রবিবার, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

জলাবদ্ধতায় বিপর্যস্ত কুমিল্লাবাসী; কেড়ে নিতে পারে তরতাজা প্রাণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৭, ২০২১
news-image

 

জলাবদ্ধতা কুমিল্লাবাসীর বহুদিনের সমস্যা। অল্প বৃষ্টিতেই রাস্তাঘাট ডুবে যায় এই নগরীর এবং দিন দিন বাড়ছে জলাবদ্ধতা । প্রতিবার কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে সব প্রার্থীর প্রথম এজেন্ডা জলাবদ্ধতা নিরসন থাকলেও এখনও এই সমস্যার সমাধান হয়নি । বরং অপর্যাপ্ত ড্রেনেজ সিস্টেম, ম্যানহোলের ঢাকনা না থাকা, উন্মুক্ত নালা, গর্ত ইত্যাদিতে শহর ছেয়ে আছে ৷ ফলে বৃষ্টির পানিতে এসব তলিয়ে যাওয়ার দরুন এসব মৃত্যুকূপে পরিনত হচ্ছে এবং দূর্ঘটনায় ও ঘটছে প্রতিনিয়ত ৷ এ সমস্যা দ্রুত দূর না হলে চট্রগ্রাম মহানগরীর মত কুমিল্লা মহানগরীতেও যেতে পারে মানুষের তাজা প্রাণ।তাই দ্রুত এই সমস্যার সমাধান আবশ্যক।

এখানে উল্লেখ্য যে, ২৫ আগষ্ট বুধবার চট্টগ্রামের মুরাদপুরে নালায় ডুবে যাওয়া ব্যবসায়ীর খোঁজ মেলেনি এখনও। তাকে খুঁজতে খালের বিভিন্ন অংশে উদ্ধারকাজ চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস। গত ২৪ আগষ্ট মঙ্গলবার মধ্যরাতে শুরু হওয়া বৃষ্টির কারণে চট্রগ্রাম নগরীতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ২৫ আগষ্ট বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এলাকাবাসী জানান সালেহ আহমেদ চকবাজার থেকে ফটিকছড়ির মাইজভান্ডারি দরবার শরীফে যাচ্ছিলেন। পথে ওই জলাবদ্ধ নালার পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় অসাবধানতাবশত পড়ে নিখোঁজ হন তিনি।

এদিকে কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতেই কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন সড়কে তীব্র জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে যায় । বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে নগরীর জনজীবন।

নগরীর বাদুড়তলা এলাকার শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত সড়ক স্টেডিয়াম এলাকা, বাগিচাগাঁও জেলা পরিষদ বাংলো সড়ক, ডায়াবেটিক হাসপাতাল, জিলা স্কুল সড়ক, বিষ্ণুপুর, রেসকোর্স, অশোকতলা, বিসিক শিল্পনগর, মনোহরপুর, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের নওয়াব ফয়জুন্নেছা ছাত্রীনিবাস ও কলেজের সব ভবন, কুমিল্লা সরকারি মহিলা কলেজ, কুমিল্লা টাউন হল মাঠ, কুমিল্লা ক্লাব, ডিসি রোড, দক্ষিণ চর্থা, কালিয়াজুরি ও চকবাজার, ছাতিপট্টি, লাকসাম রোড, নজরুল অ্যাভিনিউ, ঠাকুরপাড়া ও রামমালা সড়ক এলাকাসহ অনেক এলাকা বৃষ্টির পানিতে থই থই করে। সড়কের দুই পাশের নালা উপচে পানি শহর ও শহরতলীর শত শত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসা-বাড়িতে পানি ঢুকে পড়ে ।এতে নগরীর জনজীবন নেমে আসে দুর্ভোগ ৷

তাছাড়াও, সড়কে খানাখন্দ থাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। এমন খানাখন্দে চট্রগ্রাম মহানগরীর ন্যায় প্রাণনাশের উচ্চ ঝুকিতে রয়েছে কুমিল্লা মহানগরী ৷ফলে এমন ঘটনার পূনরাবৃত্তি হওয়া অস্বাভিক কিছু নয় ৷

তাই দ্রুত এই সমস্যার সমাধান না হলে এই বিপর্যয় ঠেকানো যাবে না। বর্তমানে সমস্যাটি আমাদের সতর্ক সংকেত দিয়ে যাচ্ছে, যদি কর্তৃপক্ষ এবং নাগরিকরা সতর্কতা ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হন তাহলে কুমিল্লাও খবরের শিরোনাম হতে বাধ্য হবে ৷

লেখকঃ মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক, শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ৷

আর পড়তে পারেন