রবিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

চান্দিনা পৌর এলাকায় ৫ মাস ধরে বিশুদ্ধ পানির সংকট; সেবা বঞ্চিত ৭ শত গ্রাহক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৮, ২০২২
news-image

 

চান্দিনা প্রতিনিধি:

কুমিল্লার চান্দিনা পৌরসভা এলাকায় গত পাঁচ মাস ধরে পানি সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। দীর্ঘ দিন বিশুদ্ধ সুপেয় পানির সংকট থাকলেও তা নিরসনে তেমন কোন উদ্যোগ নেয়নি পৌর কর্তৃপক্ষ। ফলে ভোগান্তিতে রয়েছে পৌরবাসী। বিশুদ্ধ পানির সংকটে বিভিন্ন রোগ-বালাইয়ের হুমকির মুখে রয়েছে জনজীবন। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে দেখার কেউ নেই।

সরজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পৌরসভার বাগানবাড়ী, ধানসিঁড়ি আবাসিক এলাকা এবং বাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ ও জনবহুল এলাকাগুলোতে গত মার্চ মাসের ১ তারিখ থেকেই পানি সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। পৌর এলাকার ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডে বিশুদ্ধ পানির গ্রাহক বেশি। এছাড়া ১ ও ২নং ওয়ার্ডেও বেশ কিছু পানির সংযোগ রয়েছে। বর্তমানে ১শত ৯২ জন সচল গ্রাহক রয়েছে, যারা নিয়মিত পানির বিল পরিশোধ করেন। এছাড়া ৭ শত গ্রাহক রয়েছে যারা পানির সংযোগ লাইনের ত্রæটির কারণে বিশুদ্ধ পানির সেবা থেকে বঞ্চিত। লাইনের ত্রæটি সমাধানেও পৌরকর্তৃপক্ষ কোন উদ্যোগ নিচ্ছে না।

চান্দিনা বাজারের বেশিরভাগ হোটেল-রেস্টুরেন্ট, মিষ্টি দোকান, চা দোকান গুলো পৌরসভা সরবরাহকৃত পানির উপর নির্ভরশীল। পানি সরবরাহ বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন এসব ব্যবসায়ীরা।

এদিকে পৌরসভার ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টেটিও নানা সমস্যায় জর্জরিত। পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, পৌরসভার ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টের দুটি পাম্প হাউজ রয়েছে। এর মধ্যে চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ সংলগ্ন একটি এবং অপরটি বড়গোবিন্দপুর এলাকায় অবস্থিত। দুইটি পাম্প হাউসেই বর্তমানে পানি উত্তোলন বন্ধ রয়েছে। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে চুরি হয়ে যাচ্ছে মালামাল। নৈশ প্রহরী না থাকায় বারবার চুরির ঘটনা ঘটছে।

অপরদিকে শনিবার (৬ আগস্ট) দুপুরে বাগান বাড়ি মালিক সোসাইটির উদ্যোগে বাগান বাড়ি সড়কে স্থানীয় বিশুদ্ধ পানি সেবা বঞ্চিত গ্রাহকরা জড়ো হয়। এসময় চান্দিনা পৌর কর্তৃপক্ষের নিকট দ্রæত বিশুদ্ধ পানি সরবারাহের দাবি জানান তারা। এসময় বক্তৃতা করেন- বাগানবাড়ি মালিক এক্য পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক এনায়েত উল্লাহ ভূইয়া, সাধারণ সম্পাদক মো. কবির মজুমদার, গ্রাহক মো. ইসমাইল হোসেন, মো. শাহ আলম, শহিদ উল্লাহ, মো. নূরে আলম, মো. মাসুদ আগার, মো. আবদুল কুদ্দুস, মো. সফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এব্যাপারে পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইউসুফ আলী বলেন- ‘পৌরসভার পাম্প হাউজের মিটার ও ট্রান্সফর্মার একাধিকবার চুরি হয়েছে। এই কারণে পানি সরবরাহ বন্ধ রয়েছে।’ দীর্ঘদিন ধরে মানুষ পানির সেবা বঞ্চিত হচ্ছে বলে স্বীকার করে তিনি বলেন- ‘আমরা কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ কে চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানিয়েছি। তারা একটি হিসাব দিয়েছে। সোমবার (৮ আগস্ট) আমরা টাকা জমা দিব। আশা করি দ্রæত বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়ে যাবো। এই সপ্তাহের মধ্যে আমরা পানি সরবরাহ কার্যক্রম শুরু করবো।’

লাইনের  ত্রুুটির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন- এটি ইঞ্জিনিয়ার এর বিষয়। তিনি বলতে পারবেন।

এবিষয়ে পৌরসভার উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. আতাউল মাসুদ বলেন- ‘দুইটি পাম্প হাউসে একাধিকবার মিটার, ট্রান্সফর্মার ও মালামাল চুরি হয়েছে। আমরা পানি সরবরাহ কার্যক্রম চালু করতে কাজ করে যাচ্ছি।’ তিনি আরও জানান, পাম্প হাউসগুলোতে নৈশ প্রহরী না থাকায় বারবার চুরি হচ্ছে।

এবিষয়ে জানতে চান্দিনা পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মো. শওকত হোসেন ভূইয়ার মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেন নি।

আর পড়তে পারেন