয়ার্ডের মোট ৩১ টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৮ টিতে নৌকা পরাজিত হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কুসিক নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমার নৌকাকে সদর দক্ষিণের ৯ টি ওয়ার্ডে বিজয়ী করতে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি লোটাস কামাল চেষ্টা চালিয়েছিলেন। কিন্তু মন্ত্রী হিসেবে নির্বাচনী এলাকায় প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা থাকায় নির্বাচনের আগে বেশ কিছু দিন ধরে সীমান্তবর্তী এলাকায় আগামী জাতীয় নির্বাচনের জন্য নৌকায় ভোট চেয়েছেন। এমনকি নিজ বাড়ীতে ওয়ার্ড ভিত্তিক দলীয় নেতা কর্মীদের নিয়ে দফায় দফায় মিটিং করেছেন। তফসিল ঘোষনার পর থেকে দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সহ- সভাপতি, সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও পরিকল্পনা মন্ত্রীর ছোট ভাই গোলাম সারওয়ারের নেতৃত্বে উপজেলা ও মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগের নেতারা প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে দলীয় মেয়র প্রার্থীকে নিয়ে উঠান বৈঠকসহ গণ সংযোগ করেন। পরিকল্পনা মন্ত্রীর কন্যা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের চেয়ারম্যান নাফিসা কামালও টানা ক’দিন সীমার পক্ষে নৌকার প্রচারণা করেছেন। কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি, সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের ভাইস- চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাবলু তফসিল ঘোষনা থেকে শুরু করে নির্বাচনের দিন পর্যন্ত নৌকার পক্ষে প্রচারণা চালিয়েছেন। এত প্রচারণার পরও নৌকার পরাজয় হয়েছে। এ পরাজয়ে হতাশ হয়ে পড়েছেন দলীয় নেতৃবৃন্দ। নির্বাচনী কেন্দ্রের সাথে জড়িতরা আজকের কুমিল্লাকে জানান, ১৯ নং ওয়ার্ডের ৩টি কেন্দ্রের মধ্যে নেউরা উচ্চ বিদ্যালয়ের মহিলা কেন্দ্রে নৌকা বিজয় হলেও পুরুষ কেন্দ্র রাজাপাড়া মুন্সী এম আলী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ধানের শীষ বিজয় হয়েছে। কেন্দ্র দুটিতে আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদের রেষারেষির কারনে নৌকা পরাজিত হয়েছে। ২০ নং ওয়ার্ডের উনাইসার করিম আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র ও দিশাবন্দ সরকারী আদর্শ বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকার বিজয় হয়েছে। এসব কেন্দ্রে জামায়াত-বিএনপি একাংশ সমর্থিত প্রার্থী ছিদ্দিকুর রহমান সুরুজও বিজয়ী হয়েছেন। দিশাবন্দ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও কাজীপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা পরাজিত হয়েছে। স্থানীয়দের দাবি, আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী আনোয়ার হোসেনকে বিজয়ী করার সমঝোতার কারণে কেন্দ্র দুটিতে বিএনপিকে ছাড় দেওয়া হয়ে থাকতে পারে। ২১ নং ওয়ার্ডের শাকতলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা বিজয়ী হয়েছে। কিন্তু বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামীলীগের নৌকার সাথে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী ঘুড়ি প্রতীক বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছে। উল্লেখ্য, সরকারী সিটি কলেজের ১টি কেন্দ্র স্থগিত হয়েছে। ২২নং ওয়ার্ডের হাজী আক্রাম উদ্দীন স্কুল এন্ড কলেজ কেন্দ্রে নৌকা বিজয়ী হয়েছে। আওয়ামীলীগ কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুল কাদের মজুমদার ভুলু তার নিজস্ব কেন্দ্রে পদুয়ার বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বিপুল ভোটে বিজয়ী হলেও নৌকা হেরেছে। দৈয়ারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উত্তর ও দক্ষিণ পার্শ্বের কেন্দ্রে নৌকা হেরেছে। মনোনয়ন দেওয়া থেকে শুরু করে দলীয় নেতা কর্মীদের রেষারেষি সমাধানের লক্ষ্যে পরিকল্পনা মন্ত্রী কয়েকবার দলীয় নেতা কর্মীদের সাথে বৈঠক করলেও কোন সমাধান হয়নি। বরং আওয়ামীলীগের একাংশ বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিল প্রার্থীদের সরাসরিভাবে সমর্থন করে গেছেন। যার কারণে নৌকা এবং আওয়ামীলীগের কাউন্সিলর প্রার্থী দুজনই পরাজিত হয়েছেন। ২৩ নং ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী আলমগীর হোসেন (ঘুড়ি প্রতীক) এর সাথে বিএনপি মেয়র প্রার্থী গোপন সমঝোতার অভিযোগ উঠেছে। এই ওয়ার্ডের সব কয়টি কেন্দ্রে নৌকা হারলেও আলমগীর হোসেন জয়ী হয়েছেন। বিশেষ করে বাতাবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামীলীগের অধিকাংশে ভোটাররাও ঘুড়ি মার্কায় প্যানেল মিলিয়ে ভোট দিয়েছেন। ২৪ নং ওয়ার্ডে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন সালমানপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পশ্চিম পার্শ্বের ভবন এবং পূর্ব পার্শ্বের কেন্দ্রে নৌকা বিজয়ী হয়েছে। অবশ্য কেন্দ্র দুটিতে নৌকার পাশাপাশি আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ফজল খানও বিজয়ী হয়েছেন। তবে ল্যাবরেটরী হাই স্কুল ও গন্ধমতী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা হেরেছে। কারন হিসেবে জানা যায়, দলীয় মনোনোয়ন ও জনপ্রিয়তা নিয়ে রেষারেষির কারণে ধানের শীষ বিজয়ী হয়েছে। ২৫ নং ওয়ার্ডের তারাপাইয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নৌকা হেরেছে, এসব কেন্দ্রে আওয়ালীগের দলীয় একাধিক কাউন্সিলর প্রার্থী থাকায় নিজ নিজ অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য বিএনপির সাথে সমঝোতার করার কারণে নৌকার পরাজয় হয়েছে।। ২৬ নং ওয়ার্ডে গোয়ালমতন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বল্লভপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা হেরেছে। তবে বিজয়ী কাউন্সিলর আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ন আহবায়ক আবদুস সাত্তার বিএনপি জামায়াত প্রার্থীদের সাথে সমঝোতা করে জয়লাভ করেছেন বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়। ২৭ নং ওয়ার্ডের চৌয়ারা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ধানের শীষ বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছে। অবশ্য গোলযোগের কারনে চৌয়ারা ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্র স্থগিত হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মহানগর দক্ষিণের প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা আজকের কুমিল্লাকে জানান, দলীয় কাউন্সিলর প্রার্থীদের জনপ্রিয়তা বিবেচনা না করে কিছু অযোগ্য ব্যক্তিদের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া নৌকার নেতা-কর্মীরা মানুষের ঘরে ঘরে না গিয়ে রাস্তায় মিছিল মিটিং করে জোয়ার দেখিয়েছে। এতে করে রাস্তায় বের হলে নৌকার জোয়ার দেখা গেছে। কিন্তু ঘরে ঘরে এ জোয়ার পৌঁছেনি। আবার দেখা গেছে নতুন বিএনপি- জামাায়াত থেকে আওয়ামীলীগে যোগ দেওয়া নেতা কর্মীরা নৌকার কার্ড গলায় ঝুলিয়ে ধানের শীষে ভোট দিতে সহযোগীতা করেছেন। যার কারণে সদর দক্ষিণে নৌকার পতন হয়েছে।

আর পড়তে পারেন