রবিবার, ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

চাঁদপুরে পাঁচ’শ বছরের পুরনো মসজিদের সন্ধান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৩০, ২০১৮
news-image

 

মাসুুদ হোসেন, চাঁদপুর :

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৫নং রামপুর ইউনিয়নে আনুমানিক পাঁচশত বছর পূর্বের সুলতানি আমালে নির্মিত ১ গুম্ভুজ বিশিষ্ট মসজিদের সন্ধান পাওয়া গেছে। প্রাচীন এই মসজিদটি দেখার জন্য প্রতিদিন ভিড় করছেন শতশত মানুষ। রামপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আল মামুন পাটওয়ারীর সহযোগিতায় গভীর জঙ্গল পরিষ্কার করে দৃশ্যমান করা হয় এ প্রাচীন স্থাপত্যটি।

গত বুধবার (২৯ আগস্ট) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও চাঁদপুর হাইমচর-৩ আসনের সংসদ সদস্য রামপুর ইউনিয়নের কৃতি সন্তান আলহাজ্ব ডাঃ দীপু মনি এমপির তথ্যমতে এবং নির্দেশনায় ইউপি চেয়ারম্যান ব্যক্তিগতভাবে ঐতিহাসিক পুরনো এ মসজিদটি দৃশ্যমান করার উদ্যোগ গ্রহন করেন। এদিন রাতে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। নিন্মে তাঁর দেয়া স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-

“প্রায় ৫০০ বছর পূর্বের সুলতানি আমালে নির্মিত ১ গুম্ভুজ বিশিষ্ট মসজিদের সন্ধান পাওয়া গেছেঃ চাঁদপুর সদর উপজেলাধীন ঐতিহ্যবাহী ৫নং রামপুর ইউনিয়নের ছোটসুন্দর গ্রামের তালুকদার বাড়ীর সম্মুখবাগে প্রায় ৫০০ বছর পূর্বে ধারনামতে সুলতানি আমালে নির্মিত ১ গুম্ভুজ বিশিষ্ট মসজিদের সন্ধান পাওয়া গেছে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ,সাবেক সফল পররাষ্ট্রমন্ত্রী, চাঁদপুরের উন্নয়নের রুপকার, মাটিও মানুষের নেত্রী এবং রামপুর ইউনিয়নের কৃতি সন্তান আলহাজ্ব ডাঃ দীপু মনি এমপির তর্থমতে এবং নিন্দেশনায় উক্ত মসজিদটির দৃশ্যমান করার জন্য আমি উদ্দোগ গ্রহণ করি।

পরবর্তীতে আমি স্ব-শরীরে ঐতিহাসিক মসজিদটি অবলোকন করি এবং মসজিদটির ভিতরে প্রবেশ করি। মসজিদটি ১ গুম্ভুজ বিশিষ্ট এবং মসজিদটি চিরাচরিতভাবে পূর্বমুখী অবস্থায় আছে। মসজিদটির দেয়ালঘেষে চারপাশে ৪টি ছোট মিম্বার রয়েছে, বাহিরের দৈর্ঘ্য (উত্তর-দক্ষিণ) মিম্বারসহ ১৬ ফুট এবং বাহিরের প্রস্থ (পূর্ব- পশ্চিম) ১৫ ফুট।

মসজিদটির ভিতরের দৈর্ঘ্য ৮ ফুট ১০ ইঞ্চি এবং প্রস্থ ৭ ফুট ৩ ইঞ্চি। মসজিদটির ১টি মেহরাব রয়েছে এবং দেয়ালে ছোট ছোট কয়েকটি খোঁপ রয়েছে। ধারনামতে পুরো মসজিদটি পোড়া ইট, বালি, চুনা এবং ছুরকী দিয়ে নির্মিত হয়েছে। এইরুপ ঐতিহাসিক একটি মসজিদ রামপুর ইউনিয়নে রয়েছে বিধায় আমরা রামপুর ইউনিয়নবাসী সত্যিই অনেক গর্বিত।

আমি আশা করি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রত্নতত্ত¦ অধিদপ্তর উক্ত মসজিদটি সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসেবে ঘোষনা করে তা সংরক্ষন এবং সংস্কারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।

আর পড়তে পারেন