বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

চান্দিনার মহিচাইলে নৌকার গলা কাঁটা এখন বিদ্রোহী প্রার্থী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৭, ২০২২
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলার মহিচাইল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আবু মুছা মজুমদারকে  আ’লীগ দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। এদিকে স্থানীয় সাংসদ ডা. প্রাণ গোপাল সমর্থিত গ্রুপের নেতা  এ.কে.এম রুহুল আমিন  বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। ফলে নৌকার প্রার্থীর গলা কাটা হিসেবে আর্বিভূত হয়েছেন এই বিদ্রোহী প্রার্থী রুহুল আমিন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, এমপি আলী আশরাফের মৃত্যুর পর চান্দিনা উপজেলা আ’লীগ এখন দুভাগে বিভক্ত। এক গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন প্রয়াত সাংসদ আলী আশরাফের ছেলে  উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মুন্তাকিম আশরাফ টিটু।  অপর গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বর্তমান সাংসদ ডা. প্রাণ গোপাল । বিগত কয়েক মাস আগে অনুষ্ঠিত চান্দিনার ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীদের ভরাডুবি হয়। দলীয় কোন্দলের ফলে নৌকার প্রার্থীরা পরাজিত হয় বলে স্থানীয় একাদিক সূত্র দাবি করে। ওই নির্বাচনে স্থানীয় সাংসদ ডা. প্রাণ গোপাল গ্রুপের নেতৃবৃন্দ  যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন তারাই জয়লাভ করেন। স্থানীয় সূত্রমতে, বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিজয়ী হওয়ার পিছনে এমপি প্রাণ গোপালের সমর্থন ছিল। নৌকার মনোনয়ন যারা পেয়েছিলেন তারা মুন্তাকিম আশরাফ টিটুর সমর্থিত গ্রুপের নেতৃবৃন্দ ছিলেন।

মহিচাইল নির্বাচনেও নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন টিটুর সমর্থিত আবু মুছা মজুমদার। অপর দিকে বিদ্রোহী প্রার্থী রুহুল আমিন এমপি প্রাণ গোপালের লোক। ফলে বিগত ইউপি নির্বাচনের মত দলীয় কোন্দলে নৌকার ভরাডুবি হতে পারে বলে স্থানীয় নেতাকর্মীরা মনে করছেন।

মহিচাইল ইউনিয়ন এমপি প্রাণ গোপালের বাড়ি। ওই ইউনিয়ন এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদের বাড়িও। ফলে এই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ। এই নির্বাচনে এলডিপিরও একজন প্রার্থী রয়েছেন । চান্দিনা উপজেলা গণতান্ত্রিক স্বেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি মু. সাখাওয়াত হুসাইন সাক্কু এলডিপি দলের প্রার্থী। নৌকা ও বিদ্রোহী প্রার্থীর লড়াইয়ে লাভবান হতে পারে এলডিপির প্রার্থীর।

স্থানীয় একাধিক আওয়ামীলীগ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, দলীয় কোন্দল নিরসন না হলে নৌকার প্রার্থীর ভরাডুবি হতে পারে। বিদ্রোহী প্রার্থী স্থানীয় সাংসদের লোক। এছাড়া এখানে এলডিপির প্রার্থীও রয়েছেন। ফলে ত্রিমুখী লড়াইয়ে নৌকার প্রার্থী সংকটে পড়তে পারে।

এই বিষয়ে  জানতে  স্থানীয় সাংসদ ডা. প্রাণ গোপাল ও উপজেলা আ’লীগের সভাপতি মুন্তাকিম আশরাফ টিটুর মুঠোফোনে কল দিলে মুঠোফোন সংযোগে তাদের পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য যে, ২০১৭ সালের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী আবু মুছা মজুমদার সর্বমোট ৩ হাজার ৬১২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এ.কে.এম রুহুল আমিন (আনারস) পেয়েছিলেন সর্বমোট ৩ হাজার ৩০৫ ভোট, মো. কামরুল হাসান ভূইয়া (ধানের শীষ) পেয়েছিলেন সর্বমোট ২ হাজার ৭৭৮ ভোট।

আর পড়তে পারেন